[Hallowed Ground
by Martina Dansereau]

[কবিতাটা খুব বেশি পছন্দ হওয়ায় ব্যার্থ অনুবাদ প্রচেষ্টা…… জানি কবিতার অনুবাদ হয় না… খুব কম অনুবাদকই সফল… তবুও ইচ্ছে হল তাই। ]

তুমি ছড়িয়ে আছো মেঝেজুড়ে, যেন বিছিয়ে গিয়ে,
তার হাত তোমার ত্বকের পাতায় মসৃন গদ্য লিখে যায়।
তোমার শরীরের ভাঁজে ভাঁজে যেন একেকটা মহাদেশ।
সে আছে তোমার উপরে যেন পুরো পৃথিবী জুড়ে,
এবং তোমার চোখে লুকোনো শহরগুলোর জন্য
একটা মূহুর্তও সে দিতে চায় না।

তার বদলে

সে তোমার মেরূদন্ডের পর্বতমালা,
পাকস্থলির শুস্ক সমতল মরু আর
স্ফীত স্তনযুগলের তটভুমি অন্বেষণে ব্যস্ত,
এরপর সে পাঁজরের খাঁজের জলাভূমি পেরিয়ে
নদীর স্রোত ধরে আস্তে আস্তে নেমে আসতে থাকে,
যতক্ষণ না তোমার গুপ্ত গহ্বরে পৌছায়।

সেখানে সে নিমজ্জিত হয়, নিমগ্ন হয়… ভালোবাসা ছাড়াই…
যেন সে তোমার ভাঁজগুলো ছিঁড়েখুড়ে ফেলবে
কোন এক গুপ্তধনের আশায়।
(তার নিশ্বাসে তোমার স্ফুলিঙ্গ নিভে যায় যখন
তার ঠোঁটগুলো তোমার গুলোকে পিষে, পুড়িয়ে মাটিতে মিশিয়ে দেয়।
তার থাবা তোমার স্ফুলিঙ নিভিয়ে দেয় যখন
তার মুখ তোমার থেকে সরে যায় আর সে তোমাকে মাটিতে মিশিয়ে দেয়।
তোমার চোখে শহর নেই!
সেখানে এখন শুধুই ধ্বংসস্তুপ!)

এরপর…
এরপর লোকে তোমারদিকে কলঙ্কিতের মত তাকায়,
আর তোমার মনে হতে থাকে তোমার দেহটা ফেলে রেখে তুমি হেটে যাচ্ছ;
ওটা আর তোমার নেই,
যখন থেকে সে সেটা খালি ক্যানভাসের মত ছুড়ে দিয়ে চলে গেল
আর তার তুলিটা সে তোমার পায়ের ভাঁজের
রঙের আধারে ডুবিয়ে গেল।

তোমার সুন্দর শরীর ছিল যুদ্ধক্ষেত্র, না-মানুষী জমিন,
কিন্তু সে কাঁটাতারের বেড়া টপকে এল সেখানে…
আর এখন
তার মতই বন্দুকওলা পুরুষেরা যারা অনুমতি ছাড়াই
যাচ্ছেতাই করে বেড়ায়, যারা অবরোধ করে এবং
কাঠের খুটি দিয়ে নিজেদের ক্ষেত্র দখলের দাবি করে,
আর থুতুর মতন জিভ থেকে আগুন ছোটায়।
তাদের হাত থেকে বাঁচাতে তুমি
তোমার দেহকে তুমি যুদ্ধকালীন আশ্রয় বানাতে চাও……

তুমি এক মন্দিরের মতন – না,
তুমি জেরুযালেমের দেয়ালগুলোর মতন ক্ষুদ্র নও…
এবং সে যদি হাটু মুড়ে বসার বদলে তোমার বেদি ধ্বংস করে দেয়
তবে তাকে মুক্ত করার কোন প্রার্থনা কোন পৃথিবীতেই নেই।

তুমি হেরে গিয়ে মেনে নিতে শিখেছ কারন
কোন এক কারনে ‘না’ এর উচ্চারন ‘হ্যাঁ’ এর মতই, কিন্তু চোখ মেলে দেখ
ওদের বর্ণগুলো কিন্তু আলাদা!
তোমাকে শেখানো হয়েছে যে নিজেকে বিলিয়ে দিয়ে মেনে নেয়া তোমার কর্তব্য,
কিন্তু
তার বদলে তোমার দেহটাকে ফিরিয়ে নাও:
একে তুমি পুরোপুরি গ্রহন কর এবং এক পতাকার মত উড়িয়ে দাও যার জন্যে যুদ্ধে তোমার দ্বিধা নেই
যে যাই বলুক না কেন এ দেহ তোমার,
তাই যখন তারা একে ছিড়েফুড়ে দিতে চায়
রক্ত ঝরাও এর জন্য……

তোমার ভেতরে এক জলের আধার।
তোমার লজ্জার দেবীকে সে জলে বিসর্জন দাও
কারন
তোমার লজ্জিত হবার কিছু নেই…
তুমি ভেঙে যাও নি,
তোমার কাছ থেকে কেড়ে নেবার মত তার কিছুই নেই।
তোমার শরীরের ভাঁজের তৈরি মহাদেশ আর
কেউই পুরো পৃথিবী জুড়ে বিস্তৃত হতে পারে না।

যখন সে তোমায় মেঝেতে লেপ্টে দিতে চায়
আর ছুয়ে ছুয়ে অধিকার করে নিতে চায় তোমার দেহের প্রতিইঞ্চি,
যখন সে তোমায় তার বুলেট গিলিয়ে দেবার চেষ্টা চালায়,
তুমিই বন্দুক হও: আগুন আর রক্তের বন্যায় সে গুলি তাকেই ছুড়ে দাও
আর যখন সে তার ঠোঁট দিয়ে তোমায় লুটে নিতে চায় তখন তাকে
তুমি ভস্মীভূত কর…

না;
তোমার চোখদুটো ধ্বংসস্তুপ নয়;
তারা আপাদমস্তক অস্ত্রসজ্জিত বিস্তৃত নগর…

[original poetry
Hallowed Ground]

[14 বার পঠিত]