অনেকদিনের পরে

By |2013-12-15T08:08:44+00:00ডিসেম্বর 3, 2013|Categories: কবিতা, ভালবাসা কারে কয়?|30 Comments

অনেকদিনের পরে;
এলেম, আবার প্রিয়ে।
হারিয়ে গিয়ে ছিলাম আমি;
পথ ভুলে ছিলাম ওগো।
অনেকদিনের পরে।

অনেক বরষা পরে;
অনেক জোসনা ঝরে;
অজানা পথ ধরে;
অনেক শীতের পরে;
সবটা পুড়ে এলেম আমি;
অনেক দিনের পরে।

রাতগুলো সব ভেসে
তারার আলোর ভিড়ে;
নীলচে আলোয় তুমি;
হঠাৎ দেখা দিলে;
ভালবাসা, কোথায় তুমি ছিলে।
অনেক দিনের পরে।

চোখ মেলতেই দেখি,
হঠাৎ তুমি এলে।
রঙধনু রথ বেয়ে
অনেক দিনের পরে; ওগো,
অনেক দিনের পরে।

About the Author:

মুক্তমনা ব্লগার। আদ্দি ঢাকায় বেড়ে ওঠা। পরবাস স্বার্থপরতায় অপরাধী তাই শেকড়ের কাছাকাছি থাকার প্রাণান্ত চেষ্টা।

মন্তব্যসমূহ

  1. দারুচিনি দ্বীপ ডিসেম্বর 6, 2013 at 3:42 পূর্বাহ্ন - Reply

    বাপরে বাপ, কাজী রহমান ভাই আর ফরিদ ভাইয়ের কবিতার লড়াই দেখছি থামেই না 😀
    একে যেন অপরকে ছাড়িয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টায় ব্যস্ত আছেন। তবে ফরিদ ভাই কেন যেন শুধু মন্তব্যেই কবিতা লেখেন, একটা সুন্দত্র কবিতা পোষ্ট আকারে দেয়া যায় না? 😉

    দুজনকেই ফুলের শুভেচ্ছা (F)

    :)) আর কাজী রহমান ভাইয়ের জন্য তাঁর অতি প্রিয় (C) । আর ফরিদ ভাইয়ের কি জিনিস খুব বেশি প্রিয় জানি না, আর তাই দেয়া গেল না, তবে মিউজিক ( এইটা মিউজিক ইমোই তো? দেখে তো তেমনই লাগে) আমার খুব প্রিয় জিনিস, কাজেই এইটা ফরিদ ভাইয়ের জন্য (8)

    • কাজী রহমান ডিসেম্বর 6, 2013 at 10:07 পূর্বাহ্ন - Reply

      @দারুচিনি দ্বীপ,

      আর কাজী রহমান ভাইয়ের জন্য তাঁর অতি প্রিয় (C)

      আমার প্রিয় কিন্তু আরো অনেক কিছুই আছে। তবে এটাও চলবে। আমি হলাম গিয়ে আবার ‘নগদ যা পাও; হাত পেতে নাও’ টাইপ মানুষ :))

      রাজ্যসুখের আশায় বৃথা কেউ বা কাটায় বরষ মাস,
      স্বর্গ সুখের কল্পনাতে পড়ছে কারুর দীর্ঘ শ্বাস।
      নগদ যা পাও হাত পেতে নাও বাকির খাতা শুন্য থাক।
      দুরের বাদ্য শুনে কি লাভ মাঝ খানে যে বেজায় ফাক।

      -Rubaiyat of Omar Khayyam

      • দারুচিনি দ্বীপ ডিসেম্বর 6, 2013 at 11:07 পূর্বাহ্ন - Reply

        @কাজী রহমান,

        আমি হলাম গিয়ে আবার ‘নগদ যা পাও; হাত পেতে নাও’ টাইপ মানুষ

        এইটাই ভাল, বাস্তব বাদী লোক আপনি :))

    • ফরিদ আহমেদ ডিসেম্বর 7, 2013 at 11:16 অপরাহ্ন - Reply

      @দারুচিনি দ্বীপ,

      তবে ফরিদ ভাই কেন যেন শুধু মন্তব্যেই কবিতা লেখেন, একটা সুন্দত্র কবিতা পোষ্ট আকারে দেয়া যায় না?

      ইয়ে, একটা ভুল ভাঙিয়ে দেই। আমি কবি না। কবিতা আমাকে দিয়ে হয় না। বা সহজ ভাষায় বললে, কবিতা আমার মধ্যে আসে না। ওই আবেগটার কমতি আছে আমার ভিতরে। কাজেই ও চেষ্টা আমি কখনোই করি নাই। তরুণ বয়সে তুমুল প্রেম করার সময়েও কবিতা লিখি নাই আমি। আমার এই অন্ত্যমিলের শব্দমালাকে কবিতা ভেবে বিভ্রমে ভোগার কোনো মানে নেই। অন্যদিকে কাজী ভাই অত্যন্ত উঁচু মানের একজন কবি, মুক্তমনার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি তিনি। এই ভদ্রলোক শুধু উঁচু মানের কবিই নন, খুবই উদার মনের রসিক একজন মানুষ। তাঁর এই উদারতার সুযোগ নিয়েই তাঁকে পচানোর একটা অপচেষ্টা আমি সবসময়ই করি। জানি যে, তিনি এতে কিছু মনে করেন না। বরং সস্নেহে উপভোগই করেন আমার এই দুষ্টুমিটা।

      • দারুচিনি দ্বীপ ডিসেম্বর 7, 2013 at 11:47 অপরাহ্ন - Reply

        @ফরিদ আহমেদ ভাই, সেটা বুঝেছি যে কাজী রহমান ভাই খুব ভাল কবি, আর অবশ্যই খুব ভাল এবং উদার মনের মানুষ, তবে আপনার কবিতা ( যাকে আপনি কবিতা বলতে নারাজ 😉 ) সেগুলোও কিন্তু যথেষ্ট ভাল লাগে আমার কাছে ( আমার বিশ্বাস অনেকের কাছেই) আর রোমান্টিক 😀 সত্যি বলছি ।

        অন্যদিকে কাজী ভাই অত্যন্ত উঁচু মানের একজন কবি, মুক্তমনার অন্যতম শ্রেষ্ঠ কবি তিনি। এই ভদ্রলোক শুধু উঁচু মানের কবিই নন, খুবই উদার মনের রসিক একজন মানুষ। তাঁর এই উদারতার সুযোগ নিয়েই তাঁকে পচানোর একটা অপচেষ্টা আমি সবসময়ই করি। জানি যে, তিনি এতে কিছু মনে করেন না। বরং সস্নেহে উপভোগই করেন আমার এই দুষ্টুমিটা।

        😀 আর কাজী ভাইয়ের সাথে আপনার এই পচানোর প্রচেষ্টা মানে, দুষ্টুমি করাটাও কিন্তু খুবই দারুন একটা আকর্ষন, কারন একঘেয়ে এই জীবনে কিছু আনন্দ না থাকলে জীবনটা লবন ছাড়া তরকারী হয়ে যেত 😉 ।

      • কাজী রহমান ডিসেম্বর 9, 2013 at 12:05 অপরাহ্ন - Reply

        @ফরিদ আহমেদ,

        কাজী ভাই অত্যন্ত উঁচু মানের একজন কবি

        কান লাল করা বেজায় ঝাল এই পচান্তিস প্রচেস্টার প্রতিবাদ কইরাও ভদ্রতা কইরা ধন্যবাদ কইলাম। প্লিজ আর বিব্রত কইরো না, ঘুশ খাও (^)

  2. সংশপ্তক ডিসেম্বর 6, 2013 at 3:07 পূর্বাহ্ন - Reply

    ঝাল ! আরও ঝাল চাই কাজী সাহেব !

    [img]http://cdn.coolweirdo.com/wp-content/uploads/2013/08/hot-peppers.jpg[/img]

    • দারুচিনি দ্বীপ ডিসেম্বর 6, 2013 at 3:43 পূর্বাহ্ন - Reply

      @সংশপ্তক, সেরেছে,দেশের এই ঝালের সময় আপনি ভাই কিনা কবি সাহেব কে মরিচ দিলেন? তা এই মরিচ কি বেঁটে নিতে হবে? 😀

      • সংশপ্তক ডিসেম্বর 6, 2013 at 4:56 পূর্বাহ্ন - Reply

        @দারুচিনি দ্বীপ,

        বেটে নিতে পারেন তবে আমি মরিচ চিবিয়ে খেতেই ভালবাসি । মরিচ ছাড়া জীবনটাই পানসে মনে হয় :))

        • দারুচিনি দ্বীপ ডিসেম্বর 6, 2013 at 11:09 পূর্বাহ্ন - Reply

          @সংশপ্তক,

          বেটে নিতে পারেন তবে আমি মরিচ চিবিয়ে খেতেই ভালবাসি ।

          নাহ আমি মরিচ কেটে খাই, মুড়ির সাথে মাখিয়ে। আর খাবারেও ঝাল দরকার খুব বেশি
          আর তাই

          মরিচ ছাড়া জীবনটাই পানসে মনে হয়

          এক্কেবারে সঠিক কথা বলেছেন। যত মরিচ তত মজা 🙂

    • কাজী রহমান ডিসেম্বর 6, 2013 at 9:56 পূর্বাহ্ন - Reply

      @সংশপ্তক,

      ঝাল ! আরও ঝাল চাই কাজী সাহেব !

      আরে কি মুশকিল; ঝাল দেখলেন কোথায়? শোনেন:

      নেই যে মোটে ঝাল
      দেখতে শুধু লাল
      চিবিয়ে দেখি কাল
      গৃহকোণে বোনে জাল
      পাড়ে নাতো ফাল
      আহারে; কি আকাল :))

  3. মুরশেদ ডিসেম্বর 4, 2013 at 7:08 পূর্বাহ্ন - Reply

    @ফরিদ আহমেদ, বন্দবস্ত যিনি পান তিনি তা চিরস্থায়ীই পান! চিরযুবা হওয়া গর্বের।
    কাজীদা, এই অস্থিরতার দিনে, বোমায় আর আগুনে বড় বিক্ষত আমরা। তাই বুঝি আপনার কবিতার ভাজে ভাজে প্রেয়সীর মধ্যে আসলে শান্তি আর সুস্থতারই ছায়া খুজে পাই।

    • ফরিদ আহমেদ ডিসেম্বর 5, 2013 at 11:12 অপরাহ্ন - Reply

      @মুরশেদ,

      চিরযুবা হওয়া গর্বের।

      দয়াল কাজী চিরযুবা? বলেনতো একটা ছবি পোস্ট করতে। দেইখেন কীভাবে পিছলে যায়। ফেসহীনতার ফাউ সুযোগ নিয়ে ফেসবুকে অনেক নব্বই বছরের বুড়ি যেমন ছুঁড়ি সেজে প্রেমাসক্ত তরুণদের ব্যাকুল হৃদয়কে য়াকুল করে তোলে, উনার অবস্থাও তাই। 🙂

      বন্দবস্ত যিনি পান তিনি তা চিরস্থায়ীই পান!

      সেই যুগ আর নেই। এখন কবি প্রেসিডেন্টদের দ্রুত নিঃশেষিত যুগ। আমাদের মত নবীন কবিযশোপ্রার্থীদের অবিসংবাদিত নেতা অমিত রে দেখুন কী বলে এ সম্পর্কে।

      কবিমাত্রের উচিত পাঁচ-বছর মেয়াদে কবিত্ব করা, পঁচিশ থেকে ত্রিশ পর্যন্ত।

      যে-সব কবি ষাট-সত্তর পর্যন্ত বাঁচতে একটুও লজ্জা করে না তারা নিজেকে শাস্তি দেয় নিজেকে সস্তা করে দিয়ে। শেষকালটায় অনুকরণের দল চারি দিকে ব্যূহ বেঁধে তাদেরকে মুখ ভ্যাংচাতে থাকে। তাদের লেখার চরিত্র বিগড়ে যায়, পূর্বের লেখা থেকে চুরি শুরু করে হয়ে পড়ে পূর্বের লেখার রিসীভর্স্ অফ স্টোল্‌ন্‌ প্রপার্টি। সে স্থলে লোকহিতের খাতিরে পাঠকদের কর্তব্য হচ্ছে কিছুতেই এই-সব অতিপ্রবীণ কবিদের বাঁচতে না দেওয়া– শারীরিক বাঁচার কথা বলছি নে, কাব্যিক বাঁচা।

      ভালো লাগার এভোল্যুশন আছে। পাঁচ বছর পূর্বেকার ভালো-লাগা পাঁচ বছর পরেও যদি একই জায়গায় খাড়া দাঁড়িয়ে থাকে তা হলে বুঝতে হবে, বেচারা জানতে পারে নি যে সে মরে গেছে। একটু ঠেলা মারলেই তার নিজের কাছে প্রমাণ হবে যে, সেণ্টিমেণ্টাল আত্মীয়েরা তার অন্ত্যেষ্টি-সৎকার করতে বিলম্ব করেছিল, বোধ করি উপযুক্ত উত্তরাধিকারীকে চিরকাল ফাঁকি দেবার মতলবে।

      দয়াল কাজী গত পঞ্চাশ বছর ধরে তাঁর পুরোনো প্রেমিকাদের প্রেম বুকে নিয়ে একের পর এক অনেকদিনের পরের মতো প্যানপ্যানানিমূলক প্রেমের কবিতা লিখে চলেছেন। এখন তাঁর সময় এসেছে সরে দাঁড়ানোর। নিজে থেকে মানে মানে সরে না দাঁড়ালে, আমাদেরই উচিত হবে তাঁকে ঠেলা দিয়ে ঠেলে সরানোর। (H)

    • কাজী রহমান ডিসেম্বর 6, 2013 at 9:44 পূর্বাহ্ন - Reply

      @মুরশেদ,

      কবিতার ভাজে ভাজে প্রেয়সীর মধ্যে আসলে শান্তি আর সুস্থতারই ছায়া খুজে পাই

      এইত্তো, কি দারুন কথা। মধুবালা মধুবালা করলে কি; খাঁটি ব্যপার খাঁটি ই। ও আচ্ছা আপনার মধুবালা গেল কৈ?

      • মুরশেদ ডিসেম্বর 6, 2013 at 9:55 পূর্বাহ্ন - Reply

        @কাজী রহমান, মদন অনেকদিন ঐশীবাণী লাভ করছে না! ভুতেশ্বর মনে হয় বচন রচনা ছেড়ে পেট্রল বোমা সুপ্লাইয়ে ব্যাস্ত আছে! আর মধুমালা পড়ে আছে বার্ণ ইউনিটে! পুড়ে যাচ্ছে মদনের সাধের তেতুল খানি।

        • কাজী রহমান ডিসেম্বর 9, 2013 at 11:52 পূর্বাহ্ন - Reply

          @মুরশেদ,

          আর মধুমালা পড়ে আছে বার্ণ ইউনিটে!

          মধুবালার ব্যপারটা একটু ভালো হলে আবার কিন্তু ওকে দেখেতে চাই। একেবারে ঝিম মেরে যাবেন না, ঠিক আছে?

  4. ফরিদ আহমেদ ডিসেম্বর 4, 2013 at 1:04 পূর্বাহ্ন - Reply

    ওরে, ওরে আবারও দেখি প্রেমগীতি বমন হচ্ছে!! পুরুষ মানুষ বয়স হলে দেখছি বুড়া হয় না, এরশাদ হয়। এবার কোন বনহরিণী পল্লবিনী প্রেমিকার পেলব ছোঁয়ায় এই কবিতার জন্ম হলো? হায়রে কলিকাল! কোথায় আমরা চ্যাংড়া পোলাপানেরা প্রেমের কবিতা লিখবো, তা না লিখছে সব এরশাদ দাদুরা! জায়গা ছাড়েন মিয়া। রবি বুড়োর মত চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত পাইছেন নাকি?

    যদি দেখো তোমার আকাশে
    শ্রাবণ ঝরায় বৃষ্টি অঝোরে,
    যদি দেখো তোমার বাতাসে
    প্রজাপতি ওড়ে স্বপ্নের ঘোরে
    আমি আছি তোমার আবেশে,
    আছি বন্ধু তোমায় ভালবেসে।

    যদি হারাও সোনালি স্বপনে
    নির্ঘুম কোনো রূপালি রাতে
    যদি হারাও মায়াবি লগনে
    হাত রেখে জোছনার হাতে
    আমি আছি তোমার নয়নে
    আছি বন্ধু তোমার তনুমনে।

    • কাজী রহমান ডিসেম্বর 4, 2013 at 10:20 পূর্বাহ্ন - Reply

      @ফরিদ আহমেদ,

      যদি হারাও সোনালি স্বপনে
      নির্ঘুম কোনো রূপালি রাতে
      যদি হারাও মায়াবি লগনে
      হাত রেখে জোছনার হাতে
      আমি আছি তোমার নয়নে
      আছি বন্ধু তোমার তনুমনে।

      মারা গেছি। এক্কেবারে শেষ। ঘটনা কি; কি ঘটনা? এইসব কি ফরিদ ঠাকুর? দশ মহল্লার কবি কুলের মাথায় বাড়ি দেওয়ার ব্যবস্থা? এতো দারুন কোবতে। কি এমনি এমনি? তাই তো কই ; এত হিংসা ক্যানে? এতক্ষণে অরিন্দম ……………….. হাও রোমান্টিক

      যদি দেখো তোমার আকাশে
      শ্রাবণ ঝরায় বৃষ্টি অঝোরে,
      যদি দেখো তোমার বাতাসে
      প্রজাপতি ওড়ে স্বপ্নের ঘোরে
      আমি আছি তোমার আবেশে,
      আছি বন্ধু তোমায় ভালবেসে।

      ……. ………. ………… ফরিদ ঠাকুরের অদ্ভুত সুন্দর এই কবিতাটার জন্য আর ওর কল্কি ধরে টান দিলাম না? সারাজীবন যেন আমার মত চ্যাংড়া থাকো, অনিচ্ছা সত্বেও সেই আশীর্বাদ করছি (D)

      • ফরিদ আহমেদ ডিসেম্বর 5, 2013 at 10:56 অপরাহ্ন - Reply

        @কাজী রহমান,

        হাও রোমান্টিক

        কোনো কোমল হৃদয়া কুন্তলরাজিসমৃদ্ধ কামিনী এই কথা বললো না, শুনতে হলো কিনা একজন গুঁফো কবির কাছ থেকে। হায়রে আমার কপাল!! :-Y

        • কাজী রহমান ডিসেম্বর 6, 2013 at 9:39 পূর্বাহ্ন - Reply

          @ফরিদ আহমেদ,

          কোনো কোমল হৃদয়া কুন্তলরাজিসমৃদ্ধ কামিনী এই কথা বললো না, শুনতে হলো কিনা একজন গুঁফো কবির কাছ থেকে। হায়রে আমার কপাল!!

          গুড গুড; তাইলে দাদা স্বীকার গ্যালা পৈচচা গ্যাসো। কেউ পাত্তা পুত্তা দেয় না। ভালো; ব্রেশ ভালো। এত গাপ্লাগুপ্লা কাইত কুইত ছবি দেইখাও কেউ পাত্তা দিলো; হায়, হায় হায়। গোঁফ রাখা শুরু করো আবার; দ্যাহো কপালের যদি কিসু হয় 😉

          • ফরিদ আহমেদ ডিসেম্বর 7, 2013 at 11:03 অপরাহ্ন - Reply

            @কাজী রহমান,

            এত গাপ্লাগুপ্লা কাইত কুইত ছবি দেইখাও কেউ পাত্তা দিলো; হায়, হায় হায়।

            কাইত-কুইত ছবি ছিল কালো মুখোশে ঢাকা লোকজনকে ভয় দেখিয়ে কাইত করার জন্য। তেঁতুলের সুমিষ্ট টক ছিল না ওখানে। আব্রু মেনে চলেছি যে আমি। দেখেন না ছতর কেমন ঢাকা। ঐ সব ছবি দেখে কমনীয় রমণীরা পশ্চাদগমন করবে, এটাইতো স্বাভাবিক। এইবার জন আব্রাহামের মত বে-আব্রু কিছু তেঁতুল মার্কা ছবি দেবো। দেইখেন কী দশা হয়! আমার বাগান হবে তখন সুন্দরী রমণীতে পরিপূর্ণ রমণীয়, অপূর্ব সৌন্দর্যমণ্ডিত, বেহেস্তি সুগন্ধে মউ মৌ। আর আপনার বাগান হবে শুষ্ক মরুভূমি। বুড়ো হয়ে যাওয়া শুকনো তেঁতুল দেখে লালা ঝরাবে কোন ললনা, বলেন? হাজারো মিঠে মিঠে কবিতাতেও আর কোনো কাজ হবে না কাজী সাহেব। 🙂

            • দারুচিনি দ্বীপ ডিসেম্বর 7, 2013 at 11:52 অপরাহ্ন - Reply

              আমার বাগান হবে তখন সুন্দরী রমণীতে পরিপূর্ণ রমণীয়, অপূর্ব সৌন্দর্যমণ্ডিত, বেহেস্তি সুগন্ধে মউ মৌ। আর আপনার বাগান হবে শুষ্ক মরুভূমি।

              :lotpot: :lotpot: :p

            • কাজী রহমান ডিসেম্বর 9, 2013 at 11:49 পূর্বাহ্ন - Reply

              @ফরিদ আহমেদ,

              আমার বাগান হবে তখন সুন্দরী রমণীতে পরিপূর্ণ রমণীয়, অপূর্ব সৌন্দর্যমণ্ডিত, বেহেস্তি সুগন্ধে মউ মৌ। আর আপনার বাগান হবে শুষ্ক মরুভূমি। বুড়ো হয়ে যাওয়া শুকনো তেঁতুল দেখে লালা ঝরাবে কোন ললনা, বলেন? হাজারো মিঠে মিঠে কবিতাতেও আর কোনো কাজ হবে না কাজী সাহেব।

              আয় হায়, দাদা তোমার তেতুল জ্ঞান এই রকম করুন পর্যায়ে? আহ হা রে; বেচারা; তোমার জন্য বড় চিন্তিত হ্য়া গেলাম দাদা। হুনো , কামের কতা কই, কোবতে ফোবতে কিসু না, আসল কতা হৈল, কামে ভালা না হৈলে তোমার কোন দাম নাই। সুতরাং অভিশাপ, বেহেস্তি সুগন্ধি বেকার এই সব হিন্সামি বাদ্দা কামের কতা চিন্তা করো, সুখী হও (নতুন কইরা গোঁফ রাইখাও দেক্তারো, কিসুই বলা যায় না; কখন কি হয়)

              জানি; ফরিদ দাদারে বেহেস্তি ইউটোপিয়া জ্ঞান দিয়া লাভ নাই, তাও ওমর খৈয়াম চ্যাষ্ঠা কইরা দেহি:

              করছে ওরা প্রচার; পাবি স্বর্গে গিয়ে হুর পরী,
              আমার স্বর্গ এই মদিরা হাতের কাছের সুন্দরী,
              নগদ যা পাস তাই ধরে থাক,ধারের পন্য করিস নে,
              দুরের বাদ্য মধুর শোনায় শুন্য হাওয়ায় সঞ্চরী ।

  5. অসীম ডিসেম্বর 3, 2013 at 11:57 অপরাহ্ন - Reply

    ভালবাসা, কোথায় তুমি ছিলে।

    এই চারটা শব্দ সমস্ত পৃথিবীটাকে নাচাচ্ছে তো নাচাচ্ছে ! কাজীদা, এই পোড়া সময়ে ভালবাসার কবিতা আনন্দ দিয়েছে!!
    নীলচে আলোয় তুমি;
    হঠাৎ দেখা দিলে;
    পেট্রোল বোমা, কোথায় তুমি ছিলে।

    সুস্থ থাকবেন!! ভালো থাকবেন!!

    • কাজী রহমান ডিসেম্বর 4, 2013 at 9:57 পূর্বাহ্ন - Reply

      @অসীম,

      এই পোড়া সময়ে ভালবাসার কবিতা আনন্দ দিয়েছে!!

      সেই; সারাক্ষণ ক্ষেপে থাকলে ভালো থাকবো কখন?

      পেট্রোল বোমা, কোথায় তুমি ছিলে।

      হা হা হা এইটা ভালো হইসে; পেট্রল বোমা;

      অনেক ধন্যবাদ অসীম

  6. কাজি মামুন ডিসেম্বর 3, 2013 at 9:31 অপরাহ্ন - Reply

    রাতগুলো সব ভেসে
    তারার আলোর ভিড়ে;
    নীলচে আলোয় তুমি;
    হঠাৎ দেখা দিলে;

    লাগে ভাল ভাবতে,
    তবে কিনা,
    “প্রিয়, ফুল খেলবার দিন নয়
    অদ্য ধ্বংসের মুখোমুখি আমরা,..”
    সেই কবেই বলে গিয়েছেন সুভাষ মুখোপাধ্যায়!

    যাহোক, তবু থেমে থাকে না প্রেম বা কাব্য, জীবনের মতই যা বহমান, হে ভাই কাজী রহমান!

    • গীতা দাস ডিসেম্বর 3, 2013 at 10:09 অপরাহ্ন - Reply

      @কাজি মামুন,

      জীবনের মতই যা বহমান
      হে ভাই কাজী রহমান!

      তাহলে কাজী মামুন
      কবিকে বলা উচিত নয় যে থামুন।

      আমার কাছে কিন্তু ভাল লেগেছে ——–

      অনেক বরষা পরে;
      অনেক জোসনা ঝরে;
      অজানা পথ ধরে;
      অনেক শীতের পরে;
      সবটা পুড়ে এলেম আমি;
      অনেক দিনের পরে।

      • কাজি মামুন ডিসেম্বর 3, 2013 at 10:20 অপরাহ্ন - Reply

        @গীতাদি,

        তাহলে কাজী মামুন
        কবিকে বলা উচিত নয় যে থামুন।

        ছিঃ ছিঃ কি যে বলেন না, দিদি!
        থামানো যায় কি কভু বহমান নদী??

      • কাজী রহমান ডিসেম্বর 4, 2013 at 9:51 পূর্বাহ্ন - Reply

        @গীতা দাস,

        আমার কাছে কিন্তু ভাল লেগেছে ——–

        :)) এই যে নেন (C) এবং (C) ; একটা চিনি দেওয়া আর একটা কালো কফি

        ….. … আর এই যে বেচারা ভালো ছেলে মামুন; ওকে ধোলাই না দিয়ে আসল ভোম্বলকে মানে স্বঘোষিত চ্যাংড়াকে একটা বাঁশডলা দেওয়ার বুদ্ধি দিলে আপনাকে ৩ কাপ কফি বানিয়ে খাওয়াবো :))

    • কাজী রহমান ডিসেম্বর 4, 2013 at 9:42 পূর্বাহ্ন - Reply

      @কাজি মামুন,

      তাহলে কাজী মামুন
      কবিকে বলা উচিত নয় যে থামুন।

      হা হা হা হা হা ……. হয়েছে এবার ………হা হা হা

মন্তব্য করুন