একজন অভিজিৎ

রক্তাক্ত পতাকা যেনো সেই রাতে অভিজিৎ!

মানচিত্রে এমন কাঁপন আমি কখনো দেখিনি!
আমাদের মাদ্রাসাগুলো এখন বিপর্যস্ত
অস্ত্র প্রশিক্ষণ কেন্দ্র,
অক্ষরের বদলে শেখায়
চাপাতির বিভৎসতা! চারিদিক থেকে
পঙ্গপালের মতন ছুটে আসছে অব্যর্থ অন্ধকার।
অথচ বন্যার চিৎকারে পুলিশের বন্দুক নড়ে না!

আহা! একটা একটা করে ঝরে যাচ্ছে সোনার ছেলেরা
একটা একটা করে বিষধর গিলে খাচ্ছে
আমাদের সমস্ত অর্জন।
ঘুণে ধরা রাজনীতি এখন ঢাকার পচা ড্রেনের দুর্গন্ধ
আর শোকাহত মায়ের ক্রন্দন,
রক্তপুঁজে মিশে যাওয়া সময়ের বিষাক্ত শরীর!

মানচিত্রের মতন অভিজিৎ
বিপর্যস্ত সভ্যতার পাটাতনে উবু হয়ে
শুয়ে ছিলো সেই রাতে,
শুয়ে ছিলো বহুকাল, চৈতন্যের আশেপাশে
ভয়াল ভীষণ রেখে শরীরের সবটুকু দাগ।

১ এপ্রিল, ২০১৫

কবি ও প্রাবন্ধিক । আন্তর্জাতিক কবিতার কাগজ 'শব্দগুচ্ছ' সম্পাদক। প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ২৭। উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ: নক্ষত্র ও মানুষের প্রচ্ছদ (অনন্যা, ২০০৭), স্বতন্ত্র সনেট (ধ্রুবপদ, ৩য় সং, ২০১৪), শীত শুকানো রোদ (অনন্যা, ২০১৪), আঁধারের সমান বয়স (বাড, ২০০২) এবং নির্বাচিত কবিতা (অনন্যা, ২য় সং, ২০১৪)। অনুবাদ: বিশ্ব কবিতার কয়েক ছত্র (সাহিত্য বিকাশ, ২য় সং, ২০১৩)। প্রবন্ধ: নারী ও কবিতার কাছাকাছি (অনন্যা, ২০১৩)। উপন্যাস: ডহর (হাতেখড়ি, ২০১৪)। গল্পগ্রন্থ: শয়তানের পাঁচ পা (অনন্যা, ২০১৫)

মন্তব্যসমূহ

  1. ইন্দ্রনীল গাঙ্গুলী জানুয়ারী 27, 2016 at 11:26 পূর্বাহ্ন - Reply

    এক অভিজিৎ মরলে হাজার হাজার অভিজিৎ জন্ম নেবে , এই মৌলবাদী শক্তি তে ফাটল ধরান সম্ভব হয়েছে , একে ছিন্নভিন্ন করা সুধু সময়ের ব্যাপার।

  2. বিপ্লব রহমান ডিসেম্বর 3, 2015 at 3:38 অপরাহ্ন - Reply

    অভিজিৎ মরে নাই, অভিজিৎরা মরে না…

    • জসীম ঊদ্দীন ডিসেম্বর 7, 2015 at 9:19 অপরাহ্ন - Reply

      সত্যিই অভিজিৎ মরেনি।আরো অনেক অভিজিৎ আসবে।

  3. জাহেদ নভেম্বর 30, 2015 at 11:30 অপরাহ্ন - Reply

    প্রিয় কবি,
    আপনার নিয়মিত উপস্থিতি চাই।

    • হাসানআল আব্দুল্লাহ ডিসেম্বর 3, 2015 at 6:48 পূর্বাহ্ন - Reply

      ‘আশেপাশে’ থাকতে পেরে আমিও আনন্দিত। জন্মের সময়ের সাথী কখনো দূরে যেতে পারে না। তাছাড়া আপনাদের ভালবাসা তো আছেই। অশেষ ধন্যবাদ প্রিয় জাহেদ আহমেদ ও কাজী রহমান।

  4. কাজী রহমান নভেম্বর 30, 2015 at 1:41 অপরাহ্ন - Reply

    অনেকদিন পরপর দেখি। তবু আশেপাশে যে আছেন এটুকু দেখলেই ভালো লাগে।

  5. সায়ন কায়ন নভেম্বর 29, 2015 at 1:01 পূর্বাহ্ন - Reply

    অভিজিৎ,অনন্ত,বাবু,দীপন,নিলয় এরা তো ক্ষমতাসীন পার্টি,হেজাবী ও বামদল সহ সবারই শত্রু ছিল।তাই তাদের মৃত্যুতে তাদের মাথাব্যাথা হবে কেন ? রাষ্ট্রের কেন মাথাব্যাথা হবে ? তারা তো রাষ্ট্রের চোখে শুধু ঝামেলাকারী ছিল।

    আর বন্যা আহমেদ তো তাদের এখন জাত-শত্রুতে পরিনত হয়েছে………

    কলম চলুক দূর্বার গতিতে , ছিন্নভিন্ন হউক সকল চিন্তার জড়তা……...

    • প্রসূনজিৎ ডিসেম্বর 7, 2015 at 5:38 পূর্বাহ্ন - Reply

      বামপন্থীদের শত্রু ছিল, আপনিই কি এতোই নিশ্চিত? একটু বেশী সরলীকরণ হয়ে গেল না।
      আমি যতদূর জানি যতটুকু দৃশ্যমান প্রতিবাদ দেশের ভেতর হয়েছে, তাতে বামচিন্তাধারার লোকজনই বেশী অংশগ্রহণ করেছে। অবশ্য আবেগের বশে তাদের শত্রু বলে থাকলে আলাদা কথা। কিন্তু মুক্তমনারা আবেগী হলেও যুক্তির বাইরে যাবেন না, এটুকু আশা করা নিশ্চয়ই দোষের নয়।

  6. নীলাঞ্জনা নভেম্বর 28, 2015 at 10:55 অপরাহ্ন - Reply

    ক্ষমতাসীনরা খুনীদের দলে। খুন করতে তাদের আর বাধা কোথায়?

  7. বিপ্লব কর্মকার নভেম্বর 28, 2015 at 10:22 অপরাহ্ন - Reply

    বন্ধুক = বন্দুক
    আশে পাশে=আসে পাশে হবে।
    কবিতায় বানান ভুল বি-রা-ট সমস্যা তৈরি করে।

    • হাসানআল আব্দুল্লাহ নভেম্বর 28, 2015 at 10:46 অপরাহ্ন - Reply

      অশেষ ধন্যবাদ আপনাকে। ‘বন্দুক’-এর মাথা আর বেশী গরম না করে শান্ত করা হলো। আর ‘আশেপাশে’র স্পেসটি কমিয়ে দেয়া হলো। এই ‘আসে’ অর্থ কিন্তু ‘আসা’ নয় [আশেপাশে–আশপাশ: ব্যবহারিক বাংলা অভিধান]। তবে ‘বন্দুক’ মুদ্রণপ্রমাদ হলেও কিন্তু ‘আশেপাশে’ নয়। “কবিতায় বানান ভুল বি-রা-ট সমস্যা তৈরি” করেছে বলে আমি গভীর দুঃখ প্রকাশ করছি।

মন্তব্য করুন