About কেশব কুমার অধিকারী

মুক্তমনা সদস্য। পেশায় শিক্ষক।

অভিজিৎঃ বাংলায় একবিংশ শতকের এক রেনসাঁর নাম

দিবালোকের মতো প্রতিষ্ঠিত হলো এক সত্যদর্শীর অনুভব, চিন্তা, চেতনার মাঝে অবয়ব পাওয়া এক উপমা! বিশ্বাসের ভাইরাস!মুক্ত-মনা এবং এর বাইরের ব্লগ গুলোতে এ নিয়ে কতো যে বিতর্ক! আমার মনে হতো বিশ্বের তাবৎ বিতার্কিকরা তীরন্দাজ! লক্ষ্য ডঃ অভিজিৎ রায়! এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষের যুক্তি যেতো হাড়িয়ে, তার বদলে উগড়ে দিতো অশ্রাব্য ভাষা। অথচ তারও জবাব দিতেন ডঃ অভিজিৎ [...]

শ্রদ্ধাঞ্জলি: আমার প্রয়াতঃ শিক্ষক হুমায়ুন আহমেদ

শ্রদ্ধাঞ্জলি: আমার প্রয়াতঃ শিক্ষক হুমায়ুন আহমেদ কেশব অধিকারী   খবরটা বজ্রাহতের মতোই ছিলো আমার কাছে। আমি সেই কবে থেকে বসে আছি, যখন তিনি বললেন, বাংলাদেশে স্থাপন করবেন একটা আন্তর্জাতিক মানের ক্যান্সার গবেষণাগার এবং হসপিটাল! আমার দৃঢ় বিশ্বাস, একমাত্র তাঁর দ্বারাই এরকম একটা প্রতিষ্ঠানের গোড়াপত্তন সম্ভব ছিলো বাংলাদেশে। এটা আমার মনগড়া কথা নয়, আমি প্রয়াত: আমার [...]

আমরা করবো জয়

কেশব অধিকারী (ফেব্রুয়ারী ২১, ২০১৩) একুশের এই প্রহরে আমার সমস্ত আবেগ, যৌক্তিকতা বোধ আর ভালবাসা আজ বাংলার এই প্রজন্ম চত্ত্বরে সমবেত তরুণ যুবাদের জন্যে নিবেদিত হলো। যে স্বপ্ন আমি দেখতাম আজ সেই স্বপ্ন বাস্তব! আমি তোমাদের পাশে ছিলাম, আছি আর থাকবো। কোথায় পেলে এই অদম্য সাহস! তোমাদের সাথে আজ আমরাও জেগেছি। বাংলা জেগেছে। জয় বাংলা! [...]

প্রত্যাশা

  কিছু বুঝে উঠবার আগেই যা ঘটে চলেছে সে কি অভাবিত নয়? আমি আমার সমস্ত অন্তর দিয়ে যা অনুভব করতাম, কি করে সম্ভব হলো এই সব ছেলেমেয়েদের অন্তরের ভাষা হয়ে, গান, কবিতা, ছড়া, স্লোগান আর অসম্ভব ক্ষোভ-ঘৃনা হয়ে আজকে প্রজন্ম-চত্ত্বরে ঝরে পরা, যারা বেড়ে উঠেছিলো সময়ের এক বৈরী পরিবেশে! সেই আমি নিজেই নিমজ্জ্বিত ছিলাম হতাশার [...]

কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা (পর্ব-৭)

  পর্ব-১,  পর্ব-২,  পর্ব-৩,  পর্ব-৪,  পর্ব-৫, আগের পর্ব, পর্ব-৭ (ভাষান্তরিত) প্রথম অধ্যায় সামরিক আগ্রাসনের প্রথম মাস: কোচাং (Kochang) এবং সিনজু (Chinju)  ১৯৫০ এর ২৫শে জুন, রোববার অতি প্রত্যূষে, উত্তর কোরীয় সেনাবাহিনী যখন অতর্কীতে দক্ষিন কোরিয়ায় সামরিক আগ্রাসন চালায় তখন আমি সিনজু উচ্চবিদ্যালয়ের (Chinju High School) প্রথম বর্ষের প্রথম মাসের ছাত্র (১৯৫০-এ নব আরোপিত কোরিয়ার বিদ্যালয় [...]

কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা (পর্ব-৬)

পব-১, পর্ব-২, পর্ব-৩, পর্ব-৪, আগের পর্ব পর্ব-৬ কঠিন এক ক্রান্তিকালে সদ্যস্বাধীন দক্ষিন কোরিয়ার বিপর্যস্ত নাগরিক জীবন উত্তর কোরীয় কমিউনিষ্ট সেনাবাহিনীর আকষ্মিক সামরিক আগ্রাসনে হঠাৎই যেনো কঠিনতর এক দুঃস্বপ্নের রাতে পর্যবসিত হয়। সে বছরের ডিসেম্বরের মাঝা মাঝি আমি নিজেকে দক্ষিন কোরিয়ার এক জন সেনা সদস্য হিসেবে সেনাবাহিনীতে দেখতে পাই! তখন অনুপ্রবেশকারী চীনা কমিউনিষ্ট বাহিনীর হাতে পর্যুদস্ত [...]

কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা (পর্ব-৫)

পর্ব-১, পর্ব-২, পর্ব-৩, আগের পর্ব ভাষান্তরিত পর্ব-৫ ১৯৪৮ থেকে ১৯৫০ এর কোরিয়া যুদ্ধের পূর্ব পর্যন্ত দক্ষিন কোরীয় সমাজতন্ত্রীদের দুর্দ্ধষ্য গেরিলা কার্যক্রম ক্রমশঃ অপ্রকাশ্যে চলে যায় বিশেষ করে রীহ সাইংম্যান রাষ্ট্রপতি হিসেবে আত্মপ্রকাশের পর পর। এই সময়ের অত্যন্ত ষ্পর্শকাতর একটি ঘটনা হলো দক্ষিন কোরীয় সেনা বাহিনীর একটি অংশ প্রকাশ্যে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতাকে উপেক্ষা করে তৎকালীন কিয়াংনাম (Kyungnam) [...]

কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা (পর্ব-৪)

পর্ব-১, পর্ব-২, আগের পর্ব পর্ব-৪ (ভাষান্তরিত) [বি.দ্র.: সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রেস আমাকে কিছু ঐতিহাসিক এ-ঘটনা সম্পর্কিত পটভূমির ছবি সরবরাহ করেছে, পর্যায়ক্রমে ছবি গুলো সংযোজনের ইচ্ছে রইলো] ১৯৪৫ থেকে ১৯৪৮ সময়কালে বিশেষ করে দেশের দক্ষিন অর্ধাংশের সর্বত্র রাজনৈতিক কর্মকান্ড হিসেবে ব্যাপক এবং ভয়ংকর সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ডান এবং বাম মতাদর্শীদের মাঝে ছড়িয়ে পরে। বাম এবং ডান [...]

কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা (পর্ব-৩)

পর্ব-১, আগের পর্ব কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা (পর্ব-৩) [বিশেষ দ্রষ্টব্য: গত পর্বে জনাব কাজি মামুন এর অনুরোধ সত্ত্বেও আমি ব্যর্থ হয়েছি মূলতঃ সময়াভাবে। সেজন্যে আগেই ক্ষমা চেয়ে নেয়াটা কর্তব্য বলে মনে করছি। তবে পড়ার ধারাবাহিকতা যাতে নষ্ট না হয়, সেদিকে যত্নবান থাকতে আমি চেষ্টা করবো।] এই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন সময়ে প্রত্যেক কোরিয়ান জমির মালিকের প্রতি [...]

কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা [পর্ব-২]

পর্ব-২ আগের পর্ব ১৯৪১ সাল, ৮ই ডিসেম্বরের পরেই, আমি তখন ২য় গ্রেডের সৈনিক। দিনের বেলায় পতাকা সমেত আর সন্ধ্যায় লন্ঠন মার্চ করতে হতো। সে আবার জাপানী রাজসিক সৈনিকদের সম্মানে যারা তখন বৃটিশ ও আমেরিকা অধিকৃত সন্ত্রাসী এলাকা গুলোর দখল নিচ্ছিলো যেমন, হংকং, সিঙ্গাপুর এবং ম্যনিলা। আমরা তখন সৈনিক কুচকাওয়াজের নির্ধারিত রণ-সঙ্গীতটি গাইতাম আর ‘বানজাই’ ‘বানজাই’ [...]