শাহবাগ কোন পথে ?

কলম ধরতেই হল !!

৫ই ফেব্রুয়ারী ২০১৩, আশা করি এই দিনটি বাংলাদেশের মানুষ কোন দিনও ভুলবেনা। বাঙালি জাতির কলঙ্ক মোচনের তাগিদে এক অবিস্মরনীয় জাগরণের দিন। পাকিস্তানের গর্ভ থেকে ‍‘বাংলাদেশ’ জন্ম লাভের সময় তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের হানাদার বাহীনির দেশীয় দোসর-দালাল রাজাকার-আলবদর-আলসামস তথা মানবতাবিরোধী অপরাধের অপরাধী তথা যুদ্ধাপরাধীদের অসমাপ্ত বিচার সম্পন্ন করার দাবী নিয়ে ১৯৭৫ সালে বাঙ্গালী জাতির পিতাকে হত্যার পর শহীদ জননী জাহানারা ইমামের নেতৃত্তে প্রথম ১৯৯২ সালে রাজপথে লাখ জনতার সমন্বয়ে সৃষ্টি হয় গনআদালত এবং গঠিত হয় একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি; তাদের পথ ধরে আন্দোলনকে পর্যায়ক্রমে এগিয়ে নিয়ে যায় সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম, মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের বিভিন্ন সংগঠন সহ শত শত সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন এবং সর্বশেষ শাহবাগ আন্দোলন তথা “গণজাগরণ মঞ্চ”।

আজ প্রায় একবছর সাত মাস পর আমাকে লিখতে হচ্ছে “শাহবাগ কোন পথে?” । ১৯৭৫ এর ১৫ই আগষ্টের পর রাজনীতিতে যেমন দ্বিধা বিভক্তি তৈরি হয়েছিল ঠিক তেমনি আজ স্বাধীনতার ৪৩ বছর পর নতুন প্রজন্ম আবারো দ্বিধা বিভক্তিতে নিজের পায়ে নিজেই ধারালো কুড়াল মারছে! হায় !!
দু:খ হচ্ছে আজ, আমি নিজেও একজন শাহবাগের যোদ্ধা। সেই উত্তাল দিনগুলোতে যখন যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের আন্দোলনে জাতি অধীর আগ্রহে আমাদের দিকে তাকিয়ে ছিল তখন ইমরান এইচ সরকার সহ আমরা মূলত ১৪টি সংগঠনের নেতারা সহ কিছু সংগঠকবৃন্দ বসে সিদ্ধান্ত গ্রহন করতাম কিভাবে আন্দোলন পরিচালিত হবে আর আমাদের সাথে ছিল বাংলাদেশের বারটি ছাত্র সংগঠন, ইমরান সরকারের ব্লগার এন্ড অনলাইন এক্টিভিষ্ট নেটওয়ার্ক, আমার সংগঠন যুদ্ধাপরাধ বিচারমঞ্চ সহ নানা সংগঠন এবং সংগঠকবৃন্দ। আমি এক এক করে সবার নাম বলতে পারব যারা সেই সময়ে গণজারণ মঞ্চের সংগঠক হিসাবে বিশেষ ভূমিকা পালন করেছিল। যাদের কথা কেউ কখনো বলেনি তাই তাদের ত্যাগের কথা আজ হয়তো কেউ জানেনা। তারা আজ শাহবাগে নেই ! এটা একটা বড় প্রশ্ন! কেন নেই তারা ? আন্দোলনের বলি রাজিব, দ্বীপ সহ আমার সেই সহযোদ্ধা বন্ধুদের স্মরণ করছি গভীর ভাবে যাদেরকে নৃশংস ভাবে হত্যা করা হয়েছিল।

‘শাহবাগ আন্দোলন’ আমরা এর নামকরণ করি ‘গণজাগরণ মঞ্চ’ হিসাবে, যা উত্তাল ছিল ৫ই ফেব্রুয়ারী থেকে ২০শে ফেব্রুয়ারী ২০১৩ পযর্ন্ত। এরপর ধীরে ধীরে এর প্রাণ হারাতে থাকে। ভাল কথা আমি ভুলেই গিয়েছিলাম ১২ টি ছাত্র সংগঠনের নামগুলো বলতে। নামগুলো জানা প্রয়োজন। আমি সংগঠনগুলোর নাম এবং তৎকালীন সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের নামগুলোও বলছি (১) বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দীকি নাজমুল আলম, (২) জাসদ ছাত্রলীগ, সভাপতি হোসাইন আহমেদ তাফসির ও সাধারণ সম্পাদক সামসুল ইসলাম সুমন, (৩) ছাত্রমৈত্রী, সভাপতি বাপ্পাদিত্য বসু ও সাধারণ সম্পাদক তানভির রুসমত, (৪) ছাত্র ইউনিয়ন, সভাপতি এস এম শুভ ও সাধারণ সম্পাদক হাসান তারেক, (৫) সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, সভাপতি সাইফুজ্জামান সাকন ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান তমাল, (৬) বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী, সভাপতি আব্দুর রউফ ও সাধারণ সম্পাদক হিল্লোল রায়, (৭) ছাত্র ফেডারেশন, সভাপতি প্রবীর সাহা ও সাধারণ সম্পাদক সৈকত মল্লিক, (৮) ছাত্র আন্দোলন, সভাপতি মনজুর রহমান মিঠু ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, (৯) বিপ্লবী ছাত্র সংহতি, সভাপতি মীর রেজাউল আলম ও সাধারণ সম্পাদক মো: রাশেদুল ইসলাম রাশেদ, (১০) ছাত্র ঐক্য ফোরাম, আহ্বায়ক সোহান সোবাহান, (১১) নাগরিক ছাত্র ঐক্য, আহ্বায়ক নাজমুল, (১২) ছাত্র সমিতির আহ্বায়ক শান্ত জোগন,

“গণজাগরণ মঞ্চ” প্রথম ধাক্কা খায় ২৬শে মার্চ ২০১৩তে ! সেদিন শাহবাগে আমাদের একটি সমাবেশ ছিল । ঠিক একমাস একুশ দিন পর আমাদের সমাবেশে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ থাকবেনা জানিয়ে দিল সাফ। ইমরান সরকারের চেহারায় অন্ধকার নেমে আসল। তখন আমি ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি বাপ্পাকে বল্লাম, ভাই ছাত্রলীগ সভাপতিকে ফোন করেন তিনি না আসলে আজ ব্লান্ডার হয়ে যাবে। বাপ্পার অনেক জোড়া-জড়িতে ছাত্রলীগ সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ সমাবেশে ঠিকই আসলো কিন্তু সেদিন ছাত্রলীগ কোন জমায়েত মানে তাদের তেমন কোন নেতা-কর্মী ছিল না। চোখে পড়ছিল বিষয়টা যেখানে লাখ মানুষের জমায়েতে আমরা সমাবেশ করেছিলাম সেদিন মাত্র হাজার খানিকের কম মানুষ হয়েছিল। যারা বলতেন এবং ধারণা করতেন গনজাগরণ মঞ্চ আওয়ামীলীগের সৃষ্টি এবং আওয়ামীলীগের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। তারা মনে মনে খুব খুশি হয়েছিল সেদিন। তাদের এই ধারনাটায় অনেক বড় ভুল ছিল। কারণ আমি নিজে দেখেছি গণজাগরণ মঞ্চের কেন্দ্রীয় মিটিংয়ে সেখানে গণতন্ত্রের চর্চা হতো। আমরা “ছাত্র-সামাজিক-সাংস্কৃতিক” সংগঠন মিলে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে প্রস্তাব পেশ এবং সেগুলো ঐক্যমতের মাধ্যমে পাস করে মুখপাত্র ইমরান সরকার মিডিয়ার সামনে তা পেশ করতেন। আমার ধারণা ছাত্রলীগ সাগঠনিক ভাবে গণজাগরণ মঞ্চ থেকে নিজেদেরকে সড়িয়ে নেবার পিছনে যে কারণগুলো ছিল তাদের মধ্যে অন্যতম হল আমাদের মিটিং যে সিদ্ধান্ত হতো সে সিদ্ধান্তের বাহিরে ইমরান নিজেই বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিজের মত করে মিডিয়ায় উপস্থাপন করত! আর এতে আমাদের মূলত এই চোদ্দটি সংগঠনের মাঝে ঐক্যের ফাটল ধরা শুরু করেছিল। ইমরান আমাদের সবার মুখপাত্র মাত্র, সে আমাদের সবার প্রতিনিধিত্ব করছিল! তবে কেন সে আমাদের নির্দিষ্ট ইস্যুর বাহিরে সুকৌশলে অবস্থান নিচ্ছিল তা আমাদের কাছে স্পষ্ট ছিল না!

আসলে আন্দোলন যেন রক্তে ঢুকে গেছে আমার গত বছর মাঝামাঝি সময়ে শাহবাগ ছেড়ে সাত দিনের জন্য কলকাতায় এসেছিলাম দক্ষিন এশিয়ায় জঙ্গিবাদ রোধে নাগরিক সমাজের ভূমিকা নিয়ে একটি পাঠচক্রে অংশগ্রহন করার জন্য। তখন কলকাতার রাজপথে আন্দোলন চলছিল “কামদুনির-প্রতিবাদে”। নিজেকে সামলে রাখতে পারলাম না। সাথে ছিল কলকাতার বন্ধু-দাদা জয়ন্ত। তাকে বললাম আমি যাব। সে আমায় নিয়ে গেলো কলেজ স্ট্রিটে !! পুরো পথটুকো হেটে প্রতিবাদি মিছিলে প্রতিবাদ করতে করতে আসলাম মূল মঞ্চের সামনে । কিযে ভাললাগা !! সেই অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা আমি কখনোই ভুলবনা। আমি দেখলাম কলকাতায় যে বয়সের যোদ্ধারা রাজপথে নেমেছিল বাংলাদেশে ঠিক তার বিপরীত মানে বেশিরভাগ তরুনরাই শাহবাগে অবস্থান করেছিল। ফিরে এলাম দেশে, এরিমধ্যে প্রেক্ষপট আরো খারপ হয়ে গেছিল, আমাদের সাথের সহযোদ্ধাদের অনেকেই নিরবে চলে যেতে লাগল।
“গণজাগরণ মঞ্চের” কফিনের প্রথম পেড়েকটি মারা পড়ল গোলাম আযমের রায়ের দিন, সেদিন আমি, আমার সংগঠনের নেতাকর্মী, ছাত্রমৈত্রীর, ছাত্র ইউনিয়নের, ছাত্র আন্দোলনের, ছাত্র ঐক্যফোরামের, ছাত্র সমিতির, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের একাংশের নেতাকর্মী সহ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান সরকার এবং শ’পাঁচেক কর্মী নিয়ে আমরা শাহবাগের রাজপথে মিছিল বের করি ঠিক তখন ছাত্র ফ্রন্টের কর্মীরা স্লোগান দিচ্ছিল ‍“শেখ হাসিনার সরকার, রাজাকারদের পাহাড়াদার”। আমি মিছিলের সামনে থেকে ইমরানকে বলি এই স্লোগান প্লিজ বন্ধ করতে বলেন !! প্রতিউত্তরে সে আমায় হাসতে হাসতে জবাব দেয় চলুক ভাই! চলুক না! তখনেই বুঝেছি আমাদের সবার বানানো নেতা আজ অন্য সুরে কথা বলছেন। তিনি আন্দোলন থেকে সড়ে এসছেন!! বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর পর একমাত্রই তার কন্যা শেখ হাসিনা সরকারই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করছেন । অন্য কোন সরকার কখনেই এদের বিচার করবে না, সেটা নিশ্চিত আমরা।

গণজাগরণ মঞ্চের ভাঙ্গন, প্রথম বছর শেষ না হতেই ৫ই ফেব্রুয়ারীতে ইমরান সরকারের ব্লগার এন্ড অনলাইন এক্টিভিষ্ট নেটওর্য়াক (বোয়ান) এর অধিকাংশ নেতাকর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পরে। একভাগ গণজাগরণ মঞ্চ নামকরণ করে শাহবাগে অবস্থান নেয়, আর এই অংশের শুরু দিকে নেতৃত্ব দেয় এফ এম শাহিন সহ তার সমমনারা এবং পরে কামাল পাশা তার হাল ধরে আর বাকিরা খোদ ইমরান সরকারের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে প্রেস কনফারেন্সে এর মাধ্যমে খোদ ইমরান সরকারকেই বাদ দিয়ে ব্লগার এন্ড অনলাইন এক্টিভিষ্ট নেটওর্য়াক (বোয়ান) এর নতুন কমিটি ঘোষণা করে। এদিকে শুরুর বারটি ছাত্র সংগঠন থেকে ছাত্রলীগ চলে যাবার পর অবশিষ্ট এগারোটি ছাত্র সংগঠনের মধ্যে ছাত্রমৈত্রী, জাসদ ছাত্রলীগ, ছাত্র আন্দোলন, ছাত্র ঐক্য ফোরাম ও ছাত্র সমিতি এই ৫টি ছাত্র সংগঠন একই ভাবে ইমরানের একক কর্তৃত্ব ও সেচ্ছা চারিতার প্রতিবাদে তার উপর অনাস্থা জানিয়ে প্রেস কনফারেন্স করে। পরিস্থিতি ঘোলাটে হতে থাকে। সবাই আমাদের দিকে তাকিয়ে থাকে আমরা যুদ্ধাপরাধ বিচারমঞ্চের পক্ষ থেকে সকল পক্ষকে ঐক্যবদ্ধ থেকে সমঝতার মাধ্যমে আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে একটি বিবৃতি দেই। এই পরিস্থিতিতে ইমরান সরকারের সাথে ছাত্র ইউনিয়ন ও ছাত্র ফ্রন্ট অবস্থান নেয়। আর অবশিষ্ট চারটি ছাত্র সংগঠন গণজাগরণ মঞ্চের কোন পক্ষেই অবস্থান না নিয়ে ছাত্রলীগের মত নিজেদের সাংগঠনিক অবস্থায় ফিরে যায়। আর দেখলাম এই সুযোগে সুবিধাবাদী দলেরা জামাত-বিএনপির এজেন্ডা বাস্তাবয়ন করতে ইমরান সরকারের আসে পাশে ঘুরা ঘুরি করে সুযোগ বুঝে ইমরান সরকারের আস্থাভাজন হবার চেষ্ঠা করছিল । সন্দেহ আরো ঘনিভূত হতে থাকে আসলেই কোন পথে চলছে শাহবাগ ?

মুখপাত্র গণজাগরণ মঞ্চ, ইমরান এইচ সরকার। পরিচয় তার অনেক। আমি গণজাগরণ মঞ্চ সৃষ্টি হবার আগে তাকে একজন তরুন রাজনীতিবিদ ডাক্তার হিসাবে চিনতাম। আগে তার সাথে অনেক ঘনিষ্ঠতাও ছিল। আমি ব্লগে এবং ফেসবুকে লিখতাম আর সংগঠন চালাতাম আর ইমরান সরকার আওয়ামীলীগ অফিসের মিডিয়া সেলে বসত আর আমার মত এক্টিভিষ্টদের সাথে যোগাযোগ তৈরির কাজ করত যারা মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণার কাজ করত। গণজাগরণ মঞ্চ হবার পর ইমরান সরকার কেমন যেন একটু দূরে চলে গেল সবার থেকে। মানে প্রায় সব স্তরের নেতা-কর্মীদের মধ্যে একই পরিস্থিতি সৃষ্টি হল। যা অবশ্যই অনাকাঙ্খিত। সবার ভিতরেই ইমরান সরকারকে নিয়ে নানা ক্ষোভ তৈরি হল। কিন্তু মুখপাত্র যেন সব কিছু বুঝেও না বোঝার ভান করে থাকত ! ইতিমধ্যে গণজাগরণ মঞ্চ একই নামে দুইটি ভাগে শাহবাগে অবস্থান নিয়েছে যা সবার চোখে পড়ছিল।

শাহবাগকে আবারো এক জায়গায় ঐক্যবদ্ধ করবার জন্য, আমরাই উদ্যোগ নিলাম তাই “শাহবাগ আন্দোলন” নামে আমরা ৭টি সংগঠন জোট বাধলাম, বোয়ান, যুদ্ধাপরাধ বিচারমঞ্চ, ছাত্রমৈত্রী, জাসদ ছাত্রলীগ, ছাত্র আন্দোলন, ছাত্র সমিতি এবং ছাত্র ঐক্য ফোরাম। আমাদের উদ্দেশ্য ছিল খন্ডিত শাহবাগকে একত্রিত করা। আর এ নিয়ে আমরা গণজাগরণ মঞ্চের কামাল পাশা ও শাহীন অংশের সাথে বারং বার বসলাম। তারা ইমরান সরকারের সাথে সমঝতা করতে নারাজ ছিল শুরুর দিকে পরে অবশ্য গত কয়েকদিন আগে যখন সাঈদীর রায় আমাদের কাঙ্খিত রায় হলো না তখন এই অংশ অবশ্য সমঝতা করতে রাজি হয়। অন্য দিকে আমরা যখন ইমরান অংশের সাথে শুরু থেকে ঐক্যের ডাক দেই প্রতি বারেই আমরা ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসি, তার পিছনে সবচেয়ে বড় কারন হল ইমরান সরকারের একজন উপদেষ্টা সাবেক ছাত্রদল নেতার বাধ সাধা। তারা চায়না এই আন্দোলন ঐক্যবদ্ধ হোক ! সর্বশেষ আমি শাহবাগ আন্দোলনের পক্ষ থেকে যখন ইমরান সরকারের সাথে একটি বৈঠক করি, আমি তাকে বলি ভাই পরিস্থিতি খুব খারাপ দেশ ও জাতির স্বার্থে আপনাকে সকল সমস্যা সমাধান করতে হবে। মূল সমস্যাটা হচ্ছিল আপনার একক কর্তৃত্ব, সেচ্ছাচারিতা এবং মুখপাত্র পদকে কেন্দ্র করে! সাথে গণজাগরণ মঞ্চের মূল চেতনার বাহিরে অন্যান্য ইস্যুতে মঞ্চের মুখপাত্রের অবস্থান এই পরিস্থিতির জন্যই দায়ি তাও বললাম তাকে। এখন উচিৎ সবাইকে ডেকে আপনার পদত্যাগ করা এবং আপনাকে সাথে নিয়ে অন্তত একটা জাতীয় সমন্বয় সেল তৈরি করা। এক ঘন্টার বেশি সময় ধরে চলা আমাদের সেই মিটিং ভেস্তে যায় ইমরান সরকারের অনঢ় অবস্থানের কারনে। তিনি সবাইকে নিয়ে সমঝতা চান না সাফ বলে দিলেন এবং আওয়ামীলীগ সমমনা কোন এক্টিভিষ্টদের কারো সাথে তিনি বসতে রাজি ননও এমন কি যারা গণজাগরণ মঞ্চের প্রথম দিককার সংগঠক হিসাবেও সুপরিচিত ছিল তাদের সাথেও নয়! আমি বুঝে গেলাম আমাদের সবার প্রিয় মুখপাত্র এক্টিভিষ্ট হিসাবে আর নেই তিনি একজন রাজনীতিবিদ হিসাবে আর্বিভাব হতে যাচ্ছেন। তা তিনি হতে পারেন, এতে কোন বাধা নেই তবে তার কোন অধিকারও নেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার এত বড় আন্দোলনকে নষ্ট করা।

সর্বশেষ ফাসির দন্ডপ্রাপ্ত কুখ্যাত রাজাকার সাঈদীর আপিলের রায় আমৃত্যু কারাদন্ড দেওয়ায় আমরা তিন পক্ষই শাহবাগে অবস্থান নেই। আমাদের মধ্যে উত্তেজনাও চলছে। যুদ্ধাপরাধীর রায় নিয়ে নয়। একে অপরকে উদ্দেশ্য করে বক্তব্য দেওয়াকে কেন্দ্র করে। অবস্থা দেখে আমরা শাহবাগ আন্দোলনের জোট আবারো গণজাগরণ মঞ্চর-ইমরান অংশ এবং গণজাগরণ মঞ্চ-পাশা অংশের সাথে আলোচানা বসি। পাশা-মঞ্চ সমঝতায় রাজি হলেও ইমরান-মঞ্চ আগের মতই তার নতুন মুখগুলো নিয়ে প্রস্তাব নাকচ করে দিল। অত্যান্ত দূর্ভাগ্যজনক । তার প্রতি ধিক্কার ছাড়া আরা কিছুই দেবার নেই। বাংলাদেশের মুক্তিকামী জনগনের চেতনা নিয়ে খেলা করবার কোন অধিকার ইমরান সরকারের নাই। ইমরান সরকার প্রকাশ্যে স্বাধীনতা বিরোধী এনজিও কর্মী এবং যুদ্ধাপরাধীর পক্ষে অবস্থান নেওয়া রাজনৈতিক দলের চিহ্নিত কর্মীদের নিয়ে যুদ্ধাপরাধীর বিচার দাবিতে আন্দোলন একটু বিব্রতিকর! সাধারণত রাজনীতিবিদরাই এমন কাজটি করতে পারেন। ইমরান সরকারকে বেছে নিতে হবে কোন পথে তিনি হাটতে চান ? শাহবাগের চেতনার পথে নাকি ব্যক্তি স্বার্থের পথে ? খুব মনে পড়ে স্লোগানটি – “ক্ষমতা না জনতা, জনতা জনতা” । “দালালী না রাজপথ, রাজপথ রাজপথ”। ইমরান সরকারকে অনুরোধ করব জনতার কাতারে এবং রাজপথে ফিরে আসতে। সব কিছু ভুলে ঐক্যে ডাক দিয়ে আন্দোলনকে সামনের দিকে আমাদের সবাইকে নিয়ে যেতে হবে। সামনে আরো কঠিন দিন অপেক্ষা করছে আমাদের জন্য। আমরা যদি এখনো ভুল পথে হাটি তবে ক্ষমতার হৃদ-বদলে হয়তো কখনো যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে আন্দোলন করার দায়ে আমাদেরও বিচার করবে স্বাধীনতা বিরোধীরা।

জয় বাঙলা।

প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, যুদ্ধাপরাধ বিচারমঞ্চ । www.warcrimetrialstage.org www.justice-for-genocide.org

মন্তব্যসমূহ

  1. কেশব কুমার অধিকারী অক্টোবর 1, 2014 at 11:37 পূর্বাহ্ন - Reply

    জনাব খালেদুর রহমান শাকিল,

    আমি রসি মজুমদারের কথার সাথে সহমত পোষন করি। তার পরেও কয়েকটা প্রশ্ন,

    “গণজাগরণ মঞ্চের” কফিনের প্রথম পেড়েকটি মারা পড়ল গোলাম আযমের রায়ের দিন, সেদিন আমি, আমার সংগঠনের নেতাকর্মী, ছাত্রমৈত্রীর, ছাত্র ইউনিয়নের, ছাত্র আন্দোলনের, ছাত্র ঐক্যফোরামের, ছাত্র সমিতির, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের একাংশের নেতাকর্মী সহ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান সরকার এবং শ’পাঁচেক কর্মী নিয়ে আমরা শাহবাগের রাজপথে মিছিল বের করি ঠিক তখন ছাত্র ফ্রন্টের কর্মীরা স্লোগান দিচ্ছিল ‍“শেখ হাসিনার সরকার, রাজাকারদের পাহাড়াদার”। আমি মিছিলের সামনে থেকে ইমরানকে বলি এই স্লোগান প্লিজ বন্ধ করতে বলেন !! প্রতিউত্তরে সে আমায় হাসতে হাসতে জবাব দেয় চলুক ভাই! চলুক না! তখনেই বুঝেছি আমাদের সবার বানানো নেতা আজ অন্য সুরে কথা বলছেন। তিনি আন্দোলন থেকে সড়ে এসছেন!! বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর পর একমাত্রই তার কন্যা শেখ হাসিনা সরকারই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করছেন । অন্য কোন সরকার কখনেই এদের বিচার করবে না, সেটা নিশ্চিত আমরা।

    আমারতো মনে হয় সেদিন গনজাগরণ মঞ্চের সমাবেশে এমন শ্লোগান অনভিপ্রেত ছিলোনা…কি বলেন? আমরা যুদ্ধাপরাধীদের সর্ব্বোচ্চ সাজা চাইছি, সেখানে সরকারী তরফে কোন রকমের অবহেলায এরা নিষ্কৃতি পেয়ে যাবে তা মানবো কি করে? আপনি এ শ্লোগান বন্ধ করতে বলছিলেন কেনো? প্রশাসনের উপরে জাতীয এবং আন্তর্জাতিক চাপকে অগ্রাহ্য যাতে সরকার করতে পারে তার উপায হিসেবে সরকারকে চাপে রাখতে কি এর দরকার নেই বলে মনে করেন?

    ইমরান সরকারের ব্লগার এন্ড অনলাইন এক্টিভিষ্ট নেটওর্য়াক (বোয়ান) এর অধিকাংশ নেতাকর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে পরে।

    এই বিভক্তি সরকারের কৌশলেই করা হয়েছে যদি বলি, যদি বলি ছাত্রলীগ নিজেদের সেখান থেকে সরিয়েছে আওয়্মীলীগের কারণে। বিপদ টের পেয়ে এবং দেশ ব্যাপী হেফাজতের তান্ডবে সরকার পিছু হটেছে এবং শাহবাগের পিঠে পেছন থেকে ছুড়ি মেরেছে! তদুপরি তখন ৪জন ব্লগারকে অশ্লিলভাবে গেফতার একটি উদাহরণ বৈকি! কই তাদের কি দোষ ছিলো, তা তো প্রকাশ করা হলোনা! তাহলে সরকারের এমন একটি ন্যক্কার জনক কাজকে কি আমাদের বৈধতা দিতে হবে? মেনে নিতে হবে?

    আর বাকিরা খোদ ইমরান সরকারের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে প্রেস কনফারেন্সে এর মাধ্যমে খোদ ইমরান সরকারকেই বাদ দিয়ে ব্লগার এন্ড অনলাইন এক্টিভিষ্ট নেটওর্য়াক (বোয়ান) এর নতুন কমিটি ঘোষণা করে।

    এই বাকীদের মধ্যে কারা কারা আছে? বর্তমান সরকারের অংশীদারেরা নয়তো? দেখুন তো হিসেব মেলে কিনা? যারা সরকারের অংশিদার নয় তারা যেমন, ছাত্র ইউনিয়ন ছাত্র ফ্রন্ট এখনো নেই কি? আর এমরান সরকার কে হটাবার প্রয়োজনীয়তা এতো ব্যপক ভাবে এলো কেনো? আপনাদের কোন্ কোন‌্ সর্ব সম্মত ভাবে গৃহীত সিদ্ধান্তের বাইরে তিনি ছিলেন তা তো বললেন না!

    আর দেখলাম এই সুযোগে সুবিধাবাদী দলেরা জামাত-বিএনপির এজেন্ডা বাস্তাবয়ন করতে ইমরান সরকারের আসে পাশে ঘুরা ঘুরি করে সুযোগ বুঝে ইমরান সরকারের আস্থাভাজন হবার চেষ্ঠা করছিল । সন্দেহ আরো ঘনিভূত হতে থাকে আসলেই কোন পথে চলছে শাহবাগ ?

    এই সুবিধাবাদী দল গুলো কারা তা দয়া করে প্রকাশ করুন। আমরা দেখি এরা সত্যিই জামাত-বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়নের ক্ষমতা রাখে কিনা!

    তারা ইমরান সরকারের সাথে সমঝতা করতে নারাজ ছিল শুরুর দিকে পরে অবশ্য গত কয়েকদিন আগে যখন সাঈদীর রায় আমাদের কাঙ্খিত রায় হলো না তখন এই অংশ অবশ্য সমঝতা করতে রাজি হয়। অন্য দিকে আমরা যখন ইমরান অংশের সাথে শুরু থেকে ঐক্যের ডাক দেই প্রতি বারেই আমরা ব্যর্থ হয়ে ফিরে আসি, তার পিছনে সবচেয়ে বড় কারন হল ইমরান সরকারের একজন উপদেষ্টা সাবেক ছাত্রদল নেতার বাধ সাধা। তারা চায়না এই আন্দোলন ঐক্যবদ্ধ হোক !

    কে এই সাবেক ছাত্রদল নেতা? পরিচয় প্রকাশ না করে এভাবে বললে তো বিভ্রান্তির জন্ম হয়! আমরা তো পত্র পত্রিকায় অন্যরকম জেনেছি! জেনেছি অন্যেরা কিছুতেই ইমরান সরকারের আপাতঃ নেতৃত্ত্ব মেনে নিতে রাজি নন। কারণ শাহবাগের নিয়ন্ত্রন সরকার নিজে করতে চায়…! কেনো?

    সর্বশেষ আমি শাহবাগ আন্দোলনের পক্ষ থেকে যখন ইমরান সরকারের সাথে একটি বৈঠক করি, আমি তাকে বলি ভাই পরিস্থিতি খুব খারাপ দেশ ও জাতির স্বার্থে আপনাকে সকল সমস্যা সমাধান করতে হবে। মূল সমস্যাটা হচ্ছিল আপনার একক কর্তৃত্ব, সেচ্ছাচারিতা এবং মুখপাত্র পদকে কেন্দ্র করে! সাথে গণজাগরণ মঞ্চের মূল চেতনার বাহিরে অন্যান্য ইস্যুতে মঞ্চের মুখপাত্রের অবস্থান এই পরিস্থিতির জন্যই দায়ি তাও বললাম তাকে। এখন উচিৎ সবাইকে ডেকে আপনার পদত্যাগ করা এবং আপনাকে সাথে নিয়ে অন্তত একটা জাতীয় সমন্বয় সেল তৈরি করা। এক ঘন্টার বেশি সময় ধরে চলা আমাদের সেই মিটিং ভেস্তে যায় ইমরান সরকারের অনঢ় অবস্থানের কারনে।

    আপনার এ কথা থেকে কি আমার উপড়ের ধারনা বদ্ধমূল হয়না? একই ইস্যূতে সব এক্টিভিষ্টগন বসে সিদ্ধান্ত না নিয়ে নেতৃত্ত্ব নিয়ে টানাটানির দরকার কি ছিলো? তিনি মুখপাত্র ছিলেন বেশ। সিদ্ধান্ত সবাই নিতেন, এবং লিখিত বক্তব্য পাট করতেন তিনি, যা তিনি করছিলেন বলেই তো জানি! আমার তো মনে হয় আপন গতিতে সঞ্চারিত এই আন্দোলনে সমন্বয় কমিটি গঠনের প্রস্তাবটিই ছিলো মারাত্মক একটি ভুল । নেতৃত্ত্ব তো চাপিয়ে দিযে হয়না, নেতৃত্ত্ব গড়ে উঠে একটি স্বতঃস্ফূর্ত আন্দোলনের ধারাবাহিকতায়!

    ইমরান সরকার প্রকাশ্যে স্বাধীনতা বিরোধী এনজিও কর্মী এবং যুদ্ধাপরাধীর পক্ষে অবস্থান নেওয়া রাজনৈতিক দলের চিহ্নিত কর্মীদের নিয়ে যুদ্ধাপরাধীর বিচার দাবিতে আন্দোলন একটু বিব্রতিকর!

    ইমরান সরকারের সাথে এখন কারা আছেন? কারা স্বাধীনতা বিরোধী? বিষযটি খোলাশা করবেন? আপনার বক্তব্যে অনেক অস্পষ্টতা আছে। আপনি একাধিকবার ইমরান সরকারের সাথে বসেছেন, আপনি কি ব্যক্তি হিসেবে বসেছেন নাকি কোন সংগঠনের হয়ে? সে সংগঠনের পরিচয় কি? আপনার বক্তব্য থেকে স্পষ্ট যে আপনি শাহবাগ আন্দোলনের একজন সক্রিয় নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিত্ত্ব। কিন্তু যেভাবে আপনি ইমরান সরকার বিষয়ে বলছেন, তাতে বিষোদগার প্রকাশ পায়, সমঝোতার লেশমাত্র সেখানে অনুপস্থিত! আপনি ইমরান সরকার কে সমঝোতার জন্যে বৈঠকে বসে তাঁকে বললেন যে তিনি স্বেচ্ছাচারী তাই তার পদত্যাগ করা উচিৎ……এটি কি সমঝোতার প্রকৃয়ার উপায় নাকি বলপ্রয়োগে কউকে তার অবস্থান থেকে সরিয়ে দেবার মতো উদ্যোগ?

    আপনি বা আপনারা ইমরান সরকারকে জনতার কাতারে আসতে বলছেন, আপনারা নিজেরাই কি জনতার কাতারে আছেন? আমি বলতে চাইছি জনতা কি আপনাদের সাথে আছে? কেন নেই তা কি ভেবেছেন? আমি শাহবাগ কে কোন রাজনৈতিক দলের প্ল্যাটফরম হিসেবে দেখতে প্রস্তুত নই। এটি একটি স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে গড়ে উঠা তারুন্যের শিখার মতো গনবিস্ফোরণ ছিলো। সেভাবেই এর পরিনতি প্রাপ্তি ছিলো কাম্য।

    বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর পর একমাত্রই তার কন্যা শেখ হাসিনা সরকারই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করছেন । অন্য কোন সরকার কখনোই এদের বিচার করবে না, সেটা নিশ্চিত আমরা।

    একথা ঠিক এবং তা আমরা সবাই কোন রকম আপত্তি ছাড়াই মেনে নিতে প্রস্তুত। তাই বলে এই গড়ে উঠা আন্দোলনকে ইস্যু করে ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকারকে তো যা ইচ্ছে তাই করার কিংবা তাদের ইচ্ছে মাফিক রাজনৈতিক নোংড়ামোর অনুমতি দেওয়া যায়না, কি বলেন? কাজেই আন্দোলনের রাস থাকতে হবে গনজাগরণের নেতৃত্ত্বের হাতেই, কোন রাজনৈতিক দলের প্রলম্বিত হাতে নয়, তাই না?

    আপনি নিজেই বলেছেন,

    তাদের এই ধারনাটায় অনেক বড় ভুল ছিল। কারণ আমি নিজে দেখেছি গণজাগরণ মঞ্চের কেন্দ্রীয় মিটিংয়ে সেখানে গণতন্ত্রের চর্চা হতো। আমরা “ছাত্র-সামাজিক-সাংস্কৃতিক” সংগঠন মিলে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে প্রস্তাব পেশ এবং সেগুলো ঐক্যমতের মাধ্যমে পাস করে মুখপাত্র ইমরান সরকার মিডিয়ার সামনে তা পেশ করতেন।

    তাহলে ইমরা সরকার মুখপাত্র হিসেবে যে লিখিত বক্তব্য পাঠ করতেন তা তো আপনাদেরই করা! সেআই প্রকৃয়ার বাইরে গিয়ে আপনাদের মাঝে নেতৃত্ত্বের এই কোন্দল কেনো? আপনাদের তারুণ্যের যে ঐশর্য্য তা মলিন হলো কেনো? আপনি একতরফা ভাবে ইমরান সরকারকে দায়ীকরে যে বক্তব্য উপস্থাপন করলেন, আমার কেনো যেনো মনে হয় ওতে ত্রুটি আছে। হয়তো আমি নিজেও কম বুঝেছি। আশা করবো বিষয় গুলো পরিষ্কার করবেন।

    • খালেদুর রহমান শাকিল অক্টোবর 1, 2014 at 4:12 অপরাহ্ন - Reply

      @কেশব কুমার অধিকারী, ধন্যবাদ ভাই আপনার বিশ্লেষনের জন্য। কিন্তু শুরুতেই আমার একটা নীতির কথা বলি আমি আলোচনা বা তর্ক করি ভার্চুয়াল এবং বাস্তবিক জগতের একই ব্যক্তি সাথে । কিন্তু সে ব্যক্তি যদি ভার্চুয়াল জগতে এক নামে থাকে আর বাস্তবিক জগতে আরেক পরিচয়ে থাকে যা নিজের কাথে অজানা । আমি অত্যন্ত দু:খের সাথে বলছি তার সাথে আমি আলোচনা বা তর্কে জড়াই না এতে শুধু সময়ের অপচয় মাত্র । আমি আপনার সব প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিতে প্রস্তুত কিন্তু আপনি কি আপনার সঠিক পরিচয় দিতে প্রস্তুত । যদি থেকে থাকেন তবে সঠিক পরিচয় নিয়ে আমার সাথে আলাপ-আলোচনা শুরু করুন আমিও আলোচনা করব।

      আসলে সঠিক পরিচয় নিয়ে আলোচনা করতে অনেকেরই সমস্যা হয় । তাই অনেকেই ফেইক পরিচয় নিয়ে কোমড় বেধে বসেন । তাই বললাম । যা হোক আমার কথায় ভুল বুঝবেন না ।

      • লাবিব ওয়াহিদ অক্টোবর 1, 2014 at 5:36 অপরাহ্ন - Reply

        @খালেদুর রহমান শাকিল, হাসাবেন না আর প্লিজ। পেটে ব্যথা পাই। শেখ পরিবারের সেজদা করলেই কেবল আম্লিগের বন্ধু হওয়া যায়, আর মাথাটা একবার ওঠালেই শত্রু- এই হলো মুজিবীয় গণতন্ত্র। ঐযে আহমদ ছফা একবার বলেছিলেন না, “আওয়ামী লীগ তার বন্ধুকে শত্রুতে পরিণত করে” সেটাই আরকি। শত্রুতে পরিণত তো করেই, একেবারে নাকাল করে ছাড়ে। যতক্ষণ ক্ষমতালাভের কাজে আসে ততক্ষণই মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, বাঙ্গালিত্ব, ধর্মনিরপেক্ষতা হেনতেন কচকচান, তারপর সেই শেখ তনয়াই জামাত হেফজতের কদমবুসির জন্য সাকা হয়ে থাকেন। যান ফুটেন, অনেক গিলছি আর গিলুম না।

  2. রসি মজুমদার সেপ্টেম্বর 30, 2014 at 2:07 অপরাহ্ন - Reply

    ক্ষমতার রাজনীতি এবং গনমানুষের দাবী আদায়ের সংগ্রাম বিপরীতমুখী।আমরা যারা আমজনতা তাদের দেখার বিষয় হচ্ছে কারা গণদাবীর পক্ষে রাজপথে আছে আর কারা ক্ষমতার রাজনীতিতে ঘুরপাক খাচ্ছে।আমরা কারো এজেন্ডা পূরণের জন্য শাহবাগে যাইনি।নিজেদের আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন দেখতে পেয়েছিলাম বলেই শাহবাগে গিয়েছি।আজ যখন সংগঠকরা নিজেদের মধ্যে কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি করছে তখন সাধারন মানুষ বিভ্রান্ত হচ্ছে।তারা আস্থা হারিয়ে ফেলছে।কিন্তু আমাদেরকে বুঝতে হবে আমরা নিজেদের আকাঙ্ক্ষা পূরণের জন্যই একদিন শাহবাগে গিয়েছিলাম। কোন নেতার কিংবা দার্শনিকের অনুসারী হয়ে নয়।তাই আমাদেরকে যৌক্তিকভাবে বিশ্লেষণ করে খুঁজে বের করতে হবে কারা আমাদের এই দাবী নিয়ে আজো রাজপথে লড়াই করছে।অপরদিকে চিন্হিত করতে হবে সেইসব দালালদের যারা দলীয় রাজনীতির এজেন্ডা পূরণের জন্য মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বিক্রি করতে পিছপা হয় না। যারা আপোষ করেনি আমাদেরকে তাদের সাথে রাজপথে থাকতে হবে। সেটা করতে হবে আমাদের নিজেদের প্রয়োজনেই।তাই আবেগ দিয়ে নয় বরং যৌক্তিক বিশ্লেষণ করে খুঁজে বের করতে হবে কারা আপোষকামী এবং কারা সংগ্রামী।যারা আপোষ করবে তারা যত ক্ষমতাবানই হোক না কেন,একদিন ইতিহাসের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হবে।

  3. তামান্না ঝুমু সেপ্টেম্বর 30, 2014 at 8:29 পূর্বাহ্ন - Reply

    অনেকদিন পর আপনার লেখা পেলাম।

  4. কাজী রহমান সেপ্টেম্বর 30, 2014 at 4:53 পূর্বাহ্ন - Reply

    ঠিক দু বছর পর মুক্তমনা’য় লিখলেন।

    পাকিস্তানের গর্ভ থেকে ‍‘বাংলাদেশ’ জন্ম লাভের সময় …………..

    এইটা কি হোল? পাকিস্তান কি বাংলাদেশের মা নাকি? মুক্তিযুদ্ধ তা হলে কি? এখানে আসলে কি বলেছেন ব্যখ্যা করুন না হয় বাক্যটি এডিট করে আপনার বক্তব্য পরিস্কার করে বলুন। আর একটা কথা; বিশ্বব্যাপী যেসব বাঙালি ব্লগার মুক্ত জনমত তৈরিতে ৫ই ফেব্রুয়ারী ২০১৩ এর আগে ও পরে এবং সে সময় লিখেছেন তাদের কথা মনে আছে তো?

    • খালেদুর রহমান শাকিল সেপ্টেম্বর 30, 2014 at 10:08 পূর্বাহ্ন - Reply

      @কাজী রহমান, ধন্যবাদ । আসলেই ঠিক দু’ বছর পরেই লিখেছি । ”

      পাকিস্তানের গর্ভ থেকে বাংলাদেশ জন্ম লাভ “

      কথাটা বলেছি ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ততো আমরা পূর্ব আর পশ্চিম পাকিস্তান ছিলাম ! সেই দৃষ্টি ভঙ্গি থেকে লেখা !!!

      ৫ই ফেব্রুয়ারী আন্দোলন সংগ্রাম শুরু হয়নি ।। তার আগে থেকেই বিশ্বব্যাপী বহু বাঙালি ব্লগার মুক্ত জনমত তৈরিতে কাজ করে আসছিল তাদের কথা কি ভুলা যায় ভাই ।।।।

  5. কিন্তু কেন সেপ্টেম্বর 30, 2014 at 3:31 পূর্বাহ্ন - Reply

    সাকিলের লেখাটা পড়ে কলম হাতে না নিয়ে থাকতে পারলাম না , সাকিলের সাথে আমার পরিচয় গণজাগরণ আন্দোলন শুরু হবার অনেক অনেক আগেই , কারণ, ৭১এর অপরাধীদের বিচার নিয়ে আমাদের মনের মিল ছিল , দাবী ছিল , তাই ছিল সহমত |
    সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে , শুরুতেই বলছি, আমি একজন প্রবাসী । অন লাইনে ৭১এর যুদ্ধপরাধীদের বিচারের দাবীতে সোচ্চার অনেক অনেক গুলো বছর, যুদ্ধাপরাধ বিচারমঞ্চ সংগঠনের একজন প্রবাসী কর্মী | কেউ কেউ হয়তো ভাবছেন শাহাবাগের আন্দোলনের সাথে আমার মত এতো ক্ষুদ্র একজন মানুষের সম্পৃক্ততা কতটুকু ? যারাই এই অন লাইন আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত, শুধু মাত্র তারাই হয়তো আমাকে চিনতে পারবেন |
    অতিক্ষুদ্র আমি শুরুতেই সবার কাছে ক্ষমা চয়ে নিচ্ছি , যদিবা আমার লেখাতে কেউ মনক্ষুন্ন হয়ে পরেন |
    আমাদের প্রথম থেকেই মুখপাত্র ব্যবস্থা থেকে সরে এসে , এই আন্দোলনকে দৈনিক কর্মসূচির উপর ভিত্তি করেই পরিচালনা করা, কারণ দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি প্রতিদিন পাল্টাচ্ছে , হয়তবা এই আন্দোলনকে একটা সংগঠনক রূপ দেয়া |
    একটি আন্দোলন যেখানে মানুষের মনের দাবী প্রতিফলণ থাকবে সেখানে জনগনের সমর্থন থাকবেই , একটি আন্দোলন কোনদিনই জন সমর্থন ছাড়া সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে না, আন্দোলনকারীদের মাঝে অপসংস্কৃতির কোনই স্থান নেই , আন্দোলনে থাকে সততা, স্বচ্ছতা, আর জবাবদিহিতা |
    আমার ছোট্ট একটা প্রশ্ন মুখপাত্র ইমরান সরকারের কাছে , আপনার মাঝে এসবের অভাব ছিল কি ? তাই যদি না হয়, তবে সবাই আপনাকে ছেড়ে একে একে চলে যাচ্ছেন কেন ?
    বাংলাদেশ আওয়ামি লীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে কতটুকু বাস্তাববে রূপ দেবে কি দেবে না , সেটা দেখার দায়িত্ব জনগনের , জনগনই সেটার রায় দেবে | কিন্তু আমাদের দাবী ছিল বর্তমান সরকারের কাছে সুবিচার প্রতিষ্ঠিত করা, জনাব ইমরান এইস সরকার, আপনার কি ধারণা এই সরকার ছাড়া অন্য কোন সরকার এলে আমরা সুবিচার পাবো ? আমাদের নিশ্চয়ই উচিত ছিল সকারের মাঝে কেউ যেনো জামাতের সংস্পর্শে আসতে না পারে সেই দিকে দৃষ্টি দেয়া , সরকার উত্খাতের আন্দোলন নয় | আপনার ভাব ভঙ্গী দেখি এখন উল্টো পথে চলতে শুরু করেছে | বর্তমান প্রধানমন্ত্রীকে হাতে রেখেই আমাদের দাবী দেয়াগুলো আদায় করা, এ মুহুর্তে এমন কেউ নেই যে এই বিচারকে সুনিদৃষ্ট পথে এগিয়ে নিয়ে যাবে, কাজেই শেখ হাসিনাই একমাত্র ভরষা |
    মুখপাত্র জনাব ইমরান এইচ সরকার, আপনি যদি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে মনে প্রাণে লালন করেন , তবে সেই পথেই গণজাগরণ কে পরিচালিত করতে হবে , বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলার মানুষকে একত্রিত করতে পেরেছিলেন, জনাব ইমরান এইচ সরকার আপনার প্রতি আমি সম্পূর্ণ শ্রধ্যা রেখেই বলছি, আপনি চাইলেই গণজাগরণের মাঝে এই বিভিক্ত কমিয়ে আনতে পারেন, সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিন | বঙ্গবন্ধুকে , দল , ধর্ম , বর্ণ, গোত্রের উর্ধে রাখুন , তিনি আমাদের জাতীয় নেতা আর আদর্শ , আপনাকে এই দেশের স্বার্থে, গণজাগরণের স্বার্থে , সাহাবাগের স্বার্থে আমাদের মাঝে এই বিভাজন কমিয়ে আনতে এগিয়ে আসতে হবে |
    বাংলাদেশ আওয়ামি লীগ বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে কতটুকু বাস্তাববে রূপ দেবে কি দেবে না , সেটা দেখার দায়িত্ব জনগনের , জনগনই সেটার রায় দেবে |
    মুখপাত্র জনাব ইমরান এইচ সরকার, আপনি যদি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে মনে প্রাণে লালন করেন , তবে সেই পথেই গণজাগরণ কে পরিচালিত করতে হবে , বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ এর স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলার মানুষকে একত্রিত করতে পেরেছিলেন, জনাব ইমরান এইচ সরকার আপনার প্রতি আমি সম্পূর্ণ শ্রধ্যা রেখেই বলছি, আপনি চাইলেই গণজাগরণের মাঝে এই বিভিক্ত কমিয়ে আনতে পারেন, সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিন | বঙ্গবন্ধুকে , দল , ধর্ম , বর্ণ, গোত্রের উর্ধে রাখুন , তিনি আমাদের জাতীয় নেতা আর আদর্শ , আপনাকে এই দেশের স্বার্থে, গণজাগরণের স্বার্থে , সাহাবাগের স্বার্থে আমাদের মাঝে এই বিভাজন কমিয়ে আনতে এগিয়ে আসতে হবে |

    • খালেদুর রহমান শাকিল সেপ্টেম্বর 30, 2014 at 12:43 অপরাহ্ন - Reply

      @কিন্তু কেন, ভাইয়া আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদ । চুল চেড়া বিশ্লেষন করার জন্য ।

মন্তব্য করুন