দেশটার’ই চাকর, অথচ ভুলেছে আপন কাজ
নাগরিক ভাজে রোজ, সেই অসৎ ধান্দাবাজ,
নিলাজে চালায়ে রাজ। ওরা যে বেতন-ভুক,
মালিক যে নাগরিক, সবই ভুলে গেছে আজ।

কিনে কবি ও লেখক, তারে দিয়েছে পুরস্কার,
রানী’র পোষ্য বনে, ভুলেই গিয়েছে তিরস্কার।
বহু বাঘা সাংবাদিকের, বিবেক করেছে নাশ।
পারেনি যাদের, উপহার রূপে দিয়াছে সন্ত্রাস।

ক্ষমতার লোভে সেবকই এখন প্রভু, বহুরূপী।
নিলাজ চুমু খায় গোপন এবং খোলামেলাতে।
যখন যা দরকার, কাপড় অথবা ইস্পাত টুপি,
গদিখানা ধরে জলপাই দেয় চুমু, নাই ঝুঁকি।

সাফ করে দে বাধা রে সকল পেয়ারে চামচা দল
রানী যে আমি সকলের সেরা বলরে আয়না বল।
চেতনা ঝুলিয়ে কষ্ট বেচেছি এ রাজ-নৈতিক ছল,
শাসক-শোষকি স্বপ্নপূরণ বল জাদুর আয়না বল।

নাগরিক কে? উত্তরাধিকারী সে-ই সব্বার সেরা,
চিনেছেন? হ্যাঁ, সর্বদা সে চাটুকার দিয়ে ঘেরা।
বললেই কথা ৫৭ ধারা, হবে জেলখানাটা ডেরা
ভণ্ডামিখানি টেকাতেই তার, ধূর্তের দলে ভেড়া।

সকল সময়ে দেখবেন বটে শাসকের ভালোবাসা,
ধম্মব্যাপারী বাটপার নিয়ে জমে ওঠে বেশ খাসা।
কালো পাগড়ীর জাত-খুনি যত, ম-জুত সর্বনাশা,
প্রেম রেখে জারি শাষক রেখেছে রক্ষাকবজ আশা।

ক্ষয়িষ্ণু তেঁতুল বনে তাই কুঁজো হয়ে, নয়-ন বানে,
ক্ষমতার লোভে সে বিনয়ে যে মাগে, অন্তিম লালা।
কেন দুষো তারে? মন বলে কথা, ও আহ্লাদী আশা,
টিকে থাকা দেখো, দেখো হে ক্ষমতার ভালোবাসা।