মারিয়া আল-কিবতিয়া ছিলেন একজন মিশরীয় কপ্টিক খ্রিস্টান দাসী, যাকে মুহাম্মাদের নিকট বাইজান্টাইন সাম্রাজ্জের অধিনস্ত সম্রাট মুকাউইস উপহার হিসাবে প্রদান করেন। মারিয়ার গর্ভে ইব্রাহিম ইবনে মুহাম্মাদ নামে মুহাম্মাদ একটি সন্তানের জন্ম দেন, যে কিনা শিশুকালেই মারা যায়। ইব্রাহিমকে জন্ম দেয়ার পর থেকে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত পাঁচ বছর তিনি দাসত্ব থেকে মুক্ত ছিলেন। ইবনে কায়িম আল-যাওজিয়া সহ আরও বহু সূত্র দাবি করে যে, তিনি মুহাম্মাদের একজন উপপত্নী ছিলেন, অর্থাৎ তিনি মুহাম্মাদের কৃতদাসী ছিলেন, কিন্তু স্ত্রী নয়। এর কারণ ইসলামী আইন মুসলিম পুরুষদেরকে দেনমোহর প্রদানকৃত বিবাহিত নিজ স্ত্রী এবং নিজ অধিকৃত দাসীদের সাথে বৈবাহিক সম্পর্ক করার অনুমতি দেয়ায় তিনি দাসী হয়েও মুহাম্মাদ এর স্ত্রীগণের পাশাপাশি তার পরিবারের সদস্য ছিলেন। ইবনে ইসহাক রচিত মুহাম্মাদ এর জীবনী হতে সম্পাদিত ইবনে হিশামের সংকলনে তাকে মুহাম্মাদ স্ত্রীগণের তালিকায় উল্লেখ করা হয় নি।

অন্যদিকে, মুকাউইস সম্পর্কে জানা যায় তিনি ছিলেন তৎকালীন বাইযান্টাইন সাম্রাজ্যের অধীন মিশরের একজন শাসনকর্তা। ইবনে ইসহাক এবং অন্যান্য ইসলামী স্কলারদের মতে, ৬২৮-৬২৯ খ্রীস্টাব্দে মোহাম্মদ মদীনার পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোতে ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য রাজ্যগুলোর শাসকগনের কাছে দূত মারফৎ পত্র প্রেরণ করেন। এদের মধ্যে মুকাউইসও একজন। মুকাউসের কাছে পত্র প্রেরণের জন্য পাঠানো হয় হাতিব ইবনে আবি বালতাহকে। মুকাউইস মোহাম্মদের পত্রটি তাঁর রাজ কোষাগারে সংরক্ষণ করেন। তিনি মোহাম্মদের নবুয়তকে অস্বীকার করেন, তবে মোহাম্মদকে একজন শাসক হিসেবে সম্মান প্রদর্শনে কার্পন্য করেননি।

মুকাউস মোহাম্মদের পত্রের উত্তরে লিখেন, “ আমি আপনার পত্র পেয়েছি, আমি জানি যে একজন নবী আসার সময় এখনও হয়নি এবং এই নবী সিরিয়ার জন্ম নেবেন। আমি আপনার দূতকে সম্মানের সাথে আপ্যায়ন করার চেষ্টা করেছি। উপহার স্বরুপ দুজন দাসী আপনাকে প্রেরণ করছি। এই দাসীরা খুবই সম্ভ্রান্ত পরিবারের সদস্যা। এদের সাথে আপনার জন্য কিছু কাপড় ও একটি ঘোড়া (দুলদুল) পাঠাচ্ছি। আপনার উপর ঈশ্বরের কৃপা বর্ষিত হোক”।

মুকাউসের প্রেরনকৃত দাসী দুইজন ছিলেন পরস্পরের সহোদর। মোহাম্মদ মারিয়াকে নিজের জন্য রেখে দেন আর বোন শিরিনকে দিয়ে দেন সাহাবী হাসান বিন তাবিথের কাছে। কথিত আছে, যেহেতু ইসলাম ও তৎকালীন সমাজে দুই বোনকে একসাথে শয্যাসংগি করাটা বৈধ ছিল না, তাই মোহাম্মদ শুধু মারিয়াকেই নিজের কাছে রাখতে সংক্ষম হন।

মারিয়াকে মোহাম্মদ বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দিয়েছিলো কি না, না কি শুধু দাসী হিসেবে রেখেছিলো সে বিতর্কে যাচ্ছি না। যদিও নির্ভরযোগ্য দলিলে মোহাম্মদের স্ত্রীদের তালিকায় মারিয়ার নাম পাওয়া যায় না। প্রশ্ন হলো, মারিয়াকে পেয়ে মোহাম্মদ কি মিশর আক্রমণের কথা, মিশরে ইসলাম প্রতিষ্ঠার কথা ভূলে যান? না কি পুনরায় আক্রমণ করে সেখানে ইসলাম প্রতিষ্ঠা করেন? এ সম্পর্কিত কোন দলিল ইতিহাসে পাওয়া যায় না। বরং সহীহ মুসলিম, বুক নং ৩১, হাদীস নং- ৬১৭৪ থেকে জানা যায়, মোহাম্মদ মিশরের অধিবাসীদের সাথে ভাল ব্যবহার করার জন্য তার সাহাবীদেরকে উপদেশ প্রদান করেন।

একজন মারিয়া মোহাম্মদের ইসলাম প্রতিষ্ঠার মিশনকে, আল্লাহ প্রদত্ত পবিত্র দায়িত্বকে দমিয়ে রাখতে পেরেছিলেন কিভাবে? ইসলাম প্রতিষ্ঠার চেয়ে মারিয়াই কি মোহাম্মদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠে?

উপরন্তু, মিশরে ইসলামের ইতিহাস পড়তে গেলে যা জানা যায় তা হলো ৬৩৯-৬৪০ খ্রিস্টাব্দ থেকে সেখানে ইসলামের সূত্রপাত এবং তা খোলাফায়ে রাশেদার আমল থেকে। এর আগে ইসলাম মিশরে প্রবেশ করেছিল কি না, কিংবা কিভাবে প্রবেশ করেছিল তা এখনও অস্পষ্টই রয়ে গেছে।

অথচ, সেই ৬২৮ খ্রীস্টাব্দেই মুকাউসকে ইসলাম গ্রহন করার জন্য দূত প্রেরণ করেন মোহাম্মদ। যে মোহাম্মদ সারা পৃথিবীতে ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্য আল্লাহ কর্তৃক মনোনীত হয়েছিলেন, সেই মোহাম্মদ একজন দাসী, একটি ঘোড়া আর কিছু উপহার পেয়ে ইসলাম প্রতিষ্ঠার মিশনকে মিশরে স্থগিত রাখেন, ব্যপারটা ভাবনার নয় কি?
মোহাম্মদকে তথা ইসলাম প্রতিষ্ঠার মিশনকে একজন নারী আর কিছু উপহারের বিনিময়ে দমিয়ে রাখা যায়, মুকাউস ও মোহাম্মদের এই ঘটনার প্রেক্ষিতে এমন উপসংহার টানাটা অযৌক্তিক হবে কি?

[2232 বার পঠিত]