বিষণ্ণতার ২৬ তারিখ !!

ভিড়ের মধ্যে কয়েকটি কালো হাত পেরিয়ে
আমরা- রাস্তার উল্টোদিকে হাঁটা শুরু করি,
যেখানে অনির্বচনীয় এক ভালোলাগা আলো আঁধারিতে
শিশুদের নিয়ে মেতে ওঠে বইয়ের রঙিন মলাটে।।

প্রতিটি অক্ষরে অক্ষরে – আর আমাদের প্রিয় বর্ণমালায়
সে বই আমরা হাত দিয়ে ছুঁয়ে যায় এ অগভীর মমতায়,
সমগ্র বাংলার ক্ষেতে ফসলে মাঠে খেলে যায় বাতাস;
ইচ্ছে হয় এই বাংলায় ফিরে আসি বারবার।।

নিয়নের হলুদ আলোয় জনস্রোতে আমরা দুজন মানুষ
হাত ধরাধরি করে এগিয়ে যায় নিজেদের গন্তব্য – যেখানে
অারো অনেকে আসবে বলে ক্রমাগত: শাব্দিক উচ্চারণে
জানিয়ে দিয়ে যায় প্রতিদিন – লিখে রাখে নিজেদের ডায়েরী।।

আচমকা দমকা বাতাস লন্ডভন্ড করে দিয়ে যায় সবকিছু
নিজেকে নিজেদের চেনায় কাপুরুষের দল,
রক্ত, শুধু রক্ত গড়িয়ে পড়ে সবুজ মানচিত্রে-
বইয়ের মলাটে মলাটে, ধবধরে সাদা পৃষ্ঠায় পৃষ্ঠায়।।

কৈফিয়ত : অভিজিৎ রায় এর অনাকাঙ্খিত মৃত্যুর পর কেমন জানি বিষণ্ণ হয়ে পড়েছিলাম। তবুও আশা ছাড়িনি। মুক্ত চিন্তার মানুষেরা এগিয়ে যাবেই আর আলো হাতে আঁধারের যাত্রীদের পথ দেখাবে।

By | 2017-02-26T16:36:23+00:00 February 26, 2017|Categories: অভিজিৎ রায়, অভিজিৎ সাহিত্য|1 Comment

One Comment

  1. ইন্দ্রনীল গাঙ্গুলী February 26, 2017 at 9:45 pm - Reply

    এত মতবাদ কাকে দি বাদ
    অলক্ষ্যে দেখি সবি জল্লাদ,
    রুখো মৌলবাদ , রুখে দাও জল্লাদ।
    রুখে দিতে এদের জুদ্ধে যাব ফের।

    —————- লাল সেলাম।

    অভিজিত দা অমর থাকবে চিরকাল।

Leave A Comment