“মৃত্যুঞ্জয়ী রেশমা”

By |2013-05-12T18:34:50+00:00মে 12, 2013|Categories: ব্যক্তিত্ব|6 Comments

রেশমা এক অসম -সাহসী নারীর নাম, রেশমা এক বিপুল প্রাণ-শক্তিতে ভরপুর বাঙালি বীরের নাম, রেশমা এক মরণজয়ী মানুষের নাম ! ২৪ শে এপ্রিল যে মানুষরুপী পিশাচ গার্মেন্টস মালিকরা রেশমার মত হাজার হাজার নিরীহ শ্রমিককে এক মৃত্যুকূপে ঠেলে দিয়েছিল – রেশমা তাদের গালে এক মহা চপেটাঘাত মেরে বিজয়ীর বেশে সেই “রাক্ষস প্লাজার” ধ্বংসস্তুপ থেকে বের হয়ে এল একদল মহা- হৃদয়বান মানুষের সহায়তায় ! যেদিন রাক্ষস প্লাজা ধসে পড়ল – ভাগ্যের জোরেই অথবা বুদ্ধির জোরেই হোক রেশমা প্রাণে বেঁচে গেল ! কিন্তু আটকে পড়ল সেই ভয়ঙ্কর মৃত্যুপুরীতে – সে বাঁচার জন্য প্রাণপণ চিৎকার করলো – কিন্তু সেই অন্ধকার গহবর থেকে তার আর্তনাদ বাইরের জনসমুদ্রে এসে তরঙ্গায়িত হলো না ! তবু সে নিরাশ হলো না – বাঁচার আশা ছাড়ল না !- মরণের সাথে যুদ্ধে নামল ! কোথা থেকে পেল রেশমার মত এক সাধারণ বালিকা এমন অসম সাহস – যে যুদ্ধ করবে মৃত্যুর সাথে !!!!!

আমাদের এই পোড়া দেশে রেশমার মত মেয়েদের জন্মের পর থেকেই প্রতিক্ষণ, প্রতিদিন যুদ্ধ করে করেই টিকে থাকতে হয় – প্রতিনিয়ত তাদের যুদ্ধ করতে হয় ক্ষুধার সাথে – দারিদ্রের সাথে, তাদের যুদ্ধ করতে হয় সমাজের অজস্র অন্যায় আর অবিচারের সাথে ! তাদের যুদ্ধ করতে হয় রক্তচোষা ধন-লোভীদের রক্তচক্ষুর সাথে ! এমনি করে জীবনভর যুদ্ধ করে করেই রেশমা বোধ হয় হয়ে উঠেছে অসম সাহসী ! আর এই জীবন থেকে শেখা এই সাহসের উপর ভর করেই মৃত্যুর মুখে দাঁড়িয়েও এই বালিকা দমল না ! আশায় বুক বেঁধে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়তে শুরু করলো ! সহকর্মীদের পড়ে থাকা উচ্ছিষ্ট খাবার আর মরন্কুপের দেয়ালের ফাটল দিয়ে ছুঁয়ে পড়া বৃষ্টির ফোঁটা ফোঁটা জল পান করে প্রাণপণ চেষ্টা শুরু করলো নিজেকে বাঁচিয়ে রাখতে ! একদিন …দুদিন …তিনদিন করে পুরো সতের দিন – তবু রেশমা আশা ছাড়ে নি – হয়ত এই অন্ধকার কূপ থেকে বের হবার একটা পথ বের হবে – হয়ত বাঁচার একটা উপায় মিলবে ! অবিশ্বাস্য হলেও সত্যি রেশমার সাহস আর আশা জয়ী হলো ! মৃত্যু পরাভব মানলো রেশমার কাছে !!!!!!!!!!!

কামনা করি হৃদয়ের গভীর থেকে এই মরণজয়ী বালিকা শীঘ্রই সম্পূর্ণ সুস্হ হয়ে উঠুক ! মরণের সাথে তাঁর এই অকুতভয় যুদ্ধের অভিজ্ঞতা তাঁর আত্মশক্তিকে আরো বলিয়ান করুক ! আর তাঁর এই দুর্বিনীত আত্মশক্তি হোক তাঁর আগামী দিনের পথ চলার পাথেয়
! কামনা করি তাঁর সেই সাহস আর অদম্য জীবনীশক্তি এক অপ্রতিরোধ্য প্রতিবাদের ভাষা হয়ে সমাজের সব অন্যায়, অবিচার আর অন্ধত্বের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াবে !

আশা করি মৃত্যুঞ্জয়ী রেশমার এই জীবনগাঁথা বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ জানবে – কামনা করি তাঁর এই মরণজয়ী প্রাণ-শক্তির চেতনা প্রতিটি মানুষের অন্তরে সঞ্চারিত হবে !

আমাদের বীর সন্তানেরা যারা পরম মমতায় আর অসীম সতর্কতায় রেশমাকে মরনকূপ থেকে উদ্ধার করলো তাদের প্রতি সশ্রদ্ধ স্যালুট, আর রেশমা – তোমার তরে আমার হাজার সালাম !!!! সবশেষে অন্তর থেকে কামনা করি তুমি দীর্ঘজীবি হও !!

মন্তব্যসমূহ

  1. গীতা দাস মে 13, 2013 at 9:11 অপরাহ্ন - Reply

    বস্ত্র বালিকা সংগ্রামী নারী রেশমাকে নিয়ে লেখাটির জন্য ধন্যবাদ।

    কোথা থেকে পেল রেশমার মত এক সাধারণ বালিকা এমন অসম সাহস – যে যুদ্ধ করবে মৃত্যুর সাথে !!!!!

    হ্যাঁ, জীবিকার জন্য প্রতিক্ষণ যুদ্ধ রত রেশমা জীবনের জন্য ১৬ দিন যুদ্ধ করে আমাদের বুঝিয়ে দিয়েছে রেশমাদের জীবনী শক্তির গভীরতা।
    ধর্মান্ধদের মুখে কালিমা লেপে রেশমার ও তার মত নারীদের জীবনী শক্তির জয় হোক।

    • অমল রায় মে 13, 2013 at 10:11 অপরাহ্ন - Reply

      প্রিয় গীতাদি,
      আমার ভয় হয় সেই ধর্মান্ধরা আবার তাকে নিয়ে না ব্যবসা শুরু করে ! লেখাটা পড়ার জন্য আর সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ ! ভাল থাকবেন !

  2. অজ্ঞ মানব মে 13, 2013 at 2:12 পূর্বাহ্ন - Reply

    ১৭ দিন একটা গর্তে থাকাই খুবই বেসম্ভব টাইপের একটা কাজ। সেখানে রেশমা মৃত্যুকে পরাজিত করে যেভাবে ফিরে এসেছে তার জন্য তার প্রতি সালাম।

    • অমল রায় মে 13, 2013 at 10:05 অপরাহ্ন - Reply

      @অজ্ঞ মানব,
      আপনার ছদ্ম নামটি “অজ্ঞ” হলেও আসলে আপনি খুব “প্রাজ্ঞ’ ! লেখাটি পড়ার জন্য আর সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ! ভাল থাকবেন !

  3. বিপ্লব রহমান মে 12, 2013 at 6:59 অপরাহ্ন - Reply

    [img]http://d30fl32nd2baj9.cloudfront.net/media/2013/05/10/15_reshma_100513.jpg7/ALTERNATES/w640/15_Reshma_100513.jpg[/img]

    সোহেল রানা, তার অধরা গড ফাদার তৈমুর জং, গড ফাদারের গড ফাদার গং, ভবন চাপায় নিহত সহস্রাধিক ভাগ্যহত শ্রমিকের থেৎলে যাওয়া, পঁচা-গলা লাশই আমার বাংলাদেশ নয়। মৃতুঞ্জয়ী রেশমীও আমার বাংলাদেশ। সেল্যুট! (Y)

    নোটটির জন্য অমল রায়কে সাধুবাদ। ছোট্ট কিন্তু প্রেরণাদায়ী লেখা। চলুক।

    • অমল রায় মে 13, 2013 at 10:03 অপরাহ্ন - Reply

      প্রিয় বিপ্লব রহমান,
      আপনার লেখা আর মন্তব্য বরাবরই আমার খুব পছন্দ ! আমার এই ক্ষুদ্র লেখাটি পড়ার জন্য আর সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ ! ভাল থাকবেন !

মন্তব্য করুন