বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ড শামসুজ্জানাম খান প্রকাশকদের উদ্দেশ্যে বলেন, তাঁরা যেন এবারের বইমেলায় উস্কানিমূলক বই প্রকাশ না করেন। আর এতেই অনলাইনে শুরু হয়েগেল নাস্তিকদের লেখার ঝড়, প্রতিবাদের টর্নেডো। আরে বাপুরা, মহাপরিচালক সাব উস্কানিমূলক লেখা বইমেলায় প্রকাশ করতে মানা করেছেন জাতির স্বার্থে, মানবতার স্বার্থে, অসাম্প্রদায়িক চেতনা রক্ষার স্বার্থে। এতে এত তুমুল প্রতিবাদের ঝড়-বাদল কেন? উস্কানি কি কোনো ভালো জিনিস হলো?

মহাপরিচালক সাব শামসুজ্জামান খান কী বলতে চেয়েছেন তা কি নাস্তিককুল একবারও বোঝার চেষ্টা করেছে? তিনি বলতে চেয়েছেন, যেসব বইতে উস্কানিমূলক কথাবার্তা লেখা আছে সেসব বই যেন বাংলার বুকে বইমেলায় আর প্রকাশ করা না হয়। যেমন কিছু কিছু বইতে লেখা আছে,
নারীরা ঋতুকালে নাপাক (২;২২২), স্ত্রীরা পুরুষদের শস্যক্ষেত্র (২;২২৩),
দুজন নারী একজন পুরুষের সমান সাক্ষীর ক্ষেত্রে (২;২৮২), পুরুষগণ, বিয়ে করো দুই তিন চার (৪;৩),
কন্যাসন্তানদের পুত্রসন্তানের অর্ধেক সম্পদ দাও (৪;১১),
কোন নারী ধর্ষিত হলে সেই ধর্ষণের দৃশ্য উপভোগ করেছে এমন চারজন পুরুষকে যোগাড় করো। তারপর ধর্ষণ প্রমাণিত হলে ধর্ষিতাকে আমৃত্যু কোনো ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখো। অর্থাৎ ধর্ষিতাকে মৃত্যুদণ্ড দাও (৪;১৮), অবাধ্যতার আশংকা দেখলে বৌদের শয্যা ত্যাগ করো, তারপর পিটাও (৪;৩৪)
কাজের মেয়েদের সম্ভোগ করো। ওরা তোমাদের জন্য হালাল (৪;২৪), (২৩;৫,৬), (৩৩;৫০), (৭০;২৯,৩০),
চোরের হাতগুলি কেটে ফেলে দাও (৫;৩৮), বিধর্মীদের সাথে বন্ধুত্ব করো না কখনো (৫;৫১,৫৫),
বিধর্মীদের হত্যা করো (৯;৫), কেউ প্রেম করলে তাদের ১০০ দোররা মারো (২৪;২) ইত্যাদি।

ইত্যাকার উস্কানিমূলক, ধ্বংসাত্মক, ভয়াবহ খারাপ কথায় পরিপূর্ণ বইগুলিই তিনি প্রকাশ না করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রকাশকদের প্রতি। এটা তো ভালো কাজের আহ্বান! খারাপ কাজ বন্ধে আহ্বান! নাস্তিকরা এজন্য উনার বিরুদ্ধে খেয়ে-না খেয়ে, কোমর বেঁধে লেগে গেল কেন?

[538 বার পঠিত]