আমি আগে ছিলাম জলচর
জলের উপরে ছিল আমার ভাসমান ঘর,
পৃথিবীর মৎস্য সম্প্রদায় আমারই বংশধর।
জলের জীবন বড্ড ভেজা, শীতল, কষ্টকর
তাই অতঃপর জল ছাড়িয়া আসমানে বাঁধিয়াছি ঘর।

কোরান নাজিল করেছি আরবি ভাষায়
যাতে আরবিভাষীরা বুঝতে পারো।
অন্য ভাষীরা না বুঝলে আমার কিছু করার নাই।
আমি আসমানে কোনও খুঁটি স্থাপন করি নাই।
হায় হায় আমি যদি আসমান ভাঙিয়া
মাটিতে পড়িয়া যাই!

তিনি অবাধ্যদিগে বজ্রের ঠাডা মারিয়া দেন।
আকাশ ও পৃথিবীতে যা কিছু আছে সবই
ইচ্ছায় বা অনিচ্ছায় তাঁর গুণ-সংগীত গায়।
এমন কি বজ্রও বিকট গর্জনে গায় তাঁহার গুণগান।

জাহান্নামীদিগকে পিটাইতে পিটাইতে
তাদের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ করিয়া দিব লুজ।
খাওয়াইবো তাদের গলিত পুঁজ।
এতো পুঁজ পাইবো কোথা
পাইতেছি না সেই বুঝ।

তাঁর হুকুমেই নৌযান ভাসে পানিতে।
পানির ওজনের চেয়ে বস্তুর ওজন কম হলে
তা পানিতে ভাসে। পদার্থবিজ্ঞানের এই সূত্র
তিনি আজিও পারেন নাই জানিতে।
তিনি নদনদী করেন নিয়ন্ত্রণ।
জলোচ্ছ্বাস, সুনামি, নদী-ভাঙা এই সবই
তাঁহার অসীম দয়ার দান।

[55 বার পঠিত]