যুক্তির স্পর্ধিত উদ্দীপনায়…

By |2013-01-31T13:24:44+00:00জানুয়ারী 31, 2013|Categories: যুক্তিবাদ, শিক্ষা, সমাজ, সংস্কৃতি|6 Comments

লিখেছেন: কৌশিক আজাদ প্রণয়

যুক্তি মানুষের এমন এক চেতনা যার শাণিত শক্তি কুসংস্কারের টুটি চেপে জাগিয়ে তোলে সভ্যতাকে। যুক্তিবাদী মানুষ সমাজকে গড়ে তুলতে পারে আপন আলোর দীপ্তিতে।অসাম্যের অভিশাপকে পরাস্ত করে সাম্যের আবির্ভাব, দাসত্বের শৃঙ্খল ভেঙ্গে মুক্তিকামী চেতনার বড় হাতিয়ার যুক্তি। যুক্তিবাদী জাতি নিজেদের উৎকর্ষের সুউচ্চ শিখরে প্রতিষ্ঠা করার স্পর্ধা রাখে।আজকের সমাজের অন্যায্যতা আর অনাচারের মুলে রয়েছে যুক্তিহীন মানসিকতার কদাকার রূপ। শাসক শ্রেণীর যুক্তিহীন কর্মকাণ্ড আমাদের অগ্রসরতাকে ক্রমাগত করছে বাধাগ্রস্থ । আর আমরাও তখন যুক্তিহীন মানসিকতার দাসত্ব করে চলমান বর্তমানকেই অপ্রিবরতিত বাস্তব হিসেবে মেনে নিয়ে “ এই বেশ ভালো আছি” মানসিকতায় খুঁজে নেয় মেনিমুখো জীবন। যেই জীবন যুক্তির নয় সেই জীবন দাসত্বের । যুক্তিবাদী চেতনায় গড়ে ওঠে বিপ্লবের ভ্রূণ।

যদিও বিতর্ক নামক প্রেরণাটি আজ স্রেফ লোকদেখানো আত্মদম্ভ সমেত বাচ্যিক শিল্প হিসেবে চর্চিত আর সেই সাথে আত্মস্বীকৃতি লভ্যের প্রাবল্যে কিছু যুক্তির ডায়াস কাঁপানো উদগীরণ, অথচ বিতর্ক একটি সামাজিক আন্দোলন ও বটে।একজন বিতারকিক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ তাকে সুন্দর করে সাজাতে,বিবদমান পঙ্কিলতা দূর করে নবপ্রভাতের আলো ফোটাতে। একের পর এক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে নিজেকে, নিজের প্রতিষ্ঠানকে সখ্যাতি আর সুনাম উপহার দেয়ার পাশাপাশি বিতর্ক আন্দোলনের চেতনাকে সমগ্র জাতিতে বিকশিত করার দায়িত্ব ও একজন তার্কিকের উপর বর্তায়। আমরা স্বপ্ন দেখেছিলাম এমনটির । পারিনি। কারন আমরা যারা বিতার্কিক আমাদের কেবল বাগ্মিতার বিকাশ ঘটেছে, বোধের বিকাশ ঘটেনি। আজো আমাদের বিতর্ক আয়োজনের মহারহে নিমগ্ন। আমরা বিতর্ককে মানুষের জন্য করতে পারিনি , করেছি স্বীকৃতির জন্য, করেছি ক্যারিয়ারের জন্য।

বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিতে কিছুদিন শিক্ষকতা করার সুবাদে বেশ কয়েকটি গণিত অলিম্পিয়াডে যাওয়ার অভিজ্ঞতা আমার হয়েছে। কেন হুট করে গণিতকে টেনে নিয়ে আসলাম প্রশ্ন জাগতে পারে। গণিত যেমন মানুষের চিন্তার বিকাশে সহায়তা করে, ঠিক তেমনি বিতর্ক ও মানুষকে ভিন্ন ভাবে ভাবতে শেখায়। চেতনায় আলোড়ন আনে। অথচ গণিত অলিম্পিয়াড আজ যেভাবে দ্বিধাহীন সারাদেশে কাজ করে যাচ্ছে, বিতর্ক সেভাবে পারছে না। কয়েকটি জাতীয় উৎসব মানেই চেতনাকে ছড়িয়ে দেয়া নয়।একটি গণিত অলিম্পিয়াড যেভাবে ক্ষুদে গণিতবিদদের স্বপ্ন দেখতে শেখাচ্ছে, আবিষ্কারের নেশায় ধাবিত করছে, চিন্তার ক্ষেত্রকে প্রসারিত করছে, বিতর্ক ও এরচেয়ে কম কিছু করার নয়। অথচ আমরা তা পারছি না। গণিত অলিম্পিয়াডের আয়োজকেরা সম্মিলিত একটি প্ল্যাটফর্মে ঐক্য প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে যেটা পারেনি আমাদের দেশের জাতীয় পর্যায়ের বিতর্ক বোদ্ধারা- রথী মহারথীরা, কর্তা ব্যাক্তিরা। “… ডি এফ” , “… ডেমোক্রেসি” আর হাজারো “জাতীয়” সংগঠনগুলোর হীন মানসিক দ্বৈরথে আমরা বিতর্ককে শুধু উৎসবের মধ্যেই সীমাবদ্ধ করে রেখেছি। প্রত্যন্ত এলাকার স্কুল কলেজগুলোতে গিয়ে বিতর্কের আলো ছড়িয়ে দেয়া, ওদের জন্য কর্মশালা আর প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থানা পর্যায়ে, জেলা পর্যায়ে, বিভাগীয় পর্যায়ে তথা জাতীয় পর্যায়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে সবার মধ্যে বিতর্কের চেতনা ছড়িয়ে দেয়াটা কঠিন নয়। কেউ যদি বলে ওঠে যে “আমরা তা ঢের করি” তবে স্পর্ধা নিয়েই বলব সেটা শতভাগ লৌকিক আর অসার। কারন শুধুমাত্র কয়েকটা বিতর্ক উৎসব করে শহুরে সীমাবদ্ধতা আর গা বাঁচানো দায় এড়িয়ে কয়েকটা ঢাকার বাইরের প্রতিষ্ঠান ডেকে নিয়ে প্রোগ্রাম করাটাকে তথাকথিত জাতীয় সংগঠনগুলোর হিংসাত্মক দৌড়াত্বই বলে, বিতর্কের শৈল্পিক বিপ্লব বলেনা। এই অবস্থা থেকে বের হয়ে আমাদের উচিত বিতর্কের শাণিত প্রজ্বলনে সমগ্র জাতিকে সূচিত করা, যেটা আজ অসম্ভব মনে হলেও আমাদের মেধা, মনন আর ঐক্যের শক্তিতে তা অসম্ভব নয়।

তাই সবার প্রতি আবেদন- মানসিক দূরত্ব ঘুচিয়ে অভিন্ন প্ল্যাটফর্মে এসে দাঁড়ান, দেখবেন- অমানিশার ঘোর কেটে গিয়ে চন্দ্রমল্লিকার তিথি জেগে উঠবে। জয় হবে বিতর্কের। আমরা স্বপ্ন দেখতে পারব একটি সমৃদ্ধ জাতির………

কৌশিক আজাদ প্রণয়
সাবেক বিতার্কিক ,সাবেক প্রভাষক, ওয়ার্ল্ড ইউনিভারসিটি অফ বাংলাদেশ

About the Author:

মুক্তমনার অতিথি লেখকদের লেখা এই একাউন্ট থেকে পোস্ট করা হবে।

মন্তব্যসমূহ

  1. সংশপ্তক ফেব্রুয়ারী 1, 2013 at 1:59 পূর্বাহ্ন - Reply

    মুক্তমনায় স্বাগতম ! 🙂
    প্রথমে কিছু মন্তব্য করবো এর পরে কিছু প্রশ্ন করছি।‌

    মানুষ সাধারণত তিনটি উপাদানের সাহায্য নিয়ে একটি বিষয়ের উপর বিতর্কে সামিল হয় – যুক্তি , নিরেট তথ্য এবং আবেগ। এর পাশাপাশি কুযুক্তি , ভুল কিংবা অপরিপক্ক তথ্য এবং অন্ধ বিশ্বাস তো আছেই। আপনার লেখার শিরোনামটা পড়ে বোঝা যায় যে, আপনি যুক্তি ভিত্তিক বিতর্কে আগ্রহী। যুক্তি বলতে কি বোঝায় এবং বিষয় ভেদে কোন ধরনের যুক্তি প্রযোজ্য সে ব্যপারে একটু আলোকপাত করলে লেখাটির নামকরণ স্বার্থক হতে পারতো। বিতর্ক এবং তর্কের মধ্যকার পার্থক্যটা আপনার লেখায় আসেনি। মানুষকে কেন বিতর্কে অংশগ্রহন করতে হবে তার সপক্ষে আবেগ দেখলাম কিন্তু লক্ষ্য করার মতো যুক্তি আপনার লেখায় খুঁজে পেলাম না।

    এবার একটা ছোট প্রশ্ন রেখে আমার মন্তব্যে সমাপ্তি টানছি। একজন সাবেক বিতার্কিক হিসেবে বিতর্কের মঞ্চে এ পর্যন্ত কোন বিষয়টিকে আপনার দৃষ্টিতে সবচেয়ে বিতর্কিত বিষয় বলে মনে হয়েছে ?

    • কৌশিক আজাদ প্রণয় অক্টোবর 9, 2013 at 4:04 অপরাহ্ন - Reply

      @ সংশপ্তক

      ধন্যবাদ আপনার চমৎকার মূল্যায়নের জন্য। দেখুন, বিতর্ক আন্দোলনের মূল লক্ষ্য এবং এর পৃষ্ঠপোষকতার যেই জায়গাটি আমাদের সকলের কাম্য ছিল আমরা সেই জায়গা থেকে অনেকটা পিছিয়ে পরেছি। ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র চলমান কিছু সংকট যা বাংলাদেশের বিতর্ক অঙ্গনকে কলুষিত করছে স্রেফ তা নিয়ে একটু আলোকপাত করেছি।বাংলাদেশে প্রচলিত বিতর্ক চর্চার উন্নয়নে জাতীয় পর্যায়ের যেসব বিতর্ক সংগঠন আছে তাদের ভূমিকা আজ শুধু কয়েকটা উৎসব আয়োজনেই সীমাবদ্ধ। শুধু তাই নয়, তারা বিভিন্ন পাবলিক/ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে নিজেদের আধিপত্ববাদী প্রভাব বিস্তারে ব্যাস্ত যেটা মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। প্রচলিত চর্চিত বিতর্কের মূল লক্ষ্য আসলে মেধার বিকাশ, চিন্তাশক্তির উদ্দীপন। শুধুমাত্র বলয়ের বাইরে অবস্থান বলে কিংবা লেজুড়বৃত্তির মনভাব নেই বলে একটি দলকে ওই তথাকথিত জাতীয় বিতর্ক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ যারা প্রায়শই বিচারক হিসেবে থাকেন তাদের মূল্যায়নে হেরে যেতে হয়। হতাশার সীমা আরও কয়েক প্রস্থ স্ফীত হয় তখন।
      মূল্যায়নের জন্য ধন্যবাদ।

  2. কাজি মামুন জানুয়ারী 31, 2013 at 11:36 অপরাহ্ন - Reply

    যদিও বিতর্ক নামক প্রেরণাটি আজ স্রেফ লোকদেখানো আত্মদম্ভ সমেত বাচ্যিক শিল্প হিসেবে চর্চিত আর সেই সাথে আত্মস্বীকৃতি লভ্যের প্রাবল্যে কিছু যুক্তির ডায়াস কাঁপানো উদগীরণ,

    কথাটিতে সত্য রয়েছে, তবে পুরোপুরি নয় (আমার মতে)। দেখুন, আজকের তরুণেরা যে ব্লগে/ফেইসবুকে/সামাজিক সাইটে ঝড় তুলছে যেকোন জাতীয় বা আন্তর্জাতিক ইস্যুতে, তাতে বাংলাদেশের বিতর্ক আন্দোলনের কিঞ্চিৎ ভূমিকা হলেও আছে। সত্য বটে, বিতর্ক আন্দোলনের জন্মের বহু পূর্বেই এই দেশের তরুণেরা ভাষার অধিকার বা স্বাধীনতার সূর্য ছিনিয়ে এনেছে; কিন্তু সে এমন একটা সময় ছিল, তার আহবানে ঝাঁপিয়ে পড়তে কোন অনুশীলনের দরকার পড়ে না, ট্রেনিং নিতে হয় না। তুলনায় একটি স্বাধীন দেশের তরুণদের জাগিয়ে তোলা অনেক কঠিন (অনেক ক্ষেত্রেই আয়েসি আলস্য পেয়ে বসে তাদের); সেজন্যই দরকার পড়ে একটি বিতর্ক আন্দোলনের, যা আমাদের দেশে কাঙ্ক্ষিত সুফল আনেনি ঠিকই, কিন্তু কিছু মূল্যবান অবদান রেখেছে নিশ্চয়ই।

    কারন আমরা যারা বিতার্কিক আমাদের কেবল বাগ্মিতার বিকাশ ঘটেছে, বোধের বিকাশ ঘটেনি।

    চরম একটা সত্য তুলে ধরেছেন। (Y) (Y)

    পরিশিষ্ট: আপনার সুন্দর লেখাটি পাঠে বিঘ্ন ঘটিয়েছে কিছু অশুদ্ধ বানান এবং ‘লভ্যের প্রাবল্যে’ জাতীয় কঠিন শব্দ। আপনার আরও লেখা পড়ার প্রত্যাশায় থাকছি।

  3. সাইফুল ইসলাম জানুয়ারী 31, 2013 at 3:30 অপরাহ্ন - Reply

    বিতর্কের ব্যাপারে আমার ধারনা খুব একটা ভালো না, মানে তেমন জানি না আর কী। যার জন্য প্রশ্ন রাখছি।

    বিতর্কের উদ্দেশ্য কী?

    • কাজি মামুন জানুয়ারী 31, 2013 at 11:44 অপরাহ্ন - Reply

      @সাইফুল ইসলাম,

      বিতর্কের উদ্দেশ্য কী?

      আমাদের সাইফুল ভাই-ই তো? নাকি অন্য কেউ? 🙂
      বিতর্কের উদ্দেশ্য নিয়েই এক মহা বিতর্কের আগমন ধ্বনি শুনতে পাচ্চি! 🙂

  4. ভক্ত জানুয়ারী 31, 2013 at 3:09 অপরাহ্ন - Reply

    (Y)

মন্তব্য করুন