কোটার খোটা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় লাইব্রেরিতে গেলে যে দৃশ্যটি সবার চোখে পড়বে তা হল; সবাই বিসিএস পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। সকাল আট টায় লাইব্রেরি খোলা হয়। লাইব্রেরিতে আসন সংকটের কারণে সকাল সাতটা থেকে লাইন ধরে শিক্ষার্থীরা দাঁড়িয়ে থাকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা একাডেমিক পড়াশুনা বাদ দিয়ে কেন বিসিএস মুখী পড়াশুনা করছে তা নিয়েও অনেক আলোচনা-সমালোচনা আছে। তবে আমরা আলোচনায় না গিয়ে এক কথায় যেটা বলতে পারি তাহলো; দেশে বিভাগীয় সাবজেক্টে চাকরির সুযোগ-সুবিধা কম, শিক্ষকতায় অনীহা, এক বিসিএস প্রিপারেশানে সকল চাকরির পরীক্ষার পড়া হয়ে যায় তাই সবাই বিসিএস মুখী পড়াশুনা করছে। অনেকে ফাস্ট ইয়ার থেকে বিসিএস মুখী পড়াশুনা শুরু করে থাকে।

বিসিএস পড়াশুনা সবাই মোটামুটি গ্রুপ বেঁধে শুরু করে। বাংলাদেশে বিসিএস চাকরিতে ৫৬% কোটা নির্ভর নিয়োগ হয়। ফলে যারা কোন কোটাতেই আসে না তারা ৪৪% সিটের জন্য যুদ্ধ করে। ৫৬% কোটার মধ্যে ৩০% মুক্তিযোদ্ধা কোটা, ১০% মহিলা কোটা, ১০% জেলা কোটা, ৫% উপজাতি কোটা, এবং বিভিন্ন পদে ১% প্রতিবন্ধী কোটা যুক্ত করা হয়েছে। অভিজ্ঞতার আলোকে বলছি নন কোটা-ধারী বিসিএস পড়ুয়া শিক্ষার্থীরা ৩০% মুক্তিযোদ্ধা কোটা-ধারীদের সাথে পড়াশুনা করে না। মানে এক গ্রুপে পড়াশুনা করে না। এর পেছনে ঈর্ষা অথবা কোটার প্রতি এক ধরনের বিদ্বেষ আছে বলতে পারেন। কিছু শিক্ষার্থী নারী কোটার সমালোচনা করলেও নারীরা যেহেতু পিছিয়ে আছে তাই এক প্রকার দরদী হয়ে এই বিষয়ে চুপ থাকে, উপজাতিরা যেহেতু পিছিয়ে পড়া গোষ্ঠী তাই তাদের জন্য ৫% কোটা দেওয়াতে কেউ অখুশি না। আর প্রতিবন্ধীদের তো মানবিক কারণেই সাপোট করতে হয়। জেলা কোটা বিষয়টি দেশের সকল জেলার সামগ্রিক উন্নয়নের জন্য সৃষ্টি করা হয়। মানে যেই জেলা ছোট বা যে জেলার ছেলেরা বিসিএস খুব কম দেয় সেই জেলার কেউ ভাল রেজাল্ট করলে পছন্দের পদে সহজে নিয়োগ হয়। সকল শিক্ষার্থীরা এই জেলা কোটার সুবিধাটা পাবে।

বাংলাদেশের চাকরিতে ৩০% মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের জন্য কোটা রাখার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। প্রতিবছর এই কোটা গুলো পূরণ হতো না বিধায় বর্তমানে নাতি-নাতনি যোগ করা হয়েছে। ভার্সিটি জীবনের কাছের দুই বড় ভাই বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে এএসপি ও ট্যাক্স অফিসার হয়েছেন। একজন দ্বিতীয় বারে এএসপি হওন অন্যজন ছয় বার পরীক্ষা দিয়ে ট্যাক্স অফিসার হোন। এরা কেউ কোটাধারী না। তাই কোন কোটা-ধারী চাকরি হয়েছে শুনলে প্রথমেই বলে; কোটাতে চাকরি হইছে এতো পাত্তা দেবার কিছু নেই। তোদের মেধা দিয়েই চাকরি নিতে হবে। কথাগুলো অভিমান এবং ক্ষোভের। ২০১২ সালের বিসিএস নিয়োগ পত্র দেখে ছিলাম। ১১০টি কোটাধারী এএসপি সিটের মধ্যে ১৯টি খালি ছিল (স্মৃতি থেকে বলছি দুই এক কম বেশি হতে পারে) তাতে কোন নিয়োগ হয়নি। অথচ বাংলাদেশে সরকারী স্কুলে ঝাড়ুদারের চাকরি নিতে মানুষ পাঁচ লাখ টাকা ঘুষ দেয়, সেখানে কোটাধারীদের সিট খালি পড়ে থাকে।

৫২ সালে ভাষা আন্দোলন হয়েছি রাষ্ট্র ভাষা বাংলা করার দাবীতে। পাকিস্তানীরা রাষ্ট্রভাষা উর্দু (উর্দু পশ্চিম পাকিস্তানের ক্ষুদ্র একটি অংশের ভাষা। উর্দু ভাষীরা সবচেয়ে বেশি বাস করে ভারতে) করল। রাষ্ট্রভাষা যদি উর্দু হয় তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া বাঙালি ও মাঠে কাজ করা বাঙালি এক শ্রেণিতে নেমে যাবে। কারণ দুইজনই উর্দু পারে না। যেখানে পাকিস্তান আমলে বাঙালিদের চাকরি হতো খুবই কম সেখানে শিক্ষিত বাঙালি চাকরি পেতে আরও বেশি কঠিন হবে। ফলে শুরু হয় রাষ্ট্রভাষা বাঙলা চাই আন্দোলন। এই ইতিহাসটা এখানে বলার কারণ মধ্যবিত্ত স্বার্থের সাথে বিসিএস চাকরি জড়িত। বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া মধ্যবিত্তরাই বিসিএস চাকরিতে বেশি প্রবেশ করতে চায়। স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় পাশ করে এসে যখন দেখে কোটা পদ্ধতির নামে এমন রাষ্ট্রীয় বৈষম্য তখন কোটা প্রতি এক গুমোট ক্ষোভের জন্ম নেওয়া কি অস্বাভাবিক?

প্রতিটি সরকারের আমলে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকার রদবদল হয়। তার মানে প্রতি আসলে অসংখ্য নাম ছাটাই হওয়ার পাশাপাশি অসংখ্য নামও যুক্ত হচ্ছে! দেশ স্বাধীন হওয়ার পর হলিডে ফাইটার নামে একটা ব্যঙ্গাত্মক কথা প্রচলন ছিল। এর মানে বিজয় দিবসের দিন যারা অস্ত্র হাতে নিয়ে মুক্তিযোদ্ধা হয়েছিল তাদের উদ্দেশ্যে এটা বলা হতো। এরপর বিভিন্ন মেয়াদে অসংখ্য ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা যুক্ত হয়েছে। অনেক মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেট নিতে গিয়ে যখন দেখে এলাকার রাজাকারটিও তার লাইনে দাঁড়িয়ে আছে তখন ক্ষোভে সার্টিফিকেটটিও নিলেন না। এমন ইতিহাসও আছে। যাই হোক, কোটার জন্য কোন মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি কাউকে অসম্মান করতে দেখিনি। তবে তাদের সন্তানের রাষ্ট্র কর্তৃক এমন বাড়তি সুযোগ-সুবিধার জন্য অনেকেই সমালোচনা করে। কোটা প্রসঙ্গে আসলে যে কথাটি বলা হয় তাহলো; মুক্তিযোদ্ধারা কোটার জন্য যুদ্ধ করেনি কিন্তু রাষ্ট্র তাদের সম্মান অথবা আহত বা দরিদ্র মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা যেন কিছুটা সুযোগ সুবিধা পায় তার জন্য এই ব্যবস্থা। সন্তান সুবিধা পাবে এতে কারো আপত্তি ছিল না কিন্তু বছর তিনেক আগে নাতি-নাতনিদের এই কোটা পদ্ধতিতে সম্পৃক্ত করা হয়। এই পদ্ধতির বিরোধিতা অনেক মুক্তিযোদ্ধার সন্তানও করে। নাতি-নাতনিদের সুবিধা দিলে অসুবিধা কোথায় তা বলার আগে বাংলাদেশে স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ আর্মিদের বাড়তি সুযোগ সুবিধার কথাটা বলা প্রয়োজন বোধ করি।

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশ সরকার মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের বিভিন্ন বীরের পদে ভূষিত করার পাশাপাশি আরেকটি অদূরদর্শী সুবিধা প্রদান করে। তা হল; মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা দুই বছরের সিনিয়ারিটি লাভ করবে। এরকম বাড়তি সুবিধা সেনা বাহিনীর কোন নিয়মের মধ্যে পড়ে না। ফলে যাই হবার তাই হল; পাকিস্তান ফেরত সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সাথে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া সদস্যদের মধ্যে দ্বন্ধ শুরু হয়ে গেল। মুক্তিযুদ্ধে অনেক সেনা সদস্য অংশ নিয়েছে যেমন সত্য তেমনি অনেকে বন্দি থাকা অবস্থায় অংশ নিতে পারেন নি। শেখ মুজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতার হত্যাকারীদের বেশির ভাগ নভেম্বর মাসে মুক্তিযু্দ্ধে অংশে নেয়। অর্থাৎ যখন বাংলাদেশ স্বাধীন হবে এমন একটা পরিস্থিতি ধারণা করা যাচ্ছে ঠিক সেই সময় এরা মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়। আবার অনেক সদস্য বাংলাদেশে থেকেই পাকিস্তানীদের পক্ষে যুদ্ধ করেছে। পাকিস্তান থেকে অনেকে পালিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিলেও অনেকের পক্ষে তা সম্ভব হয়ে উঠেনি। এই প্রমোশনের বদলে অন্যভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া সেনাদের সম্মান দেওয়া যেত। তাহলে সেনা বাহিনীর মধ্যে এমন দ্বন্দ্ব শুরু হতো না। কারণ এই সিনিয়রিটির কারণে অনেক জুনিয়র পূর্বের সিনিয়রের সমমর্যাদায় অনেক ক্ষেত্রে আবার জুনিয়র সিনিয়র হয়ে গেছেন। ফলে এটা স্বাভাবিক ভাবে কারো পক্ষে নেওয়া সম্ভব হয় নি। এই বাড়তি সুবিধার কারণে সেনা বাহিনীতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া যোদ্ধারাই। তাই স্বাভাবিকভাবে এই নাতি-নাতনি কোটার কারণে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি এক প্রকার অশ্রদ্ধা আসে তাহলে এই দায় নিতে হবে সিস্টেমকে এবং যারা প্রণয়ন করেছে তাদেরকে। এক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হয়েও যদি মেধার মূল্যায়নে চাকরি না হয়ে বরং দাদুর কর্মে চাকরি হয় তাহলে ক্ষোভ কার না আসবে বলুন? রাষ্ট্রীয় চাকরিতে ৫৬% কোটায় চাকরি হচ্ছে তাহলে বোঝাই যাচ্ছে রাষ্ট্র মেধাবী নয় বরং কোটা-ধারী আমলাতন্ত্রের উপর দাঁড়িয়ে আছে।

পত্রিকার মাধ্যমে জানতে পারলাম যারা কোটার মাধ্যমে চাকরি পাচ্ছেন তাদের এই বাড়তি সুবিধার কথা কর্মক্ষেত্রে কিংবা গ্রেজেটে প্রকাশ করা হয় না। মানে অন্য কাউকে জানতে দেওয়া হয় না। এই প্রসঙ্গে কর্মকর্তাদের যুক্তি কাজের পরিবেশ বজায় রাখতেই এমন নিয়ম করেছে সরকার। মূল কথাটি হল; মানুষের হক নষ্ট করে চাকরি নেওয়া কর্মকর্তাদের অন্যরা সহ্য করতে পারে না। যারা কোটায় চাকরি নেয় তারা নিজেও এটি জানে যে, অন্য হক নষ্ট করে নিজেরা বিশেষ সুবিধায় চাকরি পেয়েছে। তাদের থেকে বেশি মেধা নিয়ে অন্যরা চাকরি পায়নি।

কিছুদিন আগে বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব ভুয়া সনদে ধরে খেয়েছেন। এরকম হাজারো ভুয়া সনদ-ধারী আমলা বাংলাদেশে সরকারী চাকুরীতে চাকুরী করছেন। ২০১২ সালে মুহসীন হলের এক বড় ভাই পাঁচ লাখ টাকা দিয়ে পিতার মুক্তিযোদ্ধার সার্টিফিকেট নিয়েছেন। সবার নাকের উপর দিয়ে আমলাও হয়েছেন। আশা করি এই এক সার্টিফিকেট দিয়ে তার সন্তানরাও চাকরি পেয়ে যাবেন। যাই হোক। এমন হাজারো মানুষ ভুয়া সনদ নিয়েছেন কেউ ধরা খায় কেউ খায় না। যদি ধরি প্রতিটি নিয়োগে ডাক্তার ইঞ্জিনিয়ার বাদে বাদ বাকি শিক্ষার্থীদের জন্য আসন থাকে ৮০০ (কম বেশি সবসময় হয়) এর মধ্যে ৫৬% কোটায় গেলে আসন থাকে ৩৫২টি! বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে এক থেকে দেড় লাখ শিক্ষার্থী! ফলে বিশাল সংখ্যক শিক্ষার্থীদের মধ্যে হতাশা, ক্ষোভের প্রবণতা বাড়ছে। উপরে যে বড় ভাইয়ের কথা বললাম; যিনি ছয় বার দিয়ে ট্যাক্স বিভাগে চাকুরী পেয়েছেন তিনি প্রতিবারই লাস্ট স্টেপ মৌখিক পরীক্ষার পর্যন্ত যেতেন এবং কোন বারই চাকরি হয়নি। অন্যদিকে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের মধ্যে প্রতিযোগিতা কম হওয়ায় লিখিত পরীক্ষায় পাশের পর মৌখিক পরীক্ষায় ৮০ (২০০ মধ্যে পাশ নম্বর ৮০) পেলেই চাকরি হয়ে যায়। মেধায় নয় কোটার ভিত্তিতে চাকরি হওয়ায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে এক ধরনের ক্ষোভ জন্মে। ভবিষ্যতে যদি এই ক্ষোভ আরও তীব্র হয় তাহলে দায়টা কার? মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা ও দেশ ভালের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় আছে। তাই দাদার দোহাই দিয়ে নাতি-নাতনীদের জন্য এতো বৃহৎ কোটা সিস্টেম বৈধতা দেবার কোন যৌক্তিকতা নেই। সাধারণ শিক্ষার্থীদের ক্ষোভের ছিদ্র দিয়ে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধীরা তাদের নৌকায় বাতাস পায়, রাষ্ট্রে মেধার অবমূল্যায়ন হয়, শিক্ষার্থীদের মাঝে হতাশা ও ক্ষোভ জন্ম নেয়। যা ভবিষ্যতে কোন সুফল আনবে না তা হলফ করে বলা যায়। এছাড়া একটি উন্নত রাষ্ট্র সৃষ্টি করতে গেলে মেধার অগ্রঅধিকার দিতে হয়, কোটায় নয়।

এই লেখাটি শেয়ার করুন:
0

16 Comments

  1. Manzurul Islam Noshad July 9, 2015 at 1:06 am - Reply

    একটি দেশের প্রথম শ্রেণির নাগরিক হওয়া যোগ্যতার সনদ। কিন্তু কোটা ও নানবিধ দুর্নীতি আজ বিষয়টাকে পাল্টে দিয়েছে। এখন দেশের প্রথম শ্রেণির নাগরিক হওয়া যোগ্যতার প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। এভাবে যদি একটি দেশের মস্তিষ্ক বিকলাঙ্গ হয়ে পড়ে তবে এর ভবিষ্যৎ কি নির্দেশ দিচ্ছে? অবমূল্যায়নের কারণে আজ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই প্রতিভা বিকাশে অনুৎসাহী হয়ে পড়েছে। এটা নিশ্চয়ই একটি দেশের জন্য শুভ সংবাদ নয়।

    আপনার লেখাটি ভাল লেগেছে। ধন্যবাদ লেখার জন্য। ভাল থাকবেন।

  2. তানভীর July 9, 2015 at 1:31 am - Reply

    মহান ভাষা আন্দলনের যে ‘পেটি’ কারণ আপনি দেখালেন সেটার রেফারেন্স কি? নাকি এটা আপনার মতামত?
    তাছাড়া, এই লেখায় এই প্রসংগটা আনা কাঁচা-কাজ হয়েছে।

  3. সুব্রত শুভ July 9, 2015 at 1:39 am - Reply

    @তানভীর

    আপনার মতামতের জন্য ধন্যবাদ।

    ভাষা আন্দোলনের ক্ষুদ্র অংশটিতে আমি নতুন কিছু তো বলিনি। আপনি ঠিক কোনটার রেফারেন্স চাচ্ছেন একটু বললে সুবিধা হতো আমার।..মধ্য বিত্তদের কথাটা টানলাম এই কারণে যে, এরা বিশ্ববিদ্যালয় পাশ করে কোটার কারণে না পায় সরকারী চাকুরী না পারে ক্ষুদ্র চাকুরী (আমাদের তথাকথিত সামাজিক দৃষ্টিতে দেখলে)

    • সুব্রত শুভ July 9, 2015 at 1:54 am - Reply

      মতামত ধরলে এটা শুধু আমার না। কয়েকজন ভাষা সৈনিকেরও এমন মতামত দিয়ে থাকেন। ব্যক্তিগতভাবে কয়েকজনের সাথে আলাপ করার সুযোগ হয়েছিল। তাদেরও একই মত। আর আন্দোলনটা তো ছিল আমাদের চাকরির স্বার্থেই তাই না?…রাষ্ট্রভাষা উর্দুর বদলে ইংরেজী হলে হয়তো ৫২ -এর ইতিহাস হয়ে যেত।…

      • তানভীর July 9, 2015 at 2:17 am - Reply

        সত্যি বলতে, ভাষা আন্দোলনের পিছনে যে চাকুরী প্রাপ্তি/অপ্রাপ্তির সম্ভাবনা মুখ্য নিয়ামক ছিলো এমন তত্ত্ব এর আগে কখনো শুনিনি। এই লেখাতেই প্রথম। তাই আমি স্কেপটিক্যাল।

        এছাড়া ঐ সময়ে সম্ভবত অফিস আদালতের দাপ্তরিক ভাষা ইংরেজিই ছিলো। তাই উর্দু হলে চাকুরী পাওয়ায় যাবে না। সেই ভীতিকে ভাষা আন্দোলনের প্রভাবক হিসাবে মানতে পারছি না।

        • সুব্রত শুভ July 9, 2015 at 4:52 pm - Reply

          @তানভীর

          গত সপ্তাহে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর একটি সাক্ষাৎকার ছাপা হয়েছে। সেখানে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলছেন;

          এরমধ্যে ভাষা আন্দোলন শুরু হলো। আমরা কিন্তু ইংরেজিতে অভ্যস্ত হয়ে এসেছি। এখন আবার উর্দু হয়ে যাবে রাষ্ট্রভাষা। তাহলে স্বাধীনতার মানে কী হলো? আমরা ইংরেজিটাকেই গ্রহণ করতে চাই নাই। এখন আবার তার জায়গায় উর্দু চলে আসছে। উর্দুঅলারা এখন সুযোগ-সুবিধা পাবে, আমরা পাবো না। এই সূত্রেই পাকিস্তানী জাতীয়তাবাদের বিপরীতে বাঙালি জাতীয়তাবাদের যাত্রা শুরু হলো।

          লিংক-এখানে

  4. আপনি আসল সমস্যায় হাত দেননি। মেধা কৌটায় জালিয়াতি হয়। লেখা ভালো লেগেছে। আমার ব্লগে এ নিয়ে একটা আছে, আগ্রহী রা দেখতে পারেন।

    • সুব্রত শুভ July 9, 2015 at 4:54 pm - Reply

      কোটার পদগুলো পূরণ হয় বলেই তো জালিয়াতিটা হওয়ার সুযোগ পায়। ভুয়া সার্টিফিকেট, রাজনৈতিক চেহারা দেখে নিয়োগগুলো কোটার মাধ্যমেই হয়ে থাকে। আপনার লেখার লিংকটা এখানে দিলে সবার জন্য সুবিধা হতো।

  5. অভিষেক July 9, 2015 at 7:12 pm - Reply

    বিসিএসে এমনিতেই যে দুর্নীতি হয়, তাতে কোটা নিয়েও অনেকে মাথা ঘামায় না। প্রশ্নপত্র ফাঁস তো আছেই, সৎ উপায়ে কোনমতে মৌখিক পরীক্ষা পর্যন্ত পৌঁছালে খুঁটির জোর থাকলে ওটাও উতড়ানো যায়। বন্ধুদের অনেককেই দেখছি আস্থার অভাবে জিআরই-টিআরই দিয়ে দেশ ছাড়ার ধান্দায় আছে।

    • সুব্রত শুভ July 9, 2015 at 8:40 pm - Reply

      @অভিষেক

      হ্যা। শুধু মেধা না চাকরির জন্য টাকারও দরকার হয়। এএসপি’র জন্য বিশ লাখ টাকা নেওয়া হতো আগে। তবে হাই স্কুলের ঝাড়ুদাড়ের চাকরির জন্য পাঁচ লাখ টাকা ঘুষ দিতে দেখেছি। আসলেই কী অদ্ভুত এক রাষ্ট্র আমাদের।

  6. নশ্বর July 9, 2015 at 8:51 pm - Reply

    অনেক মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেট নিতে গিয়ে যখন দেখে এলাকার রাজাকারটিও তার লাইনে দাঁড়িয়ে আছে তখন ক্ষোভে সার্টিফিকেটিও নিলেন না। এমন ইতিহাসও আছে।

    আমার বাবা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা হওয়া সত্ত্বেও সার্টিফিকেট নেননি একই কারনে ।।

  7. ভার্চুয়াল নোমেড July 10, 2015 at 2:28 am - Reply

    শুভ ভাই, ভালো টপিকে কথা বলেছেন । বাংলাদেশের কোট সিস্টেম খুব জটিল । আমার মনে হয় যারা প্রনয়ন করে তারাও ঠিকমতো বোঝে না কোন কোঠা কিভাবে কাজ করে । তাই আরো ডিটেইলস সহ কি ধরনের সংস্কারের পক্ষে কথা বলছেন, সেটা দিকে আলোকপাত করা দরকার ।

  8. emran hussen July 11, 2015 at 1:12 pm - Reply

    Comment…নিয়োগ প্রাপ্তিরর পর তাদের আর দমায় কে? ভাব দেখে মনে হয় তারাই দেশের,প্রতিষ্ঠানেরর মালিক, আমরাই দয়া পরবশত চাকুরি পেয়েছি।শেয়ার বাজারের মতো তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া বুঝা গেলে ভাল হতো যে আরো বিশ বছর পর মেরুদণ্ডের সাথের দণ্ডটি থাকবে তো।তাদের আলাদা id গলায় ঝুলিয়ে দিলেই টের পাওয়া যেত, অনুদানের চাকুরি আর যোগ্যতার দণ্ডে পাওয়া চাকরি এক নয়।

  9. মামুন July 11, 2015 at 5:05 pm - Reply

    কোটার সিট খালি থাকে। কারণটা এমন নয় যে, কোটার পরীক্ষার্থী কম।

    খালি থাকার আগে ডিস্ট্রিবিউশনটা বুঝতে হবে আগে। কোটার ৫০% মেধা কোটা। বাকি ৫০% জেলা। মেধা কোটাকে ভাগ করা হয়েছে এভাবে, মেধা ৪৪%, উপজাতি ৫%, এবং প্রতিবন্ধী ১%। অপরদিকে জেলা কোটাকে ভাগ করা হয়েছে জেলা ১০% (সবাই পাবে), ৩০% মুক্তিযোদ্ধা সন্তান-নাতি-নাতনী এবং ১০% মহিলা। একজন মুক্তিযোদ্ধা ছেলে সন্তান ৪৪+১০(জেলা)+৩০(মুক্তি)=৭৪% কোটা পাচ্ছে। একজন মুক্তিযোদ্ধা নারী সন্তান পান আরো ১০% বেশি। অন্যদিকে একজন সাধারণ পুরুষ প্রার্থী পান ৪৪+১০(জেলা) = ৫৪% এবং মেয়ে প্রার্থী পান ৪৪+১০(জেলা)+১০(নারী)=৬৪%। আমার অবাক লাগে যখন মুক্তিযোদ্ধা কোটাহীন প্রার্থী কখনোই জেলা কোটার ১০% যে তার প্রাপ্য এটা নিয়ে কোনো শব্দ উচ্চারণ করেন না।

    জেলা কোটার সিটগুলো জেলার প্রাপ্যতা অনুসারে ভাগ হয়। অর্থাৎ জেলার জনসংখ্যার অনুপাতে পুরো দেশকে একটা ১০০% ধরে জেলা কোটার সিটগুলো ভাগ হয়। যেহেতু মুক্তিযোদ্ধা এবং নারী উভয় কোটাই জেলা কোটার অংশ, সেহেতু ওগুলোও জেলার প্রাপ্যতা অনুসারে ভাগ হবে। ফলে দেখা যাচ্ছে, কোনো সার্কুলারে এক জেলার প্রার্থী নাই। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধা কিংবা নারী কিংবা জেলা কোটার সিট সে জেলার জন্য বরাদ্দ আছে। সেক্ষেত্রে ওই সিটগুলো ফাকা থেকে যাবে। কারণ সরকারী নির্দেশ অনুযায়ী, ওই সিট অন্য কাউকে নিয়োগ করে ফিলাপ করার সুযোগ নাই।

    অনেকেই অন্যকে দিয়ে সিট ফিলাপ করার পক্ষপাতী। আমিও তাই। সমস্যা অন্যখানে। এই নিয়ম বিএনপির আমলে চালুও করা হয়েছিলো। চরম বাস্তবতা হলো। মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের ফেল করিয়ে বিএনপি সরকার ছাত্রদলের সোনামানিকদের ক্যাডার বানিয়েছিলো এই সুযোগে। পরবর্তীতে অন্তর্বর্তীকালীন সরকার প্রার্থী না পাওয়া গেলে সিট খালি রাখার বিধান করে। আওয়ামীলীগ বা বিএনপি নয়।

    আসলে কোটা নিয়ে চিল্লায়ে কোনো লাভ নাই। এটা পলিটিক্যাল ইস্যু। যতদিন মুক্তিযোদ্ধা সন্তান/নাতি/নাতনী থাকবে ততদিন এই কোটা থাকবে। কেউ এই কোটা বাদ দিলেই তাদের স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তি, রাজাকার ইত্যাদি উপাধিতে ভূষিত করা হবে। এই রিস্ক কেউ নেবে না।

    মুক্তিযোদ্ধা কোটা বন্ধ করার পক্ষে মত দেয়ার মত কন্ডিশনে কোনো সরকারই নেই। সেটা যেই করার চেষ্টা করবে তাকেই বিরোধীপক্ষ টেনে হিচড়ে নামানোর চেষ্টা করবে। তবে আমি মুক্তিযোদ্ধা কোটা ১০% এ নামিয়ে আনার পক্ষপাতী। তাতে একজন সাধারণ প্রার্থী ৪৪+১০+২০ = ৭৪% কোটা পাবে। তার সুযোগ অনেকখানি বাড়বে।

  10. চক্রবর্তী লোটাস August 20, 2015 at 2:31 pm - Reply

    আপনাকে অনেক ধন্যবাদ বর্তমান সময়ে অত্যন্ত আবশ্যিক একটি বিষয় নিয়ে লেখার জন্য। একটি উদাহরন দেয়া যাক, যেমন একটি বাচ্চা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কোঁটা থাকার জন্য ভিকারুন্নেসা অথবা ওইরকম ভালো স্কুলে অপেক্ষাকৃত কম মেধাবি হয়েও ভর্তি হতে পারছে। এরপর মেডিক্যাল বা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ক্ষেত্রেও সে কম মেধাবি হয়েও অনেক মেধাবিকে টপকে ভর্তি হতে পারছে। সেই একই ছেলে বা মেয়ে চাকুরী জিবনেও কোঁটা দিয়ে শত শত ছেলে মেয়েকে টপকে ভালো চাকুরী নিয়ে নিচ্ছে । এভাবে একজন কোঁটাধারি জীবনের সব ক্ষেত্রে এই সুবিধা পেয়ে যাচ্ছে, আমাদের চারপাশে খুঁজলে এমন প্রার্থী অনেক পাওয়া যাবে হয়তো। এটা নিশ্চিত ভাবেই কারো কাম্য নয়। তাই আমার মনে হয় কোঁটা পদ্ধতিটা এমন ভাবে সংস্কার করা উচিৎ যাতে একজন কোঁটা সম্পন্ন প্রার্থী তার সমগ্র জিবনে তার ইচ্ছেমত একবার একটি পরীক্ষায় কোঁটার সুবিধা ভোগ করতে পারবে। এতে যেমন মুক্তিযোদ্ধাদেরকে অসম্মান করাও হল না তেমনি তাদের ছেলে বা মেয়ে প্রত্যেকে বুঝবে যে তাদেরকে প্রতিযোগিতা করে জিবনে চলতে হবে। তবে একবার সে কোঁটার সুবিধা ভোগ করতে পারবে । এতে কিছুটা ভারসাম্য আসবে । আর আমি যতদূর শুনেছি পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে নাকি এই পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয় ( ভুল’ও হতে পারে) । যা হোক আমার মনে হয় এই বিষয়টা কর্তিপক্ষ বিবেচনা করতে পারেন ।<img style="width:400px" src="

  11. Nadim September 2, 2015 at 9:39 pm - Reply

    আমার মনে হয়……যদি এমন হয় যে মুক্তি যোধ্যা তার কোটা শুধু একবারই ব্যাবহার করতে পারবে সেটা স্কুল,কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয় অথবা চাকুরীর জন্য।
    তাহলে কিছুটা ভারসাম্য আসবে।
    তার সন্তান ১ টা হোক আর ৫ টা হোক। শুধু একবার এবং একজনের জন্য।

Leave A Comment

মুক্তমনার সাথে থাকুন