বাংলাদেশ একটা অত্যন্ত জনবহুল দেশ। মনে হয় গোটা বিশ্বে সবচাইতে বেশী জন ঘনত্বের দেশ। অত্যন্ত ছোট এ দেশটির আয়তন মাত্র ১,৪৩,৯৯৮ বর্গ কিলোমিটার কিন্তু জনসংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১৭ কোটি অর্থাৎ সরল পাটিগনিতের হিসাবে ১,১৮০ জন /বর্গকিলোমিটার। এখানে শহর বন্দর গ্রাম গঞ্জ রাস্তা ঘাট হাট বাজার সর্বত্র শুধু মানুষ আর মানুষ । মানুষ ছাড়া আর কিছুই নজরে পড়ে না। পৃথিবীর সবচাইতে বেশী জনঘনত্বের দেশের একটা তালিকা দেয়া হলো নিচে-

২০০৯ সালের সর্বশেষ জরীপ অনুযায়ী( বিশ্ব ব্যপী ক্রম অবস্থানের ভিত্তিতে)

১.ম্যাকাও- ১৮,৫৩৪ জন/বর্গ কি.মি
২.মনাকো-১৬,৯২৩ জন/ বর্গ কি.মি.
৩.সিঙ্গাপুর- ৭,০২২ জন/বর্গ কি.মি.
৪.হংকং- ৬,৩৪৮ জন/বর্গ কি. মি.
৫.জিব্রাল্টার(ইউ.কে.)- ৪,৫৫৮ জন/বর্গ কি.মি.
৬.ভ্যাটিকান সিটি- ১,৮৭৭ জন/ বর্গ কি.মি.
৭.মাল্টা -১,৩১৭ জন/বর্গ কি. মি.
৮.বারমুডা-১,২২৬ জন/ বর্গ কি. মি.
৯.বাংলাদেশ- ১,১২৬ জন/ বর্গ কি. মি.

৩২. ভারত- ৩৬২ জন/ বর্গ কি.মি.
৭৮. চীন- ১৩৯ জন/বর্গ কি.মি.
১৭৮. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র- ৩১.৬২ জন/বর্গ কি.মি.
২২৮. কানাডা- ৩.৩৭ জন/ বর্গ কি. মি.
২৩৩. অষ্ট্রেলিয়া- ২.৯২ জন/ বর্গ কি. মি.

উপরোক্ত তালিকা থেকে বাংলাদেশের ভয়াবহ অবস্থা সহজেই বোঝা যায়। বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে নবম। কিন্তু তার আগের যে দেশগুলো হলো নগর রাষ্ট্র। ম্যাকাও, মনাকো, সিঙ্গাপুর, হংকং সহ অন্য দেশগুলো এরা সবাই কিন্তু নগর রাষ্ট্র। মাল্টা ও বারমুডা ঠিক নগর রাষ্ট্র না হলেও দ্বীপ রাষ্ট্র যারা পর্যটনের জন্য বিখ্যাত। অর্থাৎ এসব দেশের মূল আয়ের উৎস হলো পর্যটন। পর্যটন কেন্দ্রিক দ্বীপ রাষ্ট্র হওয়ার কারনে এখানে জন ঘনত্ব বেশী। একটা নগর রাষ্ট্রের জনসংখ্যার ঘনত্ব একটা সাধারন দেশের ঘনত্বের চাইতে বেশী হবে সেটাই স্বাভাবিক। বাংলাদেশ কোন নগর রাষ্ট্র নয় অথচ এর ঘনত্ব হলো ১,১২৬ জন/প্রতি বর্গ কি.মি. (মোট জনসংখ্যা ১৬২.২ মিলিয়ন ধরে), কিন্তু আসলে হওয়া উচিত ১,১৮০ জন সরল পাটিগনিতের হিসাবে।বিশ্বে সবচাইতে বেশী মানুষ বাস করে চীন ও ভারতে যাদের জনসংখ্যা যথাক্রমে ১৩৪ কোটি ও ১২০ কোটি অথচ তাদের দেশের জনঘনত্ব মাত্র যথাক্রমে ১৩৯ ও ৩৬২ জন প্রতি বর্গ কি. মি. এ। যদি বাংলাদেশের সমান জন ঘনত্ব চীন ও ভারতে হতো তাহলে তাদের দেশের জনসংখ্যা দাড়াত যথাক্রমে- ১০৮৫.৫ কোটি ও ৩৭৩ কোটি । বর্তমানে পৃথিবীর শুধু স্থলভাগে বসবাসকারী জনসংখ্যার গড় ঘনত্ব হলো -৫১,এন্টার্কটিকা মহাদেশকে বাদ দিয়ে আর মোট জনসংখ্যা হলো ৬,৮৮ কোটি প্রায় (২০১০ সালের প্রাক্কলন অনুযায়ী)। যদি গোটা পৃথিবীতে বাংলাদেশের মত জন ঘনত্ব থাকত তাহলে গোটা দুনিয়ার লোক সংখ্যা দাড়াত-প্রায় ১৫,২০০ কোটি। তাই সে হিসাবে দেশ রাষ্ট্র হিসাবে বাংলাদেশের জন ঘনত্ব তাবৎ দুনিয়াতে সবচাইতে বেশী এটা নি:সন্দেহে বলা যায়। শুধুমাত্র এ পরিসংখ্যান থেকে বাংলাদেশের জন ঘনত্বের ভয়াবহ চিত্রটা বোঝা যায়।

বাংলাদেশে যে সত্যিকার অর্থে একটা জন বিস্ফোরন ঘটেছে তা আর কাউকে দেখিয়ে দেয়ার দরকার নেই। বাংলাদেশের আনাচে কানাচে সর্বত্র মানুষের যে বিপুল সমাগম দেখা যায় পৃথিবীর অন্য কোন প্রান্তে তা দেখা যায় না। বঙ্গোপসাগরের মধ্যে জেগে ওঠা চরে যেখানে বসবাস করার ন্যুনতম কোন সুযোগ সুবিধা নেই সেখানেও বাস করছে হাজার হাজার মানুষ। সেখানে নেই কোন সুপেয় পানি, স্বাস্থ্য পরিসেবা, স্কুল, যোগাযোগ ব্যবস্থা, রাস্তা ঘাট কিছুই নেই। মানুষ যে কিভাবে সেখানে বসবাস করে তা স্বচক্ষে না দেখলে কারোরই বিশ্বাস হবে না। যদি কোন ঘুর্ণিঝড় সেসব অঞ্চলে আঘাত হানে মানুষ সেখানে অকাতরে মারা যায় মশা মাছির মত। মানুষের জীবনের যে কানা কড়িও মূল্য নেই তা বোঝা যায় এসব যায়গায় গেলে। প্রশ্ন হলো- কেন এহেন দুর্গম অঞ্চলে মানুষ বসবাস করছে? উত্তর হলো- এদের বসবাসের আর কোন যায়গা নেই। এ বিরাট পৃথিবীতে ছোট একটা কুড়ে ঘর বানিয়ে বাস করার কোন যায়গা তাদের নেই আর তাই তারা জীবনের ঝুকি নিয়ে এসব প্রত্যন্ত চরাঞ্চলে বসবাস করে। বেশীদুর যাওয়ার দরকার নেই। ঢাকার মধ্যে বিশেষ করে রেল লাইনের পাশে যেভাবে ঝুপড়ি ঘর বেধে হাজার হাজার মানুষ বসবাস করে, তাদের নেই কোন পয়: নিষ্কাশন ব্যবস্থা, সুপেয় পানি। দেখা যায়- যেসব জায়গায় ময়লা জমা করে নিচু জমি ভরাট করা হচ্ছে তার পাশেই মানুষ বস্তি ঘর বেধে ভয়াবহ দুর্গন্ধের মধ্যে বসবাস করছে। দেখা যায় , দুর্গন্ধ এতটাই প্রকট যে এমন কি বেওয়ারিশ কুকুর পর্যন্ত সেখানে যায় না , অথচ মানুষ দিব্যি সেখানে বসবাস করছে। এর চাইতে আর বেশী কিভাবে মানুষ অপমানিত হতে পারে ? জন ঘনত্বের চাপ ঢাকা নগরীতে এতটাই ভয়াবহ আর মারাত্মক যে রাজ পথের দুধারে যে ফুটপাথ আছে তা গভীর রাত পর্যন্ত জন স্রোতে ব্যস্ত থাকে, সে ফুটপাথ দিয়ে ভালভাবে হেটে যাওয়া প্রায় দু:সাধ্য। এছাড়া গভীর রাত পর্যন্ত গোটা নগরী ভয়াবহ যানজটে আটকে থাকে। যে নগরীতে বড়জোর ৩০ লাখ লোক কোন মতে ভালভাবে বাস করতে পারে সেখানে স্থায়ীভাবে বাস করছে ১কোটি ৩০ লাখ লোক মানে বাড়তি ১ কোটি লোক ঢাকা নগরীতে বাস করে। এ ছাড়া প্রতি দিনে এ নগরীতে প্রায় ২০ থেকে ৩০ লাখ লোক আসে আবার তারা কাজ শেষে ফিরে যায়। অর্থাৎ ১ কোটি ৩০ লাখ অতিরিক্ত লোক প্রতিদিন ঢাকা নগরীতে চাপ প্রয়োগ করছে। এ অতিরিক্ত লোকের জন্য নেই ভাল থাকার ঘর , রাস্তা ঘাট , স্বাস্থ্য পরিসেবা , খাবার পানি । পরন্তু এরা ৩০ লাখ লোকের জন্য বরাদ্ধ সব কিছুতে ভাগ বসিয়ে তাদের জীবনটাও দুর্বিসহ করে তুলেছে যে কারনে ঢাকা মহানগরী এখন তাবৎ দুনিয়ার সবচাইতে বাজে একটা নগরীতে পরিনত হয়েছে। উন্নত বিশ্বের লোকজন তো দুরের কথা , খোদ প্রবাসী বাংলাদেশীরা যদি একবার ঢাকা নগরীতে বেড়াতে আসে তো ফিরে গিয়ে আর কখনো বেড়াতে আসার কথা চিন্তা করে না। ঢাকার গুলশান, বনানী, বারিধারা ইত্যাদি অভিজাত অঞ্চলে এক সময় বিরাজ করত শুনশান নিরবতা , ছিল সত্যিকার আভিজাত্য। কিন্তু বর্তমানে সেসব অঞ্চলও সব সময় যান জটে আটকে থাকে, যত্র তত্র বহুতল ভবন নির্মান করে সেখানকার সৌন্দর্য অনেক আগেই নষ্ট হয়ে গেছে। পৃথিবীর সব দেশেই উন্নতির সাথে সাথে দেখা যায়, অন্তত নগরীগুলোকে একটা পরিকল্পনার মাধ্যমে সাজাতে চেষ্টা করে। সেদিক দিয়ে চিন্তা করলে আমাদের ঢাকা মহানগরী হবে অপরিকল্পিত নগরীর মধ্যে গোটা বিশ্বে চ্যাম্পিয়ন। ঢাকা মহানগরী যে কতটা অপরিকল্পিত আর ছন্ন ছাড়ার মত গড়ে উঠেছে তা বোঝা যায় বিমানে করে ঢাকা বিমান বন্দরে অবতরনের সময়। বিমানে বসে কেউ যদি ঢাকা মহানগরীর দিকে নীচু হয়ে তাকায় সে নিজেই আহাম্মক বনে যাবে তাতে কোন সন্দেহ নেই। বাংলাদেশের অন্য যেসব বিভাগীয় শহর বা নগর আছে সেগুলোর অবস্থাও প্রায় একই রকম।

গ্রাম গঞ্জে যারা ১৫/২০ বছর আগে গেছেন , তারা যদি এখন যান দেখবেন কৃষিজমির এক বিরাট অংশই বাড়ীঘর রাস্তা ঘাট তৈরীতে দখল হয়ে গেছে। আগে যেসব যায়গাতে বাগান ছিল সেখানে বাগান উজাড় করে ঘরবাড়ী বানান হয়েছে। খোলা ধানক্ষেতের মধ্যেও দেদারসে বাড়ী ঘর উঠেছে, নিত্যদিন উঠছে। মোট কথা অতিরিক্ত জনসংখ্যার ধাক্কা শুধু শহর বা নগরে নয় পল্লী অঞ্চলেও আঘাত হেনেছে ভয়ংকর ভাবে যে আঘাতে কৃষি জমি উজাড় হওয়ার পথে।

এমন যে মহাবিস্ফোরনের মধ্য দিয়ে দেশ এক অন্ধকার গন্তব্যের দিকে অগ্রসর হচ্ছে তা কিন্তু দেশের সরকার বা বিরোধী দলের কাজ কর্ম বা কথা বার্তায় বোঝা যায় না। এটা ঠিক , পোশাক শিল্পের বিকাশ ও প্রবাসী কর্মীদের প্রেরিত অর্থের কারনে বাংলাদেশের সাধারন মানুষ আগের মত আর দুর্ভিক্ষের শিকার হয় না , অনাহারের হাহাকার আগের মত দেখা যায় না। কিন্তু দেশটা যে ধীর গতিতে একটা অন্ধকারের দিকে ধাবিত হচ্ছে তা কেউ দেখছে না। সবাই বর্তমান নিয়েই সন্তুষ্ট। এদের কোন চিন্তাই নেই যে তাদের ভবিষ্যৎ বংশধর কিভাবে এ দেশে বাস করবে । বা বর্তমানেই যে তারা সুস্থ স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারছে না তা নিয়েও তেমন কাউকে ভাবিত মনে হয় না। সবার মধ্যেই কেমন যেন একটা উদাসীন দৃষ্টি ভংগী লক্ষ্য করা যাচ্ছে। অথচ আজ থেকে প্রায় ত্রিশ বছর আগে জনসংখ্যার বিস্ফোরনকে চিহ্নিত করে এ ব্যপারে ব্যপক কর্মসূচী গ্রহন করা হয়েছিল।

জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনের জন্য বাংলাদেশে একটা অধিদপ্তর আছে। তাদের আছে সমস্ত উপজেলায় কার্যালয়, কর্মকর্তা, কর্মী। একসময় এসব কর্মীরা বাড়ী বাড়ী গিয়ে জনগনের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির চেষ্টা করত, তাদেরকে উদ্বুদ্ধ করত কম সন্তান ধারনের ও প্রয়োজনীয় উপকরন সরবরাহ করত। তার ফলাফলও কিন্তু আমরা দেখেছি। এক সময় জনসংখ্যা বৃদ্ধি একটা নিয়ন্ত্রনের মধ্যে চলে এসেছিল। কিন্তু এখন আর সেসবের বালাই নেই। দপ্তর আছে, কর্মী আছে কিন্তু তাদের কোন কাজ নেই , কাজ থাকলেও তা বাস্তবায়নের কোন উদ্যোগ নেই। আর এর ফলাফলও হাতে নাতে , অতি দ্রুত জনসংখ্যা ১৭ কোটিতে পৌছে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে আগামী দশ বছরে জনসংখ্যা পচিশ কোটিতেও পৌছে যেতে পারে। ১৭ কোটির ধাক্কায় বাংলাদেশ অন্ধকার , ২৫ কোটি হলে কি হবে এ একমাত্র আল্লাহ মালুম জানে।

বাংলাদেশে হঠাৎ করে জন্ম নিয়ন্ত্রন কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়ার মধ্যে কেন জানি একটা ষড়যন্ত্র বা কোন আন্তর্জাতিক পরিকল্পনা কাজ করছে বলে আমার মনে হয়। তার মধ্যে সর্বপ্রথম আমার কাছে ধর্মীয় কারনটাই প্রধান বলে মনে হয়। বাংলাদেশের আনাচে কানাচে ঘুরে দেখা গেছে- সেখানে সৌদি অর্থ সহায়তায় অনেক মসজিদ মাদ্রাসা এতিম খানা গড়ে উঠেছে। কোন স্কুল , কলেজ বা বিশ্ব বিদ্যালয়কে কখনো সৌদিরা সাহায্য করেছে এরকম নজির নেই। বর্তমানে দুনিয়া ব্যপী ধর্মীয় জিগির চলছে। কোন ধর্মের লোকের সংখ্যা বেশী তা নিয়ে চলছে প্রতিযোগীতা। যাদের লোকসংখ্যা সবচাইতে বেশী হবে তাদের ধর্ম হবে সবচাইতে সেরা ও সত্য সেটা প্রমানের নানা রকম লক্ষন প্রকাশ্য্। এধরনের একটা পরিকল্পনার অংশ হিসাবে বাংলাদেশে জন্ম নিয়ন্ত্রনকে তেমন জোরদার ভাবে কাজ করতে দেয়া হচ্ছে না ভাবার যথেষ্ট সংগত কারন আছে। গোটা বিশ্বে ইসলাম ধর্ম ছড়িয়ে দেয়ার মহান ও পবিত্র দায়িত্ব নিয়েছে সৌদি আরব সহ অন্যান্য আরব রাষ্ট্র্। এর মধ্যে ইউরোপ আমেরিকায় প্রতিষ্ঠিত নানা রকম ইসলামী সংগঠন জড়িত আছে বলে ধরে নেয়া যায়। এরা প্রতি বছরে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার খরচ করছে এ মহান কর্মকান্ডে। সৌদি আরব সহ অন্যান্য মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো বাংলাদেশ সরকারকে এ বলে হুশিয়ার করে দিতে পারে যে- যদি জন্ম নিয়ন্ত্রন কার্যক্রম জোরে সোরে এদেশে চলে তাহলে তারা এ দেশ থেকে জন শক্তি আমদানী কমিয়ে দেবে বা বন্দ করে দেবে। আরব দেশগুলোতে মোট ৫০ লক্ষেরও বেশী বাংলাদেশী কাজ করে থাকে আর তারা দেশে সর্বোচ্চ পরিমান বৈদেশিক মুদ্রা পাঠায়। সুতরাং আরব দেশগুলোর হুশিয়ারীতে কান না দিয়ে সরকারের উপায় নেই। বিষয়টা বোঝা যায় বাংলাদেশে ইসলাম প্রচারের জন্য মধ্যপ্রাচ্য থেকে আগত বহু সংখ্যক আরবী লোকের সফরে। এরা প্রত্যন্ত গ্রাম গঞ্জে মসজিদ মাদ্রাসায় গিয়ে তাবলিক কায়দায় মানুষকে আরও বেশী করে ইসলামী বিধি বিধান পালনের জন্য উৎসাহিত করে থাকে। বাংলাদেশের সরকারের কর্মকান্ড দেখলেও বিষয়টি অনেকটা সত্য বলে মনে হয়। পরিবার পরিকল্পনা কার্যক্রম বিষয়ে বেশ কয় বছর ধরে তাদের সীমাহীন উদাসীনতা লক্ষনীয়। তাদের ভাবটা অনেকটা এরকম- মুখ দিয়েছেন যিনি , আহার দিবেন তিনি। তাই তাদের করনীয় কিছু নেই। বরং কোন কিছু করা মানেই হলো আল্লার কাজে হস্তক্ষেপ করা। তা করা জঘন্য গোনাহের সামিল। তাই তারা সভয়ে জন্ম নিয়ন্ত্রন কার্যক্রম থেকে নিজেদেরকে দুরে সরিয়ে রাখছে। যে কোন ভাবেই মুসলমান জনসংখ্যা বৃদ্ধির একটা যে আন্তর্জাতিক চক্রান্ত কাজ করছে তা বোঝা যায় মুসলমান প্রধান দেশগুলোর দিকে তাকালে। প্রতিটি মুসলমান প্রধান দেশের জন্মহার উচ্চ অথচ তাদের অধিকাংশই হতদরিদ্র দেশ। চক্রান্তের মূল উদ্দেশ্য – যে কোন ভাবে হোক মুসলমানদের সংখ্যা বাড়াতে হবে , তা তারা যতই হত দরিদ্র হোক কিছুই যায় আসে না। গরীব, ফকির, মিসকিন, অশিক্ষিত, মূর্খ, কুসংস্কারাচ্ছন্ন মানুষ দিয়ে দুনিয়া ভরে ফেলতে হবে। তারপর মানুষের কি হাল হলো তাতে কিছুই যায় আসে না। কারন, তাদের হেফাজত আল্লাহই করবেন।

সুত্র: wikipedia

[127 বার পঠিত]