মুজিব ও তিরিশ লাখ শহীদঃ ভুল না আনুষঙ্গিক?

দেশের অর্ধেক মানুষ মনে করে একাত্তরে তিরিশ লক্ষ শহীদ অতিরঞ্জন।

কোন ভাবেই এত কম সময়ে এত বেশী মানুষ মেরে ফেলা সম্ভব না। মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা বড়জোর তিন লাখ, এমনকি কমও হতে পারে। আর মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা তিরিশ লক্ষ এই আষাঢ়ে গল্পের প্রবক্তা শেখ মুজিব। আর সেই আষাঢ়ে গল্পটা প্রথম মঞ্চস্থ হয় বাহাত্তরের আটই জানুয়ারি, মুজিব যখন পাকিস্তান থেকে লন্ডনে আসেন। সেখানে সাংবাদিকরা মুক্তিযুদ্ধে দেশের ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে জানতে চান। শেখ মুজিব এমনিতেই ভার্সিটি আউট স্টুডেন্ট ছিলেন, স্বাভাবিক ভাবেই ইংরেজী ভালো জানতেন না। তাই ভুল মৃতের সংখ্যা 3 Lac বলতে গিয়ে 3 Million বলে ফেলেন।

খুবই চমৎকার এবং যৌক্তিক থিউরি,
এই থিউরি সমাধানের জন্য সমস্যাটার কয়েকটা গুরুতর অংশ নিয়ে আমি প্রথমেই আলোচনা করবো।

আমার আজকের নিবন্ধের উদ্দেশ্য এটা নিরূপণ করা নয় মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা কত। সেই কাজটি বহু আগেই দেশের প্রচুর মুক্তিযুদ্ধ গবেষকেরা করে গেছেন সুনিপুণ ভাবেই। আপনারা চাইলে মুক্তমনায় ব্লগার যুঞ্চিক্তরের কালজয়ী লেখা ‘ত্রিশ লক্ষ শহীদ : মিথ নাকি বাস্তবতা’ আর্টিকেলটি পড়ে দেখতে পারেন, আমি নিশ্চিত এই লেখা আপনাদের নতুন করে চিন্তার খোরাক জোগাবে। এরপর পড়ে দেখতে পারেন ব্লগার তারিক লিংকনের লেখা ‘বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন, প্রসঙ্গঃ ৩০ লাখ বাঙালী হত্যার আইকনিক মিথ’।

তবে সত্য মিথ্যা যাই হোক আমার আজকের উদ্দেশ্য এটা খুঁজে বের করা মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা তিরিশ লক্ষ এই গল্পের প্রথম প্রবক্তা কি সত্যিই শেখ মুজিব কি না।

যদি ধরে নেই একাত্তরে তিরিশ লক্ষ মানুষের শহীদ হওয়াটা একান্তই মুজিব সাহেবের মস্তিষ্ক প্রসূত, আসল সংখ্যাটা তিন লাখ। তাহলে প্রথমেই জেনে নেওয়া দরকার মুক্তিযুদ্ধের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিয়ে এই তিন লাখ ফিগারটিই বা আসলো কোথা থেকে। তিরিশ লাখ আগে এসেছে নাকি তিন লাখ। এছাড়া আর কোন ফিগার কি আছে।

একটু ঘটাঘাটি করতেই সত্য বেরিয়ে এলো। একাত্তর সালেই মুক্তিযুদ্ধের প্রথম লগ্নে অর্থাৎ মার্চে পাকিস্তানে জেনারেল ইয়াহিয়া খান সদম্ভে বলেছিলেন,

“ওদের ত্রিশ লক্ষ হত্যা কর, বাকীরা আমাদের থাবার মধ্যে থেকেই নিঃশেষ হবে।”

Robert Payne, Massacre, The Tragedy of Bangladesh and the Phenomenon of Mass Slaughter Throughout History; P:50; New York, Macmillan, 1973

সত্যি বলতে, দেখা যাচ্ছে প্রথম ভুলটা ছিলো জেনারেল ইয়াহিয়া খানের তিনিই সম্ভবত তিন লাখ বলতে গিয়ে তিরিশ লাখ বলে ফেলেছিলেন। কিন্তু তিনিই শেষ না; মাওলানা ভাষানি যুদ্ধের মাঝামাঝি সময়েই দশ লক্ষ হত্যাকাণ্ডের কথা বলেছিলেন।

কবি আসাদ চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধের সময় লিখেছেন তার শ্রেষ্ঠ কবিতা ‘বারবারা বিডলারকে’ তার কয়েকটা লাইন তুলে দেই;

“তোমাদের কাগজে নিশ্চয়ই ইয়াহিয়া খাঁর ছবি ছাপা হয়-
বিবেকের বোতামগুলো খুলে হৃদয় দিয়ে দেখো;
ওটা একটা জল্লাদের ছবি।
পনেরো লক্ষ নিরস্ত্র লোককে ঠাণ্ডা মাথায় সে হত্যা করেছে…”

আমার মনে হয় কবি আসাদ চৌধুরী সম্ভবত পনেরো হাজার বলতে গিয়ে বলেছিলেন পনেরো লক্ষ।

মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত হতো ‘চরমপত্র’। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সবচেয়ে জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ছিলো এম আর আখতার মুকুল রচিত ও উপস্থাপিত চরমপত্র।

‘চরমপত্র’ অনুষ্ঠানটি স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্র চালু হওয়ার দিন ২৫শে মে থেকে শুরু করে ১৬ই ডিসেম্বর বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার দিন পর্যন্ত প্রতিদিন প্রচারিত হয়েছে। ‘চরমপত্র’ – এর প্রতিটি অধ্যায় রচনা ও পাঠ করেন এম আর আখতার মুকুল। ‘চরমপত্র’ ছিল ব্যাঙ্গাত্মক ও শ্লেষাত্মক মন্তব্যে ভরপুর একটি অনুষ্ঠান মূলত এটা ছিলো খবরের অনুষ্ঠান। মানসম্মত রেকর্ডিং স্টুডিওর অভাবে টেপ রেকর্ডারে ‘চরমপত্র’ রেকর্ডিং করা হতো এবং ৮-১০ মিনিটের এই টেপ নিয়মিতভাবে স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের ট্রান্সমিটার থেকে প্রচারিত হতো। ‘চরমপত্র’ – এর প্রতিটি অনুষ্ঠানের রচনা ও ব্রডকাস্টিং-এর জন্য এম আর আখতার মুকুল এর পারিশ্রমিক নির্ধারিত হয়েছিল ৭ টাকা ২৫ পয়সা।
চরমপত্রের শেষ প্রচার দিবস অর্থাৎ ১৬ ডিসেম্বরের কিছু অংশ সরাসরি তুলে দিচ্ছি;

…২৫ শা মার্চ তারিখে সেনাপতি ইয়াহিয়া খান বাঙ্গালিগো বেশুমার মার্ডার করনের অর্ডার দিয়া কি চোটপাট! জেনারেল টিক্কা খান সেই অর্ডার পাইয়া ৩০ লাখ বাঙ্গালির খুন দিয়া গোসল করলো। তারপর বঙ্গাল মুলুকের খাল-খন্দক, দরিয়া-পাহাড়, গেরাম-বন্দরের মইদ্দে তৈরি হইলো বিচ্ছু…

(চরমপত্র; পৃঃ৩২৫)

সাংবাদিক এন্থনি মাসকারেনহাস মুক্তিযুদ্ধের সময়ই লিখেছিলেন “আশি লক্ষ মানুষ কেন মারা যাবে”।যেই আর্টিকেল পরবর্তীতে তার কালজয়ী গ্রন্থ ‘দ্যা রেইপ অব বাংলাদেশ’ গ্রন্থে লিপিবদ্ধ হয়। দৈনিক পূর্বদেশের সম্পাদক তার পত্রিকায় ২২.১২.১৯৭১ তারিখে “ইয়াহইয়া জান্তার ফাঁসি দাও” শিরোনামে একটি সম্পাদকীয় লেখে। সেখানে পরিস্কার লেখা হয়,

“হানাদার দুশমন বাহিনী বাংলাদেশের প্রায় ৩০ লাখ নিরীহ লোক ও দু’শতাধিক বুদ্ধিজীবিকে নির্মমভাবে হত্যা করেছে…”

এটা প্রকাশিত হয় কিন্তু বাহাত্তরের আগে, অর্থাৎ মুজিব দেশে আসারও আঠারো দিন আগের কথা। তখনও দেশের সবখান থেকে পাকিস্তানী শত্রুমুক্ত হইনি আমরা।

এরপর আন্তর্জাতিক মহলে আসি; রাশিয়ার কমিউনিষ্ট পার্টির মুখপত্র “প্রাভদা পত্রিকা” ডিসেম্বরেই ৩০ লক্ষ শহীদের বিষয়টি তাদের পত্রিকায় প্রকাশ করে। তাদের পত্রিকায় দেখা যায়;

“over 30 lakh persons were killed throughout Bangladesh by the Pakistani occupation forces during the last nine months”।

ঢাকার পত্রিকা দৈনিক অবজারভার শিরোনাম করে এভাবে, Pak Army Killed over 30Lakh people” যেটা প্রকাশিত হয় ০৫.০১.১৯৭২ তারিখে মুজিব দেশে আসার ৩ দিন আগে।

লেখার শুরুতেই বলেছিলাম এই প্রবন্ধের উদ্দেশ্য মুক্তিযুদ্ধের ক্ষয় ক্ষতি চুলচেরা পরিমাপ নয় বরং এটা অনুসন্ধান করা যে শহীদের সংখ্যা তিরিশ লক্ষ এই আষাঢ়ে গল্পের প্রবক্তা কি আসলেই শেখ মুজিব কি না। ফ্যক্টস এন্ড ডকুমেন্টস যাচাই করে এই পর্যন্ত পড়ে আসা যেকোন একজন সুস্থ মস্তিস্কের মানুষ নিশ্চয়ই মেনে নিতে বাধ্য হবেন তিরিশ লাখ ফিগারটা মুজিবের মাথায় হঠাৎ করে আসেনি। মুজিব জেলে থাকতে থাকতেই সারা পৃথিবীর মানুষের কাছে এই সত্য পৌঁছে গিয়েছিলো।

জাতির জনকের প্রয়াণ দিবসে আজ অন্তত তাকে একটা অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেই…

About the Author:

মন্তব্যসমূহ

  1. Alam Khan ফেব্রুয়ারী 3, 2016 at 12:15 অপরাহ্ন - Reply

    <img style="width:400px" src=""পাকিস্তানে গঠিত 'হামুদুর রহমান কমিশন' রিপোর্ট প্রকাশ করে যে, ৭১ এ মূক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশে নিহত মানুষের সংখ্যা ২৬,০০০। বিএনপির ১৬ বছর ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে ৩০ লক্ষ শহিদের সঙ্গখ্যা নিয়ে জিয়া-সাত্তার-খালেদার কোন চুলকানী হয়েছে বলে জানা যায় নি। হঠাত করে বেগম জিয়ার এই "৩০ লক্ষ শহিদ" এলার্জীতে আক্রান্ত হয়ে চুলকানীর কথা নিজ মুখে জনসমক্ষে প্রকাশ করে দেয়। অতঃপর সেই পরিবারভুক্ত কিছু "অনর্ঘাতী ক্ষতি সম্পন্ন বৃদ্ধজীব" (অনেকে ভূল করে এদেরকে আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বুদ্ধিজিবী বলে থাকে) এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রচার যন্ত্রের সহায়তায় তা সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে । এতেে এই সংক্রমক রোগটি স্বাধীনতা বিরোধি প্রজাতির মধ্যে মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়ে । এই ভাইরাসের জন্ম পাকিস্তানে । পাকিস্তানীরা বলে মুজিব মিথ্যা বলেছে, সংখাটী ৩০লাখ নয় বডজোর ৩০ হাজার হবে । এদেশে তাদের বংশধররাও তাই বলে । নাম গোত্রহীন কিছু গো-শাবক ( অনেকেই ভূল করে এদেরকে গবেষক বলে থাকে) মোরাকাবা- মোশাহাদা কিঙবা খাবের মাধ্যমে জানতে পারে যে, মুজিব শাসিন আমলেই ৩০ লাখ মানুষ মারা যায় মুক্তি যুদ্ধে নয়। আসলে তাদের মূল সমস্যা অন্য জায়গায়। তারা বিশ্বাস এবং প্করতিষ্ঠা করতে চায় এদেশে শহিদ একজনই। সেটা "শহিদ জিয়া"। মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লক্ষ নিহত হছে বললে এই প্রজাতীর কোনই আপত্তি থাকবে না। এটাই এই ছোঁইয়াছে রোগের একমাত্র চিকিতসা বলে আমার মনে হয়। "

  2. নাম নেই ডিসেম্বর 27, 2015 at 10:47 অপরাহ্ন - Reply

    ৩০ লাখ শহীদ হয়েছেন না নিহত হয়েছেন !!! “শহীদ” শব্দটা কিন্তু আরবি ও এর তাৎপর্য্য অনেক !! হ্যা, যারা দেশের জন্য জীবন দিয়েছেন তারা সকলেই শহীদ হলে ৭২ থেকে ৭৫ এর পটভূমিতে মুজিব বাহিনী কর্তৃক যে মানুষগুলো নিহত হয়েছেন তারাও শহীদ। আরিফ রহমানের তথ্য মতে ৭০ থেকে ৭৫ এর মধ্যে ৬৫ লাখ লোকের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছেনা !! তবে ৭০ এর বন্যায় যদি ৫ লাখ মানুষ মরে ও ৭১ এ ৩০ লাখ বাকি ৩০ লাখ মুজিব শাসন আমলে !! এর বিচার কি চাইব ?? বা চাইতে পারি কি??

  3. Tutul আগস্ট 15, 2015 at 6:49 অপরাহ্ন - Reply

    :good:

  4. আদিল মাহমুদ সেপ্টেম্বর 25, 2014 at 11:29 অপরাহ্ন - Reply

    তথ্যসূত্রগুলির জন্য ধন্যবাদ।

    দেশের এক শ্রেনীর বুদ্ধিজীবির মাঝে মুজিবোফোবিয়া চরম আকার ধারক করেছে,মুজিবের কোনই কৃতিত্ব কোথাওই নেই, মুজিব ৭১ এর ফেক হিরো……উল্টা খালি গ্যাঞ্জাম বাধিয়েই গেছেন।

    আরেক দিকে চলে বংগবন্ধুকে নবী ফেরেশতার কাতারে তুলে ফেলার প্রবনতা। দুয়ের প্রকোপে বস্তনিষ্ঠ আলোচনার পথ বন্ধ।

  5. কবিতার জন্য পাগল সেপ্টেম্বর 24, 2014 at 11:11 অপরাহ্ন - Reply

    এই লেখাটি ফেসবুকে পড়েছিলাম। অনেক মুল্যবান লেগেছে। আমি অনেক কিছু জেনেছি। :clap

  6. জে আর কারবারী আগস্ট 28, 2014 at 11:39 অপরাহ্ন - Reply

    বাঙালি জাতির প্রতিনিধি হিসাবে শেখ মুজিব সর্বকালের সর্ব শ্রেষ্ঠ মিথ্যাচার করেছেন এই ৩০ লক্ষ শহীদ বলে । পাহাড়ের সেটলার গন শান্তি বাহিনীর হাতে নিহত সেটলারের সংখ্যাও চট করে ত্রিশ হাজার বলে চালিয়ে দেয় ,তাইতো বলি বাংলায় ১০০ পর্যন্ত সংখ্যা থাকতে বাঙালি ত্রিশ এত ভালবাসে কেন ?

  7. শফি আমীন আগস্ট 23, 2014 at 9:56 অপরাহ্ন - Reply

    লেখাটা খুবই ভাল লাগল। লিখিত দলিল সমাবেশে এত সহজ ভাবে বিষয়টির উপর আলোকপাত করা হয়েছে, আগে কেউ এভাবে ব্যাপারটা ব্যাখ্যা করেনি কেন ভেবে অবাক লাগছে। নিন্দুকদের মুখে নিপুন ভাবে চুনকালি মাখানো হলো এবার…।।

  8. চলেপথিক আগস্ট 20, 2014 at 11:47 অপরাহ্ন - Reply

    ৭১ এ পাক -বাহিনী কত মানুষ কে হত্যা করেছে এ সংখ্যাটা যাই হোক না কেন সব কটা সংখ্যাই অনুমান নির্ভর। এটি যাচাই করা হয়নি কখনো, তাই সংখ্যাটা নিয়ে বিতর্ক থাকতেই পারে।

    ৭১ এ যারা শহীদ হয়েছে তারা সাবাই ছিল এদেশের স্হায়ী অধিবাসী তাদের সবারই শিখর প্রথিত আছে এ দেশের মাটিতে । তাদের সঠিক সংখ্যা নির্নয় করা কি খুব কঠিন কাজ ছিল ?

    বিগত ৪২ বছরে স্বাধীন দেশের সরকার গুলো কয়টা শহীদ পরিবারের খোজ করেছে ? কত জন বীরঙ্গনা কে পুর্ণবাসিত করেছে ? পাক -বাহিনী ৭১ এ কত লোককে হত্যা করেছে এটা যতটা না গরুত্বপুর্ণ তার চেয়ে আনেক বেশী গরুত্বপুর্ণ ছিল একটি বড় ফিগার যা বলতে ভাল লাগে ।

    বাস্তবতা হচ্ছে এ দেশে এটাই ঘটেছে, এমন দঃখজনক বিষয়টা পরবর্তিতে গর্ভ করে বলার বিষয়ে পরিনত হয়েছে ।
    সত্যি কথা হচ্ছে ৭১ এ কত জন শহীদ হয়ছে এর সঠিক সংখ্যা কখনও জানা যাবে না ।

  9. আরাফাত রহমান আগস্ট 19, 2014 at 9:43 অপরাহ্ন - Reply

    চমৎকার হয়ছে, খুবই প্রয়োজনীয় লেখা । – ধ ;-( ন্যবাদ

  10. কাজী রহমান আগস্ট 16, 2014 at 9:19 পূর্বাহ্ন - Reply

    দারুন যুক্তি আর তথ্যসূত্র। আর্কাইভ করে রাখবার মত আরো একটি লেখা। এগুলো কস্ট করে একসাথে করে লিখে দেবার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

    যুঞ্চিক্তরের কালজয়ী লেখা ‘ত্রিশ লক্ষ শহীদ : মিথ নাকি বাস্তবতা’

    এই লিঙ্কটা সহজে পড়বার জন্য লিঙ্ক হিসেবে ‘যুঞ্চিক্তরের কালজয়ী লেখা ‘ত্রিশ লক্ষ শহীদ : মিথ নাকি বাস্তবতা’ সম্পর্কিত করে দিলে ভালো হত মনে হয়। লিঙ্কটা:
    http://www.mukto-mona.com/project/muktanwesa/1st_issue/3million_Yunchikta.htm

  11. গুবরে ফড়িং আগস্ট 16, 2014 at 1:08 পূর্বাহ্ন - Reply

    খুবই প্রয়োজনীয় লেখা!

    আমার দীর্ঘদিনের জমানো প্রশ্নের উত্তর অবশেষে মিলল।

    আর কেউ না যেন লেখাটাকে তিরিশ লাখ হত্যার প্রমানিক উৎস হিসেবে চিন্তা করেন; আসলে লেখাটি মুজিবের বিরুদ্ধে চালানো একটি প্রপাগান্ডার উত্তর দিতেই করা হয়েছে।

    যুঞ্চিক্তর ও তারিক লিংকনকেও ধন্যবাদ তাদের কাজের জন্য।

    মুজিবকে একটা গোষ্ঠি প্রায়ই হাল্কা করতে চায় তার পড়াশুনোর কথা বলে, কিন্তু মুজিব গাঁয়ের ছেলে হয়েও যে হয়ে উঠলেন জাতীয় নেতা, এমনকি পিছে ফেলে দিলেন ভাসানির মত নেতাদের, যে মুজিব প্রায় একক প্রচেষ্টায় অসম্ভব সম্ভব করলেন, যে জনগোষ্ঠি উজাড় করে ভোট দিয়েছিল পাকিস্তান পেতে, তাদেরকেই এমন টানলেন যে, ভোট বাক্স উপচে দিল ছয় দফার পক্ষে, তারাই ঝাঁপিয়ে পড়ল রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে সাম্প্রদায়িক জাতীয়তাবাদের কবর রচনা করে, দ্বিজাতিতত্ত্বের কফিনে শেষ পেরকেটি ঠুকে। সুতরাং, এই মুজিব যতটুকু স্বশিক্ষিত ছিলেন, তার ধারে কাছেও যাওয়া সম্ভব এমনকি আমাদের দেশের অনেক বড় বড় পন্ডিতবর্গের পক্ষে???

  12. সুষুপ্ত পাঠক আগস্ট 15, 2014 at 9:02 পূর্বাহ্ন - Reply

    হামিদুর রহমান কমিশনের কাছে নিয়াজী জানিয়েছিল ১৫ লাখের মত মানুষ মারা গেছে। কমিশনের কাছে নিয়াজী সংখ্যাটা কমাবে যৌক্তিকভাবেই। এত কম সময়ে বিপুল সংখ্যক মানুষ হত্যার দায় সে নিবে না। তবু নিয়াজীর কথাকেই মেনে নিলে সংখ্যাটা ৩ লাখ হয় না। জামাতের প্রচারণা এতটাই শক্তিশালী হয় যে পরে সেটা গোটা দেশের উপর প্রভাবিত হয়। এই ৩ লাখ “যুক্তি” দেখেছি অনেক মুক্তযুদ্ধ পক্ষের মানুষও গিলেছে। …আরিফকে অনেক ধন্যবাদ এই বিষয়ে লেখাটা লেখার জন্য। তবে আরো যুক্তি ও প্রমাণ দেখানোর প্রয়োজন ছিল। ৩০ লাখের বাস্তবতা বিস্তারিত দরকার ছিল।

    • আরিফ রহমান আগস্ট 15, 2014 at 2:49 অপরাহ্ন - Reply

      @সুষুপ্ত পাঠক,

      দাদা আমি মোটেও তিরিশ লাখ শহীদ প্রমাণ করার চেষ্টা করি নাই,
      আমি শুধু দেখাইসি মুজিব দেশে আসার আগেই বিভিন্ন সোর্সে তিরিশ লাখ শব্দটা ছিলো। এটা মুজিবের মাথা থেকে আসে নাই…

      এটুকুই…

মন্তব্য করুন