কপ০০

” যারা রাজনীতির সাথে ধর্মের সম্পর্ক নেই বলে দাবী করেন তারা ধর্ম জিনিষটা যে কি সেটাই বোঝেন না। ” – মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী

যারা আমার ধর্ম নিয়ে এলার্জীর কথা জানেন তারা এর মধ্যেই হয়তো এই লেখার শিরোনাম পড়ে কিঞ্চিত ভুরু কুচকাবেন । শুধু ধর্ম নয় , রাজনীতি , লিঙ্গনীতি তথা নৈতিকতার কচকচানী সহ বস্তাপঁচা দর্শনে ভরা বিষাক্ত রাজনৈতিক ‘শুদ্ধতাময়’ লেখালেখি কিংবা বকবকানিতে আমার ভীষণ এলার্জী আছে এবং আমাকে ‘ইম্পিরিক্যালি’ পর্যবেক্ষন করার অভিজ্ঞতা যাদের আছে , তারা এটা জানেন। আমি অবশ্য পয়সা কড়ি এবং আদিমতা নিয়ে একটু আলাদা নীতি অবলম্বন করি। সেখানে কথা (লেখা ?) কম কাজ বেশী- এই নীতি আমার অধিকতর পছন্দ ! তাহলে এই যে, কি যেন কি এক নতুন এক ধর্ম নিয়ে লিখছি ! আমি কি তাহলে আমার ‘সংশপ্তকতাবাদ’ থেকে সরে আসলাম ? আমার নিজের নীতি বিসর্জন দিয়ে দিলাম ? হতে পারে। নীতিতে পারদের মত তারল্য আমার কাছে ভালোই লাগে। আর বিরক্ত করবো না। যে কারনে আমার এই লেখা সেই প্রসঙ্গে এবার আসা যাক।

ইন্টারনেটে ফাইল শেয়ার করা নতুন কিছু নয় যাকে দুর্মুখেরা ‘ ইন্টারনেট পাইরেসি’ বলে থাকেন। টরেন্টে জীবনে একবারও বৈধ-অবৈধ দু একটা ফাইল শেয়ার অথবা ডাউনলোড করেননি এমন একজনের সাক্ষাৎ পাওয়া অন্তত ‘ ইন্টারনেট-শিক্ষিতদের’ মাঝে পাওয়া আজকাল দুষ্কর। তবে ঘটনাচক্রে, আপনি যদি সেই বিরল ‘নন ডাউনলোডস বোরিংগোস’ প্রজাতির কেউ হয়ে থাকেন , তাহলে এখনই আমার বিপ্লবী সেলাম গ্রহন করুন। কপিরাইট পাইরেসী একটা বিতর্কিত বিষয়। যারা কপিরাইটের সংরক্ষক তাদের জন্য নিঃসন্দেহে এটা একটা বেদনাদায়ক বিষয়। সংগীত , চলচ্চিত্র , বই হোক কিংবা সফ্টওয়ারই হোক – অনেক কষ্ট করে সময় এবং অর্থ ব্যয় করার পর এসব পন্য বাজারে আসে। কিছু মানুষ মাউসের এক ক্লিকে মুহুর্তের মধ্যে এসব পন্য বিনা পয়সায় কোটি কোটি মানুষের কাছে পৌছে দিচ্ছে । সরকার এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্হারাও বসে নেই। ফাইল শেয়ারিং বন্ধে দেশে দেশে নিত্য নতুন আইন যেমন, Stop Online Piracy Act (SOPA) বানানো হচ্ছে , মামলা মোকদ্দমাও হর হামেশা ঠুকে দেয়া হচ্ছে।

সবাই যে কপিরাইট পাইরেসীর বিপক্ষে এমনটাও নয়। এই ফাইল শেয়ারে নতুন মাত্রা এনে দিয়েছে , সফ্টওয়ার দস্যুদের মক্কা বলে পরিচিত ‘ দ্য পাইরেট বে’ যাদের সমর্থনে কিনা আবার পৃথিবীর বেশ কয়েকটি দেশে ‘পাইরেট পার্টি’ নামে সক্রিয় রাজনৈতিক দলও আছে। শুধু তাই নয় এরা তাদের নিজ নিজ দেশে নির্বাচনেও অংশ নিয়েছে। এদের মূল উদ্দেশ্য অবাধে ফাইল শেয়ার করার আইনগত অধিকার নিশ্চিত করা। রাজনীতি থাকবে কিন্তু ধর্ম থাকবে না – এ কি করে হয় ?

এবার একটা খবর দিয়ে শেষ করি । মাত্র কয়েকদিন আগে সুইডিশ সরকার একটা নতুন ধর্মকে আনুষ্ঠানিক সরকারী স্বীকৃতি দিয়েছে। ধর্মটার নাম ‘কপিমিজম’ । এ ধর্মে ইন্টারনেটে ফাইল শেয়ার (পড়ুন পাইরেসি! ) করাকে পবিত্র অধিকার এবং ধর্মীয় প্রার্থনার সমতুল্য বলে গণ্য করা হয় । ধর্মটার প্রতীক হিসেবে নেয়া হয়েছে CTRL+C এবং CTRL+V । এ ধর্মের প্রবর্তক ১৯ বছর বয়সী দর্শনের ছাত্র ইসাক গেরসন যিনি জাতিতে একজন সুইডিশ !!

[9 বার পঠিত]

এই লেখাটি শেয়ার করুন:
0