দুগ্ধাপরাধী

আমিও ঘৃণাভরে ওদেরকে নাম দিলাম দুগ্ধাপরাধী।
মায়ের দুধ খেয়ে মার বুকে লাথি মারা দুগ্ধাপরাধী,
বাচাল রাজনীতির ক্ষমতালোভী ভিক্ষুক, এবং অনাত্মীয়;
আমার মায়ের দুধ খাওয়া, ঋণ ভুলে যাওয়া, দুগ্ধাপরাধী।

ছদ্মবেশী জনপ্রতিনিধি, ভন্ড, রাজ ঠিকাদার, ঘৃনাবাদ।
ঘৃণাবাদ তোমাদের, অন্তর থেকে, শ্বাশত ঘৃনাবাদ।
সুপ্রভাতের বদলে তোমাদের জানাই অসীম ঘৃনাবাদ।
স্বাধীনতার চেতনার অপমানের চতুর ঠিকাদার, দুগ্ধাপরাধী।

আমার ধর্ষিতা মা, আমার বীরাঙ্গনা, মুক্তিযোদ্ধা,
মানুষ, সাধারণ, অতি সাধারণ মানুষের হিসাব,
হিসাব চুকিয়ে দাও, মায়ের দুধ-ঋণের হিসাব।
শহীদের হিসাব। বীরদের হিসাব। নগদে। এক্ষুনি।

যারাই বিলম্বিত করবে যে কোন যুদ্ধাপরাধীর বিচার,
যারাই করবে আড়াল, আঁতাত ওদের সঙ্গে,
যারাই দেবে আশ্রয়, প্রশ্রয়, সময়ের কোন ক্ষনে;
তারা প্রত্যেকেই, এক একটি, জঘন্য দুগ্ধাপরাধী।

রাজাকার আলবদর যুদ্ধাপরাধী দালাল, ওরা সবাই দুগ্ধাপরাধী।
অনাত্মীয় ওরা; ওদের সকল সংগঠন। ওরা দুগ্ধাপরাধী।
পুঞ্জিভূত সমস্ত ঘৃনা, একসাথে করে ছুঁড়ে দাও,
দুগ্ধাপরাধীদের দিকে, সুনিপুণ ও লক্ষ্যভেদী সুতীব্র দক্ষতায়।

About the Author:

মুক্তমনা ব্লগার। আদ্দি ঢাকায় বেড়ে ওঠা। পরবাস স্বার্থপরতায় অপরাধী তাই শেকড়ের কাছাকাছি থাকার প্রাণান্ত চেষ্টা।

মন্তব্যসমূহ

  1. গীতা দাস ফেব্রুয়ারী 22, 2013 at 8:30 অপরাহ্ন - Reply

    ঘৃণা ছুঁড়লাম দুগ্ধাপরাধীদের মুখে এ মন্তব্যের মাধ্যমে।

    • কাজী রহমান ফেব্রুয়ারী 22, 2013 at 11:05 অপরাহ্ন - Reply

      @গীতা দাস,

      বাদ জুম্মা জামাত শিবিরের জোশ-স্পর্ধা দেখে বোঝা গেল যে সত্যিই ওদের দিন শেষ।

      শাহবাগ সহ দেশব্যপী দেশচেতনার সকল সমাবেশে অংশগ্রহনকারী সবাই নিরাপদ থাকুন।

      রাজাকার জামাত শিবির এবং সকল দুগ্ধাপরাধি নিপাত যাক।

      রাজাকার আলবদর যুদ্ধাপরাধী দালাল, ওরা সবাই দুগ্ধাপরাধী।
      অনাত্মীয় ওরা; ওদের সকল সংগঠন। ওরা দুগ্ধাপরাধী।
      পুঞ্জিভূত সমস্ত ঘৃনা, একসাথে করে ছুঁড়ে দাও,
      দুগ্ধাপরাধীদের দিকে, সুনিপুণ ও লক্ষ্যভেদী সুতীব্র দক্ষতায়।

  2. তামান্না ঝুমু ফেব্রুয়ারী 19, 2013 at 12:34 পূর্বাহ্ন - Reply

    নিমকহারাম হীন দুগ্ধাপরাধীদের জন্য শুধুই ঘৃণা।

    • কাজী রহমান ফেব্রুয়ারী 19, 2013 at 2:22 পূর্বাহ্ন - Reply

      @তামান্না ঝুমু,

      রাজাকার আলবদর যুদ্ধাপরাধী দালাল, ওরা সবাই দুগ্ধাপরাধী।
      অনাত্মীয় ওরা; ওদের সকল সংগঠন। ওরা দুগ্ধাপরাধী।
      পুঞ্জিভূত সমস্ত ঘৃনা, একসাথে করে ছুঁড়ে দাও,
      দুগ্ধাপরাধীদের দিকে, সুনিপুণ ও লক্ষ্যভেদী সুতীব্র দক্ষতায়।

  3. আঃ হাকিম চাকলাদার ফেব্রুয়ারী 18, 2013 at 11:30 অপরাহ্ন - Reply

    বিষয়বস্তু সুন্দর হয়েছে। ধন্যবাদ কাজী সাহেব।

    • কাজী রহমান ফেব্রুয়ারী 20, 2013 at 11:23 পূর্বাহ্ন - Reply

      @আঃ হাকিম চাকলাদার,

      রাজাকার আলবদর যুদ্ধাপরাধী দালাল, ওরা সবাই দুগ্ধাপরাধী।
      অনাত্মীয় ওরা; ওদের সকল সংগঠন। ওরা দুগ্ধাপরাধী।
      পুঞ্জিভূত সমস্ত ঘৃনা, একসাথে করে ছুঁড়ে দাও,
      দুগ্ধাপরাধীদের দিকে, সুনিপুণ ও লক্ষ্যভেদী সুতীব্র দক্ষতায়।

  4. মইনুল মোহাম্মদ ফেব্রুয়ারী 18, 2013 at 10:01 অপরাহ্ন - Reply

    এ যেন আমার মনের অব্যক্ত কথা। অসাধারণ!

    • কাজী রহমান ফেব্রুয়ারী 20, 2013 at 11:23 পূর্বাহ্ন - Reply

      @মইনুল মোহাম্মদ,

      যারাই বিলম্বিত করবে যে কোন যুদ্ধাপরাধীর বিচার,
      যারাই করবে আড়াল, আঁতাত ওদের সঙ্গে,
      যারাই দেবে আশ্রয়, প্রশ্রয়, সময়ের কোন ক্ষনে;
      তারা প্রত্যেকেই, এক একটি, জঘন্য দুগ্ধাপরাধী।

  5. অর্ফিউস ফেব্রুয়ারী 18, 2013 at 1:37 অপরাহ্ন - Reply

    আমিও ঘৃণাভরে ওদেরকে নাম দিলাম দুগ্ধাপরাধী।
    মায়ের দুধ খেয়ে মার বুকে লাথি মারা দুগ্ধাপরাধী,
    বাচাল রাজনীতির ক্ষমতালোভী ভিক্ষুক, এবং অনাত্মীয়;
    আমার মায়ের দুধ খাওয়া, ঋণ ভুলে যাওয়া, দুগ্ধাপরাধী।

    (Y) (Y) অসাধারণ।সত্যি আপনার কবিতাগুলো খুব সুন্দর লাগছে।

    আমার ধর্ষিতা মা, আমার বীরাঙ্গনা, মুক্তিযোদ্ধা,
    মানুষ, সাধারণ, অতি সাধারণ মানুষের হিসাব,
    হিসাব চুকিয়ে দাও, মায়ের দুধ-ঋণের হিসাব।
    শহীদের হিসাব। বীরেদের হিসাব। নগদে। এক্ষুনি।

    (F) (F) পুরা কবিতার মাধ্যমেই মনের কথা বলার জন্য শুভেচ্ছা।

    • কাজী রহমান ফেব্রুয়ারী 19, 2013 at 2:23 পূর্বাহ্ন - Reply

      @অর্ফিউস,

      ধন্যবাদ অর্ফিউস। ভালো থাকুন।

মন্তব্য করুন