আলোর মজদুরেরা

By |2012-09-13T18:05:41+00:00সেপ্টেম্বর 13, 2012|Categories: কবিতা|4 Comments

চোখের ভিতরে যারা আলো জ্বেলেছিল
তাঁরা আজ কেউ নেই।
অন্ধ সূর্য্যটাকে তাঁরা আলো দিয়েছিল,
ধাতব শক্তিমান আকাশ ফুড়েছিল সে আলো,
অনায়াসলব্ধ সে আলোর ঝাঁক।
যারা বিঁধেছিল গভীরে তারাদের শরীরে।

ওঁরা সব মরে গেছে,
মরে গিয়ে সেঁটে আছে প্রেতের শরীরে!
সেসব কিছু ভেবে বুঝে,
অনেক উপরে উঠে শকুন-উড়া উড়েছ-
খুজে পেয়েছ শুধুই মরা ইদুরের শব তবু।
তাই, খুশ দিলে হায়না-হাসি তোমাদের ঠোটে।
কষ্ট করো, একটু কষ্ট করবে কি?
সবশেষে সব কথা ঠিক কথার মতো ক’রে,
গিলে ফেলার আগে গভীরে-
ভেবে দেখবে কিনা বাঁচা-মরার দায়ে অতঃপর-
তোমারই শরীরে পায়ের নিরীহ পাতারা
সামনের দিকে মেলে আছে দেহ-
সামনে যাবে বলে।
আর পিছনে হেটনা তাই, প্রতিজ্ঞায় বলো-
বলো, বলো আরো।
কি ক্ষতি কারো হাত ধরে কথা রাখলে?

মাছরাঙা আলো চেয়েছিল, পেয়েছিল তাই।
টইটুম্বুর রঙিন খুশিতে রং-ধনু হাসে আজও-
চাইতেই পেয়েছিল সহজ আলো সেও।
আর ঐ মজা পুকুরের হেলঞ্চ আর কলমির দঙ্গলেরা?
যোগ্য তারা!
আলো ওদের খুজে নিল ভালবেসে।
এখনও ঐ দাতারা স্মৃতির গহবর থেকে
আলো দিয়ে যায় অযাচিত-
হাতেমতাঈ আর গৌরী সেন ঈর্ষায় মরে।
শেষ কথা বলে কিছু নেই,
তবু আলোর মজদুরেরা ঠিকই আছে বেঁচে।
পথের দাবী ওরা ছাড়বেনা কিছুতেই,
প্রতি ইঞ্চি সুঁচাগ্র মেদিনীর ভাগ তাও।
ব্জ্র-কঠিন স্বার্থপর তারা-
শুধুই আমাদের তরে, সবার জন্য।
আকাশের ছিদ্র দিয়ে ঠিকই একদিন
নেমে আসবে তাঁরা-
শামুকের বেগে হেটে হেটে
কতটুকু এগিয়েছ, তা জানতে।
ছোট্ট ছোট্ট পায়ে তাঁরা আলবত পৌছে যাবে-
তোমাদের ক্ষমতার সিংহাসনের
খুব কাছাকাছি,
মাছরাঙার সাচ্ছন্দ্য হাসিতে।

About the Author:

যে দেশে লেখক মেরে ফেলানো হয়, আর রাষ্ট্র অপরাধীর পিছু ধাওয়া না করে ধাওয়া করে লেখকের লাশের পিছে, লেখকের গলিত নাড়ী-ভুড়ী-মল ঘেটে, খতিয়ে বের করে আনে লেখকের লেখার দোষ, সেই দেশে যেন আর কোন লেখকের জন্ম না হয়। স্বাপদ সেই জনপদের আনাচ-কানাচ-অলিন্দ যেন ভরে যায় জঙ্গী জানোয়ার আর জংলী পিশাচে।

মন্তব্যসমূহ

  1. স্বপন মাঝি সেপ্টেম্বর 13, 2012 at 10:40 পূর্বাহ্ন - Reply

    শামুকের বেগে হেটে হেটে
    কতটুকে এগিয়েছ, তা জানতে।

    উল্লম্ফন?

    ছোট্ট ছোট্ট পায়ে তারা আলবত পৌছে যাবে-
    তোমাদের ক্ষমতার সিংহাসনের
    খুব কাছাকাছি,

    উল্লঙ্ঘিত হলো?
    প্রশ্ন থাকবে, এই থাকার পরেও যে ভাল লাগা, তাকে তো আর থামানো যায় না।
    ধন্যবাদ।

    • শাখা নির্ভানা সেপ্টেম্বর 15, 2012 at 5:39 পূর্বাহ্ন - Reply

      @স্বপন মাঝি,
      ভাল লাগার দাম লক্ষ টাকা। সেটাকে কোনভাবে বাদ দেয়া যাবে না। কবিতা পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

  2. কাজী রহমান সেপ্টেম্বর 13, 2012 at 6:56 পূর্বাহ্ন - Reply

    শেষ কথা বলে কিছু নেই,
    তবু আলোর মজদুরেরা ঠিকই আছে বেঁচে।

    বেশ ক্ষেপেছেন দেখছি; (C)

    বাতিঘরটার দিকে দেখবেন নাকি………………………

    তবু বাঁচে কয়েকটা আলোধরা;
    একাগ্র কৌতূহল দিয়ে উপহার।

    আমাদের শক্তি তুমি আমি
    চলো বাতিঘর বুনি যতনে।

    • শাখা নির্ভানা সেপ্টেম্বর 15, 2012 at 5:37 পূর্বাহ্ন - Reply

      @কাজী রহমান,
      এত ভালো একটা কিভাবে মিছ করলাম। মনে হয় বাতিঘর পড়েছি, তবে কমেন্ট করি নাই। কবিতা লিখি মাঝে মাঝে- লিখতে ভাল লাগে তাই। পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন