কোরিয়ান ইতিহাস ঘাটতে গিয়ে বুক-সেলফ এ বইটা পেয়ে যাই হঠাৎ করে। এভাবে এই কাহীনি লিখতে বসবো ভাবার্থ আকারে, ভাবিনি। কিন্তু বসে গেলাম শেষতক। আদৌ শেষ হবে কিনা জানিনা। যতক্ষন শ্বাস, ততক্ষনই তো আশ। তাই শুরু করলাম। দেখা যাক কতোদূর গিয়ে থামতে হয়। কাহীনি পড়তে পড়তে মনে হয়েছে গোটা পৃথিবীর সংগ্রামী মানুষের জীবনালেখ্য প্রায় একই। তাই মুক্তমনা পাঠক কূলের সাথে ভাগাভাগি করার সিদ্ধান্ত নিলাম। তাৎক্ষনিক ভাবে তুলে দেওয়া বলে ভুলভ্রান্তি রয়েছে বিস্তর। দেখিয়ে দিয়ে কৃতজ্ঞ করবেন। বইটা লিখেছেন এইচ, কে, সিন (H. K. Shin)। ইনহা ইউনিভার্সিটি প্রেস বইটি প্রকাশ করেছে ২০০০ সালে। আমি প্রেস এর সাথে যোগাযোগ করেছি, মৌখিক একটি অনুমতিও মিলেছে। তবে বইটির লেখক, যিনি ইমেরিটাস অধ্যাপক এবং বর্তমানে আমেরিকাতে রয়েছেন একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপনা আর গবেষনা কাজে। তাঁর কাছে লিখিত ভাবে অনুমতি চাওয়া হয়েছে, আশা করি মিলবে তা, প্রেস আমাকে আস্বস্ত করেছে। এই নিরীখে আজ উপক্রমনিকার একটি অংশ পাঠকবৃন্দের উদ্যেশ্যে নিবেদিত হলো।

 

কোরিয়া ১৯৫০: এক কিশোর সৈনিকের স্মৃতিগাঁথা

 

উপক্রমনিকাঃ

জাপানী দখলদারদের স্বরূপ, স্বাধীনতা এবং যুদ্ধ

কোরিয়ার অনেক কাল আগের কথা, অথচ ঠিক গতকালের ঘটে যাওয়া বিশুদ্ধ স্বচ্ছ ছবির মতোই আমার মনে আছে ১৯৫০, বাল্যকালের আরোও আরোও ঘটনার চাইতেও আনেক বিশুদ্ধ সে স্মৃতি। বয়স বাড়ার সাথে সাথে আজকের প্রৌড়ত্ত্বের ঘরে পৌঁছিয়েও সেই অর্ধশতাব্দীরও বেশী পুরানো ঘটনা গুলোকে আজো এতো জীবন্ত মনে হয় যেনো এই কয়েক ঘন্টা আগেই সেই ভয়াল মুহূর্ত গুলোকে আমি স্পর্শ করে এসেছি। আজো আমি কোরিয়া যুদ্ধের দুঃস্বপ্নের রাত গুলোকে অবিরাম ঘেমে নেয়ে অতিক্রম করি। নিজেকে আবিষ্কার করি যুদ্ধরত উত্তর কোরিয়ার কোন রণাঙ্গনে, দাঁড়িয়ে আছি সারি সারি খাঁড়া পাহাড়ের মধ্যবর্তী কোন ধুলিময় নোংড়া পথের বাঁকে, অথবা হয়তো রয়েছি কোন মিলিটারী কনভয়ের ভেতরে যেখানে উদ্ধার করা হয়েছে কোন যুদ্ধাহতকে আরো অনেকের সাথে উত্তরের রাজধানী পিয়ংইয়ং এর রণাঙ্গন থেকে। কখনো হয়েছি গুলিবিদ্ধ উত্তরকোরীয় সৈনিকদের অব্যর্থ আঘাতে কিংবা হয়তো উঁচু পাহাড়ের ধার ঘেঁষে অবস্থান নেওয়া চীনা কমিউনিষ্ট সৈনিকদের আকস্মিক আক্রমনে, আর বার বারই সেই ছুঁড়ে দেওয়া বুলেট গুলো আশ্চর্য্যজনক ভাবে আমাকে পাশ কাটিয়ে বেরিয়ে যাচ্ছিলো যেনো আমার হাত এবং দেহ ছিলো বরফে আচ্ছাদিত নতুবা গ্রীজে সিক্ত। কখনো কখনো আমার কাঁধে ঝুলানো রাইফেলটাকে আঁকড়ে ধরেছি স্বজোরে, কিন্তু বার বার ওটা পিছলে সরে যাচ্ছিলো, যেনো আমি বরফাচ্ছাদিত কিংবা গ্রীজে মাখামাখি হয়ে পিচ্ছল হয়ে আছি। অথবা হয়তো আমি পড়ে গিয়েছি মাটিতে এক দুরন্ত বুলেট কিংবা চক্ চকে ধারালো একফালি ধাতবের আঘাতে। কিন্তু তবুও আমি প্রবল পরাক্রমে তখনো অবিরাম অতিক্রম করে চলেছি চড়াই-উৎরাই বুকে ভর করে নতুবা হামাগুড়ি দিয়ে। কোন অফিসার সেখানে নেই যে দিক নির্দেশনা দেবে আমাদের। আমার দুঃস্বপ্নের ভেতরে শুধু তারাই, যারা যুদ্ধের পোষাকে মাত্র কয়েকজন কিশোর অবিরাম প্রতিহত করছে প্রতিপক্ষ আর আগলিয়ে রাখছে একে অপরকে। সময়টি ছিলো শীতের স্বাভাবিক তুষারপাত আর ভয়ঙ্কর শীতের চাদরে মুড়নো। অথচ এতোটুকুও ঠান্ডার অনুভুতি ছিলোনা আমার। সাথীদের কেউ কেউ অনুভব করছিলো সাইবেরীয় শৈত্য প্রবাহের কঠিনতম প্রহর। আমার স্বপ্নভঙ্গ হতো ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অসংখ্য মত্যুঞ্জয়ী সৈনিকদের অসার দেহ অথবা কাৎরাতে থাকা আহত সৈনিককে টপকিয়ে আরেকজন আহত সঙ্গীকে টানতে টানতে যখন অতিক্রম করি কোন পাহাড়ি পথের বাঁক। কখনো কখনো আমি কথা বলতাম সেই সব মৃত্যুঞ্জয়ী সৈনিকদের সাথে যদিও জানতাম ওরা আর নেই আমাদের মাঝে। অঝোড়ে কাঁদতাম আমি এই বলে যে, ‘আমি চাইনি, সত্যি আমি চাইনি এই মৃত্যু-উপত্যকার জন্ম হোক’। এইসব মৃতদের ভীড়ে অনেক মুখই ছিলো আমার স্বজনের মতো পরিচিত, যুদ্ধের ময়দানেই আমরা বন্ধু হয়েছিলাম পরষ্পরের। আর যারা ছিলো, সংখ্যায় অগনিত, যাদের আমি দেখিনি কখনো আগে, কি যে মনোরম মুখখানা তাদের, ভাবলেশহীন ঘুমিয়ে থাকা কিশোরের মতো।

১৯৫০ এর মধ্য ডিসেম্বর, আমি তখন প্রজাতান্ত্রিক কোরিয়া সেনা বাহিনীর একজন কর্পোরাল হিসেবে সদ্য অগ্রগামী সেনা-পুলিশ যোদ্ধাদলের বি-কোম্পানীর দায়িত্ত্ব পেয়েছি, ঘাঁটি গেড়েছি কেসং শহরের অদূরেই, ৩৮তম সমান্তরাল রেখার একেবারেই কাছে। তখন আমার বয়স কতো হবে, ষোল। কোরিয়া যুদ্ধ শুরুর প্রায় ছ’মাস হলো, একটা বিতর্ক থেকে যে যুদ্ধের শুরু, ক্রমে তা বিস্তার লাভ করে হয়ে উঠলো সর্বগ্রাসী! ভয়ঙ্কর রূপ নিলো যখন চীনা কমিউনিষ্ট সেনারা আপ্রোক-কাং অতিক্রম করতে শুরু করলো। বিশেষ করে মধ্য ডিসেম্বরে প্রত্যেক কোরিয়ান নাগরিকের জীবন ধারন করে থাকাটাই দুষ্কর হয়ে উঠলো, ১৯৫০ এর এই যুদ্ধের ভয়াবহতায়। এই যুদ্ধে কোরিয়া উপত্যকা এক বিপদ সংকুল এলাকায় রূপান্তরিত হলো। কেউ কেউ বলতো আমেরিকান পুলিশের ক্ষিপ্রতা এবং দুর্ধর্স্যতার সংগেই কেবল তুলনীয়। সম্পূর্নটাই যেনো ছিলো সবকিছু ধুলিস্যাৎ করে দেবার মতো ভয়াবহ, প্রচন্ড ক্ষীপ্রতা আর মারাত্মক রকমের ভীতিকর ও বিভিষিকাময় প্রচন্ডতা। নভেম্বরের শুরুতে চীনা কমিউনিষ্ট সৈন্যেরা যখন সাধারনের উপরে আক্রমন শুরু করে, আমরা তখন উত্তর কোরিয়া প্রদেশের একেবারেই ভেতরে, রাজধানী সিউল পুনরুদ্ধারের পরে। এই সময় পর্যন্ত আমরা ভাবতাম শেষ পর্যন্ত আমরা শীঘ্রই যুদ্ধে জয়ী হতে যাচ্ছি! সম্মুখ সমরে আমার কোম্পানী বিভিন্ন স্থানে ঘাঁটি গাড়তে থাকে। পিয়ংইয়ং শহরের বাইরের চারদিক যখন চীনা সৈন্যেরা ঘিড়ে ফেলে, তাদের সেই প্রবল চাপে ডিসেম্বরের শুরুতে আমরা বাধ্য হই পিয়ংইয়ং থেকে নিজেদের গুটিয়ে নিতে। পিয়ংইয়ং থেকে নিজেদের গুটিয়ে নেবার সময় আমাদের দায়িত্ত্ব ছিলো, দক্ষিন থেকে পিয়ংইয়ং এর পথে মিত্র বাহিনীর রসদ সরবরাহ নিশ্চিত করা। কিন্তু রাস্তা ঘাট গুলো ছিলো জায়গায় জায়গায় কাটা এবং ভাঙ্গা। এসব জায়গায় আমাদের মিত্র বাহিনী প্রায়শঃই আগ্রগামী চীনা কমিউনিষ্ট সৈন্যদের দ্বারা আক্রান্ত হতো এবং বাধাগ্রস্থ হয়ে ক্ষয়-ক্ষতির সম্মুক্ষীন হতো। চীনা সৈন্যরা অতি সাধারনতঃ যুদ্ধকৌশল মেনে চলতো, আমাদের মনে হতো- ওরা ছোট ছোট চৌকশ দলে বিভাজিত হয়ে সাধারন কৌশলে ক্ষীপ্রতার সঙ্গে প্রায়ই প্রাণঘাতী আক্রমন চালাত। ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকতো অসংখ্য চীনা সৈন্যের মৃতদেহ আর তাদের ব্যবহৃত ধ্বংসপ্রাপ্ত যুদ্ধাস্ত্রের বহর। কিন্তু এসবের মধ্যে ভারী যুদ্ধসম্ভার ছাড়া আর কিছুই তারা ঝটিকা আক্রমনে কেড়ে নিতে আসতো না। সবচেয়ে ভয়ঙ্কর সময়টাই এখন আমরা শুরু করেছি এই যুদ্ধক্ষেত্রে আমাদের মাতৃভূমির বুকে, যে ভুমিকে আমরা মাত্র কয়েকটি বছর আগেই মুক্ত করেছিলাম বর্বর, পিশাচ জাপানী দখলদারদের হাত থেকে।

 দীর্ঘ ৩৫ বছরের দখলদারীত্ত্বের অবসান ঘটিয়ে জাপানীদের হাত থেকে আমরা মুক্ত হয়েছিলাম ১৯৪৫ সালের ১৫ই আগষ্ট। সেই স্বাধীনতা অন্ততঃ এক দশকের মানসিক এবং অমর্যাদাকর নির্যাতনের পরে আমাদের মাঝে বয়ে এনেছিলো অনেক আশা আর এক উজ্জ্বল স্বপ্নময় ভবিষ্যতের আকাঙ্খা। আমরা শুরু করেছিলাম আমাদের হর্ষোৎফুল্ল যাত্রা, আমরা উড়িয়েছিলাম আমাদের নিজেদের পতাকা (তেগুক্কি), যেটা এই প্রথম আমি দেখেছিলাম আমার দুচোখ ভরে আনন্দে-বিষাদে। এক ভাব-গাম্ভীর্যের সঙ্গে আমাদের কণ্ঠে জাপানী শব্দ “বানজাই! বানজাই!” এর পরিবর্তে নিনাদিত হতো আত্মমর্যাদার ভাষায় “মানসে! মানসে”!!

 জাপান কোরিয়াতে তার সাম্রাজ্যবাদী বিস্তার সম্পন্ন করেছিলো ১৯১০ সালে। এই দখলদারীত্ত্বের বিরুদ্ধে হয়েছিলো অনেক আন্দোলন অনেক বিদ্রোহ। তবে স্মরনীয় রক্তাপ্লুত ব্যাপক বিদ্রোহটি হয়েছিলো  ১৯১৯ সালের ১লা মার্চ। জাপানী সৈনিক এবং পুলিশ বাহিনীর বর্বরতম আক্রমনে সে বিদ্রোহ দমন করা হয়েছিলো সাময়িক ভাবে। সেসময় জাপানী কর্তৃপক্ষ জ্বালিয়ে দিয়েছিলো বহু বহু বাড়ি এবং গীর্জা। হত্যা করেছিলো অসংখ্য সাধারন মানুষ।

 ১৯৩৯ সালে জাপান সরকার আমাদের জাপানী নাম পরিগ্রহনে বাধ্যকরতে শুরু করে। এবং খুব শীঘ্রই সব ধরনের দাপ্তরীক কাগজপত্রে আমরা আমাদের কোরিয়ান নাম ব্যাবহারের অধিকার হারালাম। স্কুল-কলেজে আমাদের সব বিষয় গুলো পড়তে হতো জাপানী ভাষায়। ৮ই ডিসেম্বর ১৯৪১-এ দ্বিতীয় বিশ্ব-যুদ্ধের প্রারম্ভ পর্যন্ত সপ্তাহে মাত্র দুই ঘন্টার কোরিয়ান পাঠ পেতাম, কিন্তু অবস্থা দ্রুত বদলে গেলো, আমরা এখন আর এতটুকুও কোরিয়ান পাঠ গ্রহনে অধিকারী নই। আমাদের অধিকাংশ শিক্ষকই ছিলেন জাপানী। যদি কোরিয়ান ভাষা আমরা ভুলেও কখনো স্কুলে ব্যবহার করেছি, তাহলেই ওরা আমাদের নাগরিক সারনীতে একটা টিক্ চিহ্ন দিয়ে প্রত্যেক শ্রেণীকক্ষের দেয়ালে তা ঝুলিয়ে দিতো। বিপদগ্রস্থ হতাম তখনই যখন কারো কপালে পাঁচটি টিক্ চিহ্ন জুটে যেতো! আমাদের বাবা-মা কে ডাকা হতো স্কুলে, অপদস্থ করা হতো ভীষন ভাবে। আমরা বাড়িতে কোরিয়ান ভাষা ব্যবহার করলেও এমনকি বাইরে খেলার মাঠেও জাপানী ভাষা বাধ্যতামূলক ছিলো।

[326 বার পঠিত]