ক্লস্ট্রফোবিয়ায় আক্রান্ত আতঙ্কগ্রস্থ এক কবি,
ঝুলে আছে তুমি আমি সে এবং অসীমের মাঝে।
পৃথিবী ছোঁয়া চাদের আলো,”জোৎস্না না কি যেন” বলে;
সেটাকেও অস্বীকার করেছে সে, গোঁড়া এক ভীষণ স্পর্ধায়।

সোপ্রানো; কাওয়াল, চড়া সেই স্বর, অনুভবের জানালায়,
এন্তার আচঁড় কেটে চলে, দাগ টানে, সূর তোলে টানা তারে,
খামোখাই উঁকি মারে সে, মিশেল অনুভবে, অনুবাদ স্পৃহায়।
অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি, সেখানটায়, অর্থ খোঁজে কবি, অনর্থক।

উঁকি মারে, বিভ্রান্তির ভেল্কিতে, প্রকৃতি? নাকি প্রেম?
রাগ অনুরাগের ছকের বাইরে, বিভ্রান্ত; প্রকৃতি মাতাল কবি।
স্বপ্নান্ধ কবির, হয়না সূর্যোদয়, সাদাকালো রঙধনু, বৃষ্টির অপেক্ষায়।
নেই, এই সত্যি মনে করে, হাতড়ায় বোকা, কবি, বেতাল প্রত্যাশায়।

তামাদি আগ্রহে বিমূর্ত শব্দজট; এখনো কম্পন তোলে,
ছাপিয়ে যায় অনাগ্রহ, কান পেতে শোনে, অনেক তারার ধুলোর রাগ।
কবি, একা হয়ে যায়। বোকা। আলস্য, চাইতেও চায় না সে চোখ মেলে।
এমনি অপ্রস্তুত, অথচ; স্বেচ্ছায় বুঁদ হয়ে থাকে, কল্পিত মহাজাগতিক সঙ্গীতে।

[60 বার পঠিত]