খ্রীষ্ঠান এবং ইসলামের উত্থান-ধর্ম ভিত্তিক রাজনীতির জন্মঃ

মধ্যযুগে রাজনীতির ইতিহাসে বৃহত্তম ঘটনা খ্রীষ্ঠান এবং ইসলাম ধর্মের উত্থান। এই একেশ্বরবাদি ধর্মগুলির উত্থানের আগে রাজ্য এবং সাম্রাজ্যবাদের ভিত্তি ছিল নগর সভ্যতা। কার্থিজ, এথেন্স, রোম, মেসেডেনিয়ান-এই সব সাম্রাজ্যবাদি শক্তিগুলির ভিত্তি নগর পরিচিতি। অর্থাৎ আমরা রোমান, তাই গলদের সভ্য করার জন্য চাই লাখে লাখে গল রক্ত। এতেব গলদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে, ওদের রোমান বানাও-মানে সভ্য কর। যদিও নেপথ্যের খেলাটা লুঠতরাজের।

মধ্যযুগে এই আইডেন্টি পালটে গেল ধর্মে। আমরা খৃষ্ঠান, আমরা উন্নত, তাই বাকি পৃথিবীকে খ্রীষ্ঠান বানাবো । এটাই হল সাম্রাজ্যবাদের মূল মন্ত্র। যদিও আসলে পেছনে ছিল জমি এবং সম্পদ দখলের খেলা।

খ্রীষ্ঠানদের সাফল্য দেখে, এই ধর্ম ভিত্তিক সাম্রাজ্যবাদকে সর্বোচ্চ উচ্চতায় নিয়ে যায় আরবরা। নাম ইসলাম। যেখানে ধর্মটাই তৈরী হল ধর্মীয় সাম্রাজ্যবাদের প্রয়োজনে। ধর্মীয় সাম্রাজ্যবাদের এবং পরিচিতির রাজনীতি, যার ভুক্তভোগি আমরা আজো, তার মূলে গিয়ে বিশ্লেষন দরকার।

ইসলাম এবং খ্রীষ্ঠান ধর্ম দুটি দাঁড়িয়ে আছে অসংখ্য মিথ এবং প্রপাগান্ডার ওপরে। এবং এদের দুটি ভিত্তি-প্রথমটি শ্রেনী চেতনা । এরিস্ট্রক্রাসির বা ধনীদের বিরুদ্ধে গরীবদের ক্ষোভ এই দুই ধর্মের প্রধান চালিকা শক্তি। ইসলাম এবং খ্রীষ্ঠান ধর্ম মার্ক্সবাদের দুই সফল সন্তান। এই দুই ধর্মের সাফল্যের খতিয়ানে, সোভিয়েত ইউনিয়ান কার্ল মার্ক্সের জারজ সন্তান। ইসলাম এবং খ্রীষ্ঠান ধর্ম ঐতিহাসিক ভাবে গরীবদের ক্ষোভকে যেভাবে কাজে লাগিয়েছে ধর্মের মাদকে বা প্রফেটের চরিত্র তৈরী করে, সোভিয়েত ইউনিয়ান তার ধারে কাছেও যেতে পারে নি । ধর্মের প্যাকেজে এই শ্রেনী সংঘাত কিভাবে ইসলাম এবং খ্রীষ্ঠান ধর্মের বিপুল জনপ্রিয়তা তৈরী করল সেটা না বুঝলে আমরা কোন দিন বুঝতে পারব না কেন ইসলাম ভারত বাংলাদেশ, পাকিস্তান সহ পৃথিবীর সব মুসলিম দেশের রাজনীতিতে “মহান” শক্তি। বা এটাও বুঝবো না কেন ল্যাটিন আমেরিকাতে হুগো শাভেজ বা ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট রাফেল ইকুয়েডর মার্ক্সিয় সমাজতন্ত্র ছেড়ে খ্রীষ্ঠান সমাজতন্ত্রে বিশ্বাস করা শুরু করেন।

কি সেই মারাত্মক সমীকরন যার জন্য ইসলাম এবং খ্রীষ্ঠান ধর্ম সভ্যতার চাকা পেছনে ঘোরানোর সব থেকে বড় শক্তি হওয়া সত্ত্বেও, পৃথিবীর অধিকাংশ দেশের রাজনীতিতে তারা নির্নায়ক শক্তি?

ইসলাম ই একমাত্র সঠিক ধর্ম বা খ্রীষ্ঠান ধর্ম একমাত্র সত্য-এটা হচ্ছে এই দুই ধর্মের প্রসারের মূল “আবেগ” ।
এটিকে বলে আবেগপ্রবণ সাম্রাজ্যবাদ। যেমন আমেরিকানরা মনে করে, স্বাধীনতার বানী ছড়াতে অন্যদেশকে পরাধীন করার দরকার আছে! কিভাবে রোমান সাম্রাজ্যবাদ প্রথমে খ্রীষ্ঠান এবং তারপর ইসলামিক সাম্রাজ্যবাদে রূপ নিল, সেই ধারাবাহিকতাটা জানা দরকার।

ধর্ম দুটি এতটাই প্রপাগান্ডার ওপর দাঁড়িয়ে যে আদৌ যেখানে জিশু বা মহম্মদের ঐতিহাসিক অস্তিত্ব কোন ঐতিহাসিকরা খুঁজে পেতে ব্যর্থ, সেখানে যিশু এবং মহম্মদ নামে দুই কাল্পনিক প্রফেটের জন্য আজো অসংখ্য যুদ্ধ হচ্ছে, এবং হাজার হাজার লোক প্রাণ দিচ্ছে।

কমিনিউজমের ব্যর্থতা এবং প্রায় একই রাজনৈতিক শক্তি কাজে লাগিয়ে ইসলাম এবং খ্রীষ্ঠান ধর্মের সাফল্য দেখে আমি নিশ্চিত- Myth is more powerful than reality in politics! রাজনীতিতে মিথের ভূমিকা সর্বাধিক। বাংলাদেশের সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে আওয়ামি লিগের কৃতকর্মা মেয়ররা হেরে ভূত হেফাজত, জামাত এবং বিএন পির মিথিক্যাল “ইসলাম বিপন্ন” প্রচারের কাছে। ভারতের রাজনীতিতে “রাম” বলে এক কাল্পনিক রাজার প্রভাবে বিজেপি দুটি আসন থেকে বৃহত্তম পার্টি হিসাবে অবতীর্ন হয়। তাই এর বিশ্লেষন প্রয়োজন।

ঐতিহাসিক যিশু এবং মহম্মদের সন্ধানেঃ

খ্রীষ্ঠান এবং ইসলাম ধর্মের রাজনীতি কতটা মিথ্যেচারের ওপর দাঁড়িয়ে, সেটা বোঝার জন্য প্রথমেই যে প্রশ্নটা করা উচিত-এই যে প্রফেটরা আদৌ ছিল, তার কি ঐতিহাসিক প্রমান আমাদের কাছে আছে?

তার আগে বুঝি ঐতিহাসিক প্রমান কি? আলেক্সান্ডার বা চন্দ্রগুপ্ত ছিল তার ঐতিহাসিক প্রমান কি? এরা এসেছেন কিন্ত যিশু বা মহম্মদের কয়েকশো বছর আগে। নিশ্চিত প্রমানের জন্য ঐতিহাসিকরা এই প্রমান গুলির ওপর নির্ভর করেন

১ সমসাময়িক লেখক, ঐতিহাসিকদের বিবরন-যেমন আলেক্সাজান্ডারের সাথে ছিলেন খালিস্থানিস, টলেমি, ন্যাচারাস আরো অনেকে। আলেক্সজান্ডারের প্রতিটা যুদ্ধের বিবরন নিখুঁত ভাবে জানা যায়।

২ এডিক্ট বা যুদ্ধ বিজয়ের জন্য রাজারা পাথরের ওপর, রাজ প্রাসাদে বিজয় গাথা লিখে যেতেন। পারস্যের একামেনিড সাম্রাজ্য বা পৃথিবীর প্রথম “গ্লোবাল সম্রাট” সাইরাসের কথা এভাবেই জানা যায় উনবিংশ শতাব্দির মধ্যভাগে ইরানে বৃটিশ খনন কার্য্যের মাধ্যমে

৩ পোড়ানো ট্যাবলেট-যা রোমানদের মধ্যে জনপ্রিয় ছিল-রোমানরা সব রাজাদেশ, বা প্রশাসনিক কাজের রেকর্ড রাখত। প্রশ্ন উঠবে হজরত মহম্মদ বলে সত্যি যে একটা লোক ছিল, তার ১১ টা বৌ ছিল, সে ৮১ টা যুদ্ধের প্রতিটা তে জয় লাভ করেছিল, আরব জাতিকে একত্রিত করেছিল, বিবি আয়েশা নামে এক বাচ্চা বৌ ছিল-এর কি ঐতিহাসিক প্রমান আছে?

ঐতিহাসিক উত্তর হচ্ছে নেই। কিস্যু প্রমান নেই।

এই লিংকে তার বিস্তারিত তথ্য এবং প্রমান পাবেন-
http://en.wikipedia.org/wiki/Historicity_of_Muhammad [১]

কোন স্বীকৃত ঐতিহাসিক মানতে রাজী নন– হজরত মহম্মদ বলে কেও ছিলেন সেটা ১০০% নিশ্চিত ভাবে বলা যায় !!

ঐতিহাসিক হেরাল্ড মোজ্জাকি লিখছেন [১]
At present, the study of Muhammad, the founder of the Muslim community, is obviously caught in a dilemma. On the one hand, it is not possible to write a historical biography of the Prophet without being accused of using the sources uncritically, while on the other hand, when using the sources critically, it is simply not possible to write such a biography

অর্থাৎ ঐতিহাসিক মহম্মদকে পুঃননির্মান করা খুব কঠিন কাজ-অসম্ভব প্রায়।

ভেবে দেখুন। ইতিহাসে মহম্মদ, আলেজান্ডারের সমতুল্য ফিগার। ৬৩২ সালে মারা গেলেন। আর ৬৩২ সাল ত দূরের কথা ৮৩৪ সাল লাগল তার প্রথম জীবনী লিখতে ( ইবনে হিসান)।
যদিও তার গুরু ইস্ক হিসান মহম্মদের প্রথম জীবনী লিখেছিলেন প্রায় ৩০০০ হাদিসের ঘেঁটে [৭৬৮ খৃ] – তার আসল লেখা কারুর কাছে নেই!

যেকারনে ঐতিহাসিকরা মহম্মদের ঐতিহাসিক অস্তিত্ব বা ইবনে হাসানের মহম্মদকে স্বীকার করছেন না

(১) তখন সবে আরবিক আলফাবেট আসতে শুরু করেছে এবং আরবরা ব্যাবসার প্রয়োজনে সিরামিক লিপিতে আরবিক লিখতে জানত [https://en.wikipedia.org/wiki/Pre-Islamic_Arabia[২]।
মহম্মদের সমসাময়িক আরবিকে লেখা পত্র আবিস্কার হয়েছে। কোন কিছুতে মহম্মদের উল্লেখ নেই! এটা অসম্ভব। সম্ভবতা দুটো-হয় মহম্মদ বলে কেও ছিল না। বা থাকলেও তিনি অতটা গুরুত্বপূর্ন কেও ছিলেন না ।

( এই যুক্তির বিরুদ্ধে কিছু ভুল তথ্য প্রমান বাজারে ছাড়ে ইসলামিক ঐতিহাসিকরা-বলা হয় হজরত মহম্মদ সিরিয়া ইয়েমেন কাষ্মীরের রাজা ইত্যাদি সবার কাছে, ইসলাম গ্রহনের জন্য চিঠি পাঠিয়েছিলেন এবং সেই চিঠির নাকি একটি কপি আছে। এক্টিনেম অব মহম্মদ বলে আরেকটি এডিক্টের সন্ধান পাওয়া ্যা্তে মহম্মদ সেইন্ট ক্যাথরিন মনাস্ট্রিতে খ্রীষ্ঠানদের স্বাধীন ভাবে ধর্মাচারনের অনুমতি দেন। কিন্ত এই দুই প্রমান-ভাষা বিশ্লেষনের মাধ্যমে জানা গেছে, পরবর্তীকালে কেও লিখেছিল

http://en.wikipedia.org/wiki/Muhammad%27s_letters_to_the_Heads-of-State

http://en.wikipedia.org/wiki/Achtiname_of_Muhammad
)

এটা আরো স্পষ্ট হয় সিরিয়ান ইতিহাস থেকে। সিরিয়া সেই সময় জ্ঞান বিজ্ঞানের পীঠস্থান ছিল। সিরিয়া ইসলামের দখলে যায় ৬৪০ সালে। কিন্ত সিরিয়ার সাথে আরবের বাণিজ্য ছিল ঘনিষ্ঠ। সেখানে শুধু মাত্র ৬৩০ সালের একটি নথি পাওয়া যায় মহম্মদের সম্মন্ধে [http://en.wikipedia.org/wiki/Historicity_of_Muhammad#cite_note-Cook_73.E2.80.9374-8[৩]।
গ্রীক, বাইজেন্টাইন সব সোর্সেই মহম্মদের উল্লেখ আছে-কিন্ত সেটা ৭৫০ সালের পর থেকে। অর্থাৎ যখন মহম্মদ নামে একজন প্রফেট ইসলামিক সাম্রাজ্যে জনপ্রিয়! সমসাময়িক কিছু নেই।

এখন প্রশ্ন উঠবে সেটা কি করে সম্ভব? লোকটা মদিনাতে ছিল, মক্কার কুরেশী ট্রাইবের সাথে একের পর যুদ্ধে জিতল, কাবাতে মূর্তি ধ্বংস এগুলো ও কি তাহলে গল্প? ইতিহাস না ?

এখানেই ব্যাপারটা গোলমেলে। ইসলামের উত্থানের ইতিহাস নিয়ে দ্বিমত খুব বেশি নেই। কারন সেটা বাস্তব। আর সেই জন্য ইসলামের সিরিয়া, জেরুজালে্‌ম, ইয়েমেন বিজয়ের ওপর একাধিক সমসাময়িক নথি আছে। আরবিকেও আছে, অন্য ভাষাতেও আছে। কিন্ত কোনটাতেই মহম্মদ বা কোরানের উল্লেখ নেই [১]।

সমস্যা হচ্ছে ইসলামের ইতিহাসে মহম্মদের কেন্দ্রীয় ভূমিকা নিয়ে। এই সমস্যা নিয়ে সোভিয়েত ইতিহাসের মার্ক্সিস্ট স্কুলের ঐতিহাসিকরাও অনেক গবেষণা করেছেন। তাদের বক্তব্য আমার কাছে বেশি মনোজ্ঞ যেহেতু তারা ইসলামের উত্থানকে একটি আর্থ সামাজিক বিপ্লব হিসাবে দেখেছেন কল্পকাহিনীর কবর থেকে উদ্ধার করে [ http://en.wikipedia.org/wiki/Soviet_Orientalist_studies_in_Islam [৪] ]।

সোভিয়েত ঐতিহাসিকদের মধ্যে ক্লিমোভিচ, ইসলামের জন্ম নিয়ে সমস্ত প্রাচ্য বিশেষজ্ঞদের গবেষণা ঘেঁটে মহম্মদ সম্মন্ধে যে সিদ্ধান্তে এসেছিলেন, তা ঐতিহাসিকদের কাছে অনেকটা গ্রহণযোগ্য [৪] এবং আমাদের বর্তমান বিশ্লেষনে কাজে আসবে। ক্লিমোভিচের মতে মক্কা তখন সবে আরব বাণিজ্যের কেন্দ্র হতে চলেছে। ব্যাবসার কারনে তাদের সাথে ভারত, সিরিয়া, ইয়েমেন, বাইজেন্টাইন সব দেশের সাথে যোগাযোগ। সেখানকার আরবরা খ্রীষ্ঠান ধর্ম [ যা সিরিয়া, বাইজেন্টাইনে ছিল, মক্কাতেও খ্রীষ্ঠান ছিল] , গ্রীক দর্শন এবং ভারতীয় দর্শন নিয়ে বিস্তর পরিচিত ছিলেন। এইভাবে সমসাময়িক আরবে একটি প্রগতিশীল আন্দোলনের জন্ম হয়- এদের হানিফ বলত । এরা বিশুদ্ধু একেশ্বরবাদি – মধ্যবিত্ত মক্কাবাসীদের প্রগ্রতিশীল অংশ। অনেকটা যেভাবে মূর্তিপূজার বিরোধিতা করে প্রগতিশীল ব্রাহ্ম সমাজের সৃষ্টি হয়েছিল বাঙালী রেনেঁসাসের সময়। হানিফরা সেকালের মক্কার ব্রাহ্ম সমাজ। এদের অনুপ্রেরণার উৎস ছিল ইহুদি এবং খৃষ্ট ধর্ম। এই জন্য কোরানে এই দুই ধর্ম সত্য ধর্ম বলে স্বীকৃত।

মক্কার উত্থানের সাথে সাথে একটা শ্রেনীদ্বন্দ কাজ করতে থাকে। মক্কায় দুই শ্রেনীর ব্যাবসায়ী ছিল- প্রথম শ্রেনী যারা ব্যাবসায় টাকা খাটাত-মক্কার মহাজন । এরা ছোট ব্যবসায়িদের টাকা ধার দিত সিরিয়া, ইউয়েমেনে ব্যবসা করার জন্য। মধ্যবিত্ত ব্যবসায়ীরা দেখল, টাকা আসছে মক্কায়, তাদের পরিশ্রমে আসছে, কিন্ত টাকাটা যাচ্ছে মহাজন শ্রেনীর হাতে। মহাজনরা কুরেশি ট্রাইবাল লিডার। প্যাগান ধর্ম এবং মিলিশিয়া এরাই নিয়ন্ত্রন করত। সম্পূর্ন অর্থনৈতিক কারনে হানিফদের সাথে প্যাগাননেতা, যারা মহাজনও বটে তাদের ঝামেলা শুরু হয়। সম্ভবত এরা সুদের হার বাড়িয়ে যাচ্ছিলেন-এবং এই দুই শ্রেনীর মধ্যে মারামারি, গন্ডোগল বাড়ছিল। মহম্মদ ছিলেন হানিফদের নেতা। ফলে প্রাণ বাঁচাতে উনি হানিফ সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে মদিনাতে পালানেন।

লক্ষ্য করুন কোরান মহাজন এবং সুদের বিরুদ্ধে নির্মম। এর মূল কারন ইসলামের জন্মের মূলেই আছে হানিফদের এই মহাজন বিরোধি আন্দোলন ।

কিন্ত সাথে সাথে মক্কার গরীব অংশও আসতে আসতে মদিনাতে যোগ দেয় সম্পূর্ন ভাবে গণিমতের মাল বা ক্যারাভান লুট করার জন্য। লুঠ তরাজ সেকালের আরবে হারাম ছিল না- অন্য ট্রাইব থেকে লুঠ করে মালামাল, নারী ধরে আনা ছিল আরব ট্রাডিশন । মহম্মদ দেখলেন এদের নিয়ন্ত্রন করা খুব মুশকিল হবে যদি না তিনি একটি সুকঠোর সুশৃঙ্খল আধ্যাত্নিক ধর্মের মাধ্যমে এদের বাঁধতে না পারেন। এবং সেই ভাবেই আস্তে আস্তে কোরানের বিধিগুলি উনি আল ইসলামের সেনাদের জন্য তৈরী করেন। ইসলাম ধর্মের পেছনে, তার মূল উদ্দেশ্য ছিল একটি সুশৃঙ্খল আল ইসলামের সৈন্যবাহিনী।

কোরান ঘাঁটাঘাঁটি করে সোভিয়েত স্কুলের ঐতিহাসিকরা আরো সিদ্ধান্তে আসেন, এটি ছিল আরবদের ব্যবসা সুনিশ্চিত করার কনট্রাক্ট ম্যানুয়াল। কারন কোরান প্রায় দুশ বছর ধরে সংগ্রহীত হয়েছে [ http://en.wikipedia.org/wiki/Historicity_of_Muhammad#cite_note-15 [৫] এবং প্রথমের দিকের কোরানে ব্যবসা ও সমাজ সংক্রান্ত নির্দেশিকা গুলি অনেক বেশি । পরের দিকে প্রায় দুশ বছর ধরে কোরানে ধর্মীয় বিধানগুলি ঢোকে। কোরানের প্রথম দিকের সংকলনে স্যোশাল এবং বিজনেস কন্ট্রাক্টের ওপর এত বেশি দৃষ্টিপাত করা হয়েছে, সোভিয়েত ঐতিহাসিকরা নিশ্চিত, মক্কায় ব্যবসা বাণিজ্যে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে কোরানে বিজনেস কন্ট্রাক্ট এবং অর্থনীতির ওপর জোর দেওয়া হয় যেটা ধর্মগ্রন্থের জন্য অদ্ভুত। সেই জন্য তারা মনে করেন, আসলে হানিফদের তৈরী করা বিজনেস এবং স্যোশাল কন্ট্রাক্ট গুলি প্রথমে তৈরী হয় বানিজ্যিক চুক্তি হিসাবে-পরবর্তী একশো বছরে তা কোরানের সংকলনে স্থান করে নেবে।

তবে ক্লিমোভুচ ও নিশ্চিত না-শুধু একা মহম্মদ এই কাজ করেছেন, না হানিফদের নেতারা মিলে এই ধর্মের জন্ম দিয়েছে।

(২) মহম্মদের ইতিহাস বলতে সবটাই ওরাল ট্রাডিশন/ হাদিসের গল্পের মাধ্যমে এসেছে। ভাবুন একবার ২০০ বছর ধরে যে গল্পগুলো মুখে মুখে চলে আসছে, কেও লিখে যায় নি, সগুলোর মধ্যে কোন টা ঠিক বা বেঠিক জানবেন কি করে? এর জন্য হাদিস সায়েন্স আছে। সঠিক হাদিস কি জানার জন্য। কিন্ত সেটা কি সায়েন্স না ধান্দাবাজি? বিশেষত পরের খালিফারা ইসলামি সম্রাজ্যের ক্ষীর খাওয়ার জন্য মহম্মদের বায়োগ্রাফী নিজেদের মতন করে সাজাবেন না এর গ্যারান্টি কে দেবে? হাদিস থেকে কোন ঐতিহাসিক তথ্য পাওয়া সম্ভব না। দুশো বছরে দুধে কতটা জল ঢুকেছে বার করা সম্ভব না । প্রবাদ প্রতিম প্রাচ্য ঐতিহাসিক বার্নাড লুইস লিখছেন [http://en.wikipedia.org/wiki/Historicity_of_Muhammad#cite_note-FOOTNOTELewis196737-25]

“The collection and recording of Hadith did not take place until several generations after the death of the Prophet. During that period the opportunities and motives for falsification were almost unlimited.”

(৩) কোরানে মহম্মদের উল্লেখ আছে মাত্র চারবার। তাও কনটেক্সট পরিস্কার না । এখানে একটা কথা বলা দরকার। কোরানের ভাষা আদি আরবিক-যার মধ্যে হাজার হাজার সিরিয়ান, ক্যানানাইট, গ্রীক, রোমান শব্দ মিশে আছে। কোন ভাষাবিদ ছাড়া কোরানে আসল কি লেখা আছে, সেটা উদ্ধার করাই মুশকিল। সুতরাং কোরানকে ঐতিহাসিক সূত্র হিসাবে ব্যবহার করাও মুশকিল।

এমন না মহম্মদের অস্তিত্ব সমস্যা নতুন। ক্লিমোভিচ সেই ১৯৩০ সাল থেকেই এই প্রশ্ন তুলেছেন। কিন্ত মুশকিল হচ্ছে ইসলামি ফ্যানাটিকদের হাতে প্রাণ হারাবার ভয়ে অনেক প্রাচ্যবিদ সেই সব গবেষনা প্রকাশ করতে পারেন নি।

মোটামুটি ভাবে ইতিহাসে যেটা উঠে আসছে -হানিফদের একটা প্রগতিশীল আন্দোলনের নেতা ছিলেন মহম্মদ। প্যাগান মহাজনদের কাছ থেকে মক্কার ব্যবসার দখল নেওয়ার জন্য আল ইসলাম সেনা বাহিনী গঠন করার দরকার হয়ে ওঠে এই একেশ্বরবাদি সম্প্রদায়ের। কারন এই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ি শ্রেণীটি ছিল মহাজন দ্বারা শোষিত ও অত্যাচারিত। আল ইসলাম সেনাবাহিনী তৈরী করতে গিয়ে তারা দেখলেন মক্কার সর্বহারারা তাদের সাথে মদিনাতে আসতে চাইছে। প্রগতিশীল হানিফদের ধর্মচারন মক্কার গরীবদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়। ফলে মহাজনদের সুদের শোষন থেকে বাঁচতে তারাও মদিনাতে দলে দলে ভীর করতে থাকে। কিন্ত সেনাবাহিনী বানাতে গিয়ে হানিফরা দেখল, এরা লুঠেরাগিরি করতে এসেছে। ফলে সেনাবাহিনীতে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার জন্য এবং সুষ্ঠভাবে ব্যবসা করার জন্য এই গোষ্ঠী যে নীতিমালা তৈরী করে, সেটা কোরান হিসাবে পরে সংগ্রীহিত হয় [৪]।

তাহলে মহম্মদ চরিত্র? তিনি এই আল ইসলাম সেনাবাহিনীর নেতা । আরবে প্রগতিশীল আন্দোলনের ধারক। কিন্ত তার যে জীবনী আমরা জানি-যিনি গুহায় ঢুকে সাধনা করতে করতে ঐশী বানী শুনলেন এবং ইসলাম নাজিল হল-এসব আষাড়ে গল্প। এই ধর্মীয় মোরকটা তার মৃত্যুর অন্তত শখানেক বছর বাদে বাজারে ছাড়া হয়েছে। হাদিস এই সব গাঁজাখুরি গল্পের সংকলন । চরিত্রের নির্মান যদি শুধু লেনিনের মতন একটি সমাজ বিপ্লবের নেতার হত -তাহলে ইসলামের নামে যে রাজনীতি, সাম্রাজ্যবাদ, বাজার তৈরী হল-তার কোনটাই চলত না । ফলে সেই যুগের “লেনিন” মহম্মদের সাথে আরো অনেক গাঁজাখুরি ঐশ্বরিক গল্প জুরে, একটা মিথিক্যাল মহম্মদ চরিত্রর জন্ম হল সেই অষ্ঠম শতাব্দিতে-যার ধর্ম এবং ধর্মীয় সাম্রাজ্যবাদের বাজারে কাটতি ভাল। মুসলমানদের কাছে মহম্মদ শ্রেষ্ঠ পুরুষ। অসুবিধা নেই। কারন তার চরিত্রের সবটাই কাল্পনিক নির্মান। আসল ঐতিহাসিক মহম্মদ কি ছিলেন তা জানা সম্ভব না বলেই অধিকাংশ ঐতিহাসিক মনে করেন [১]।

এবার আসল প্রশ্নে আসি। কেন ইসলাম সব দেশের রাজনীতিতে এত গুরুত্বপূর্ন? সোভিয়েত স্কুলের ইসলামের ইতিহাস থেকে একটা ব্যাপার পরিস্কার ইসলামের শুরু একটা প্রগতিশীল, গরীব দরদি, মহাজন বিরোধি আন্দোলন দিয়ে। এটা মদিনা সুরাগুলি থেকে সহজেই বোঝা যায়। কিন্ত পরবর্তীকালে এই আন্দোলন হয়ে ওঠে চূড়ান্ত প্রতিক্রিয়াশীল, সাম্রাজ্যবাদি এবং আধিপত্যকামী। প্লেটোর রিপাবলিকানের ভূত ইসলামের ইতিহাসেও বিদ্যমান। ইসলাম আসলে ছিল একটি রাজনৈতিক আন্দোলন যা মহম্মদের মৃত্যুর দুশো বছর পর বিবর্তিত হতে থাকে ধর্মীয় রূপে। প্রতিটি মুসলিমদেশে দরিদ্র শ্রেনীর কাছে ইসলামের আবেদন অপ্রতিরোধ্য। তারা মনে করে ইসলামের জন্ম হয়েছে তাদের মতন দরিদ্র শ্রেনীর হেফাজত করতে-যা ঐতিহাসিক ভাবে ভুল কিছু না । মাক্সবাদের প্রয়োগে কমিনিউস্টরা ব্যর্থ- সেখানে প্রতিক্রিয়াশীল ধর্ম হওয়া সত্যও , সেই শ্রেনী দ্বন্দের সুযোগ ঐতিহাসিক ভাবে ইসলাম নিয়েছে, এবং আজো নিচ্ছে। বাংলাতে কারা ইসলাম গ্রহণ করে? সবাই অন্ত্যজ, সমাজের দরিদ্রতম অংশ। সেখানে বৌদ্ধ ধর্মর ইতিহাসে দেখা যাবে, বৌদ্ধ ধর্ম প্রথমে বণিক শ্রেনীর মধ্যে জনপ্রিয় হয়। যদিও ইসলামের নেতৃত্বে ছিল মক্কার বণিক শ্রেনী। যাইহোক দরিদ্র শ্রেনীর মধ্যে এই দুর্বার জনপ্রিয়তা যা সম্পূর্ন মিথের ওপর দাঁড়িয়ে, সেটাই ইসলামের আসল রাজনৈতিক শক্তি। যার ভিত্তি অবশ্যই শ্রেণী দ্বব্দ। শ্রেনী দ্বন্দ এবং ধর্মের মাদক-এই ডবল ডোজে রাজনীতিতে গরীব শ্রেনীর ওপর ইসলামের প্রভাব সাংঘাতিক বেশী । ইসলামে ধর্মটার ভিত্তিই হচ্ছে রাজনীতি। সুতরাং কোন ইসলামিক দেশে রাজনীতি থেকে ইসলামকে পৃথক করা সম্ভব হয় নি-হবেও না। তুরস্কে আইন করে যা হয়েছে তা স্বৈরাচারের মাধ্যমে-গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে ইসলাম রাজনীতিতে ঢুকবে-এবং সেটা তুরস্কে একটা ক্রমপ্রবাহমান পদ্ধতি।

তাহলে কি ইসলামের হাত থেকে মুসলিম দেশগুলির রাজনীতির নিস্তার নেই? পরিস্কার উত্তর নিস্তার সেই দিন মিলবে যেদিন ইসলামিক দেশগুলিতে দরিদ্র দূরীকরন, জ্ঞান বিজ্ঞানের প্রসার হবে। আস্তে আস্তে তারা দেখতে পাবে “ভাল মুসলমান” সেজে কিভাবে তাদের দেশের রাজনীতিবিদরা তাদের ঠকাচ্ছে। অর্থাৎ ধর্মের প্রতিক্রিয়াশীল দিকটা তারা বুঝতে সক্ষম হবে।

মুসলিমদেশের রাজনীতিবিদরা “ভাল” মুসলমান হওয়ার যাবতীয় অভিনয় রীতি রপ্ত করতে বাধ্য। উদাহরন সাদ্দাম হুসেন, গদ্দাফি, ইয়াসার আরাফাত। এরা প্রথম জীবনে বাম ঘরানার রাজনীতিতে ছিলেন। সাদ্দাম নামাজ পড়তেন না । আস্তে আস্তে জনপ্রিয়তা বাড়াতে, সাদ্দাম ইসলামিক জীবনে ঢোকেন যা টিভিতে ঘটা করে দেখানো হত । প্রতিটা মুসলিমদেশে প্রতিটা রাজনীতিবিদ/নেতারা তাদের ধর্মীয় জীবন টিভিতে দেখাতে উৎসুক -নইলে জনপ্রিয়তা হারাবেন। এটা ভারতে বা খ্রীষ্ঠানদের মধ্যেও আছে। তবে মুসলমানদেশ গুলির মতন এত দৃষ্টিকটূ ইঁদুর দৌড় অন্যত্র বিরল । গণতান্ত্রিক মুসলিম দেশগুলিতে পার্টিগুলির মধ্যে কে কত ইসলামের হেফাজত করতে পারে তাই নিয়ে মিডিয়াতে প্রতিযোগিতা। আফগানিস্তানের সবকটা রাজনৈতিক পার্টির সাথে ইসলামটা জুরে দেওয়া হয়েছে- ন্যাশানাল ইসলামিক মুভমেন্ট অব আফগানিস্তান, জামাত ই ইসলামি, হিজবে ওয়াদাত ই ইসলামি, হেজবি ইসলামি ইত্যাদি ইত্যাদি। মুসলিম দেশগুলিতে ইসলাম রক্ষকের এই অভিনয়, উন্নয়ন ভিত্তিক রাজনীতির বাধা স্বরূপ। বাংলাদেশে আওয়ামী লিগের মেয়ররা যদি দেখেন শহরগুলির উন্নয়ন করার পরেও, যারা ইসলামি হেফাজতের ভাল অভিনয় করতে পারে লোকে তাদেরই ভোট দেয়, তাহলে নেক্সট টাইম তারাও উন্নয়ন ছেরে দাড়ির দৈর্ঘ্য বাড়িয়ে মসজিদ স্থাপনেই বেশি মনোযোগী হবেন। সেটাই যেহেতু ভোট টানার উপায়। এইভাবেই মুসলিম দেশগুলিতে উন্নয়নের রাজনীতি মাথা তুলে দাঁড়াতে পারছে না । রাজনীতিতে ইসলামের অবস্থান তাদের পা টেনে নামাচ্ছে। রাজনীতি থেকে ইসলামকে বাদ দেওয়াও অসম্ভব-কারন তাহলে ইসলাম বলে কিছুর অস্তিত্ব থাকে না [চলবে]
আগের পর্ব-১
পর্ব-২

[791 বার পঠিত]