জওশন আরা শাতিল

লেখক: জওশন আরা শাতিল

I am a Biomedical Engineer and a doctoral student of Neuroscience. I like to promote Science and Humanist movement through my writing. I stand with science, secularism and freedom of speech. I believe, someday Bangladesh will choose the path of logical thinking as a social norm along with the rest of the world.

মানবের শ্রেষ্ঠত্ব!

নিজেদের শ্রেষ্ঠ হিসেবে দাবী করার প্রবণতাটি মানব জাতির মধ্যে, সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে প্রকট। কেবল জাতিগত ভাবে নিজেদের শ্রেষ্ঠ বলে দাবী করলে অন্তত বুঝতে পারতাম, নাহ, যাক মানব জাতির মধ্যে মানবতা বোধ প্রকট। কিন্তু বাস্তবতা তার উলটো, মানব জাতির মধ্যে শ্রেষ্ঠত্বের প্রশ্নেই বিভেদ খানা সবচেয়ে বেশী। ধর্ম, বর্ণ, দেশ, জাত, উপজাত, লিঙ্গ, অর্থ এহেন কিছু নেই [...]

বিজ্ঞান, বিজ্ঞানী এবং নারী

ফিল্ড মেডাল জয়ী গণিতবিদ মারিয়াম মির্জাখানি বিজ্ঞানী - শব্দটি শুনলেই অনেকের মনে ভেসে উঠে মোটা কাঁচের চশমা পড়া এলোমেলো চুলের আত্মভোলা একজন মানুষ। আমি কি ঠিক বললাম? এইবার আপনার ভাবনার সাথে একটু মিলিয়ে দেখুন, বিজ্ঞানীর এই যে ছবিটা আপনি কল্পনা করলেন, তা কি একজন পুরুষের ছবি ছিল নাকি একজন নারীর? আমি নিশ্চিত ৯৯% মানুষ বিজ্ঞানী [...]

লিখেছেন |জুলাই ৬, ২০১৫|বিষয়: বিজ্ঞান, ব্লগাড্ডা|৪১ টি মন্তব্য|

জাগো নারী জাগো বহ্নি-শিখা

বাংলাদেশে রোজই জন্ম হয় নতুন খবরের। পত্রিকার পাতা খুলে প্রায় দশটা সংবাদে চোখ বুলালে তার মধ্যে প্রায় আটটি সংবাদই হবে দু: সংবাদ। আমরা বাংলাদেশীরা অভ্যস্তও হয়ে গেছি সহিংসতার সংবাদে। যতক্ষণ পেট্রোল বোমাটি ঠিক আমারই স্বজনের গায়ে এসে না পড়ছে, ততক্ষণ আমরা স্বজন হারাবার ব্যথা অনুভব করি না, প্রতিবাদও করি না। ড. অভিজিৎ রায়ের খুনিরা খুন [...]

লিখেছেন |এপ্রিল ২৭, ২০১৫|বিষয়: নারীবাদ, মানবাধিকার|২০ টি মন্তব্য|

নির্বাসন থেকে বলছি

আমার প্রবাস জীবনের শুরুর দিকে ব্যাপারটা একধরণের স্বেচ্ছা নির্বাসন ছিল। কন্যা হয়ে জন্মেছিলাম বটে, তারপরও নারী হয়ে উঠবার বদলে অজস্র বাঁধার মুখেও কিভাবে যেন মানুষ হয়ে উঠেছিলাম, দাবী করে ফেলেছিলাম আমার প্রাপ্য মানবাধিকার। আর তাতেই পরিবার বলতে যা বোঝায়, ভালোবাসার মানুষগুলোর কাছে হয়ে গিয়েছিলাম অপাঙতেয়। যা কিছু ছিল আমার জীবনে, তার সবকিছু হারাতে বসেছি জেনেও [...]

লিখেছেন |এপ্রিল ৬, ২০১৫|বিষয়: বাংলাদেশ|১৭ টি মন্তব্য|

অপরাজেয় অভিজিৎ রায়

ছোট্ট বেলায় জেনেছিলাম সুজলা সুফলা সবুজ দেশ আমার প্রিয় জন্মভূমি - বাংলাদেশ। আমার শিশুমন বিশ্বাস করেছিল এর প্রতিটি শব্দ। দেশপ্রেম নামের আবেগের সাথে জড়িয়ে গিয়েছিলাম সেই ছোট্ট বেলাতেই। ভালোবেসেছিলাম যে মাটিতে জন্ম আমার সেই মাটিকে। সেই সাথে ছিল বাবার কাছে শোনা মুক্তিযুদ্ধের গল্প। হ্যাঁ, ভূত প্রেত দৈত্য দানোর গল্প শুনে বড় হইনি আমি, বড় হয়েছি [...]

অপরাজিত অপরাজেয় – সত্যজিতের কীর্তি!

সত্যজিৎ রায়ের সাথে আমার পরিচয় তার লেখা রহস্যোপন্যাসে। এমনই ছিল সে মুগ্ধতা, সে বিভোরতা, ফেলুদা হয়ে উঠেছিল এক চরিত্র- সে বাস্তব নাকি কল্পনা, ভাবার সময় পাইনি আমি। প্রথম হাতে নিয়েছিলাম বাদশাহি আংটি। এরপর কতদিন কেটেছে ফেলুদার সাথে এখন আর মনে করে উঠতে পারিনা। সেই স্কুল-বেলার গল্প! ফেলুদাতে এমন ভাবে মজে গিয়েছিলাম, যে এর লেখককে আর [...]

এলোমেলো ভাবনা- “খাও এবং মর”

এইমাত্র পড়ে শেষ করলাম ডঃ মুহাম্মদ জাফর ইকবালের লেখা বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী "কেপলার টুটুবি"। আমি যে জাফর ইকবাল স্যারের অনেক লেখা পড়েছি, বা সব বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনী পড়েছি সে দাবী করিনা, তবে উনার লেখার সাধারণ প্যাটার্ণ ধরার মত বেশ খানেক বই পড়েছি বটে। আমার কখনও বইয়ের নাম মনে থাকে না, বিখ্যাত লেখকের কোন বিখ্যাত সাহিত্য খন্ড না [...]

লিখেছেন |জুলাই ২, ২০১২|বিষয়: ব্লগাড্ডা|২২ টি মন্তব্য|

বিচ্ছিন্ন দ্বীপ

১. মাঝে মাঝে এমন মূর্তির মত স্থিরতায় কেটে যায় আমার দিন... মনে হয়, আমি বুঝি এই পৃথিবীর হিসেবের খাতায় আর নেই। একদিন এক প্রচন্ড ব্যস্ত সময়ে মনের কোণে কবিতার একটি লাইন গুনগুনিয়ে উঠল... “জীবনের সাথে সম্পর্কহীন একটি জীবন করে যাচ্ছে জীবনযাপন!” চমকে উঠলাম... একি! মনটা তেতো হয়ে গেলো। কবিতার পরের লাইনগুলো আর বের হয়নি। দেশ [...]

হডজকিন-হাক্সলি মডেলঃ নিউরনের প্রকৃত রূপ!

১৯৬৩ সালে চিকিৎসাবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ী বিজ্ঞানী-দ্বয়ের নাম স্যার অ্যালান হডজকিন এবং স্যার এন্ড্রু হাক্সলি, যাদের অসাধারণ বৈজ্ঞানিক গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৫২ সালে জার্নাল অফ ফিজিওলজিতে। তারাই মানুষের সামনে প্রথমবারের মত উপস্থাপন করেছিল অ্যাকশন পটেনশিয়ালের গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা, নিউরনে অনুরণনের পিছনের ঘটনা, "কিভাবে ঘটে? কেন ঘটে?, কখন ঘটে?"। মানুষের বুদ্ধিমত্তা নিয়ে সমগ্র মানব সভ্যতা মুগ্ধ হয়ে থাকলেও [...]

নিউরাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর জন্মকথা

একবিংশ শতকের বিজ্ঞানের জগতে আগেকার যে কোন সময়ের চেয়ে জীববিজ্ঞানকে অনেক অনেক বেশী গুরুত্ব দেয়া হয়। রোগে শোকে মানুষ মরেছে মানব ইতিহাসের সৃষ্টিলগ্ন থেকেই। তখনো গুরুত্ব ছিল জীববিজ্ঞানের সন্দেহাতীত ভাবেই। কিন্তু একবিংশ শতকে এসে মানুষগুলো কেমন যেন সবকিছুতে জীববিজ্ঞান জুড়ে দিয়ে বসে আছে। ইঞ্জিনিয়ারিং মত কাঠখোট্টা বিষয়ও ঢুকে পড়েছে জীব্বিজ্ঞানের আঙ্গিনায়। মানবদেহের সবকিছু যেন এরা [...]

জেনেটিক-মেমেটিক কো-এভোলিউশন (শেষার্ধ)

এই পুরো প্রবন্ধটা উৎসর্গ করেছি বন্যা আহমেদ কে, যার বিবর্তন নিয়ে লেখালেখি, স্বতঃস্ফূর্ততা, ব্যক্তিত্ব্য সবই আমাকে মুগ্ধ করে, অনুপ্রাণিত করে... অনেকদিন বাদে হলেও জেনেটিক মেমেটিক কো-এভোলিউশনের শেষার্ধ লিখে শেষ করলাম। প্রথমার্ধে দেখিয়েছিলাম "দ্য সেলফিশ জিন" এ রিচার্ড ডকিন্স কিভাবে উপস্থাপন করেছেন মিম তত্ত্বকে। যারা আগের পর্ব পড়েন নি তাদের জন্য জেনেটিক-মেমেটিক কো-এভোলিউশন-১ ------------------------------------------------------------------------------------------------------------------- সেই আদিম [...]

নিউরণ কিভাবে কাজ করে?

নিউরণের গল্পর পরবর্তী অংশ নিউরণের গঠন নিয়ে অনেক হৈচৈ করলাম, এইবার একটু দেখি, স্নায়ুকোষ কিভাবে কাজ করে, কিভাবে তথ্য পরিবহন করে, তার কার্যনীতিটা কেমন? আগেই বলেছি, মানব দেহের ভিতরে যা কিছুই হয়, তা মূলত কিছু রাসায়নিক বিক্রিয়া। কিংবা একটি অনুর অথবা আয়নের দেহের ভিতরে একটা জায়গা থেকে আরেকটা জায়গায় যাওয়া। সুতরাং নিউরণের কার্যক্রমেও যে অনু [...]

লিখেছেন |ডিসেম্বর ৩, ২০১১|বিষয়: ব্লগাড্ডা|৫ টি মন্তব্য|

নিউরণের গল্প

আমি যখন স্কুলে পড়তাম, তখন জীববিজ্ঞান বইয়ের জীবকোষ সংক্রান্ত অধ্যায়ে একটা অদ্ভুত দর্শন কোষের ছবি আঁকা থাকতো, আর লেখা থাকতো, স্নায়ুতন্ত্র গঠনকারী কোষকে বলা হয় নিউরন। অন্যরা কি করত বলতে পারবো না, কিন্তু যতবার আমি ছবিটা দেখতাম, ততবার মনে হত, একটা কোষ দেখতে এতো সুন্দর হয় কি করে? একটা তন্তু আছে, যার নাম কিনা অ্যাক্সন, [...]

জেনেটিক-মেমেটিক কো-এভোলিউশন-১

"Koi desh perfect nehi hota, Usko perfect banana pudta hai." ("No country is perfect. It has to be made perfect.") তেজদীপ্ত কন্ঠে বলে ওঠে এক যুবক, সেই প্রত্যয়ী তরুণদলটি হাতের মুঠোয় প্রাণ নিয়ে রেডিওতে জানান দিচ্ছে, এক এক করে কয়েকজন ক্ষমতাধারী দুর্নীতিপরায়ণ মানুষকে তারা ছুটি দিয়েছে পৃথিবীর দেনা পাওনার খাতা থেকে... তারা জানে, তাদের নিঃশ্বাস [...]

ঘাসফুলের জীবনটা

আমি এখন অনুভূতিহীন; আনন্দ, বেদনা, অস্থিরতা, কিংবা, নাম না জানা হাজারটা অনুভূতি; কোনটাই আমার মধ্যে বিদ্যমান নেই। দু'দিনের এই জীবন নিয়ে , খেলে যাচ্ছি একের পর এক খেলা। এ নেহায়েৎ মন্দ না। ঘড়িতে যার টিকটিক করে বাজে মৃত্যুঘন্টা, তার আবার হৃদয়ে অনুভূতির যন্ত্রণা! সেই কবে ভুলেছি আমি ভালোবাসতে ভালোবাসা; সেই কবে ভুলেছি হারাবার ভীত ডানা। [...]

লিখেছেন |মে ২২, ২০১১|বিষয়: কবিতা|২৭ টি মন্তব্য|