৯০ এর দশকের প্রথম দিকে বাংলাদেশ পরিকল্পনা একাডেমী ও সাসেক্স বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত জেন্ডার বিষয়ক একটি প্রশিক্ষণে অংশগ্রহন করেছিলাম। প্রশিক্ষণটির প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছিলেন শিরীন হক, নারীপক্ষ এবং নায়লা কবির,শিক্ষক,সাসেক্স বিশ্ববিদ্যালয়। কয়েকটি অধিবেশন ছিল কীভাবে বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসূচিতে জেন্ডার বিষয়টিকে আরোপিত করা যায় এবং বিভিন্ন প্রকল্প ও কর্মসূচি জেন্ডার দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে বিশ্লেষণ করার কৌশল। এ কাজে প্রত্যেকেই তাদের অফিসে বাধার সন্মুখীন হচ্ছেন বলে জানালেন। নায়লা কবির রবীন্দ্র সংগীতের শব্দ বদলিয়ে —

যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে আবার ডাক রে — বলেছিলেন।
অর্থাৎ ডাক শুনে কেউ না আসলে একলা না চলে আবার ডাকার আহ্বান করতে পরামর্শ দিয়েছিলেন। আমিও গত পর্বের অনেক বিতর্কের পরও আবার ডাকছি। একলা চলতে চাই না। একলা সাফল্য আসে না। আসবে না।
নায়লা কবির অথবা তপন রায়চৌধুরীর মত নিজের প্রয়োজনে শব্দের অভিযান চালাতে চাই।

তবে কেউ যেন ভাববেন না যে আমি শুধু ঢালাওভাবে সবখানে নারীবাদী শব্দ ব্যবহারের কথা বলছি। অথবা আমি প্যারডি পদ্য লিখতে চাচ্ছি। কিংবা আমি কবিতার ইসলামীকরণকে উদ্ধুদ্ধ করছি বা তা যৌক্তিক করার জন্যে আমার নারীবাদীকরণকে উদাহরণ হিসেবে ব্যবহার করতে ইন্ধন যোগাচ্ছি। কেউ কেউ হয়ত ভাবছেন যে আমি শুধু কাজী নজরুলের কবিতা ও গান নিয়ে মেতেছি। যদিও প্রথম পর্বে তাঁর নারী ও বীরাঙ্গনা কবিতার কথা উল্লেখ করে আমার বক্তব্য দিয়েছিলাম।
যাহোক, যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে আবার ডাক রে–।
আমিও আবার ডাকছি।

আমার পন্ডিত পাঠকদের নিয়ে আমি হরিশ্চন্দ্র রাজার মত পাতালেই যেতে চাই।
রাজা হরিশ্চন্দ্রকে প্রস্তাব করা হয়েছিল তিনি ১০০ মূর্খ নিয়ে স্বর্গে যাবেন না কি পাঁচজন পন্ডিত নিয়ে পাতালে যাবেন? বলা বাহুল্য তিনি পাতালে যাবার সিদ্ধান্ত দিয়েছিলেন। আমিও মুক্ত- মনার পাঠকদের সাথে নিয়েই আমার যাত্রা সফল করতে চাই এবং তাহলে যাত্রার গন্তব্যে পৌঁছতে পারব বলেই আমার বিশ্বাস।

‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি
ছেলেহারা শত মায়ের অশ্রু গড়া এ ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি
আমার সোনার দেশের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি
আমি কি ভুলিতে পারি।।’
নমস্য এ গানের গীতিকার ও সুরকার। অজস্র প্রণাম তাদেরকে এমন ভাব জাগানিরা সৃষ্টির জন্যে। বাংলাদেশের সংগীত জগতে এমন জনপ্রিয় গান কমই আছে। তাই তো বিবিসি শ্রোতা জরিপে বাংলা ভাষার শ্রেষ্ঠ গানের তালিকায় এটি তৃতীয় স্থান লাভ করে। এ গানের সুর আমার মধ্যেও আবেগ সৃষ্টি করে বৈ কি। আমার ধারণা ফেব্রুয়ারি মাসে এ গানটি সর্বাধিক গাওয়া গান।
এটি প্রথমে আব্দুল গাফফার চৌধুরীর একটি কবিতা ছিল। প্রথম সুরারোপ করেন আব্দুল লতিফ। কিন্তু পরবর্তীতে সুরকার আলতাফ মাহমুদ গানের সুরে পরিবর্তন আনেন। বর্তমানে আলতাফ মাহমুদের সুর করা গানটিই গাওয়া হয়। ত্রিশ লাইনের কবিতাটি থেকে মাত্র উপরের উল্লেখিত ছয়টি লাইন গাওয়া হয়। ঐতিহাসিক দলিল এ গান। এখানে ভাইদের জীবন ত্যাগ আর মায়েদের ছেলে ত্যাগের কথা পাই। উপেক্ষিত ভাষা আন্দোলনে নারীর নিজের অবদান। অথচ কবিতাটির ২৬তম লাইনে নারীর ত্যাগের কথা আছে।
‘তুমি আজ জাগো তুমি আজ জাগো একুশে ফেব্রুয়ারি
আজো জালিমের কারাগারে মরে বীর ছেলে বীর নারী
আমার শহীদ ভায়ের আত্মা ডাকে
জাগো মানুষের সুপ্ত শক্তি হাটে মাঠে ঘাটে বাটে।
দারুণ ক্রোধের আগুনে আবার জ্বালবো ফেব্রুয়ারি
একুশে ফেব্রুয়ারি একুশে ফেব্রুয়ারি।।’’
কাজেই আগামীতে গানটির প্রথম ছয় লাইনের সাথে শেষ ছয় লাইনও গাওয়ার জোর দাবি করছি। তা না হলে এ ঐতিহাসিক গানে যা দলিলের চেয়েও কম মূল্যবান নয় তাতে ভাষা আন্দোলনে নারীর যে অবদান তা অস্বীকৃত — অপ্রকাশিত — অপ্রচারিত — অজানিতই রয়ে যাচ্ছে। নারীর সত্ত্বা তো এভাবেই অবহেলায় ধূলায় গড়ায়।

[67 বার পঠিত]