তৃতীয় শিম্পাঞ্জী থেকে আমরা মানুষ হলাম কেমন করে?

By |2012-09-07T21:35:14+00:00সেপ্টেম্বর 7, 2012|Categories: জীববিজ্ঞান, জৈব বিবর্তন, মানব বিবর্তন|34 Comments

Jane Goodall

পৃথিবীর অন্য যে কোন প্রাণীর চাইতে আলাদা মনে হলেও একটা ব্যাপারে কোন সন্দেহ নাই যে আমরা নিজেরাও প্রাণী। অন্য সব প্রাণীর মতই আমাদের রয়েছে অঙ্গ প্রত্যঙ্গ, জিন, কিংবা জৈবিক অণু। আমরা এটাও জানি আমরা ঠিক কি ধরণের প্রাণী – স্তন্যপায়ী প্রাণী । বাহ্যিক দিক থেকে আমাদের শিম্পাঞ্জীর প্রচুর সাথে মিল আছে তবে আমাদের বেশ কিছু অনন্য বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা অন্যসব প্রাণীদের থেকে অনেক বেশী আলাদা যেমন, কথা বলতে পারা, লিখতে পারা, জটিল মেশিন তৈরি করতে পারা ইত্যাদি। আমরা জীবন ধারণের জন্য আমাদের দুহাত ছাড়াও যন্ত্রপাতির উপর পুরোপুরি ভাবে নির্ভরশীল। কিছু আদিবাসী ছাড়া আমরা অধিকাংশ মানুষই জামাকাপড় পড়ি, শিল্পকলা উপভোগ করি এবং কোন একটি ধর্ম বিশ্বাস লালন করি। আমাদের মধ্যে আবার কিছু খারাপ গুণাবলীও আছে যা অন্য কোন প্রাণীর মধ্যে দেখা যায় না যেমন, গণহত্যা করা, অত্যাচার করে আনন্দ পাওয়া, ড্রাগ ব্যবহার করা এবং অন্য প্রজাতির প্রাণীদের নির্বংশ করা। যদিও এ সকল বৈশিষ্ট্যের অনেকগুলিই অন্যান্য বেশ কিছু প্রাণীর মধ্যে দেখা যায় তবে এ ব্যাপারে আমরা অন্য যে কোন প্রাণীকে ছাড়িয়ে এক নূতন উচ্চতায় পৌছাতে সক্ষম হয়েছি।

যদি কিছু মানুষের পোশাক খুলে, ব্যবহার্য্য সব জিনিষ সরিয়ে ফেলে, কথা বলার ক্ষমতা কেড়ে নিয়ে – শুধু মুখ দিয়ে কিছু আওয়াজ করার মত সীমাবদ্ধ ক্ষমতা দিয়ে এবং দৈহিক কাঠামোতে কোনরকম পরিবর্তন না করে চিড়িয়াখানায় শিম্পাঞ্জীদের খাঁচার পাশে থাকতে দেয়া হয় তবে মানুষকে এক প্রজাতির শিম্পাঞ্জী ছাড়া আর কিছুই মনে হবে না। পার্থক্য শুধু তাদের শরীরে লোমের সংখ্যা খুবই অল্প এবং তারা সোজা হয়ে হাটতে পারে। অন্য কোন গ্রহ থেকে আসা প্রাণী বিজ্ঞানীরা আমাদের সরাসরি তৃতীয় প্রজাতির শিম্পাঞ্জী হিসাবে চিহ্নিত করবে। অন্য দুটি প্রজাতি হল জায়ারের পিগমি শিম্পাঞ্জী বা বনবো এবং ট্রপিক্যাল আফ্রিকার সাধারণ শিম্পাঞ্জী। শিম্পাঞ্জীরা শুধুমাত্র আমাদের মত দেখতেই না ওরা আমাদের মত ব্যবহারও করে থাকে। ওরা টুল তৈরি এবং ব্যবহার করতে পারে। সেগুলো আবার তাদের বাচ্চা কাচ্চাদের শিখিয়েও থাকে। অন্য প্রাণী শিকার করে, কখন কখনও নিজেদের মধ্যে খুনোখুনিও করে। ওদের নিজস্ব সংস্কৃতি আছে। কথা বলতে সক্ষম না তবে সাংকেতিক ভাষা এবং বিভিন্ন ধরনের প্রতীক ব্যবহার করে একে অন্যের সাথে ভাব-বিনিময় করতে সক্ষম। এবং কখনও কখনও বুদ্ধিমত্তার প্রয়োগ করে কয়েক ধাপের জটিল কিছু সমস্যার সমাধানও করতে পারে।

বাকী দুই ধরণের শিম্পাঞ্জীর সাথে আমাদের জেনেটিক মিল ৯৮ ভাগেরও বেশী। যে দুইভাগ অমিল আছে সে গুলোই আমাদের মধ্যে যাবতীয় পার্থক্য সৃষ্টিকারী বৈশিষ্ট্যের জন্য দায়ী বলে ধারণা করা যেতে পারে। বিবর্তনের ইতিহাসের খুব স্বল্প সময়ে আমরা বেশ কিছু ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে গেছি যার ফলাফল আপাতদৃষ্টিতে অনেক বড়। বস্তুত পক্ষে এক লক্ষ বছর আগেও ভিনগ্রহের প্রাণী বিজ্ঞানীরা কিছু কিছু কৌতূহলোদ্দীপক আচরণ সত্ত্বেও আমাদের একটি বড় আকারের স্তন্যপায়ী প্রাণী ছাড়া আর কিছুই ভাবত না। সেই সব আচরণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল আগুন জ্বালানো এবং হাতিয়ার ব্যবহারের ক্ষমতা। ভিনগ্রহ বাসীদের কাছে এই আচরণগুলোও বিভার কিংবা বাওয়ার পাখীর আচরণের তুলনায় খুব বেশী কিছু অদ্ভুত বলে মনে হত না। কিন্তু গত এক লক্ষ বছরের মধ্যেই আমাদের মধ্যে এমন কিছু পরিবর্তন ঘটেছে যার ফলে আমরা অন্য প্রাণীদের সাথে পার্থক্য সৃষ্টিকারী এইসব অভিনবত্ব অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি।

কী ছিল সেই সব গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন সমূহ?

গরিলা, ওরাং উটান, বনবো, এবং শিম্পাঞ্জীর সাথে মানুষের মিল খুঁজে পেতে জীববিজ্ঞানী হওয়ার প্রয়োজন নেই। তাদের সাথে মানুষের অস্বাভাবিক মিলগুলি একটি বাচ্চার দৃষ্টিতেও ধরা পরে। গ্রেট এপসরা আমাদের মত দক্ষতার সাথে হাতের ব্যবহার করতে পারে যা অন্যান্য প্রাণীদের ক্ষেত্রে দেখা যায় না। সবচাইতে লক্ষণীয় ব্যাপার হল তাদের মুখে বিভিন্ন রকমের আবেগের যে ছাপ পড়ে তা আমাদের কাছে খুবই পরিচিত। শুধুমাত্র বাহ্যিক সাদৃশ্যই নয় তাদের মধ্যেও সামাজিক ক্রমাধিকারতন্ত্র আছে এবং আমরা যাকে সংস্কৃতি বলি সেসবের কিছু আভাসও তাদের মাঝে দেখা যায়। এতসব মিল থাকা সত্ত্বেও আমাদের জিনোমে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা কিছু ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পার্থক্যই তৈরি করেছে আমাদের যত বৈসাদৃশ্যগুলো। কৃষিকাজ, ভাষা, শিল্পকলা, সঙ্গীত, প্রযুক্তি, দর্শন — এই সব সাফল্য যা আমাদের শিম্পাঞ্জীদের থেকে খুব পরিষ্কার ভাবেই আলাদা করেছে – সেগুলো আমাদের বংশানুগতি সংকেতের মধ্যে কোন এক ভাবে আবদ্ধ হয়ে গেছে। খুব সাম্প্রতিক অতীতেও আমাদের পক্ষে এই সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ পার্থক্য গুলির কারণ নির্ণয় করা সম্ভব ছিল না। ঠিক কি কারণে আমরা সোজা হয়ে হাটতে পারি বা আমাদের জটিল মস্তিষ্কের পেছনের কারণই বা কী? এর সাথে সাথে সাথে আমদের বেশ কিছু রোগ যেমন নির্দিষ্ট ধরণের ম্যালেরিয়া, আলঝেইমার, যেগুলো শিম্পাঞ্জীদের আক্রান্ত করে না — এগুলো আমাদের কাছে রহস্য। কিন্তু খুব দ্রুতই সেই অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে। ডারউইনের সময়েরও বহু আগে থেকে প্রত্নতত্ত্ববিদরা ফসিল সংগ্রহ করে প্রাণীদের বিভিন্ন শারীরবৃত্তীয় বৈশিষ্ট্যের এক বিশাল তথ্য ভাণ্ডার গড়ে তুলতে সমর্থ হন। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল দুপায়ে হাঁটা, মস্তিষ্কের আকার, করোটির আকৃতি, মুখমণ্ডল, পেষণ দাঁত, এবং অপোজিবল বৃদ্ধাঙ্গুলি ইত্যাদি। এই সমস্ত বৈশিষ্ট্যের তুলনামূলক গবেষণা এবং বিভিন্ন প্রকার বয়স নির্ধারণী পদ্ধতি ব্যবহার করে বিজ্ঞানীরা এই বৈশিষ্ট্যগুলির উদ্ভবের এবং বিলুপ্ত হওয়ার সময়কাল বের করতে সমর্থ হয়েছেন এবং তৈরি করেছেন একটি বিস্তারিত জীবন বৃক্ষ যা কিনা বন মানুষ, মানুষের পূর্ব পুরুষ, এবং মানুষের মধ্যকার পারস্পরিক সম্পর্ক ফুটিয়ে তুলতে সক্ষম হয়েছে।

Homo

৬০ লক্ষ বছর আগে মানুষের পূর্বপুরুষ শিম্পাঞ্জী এবং গরিলাদের পূর্বপুরুষ থেকে আলাদা হয়ে যায়। শুরুর সেই পূর্ব পুরুষদেরকে বন মানুষেরই আরেকটি প্রজাতি ছাড়া অন্য কিছু ভাবার অবকাশ নেই। কিন্তু পরবর্তীকালে পরপর তিনটি পরিবর্তন আমাদের কে আধুনিক মানুষ হিসাবে বিবর্তিত হওয়ার দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। প্রথমটি পরিবর্তনটি ঘটে প্রায় ৪০ লক্ষ বছর আগে যখন হাত পায়ের ফসিলের গঠন থেকে বুঝতে পারা যায় যে আমাদের পূর্ব পুরুষেরা স্বভাবগত ভাবেই দুই পায়ের উপর সোজা হয়ে হাটতে অভ্যস্ত ছিল। দ্বিতীয় পরিবর্তনটি আসে ৩০ লক্ষ বছর আগে যখন আমাদের বংশানুক্রম অন্তত: দুটি ভিন্ন ধারায় বিভক্ত হয়ে যায়। এরা হল Australopithecus Robustus – যার মাথার খুলি ছিল অত্যন্ত শক্ত এবং ভারী এবং বৃহদাকার চোয়ালের দাঁত ছিল এবং Australopithecus Africanas – যার মাথার খুলি অনেক হাল্কা ছিল এবং দাঁতগুলোও ছিল ছোট আকারের। তৃতীয় এবং বড় পরিবর্তনটি যা কিনা আমাদের পূর্ব পুরুষদের বেশী করে আধুনিক মানুষের মত এবং বনমানুষদের থেকে আলাদা করে তুলতে শুরু করে তা হচ্ছে পাথরের হাতিয়ার ব্যবহার।

২৫ লক্ষ বছর আগে অস্ট্রালোপিথেকাস আফ্রিকানাসদের থেকে আলাদা হয়ে হোমো গণের প্রথম সদস্য হোমো হ্যাবিলিসদের (man the handyman) উদ্ভব ঘটে। হোমো হ্যাবিলিসরাই প্রথম আদি মানুষ যাদের হাতিয়ার ব্যবহারের সুস্পষ্ট প্রমাণ পাওয়া গেছে। একেবারে শুরু দিকের এই হোমিনিনদের মস্তিষ্কের আকার ছিল শিম্পাঞ্জীদের সমান। এদের সবচাইতে বড় বিবর্তনীয় অর্জন ছিল যে এরা সোজা হয়ে দুপায়ের উপর ভর করে হাঁটতে পারত। পরবর্তী দশ লক্ষ বছরে মস্তিষ্কের আকার বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। এরপর দ্বিতীয়বারের মত আমাদের বংশানুক্রমে আরেকবার বিচ্ছিন্নতার ঘটনা ঘটে এবং হ্যাবিলিসের দুটি আলাদা প্রজাতির সৃষ্টি হয়। এদের মধ্যে হোমো হ্যাবিলিস নিজে একটি প্রজাতি আর অন্যটি হল রহস্যময় “তৃতীয় মানুষ” (The third man)। ফলে ২০ লক্ষ বছর আগে অন্ততপক্ষে দুটি এমনকি তিনটি প্রোটো হিউম্যান প্রজাতির অস্তিত্ব ছিল। সতের লক্ষ বছর আগে হোমো হ্যাবিলিসের বর্ধিত মস্তিষ্ক এবং দেহ সহ শারীরিক বৈশিষ্ট্য এতটাই আলাদা হয়ে যায় যে বিজ্ঞানীরা আমাদের সেই পূর্বপুরুষদের একটি নূতন নাম দেন, হোমো ইরেক্টাস (Homo Erectus)। ১২ লক্ষ বছর আগে অস্ট্রালোপিথেকাস রোবোস্টাসরা বিলুপ্ত হয়ে যায় আর রহস্যময় “তৃতীয় মানব”রাও ততদিনে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। উপরের এই সব ঘটনার পুরোটাই ঘটেছে আফ্রিকা মহাদেশে। এরপর ১০ লক্ষ বছর আগে হোমো হ্যাবিলিসদের উত্তর পুরুষ হোমো ইরেক্টাসরা আফ্রিকা থেকে বেরিয়ে আসে এবং ইউরোপ এবং এশিয়ার বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পরে। এদের তৈরি পাথর এবং হাঁড়ের হাতিয়ার থেকে জানা যায় এরা নিকট প্রাচ্য, দূর প্রাচ্য এবং ইউরোপে পৌছাতে সমর্থ হয়েছিল। তখনো এদের মস্তিষ্কের আকার বড় হচ্ছিল এবং করোটির আকৃতি গোলাকার হয়ে আধুনিক মানুষের দিকে ধাবিত হচ্ছিল। বিবর্তনের ইতিহাসে কমপক্ষে দুইবার হোমো ইরেক্টাস এবং তাদের বংশধরদের আফ্রিকা থেকে অভিবাসনের ঘটনা ঘটে। প্রথমবার অভিবাসনের সময় এদের মধ্যে কিছু সংখ্যক যারা আফ্রিকাতেই রয়ে গিয়েছিলো তারা হোমো এরগেস্টর নামেও পরিচিত। এরাই প্রথম আগুনের নিয়ন্ত্রণ এবং আরেকটু উন্নত হাতিয়ার তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিল। হোমো ইরেক্টাসরা আফ্রিকা ছেড়ে বেড়িয়ে এসে পুরনো পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে পরে। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় ভিন্ন ভিন্ন ভূ-অঞ্চলে দীর্ঘদিন বসবাস করার ফলে এরা একে অপরের থেকে আলাদা হয়ে যেতে শুরু করে। হোমো ইরেক্টাসদের এই উত্তরসূরিরা পরবর্তীকালে হোমো এন্টিসেসর, হোমো হাইডেলবার্জেনেসিস এবং হোমো নিয়ান্ডারথালেনিস এ বিবর্তিত হয়। এই সময় এশিয়াতে পিকিং মানব এবং জাভা মানবদের অস্তিত্ব ছিল যারা “এশিয়ান” হোমো ইরেক্টাস নামেও পরিচিত । অন্যদিকে, ২ লক্ষ বছর আগে আফ্রিকাতে আধুনিক মানুষের মত দৈহিক বৈশিষ্ট্যের এক নতুন প্রজাতি হোমো সেপিয়েন্সের উদ্ভব ঘটে। প্রথম দিককার হোমো সেপিয়েন্সরা দৈহিক ভাবে আধুনিক মানুষের মত হলেও আচরণগত দিক থেকে আধুনিক মানুষের মত ছিল না। ১ লক্ষ ৩০ হাজার বছর আগে ইউরোপে দীর্ঘদিন যাবত বসবাস করার দরুন দৈহিক দিক থেকে নিয়ান্ডারথালরা ততদিনে এতটাই আলাদা হয়ে পরে যে তাদেরকে একটি আলাদা প্রজাতি হিসাবে চিহ্নিত করা হয়ে থাকে। ৭০ হাজার বছর আগে দ্বিতীয়বারের মত হোমো ইরেক্টাসদের বংশধর হোমো সেপিয়েন্স বা আধুনিক মানুষেরা যখন আফ্রিকা ছেড়ে বেড়িয়ে ইউরোপে আসে তখন ইতিমধ্যে সেখানে নিয়ান্ডারথালরা হাজার হাজার বছর ধরে টিকে আছে। ৫০ হাজার বছর আগে ইউরোপে আধুনিক মানুষদের যে নিদর্শন পাওয়া যায় তা থেকে স্পষ্টত দেখা যায় যে সেই সময় তাদের মধ্যে ভাষা, সঙ্গীত, এবং সংস্কৃতির উন্মেষ ঘটে গেছে। প্রথম প্যালিওলিথিক যুগে ইউরোপে বসবাসকারী হোমো সেপিয়েন্সদের এই দলটিকে জীব বিজ্ঞানীরা ক্রো ম্যাগনন নামেও উল্লেখ করে থাকেন।

এতক্ষণ আমরা জানলাম ফসিল রেকর্ড এবং আর্টিফ্যাক্টস থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে মানব বিবর্তনের ইতিহাস। এখন দেখা যাক জেনেটিক গবেষণা থেকে প্রাপ্ত তথ্য থেকে আমরা কি জানতে পারি। স্মরণ রাখা কর্তব্য যে শুধুমাত্র জেনেটিক পার্থক্যই প্রজাতির সমূহের মধ্যে পার্থক্য নির্দেশ করে না। বিজ্ঞানীরা এখন জানেন মলিকিউলার সুইচও কখনো কখনো নির্দিষ্ট জিনকে নির্দেশ দিয়ে থাকে কখন অন এবং কখন অফ হতে হবে যা প্রজাতি সমূহের মধ্যে পার্থক্য তৈরি করতে পারে।

human vs chimp

২০০৮ সালে পেনসেলভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের হ্যানসেল স্টেটম্যান এবং তার সহকর্মীরা ক্রোমোজোম ৭ এর একটি জিনে খুব ছোট্ট একটি মিউটেশন চিহ্নিত করেন যা মায়োসিন নামের একটি প্রোটিন উৎপাদন করে। এই প্রোটিনটি মাংসপেশি সংকোচনে সাহায্য করে। চোয়ালের মাংশপেশিতে এই বিশেষ মিউট্যান্ট জিনটির মায়োসিন ভ্যারিয়্যান্ট MYH16 এর অভিব্যক্তিতে বাঁধা দেয়। পেশীটি কামড় দেয়া এবং চর্বণের কাজে ব্যবহৃত হয়। গবেষকদের মতে ২০ লক্ষ বছর আগে ঘটা ছোট্ট এক মিউটেশন আমাদের চোয়ালের পেশীকে ছোট হতে সাহায্য করে যা পরবর্তীতে মস্তিষ্কের কুঠুরি এবং মস্তিষ্কের আকার বড় হতে সাহায্য করে। তবে কিছু বিজ্ঞানী এ ব্যাপারে ভিন্নমত পোষণ করেন। তাদের মতে চোয়ালের পেশী ছোট হওয়ায় মস্তিষ্ক বড় হয়নি বরং মস্তিষ্ক বড় হয়েছে প্রাকৃতিক নির্বাচনের নিয়ম মেনে, বড় মস্তিষ্কের অধিকারীরা অতিরিক্ত বংশধর রেখে যেতে সক্ষম হয়েছে বলে। The American Journal of Human Genetics এ প্রকাশিত এক গবেষণায় ডেনভারের কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের জেমস সিকেলা এবং তার সহকর্মীরা উচ্চতর কগনিটিভ কার্য সম্পাদন এবং জটিল ও বৃহৎ আকারের মস্তিষ্কের বিবর্তনের কারণ হিসাবে DUF1220 নামে একটি প্রোটিন একককে বা প্রোটিন ডোমেইনকে চিহ্নিত করেছেন। অন্যান্য প্রাইমেটদের তুলনায় মানুষের মধ্যে এই প্রোটিন এককটির অনেক বেশী সংখ্যক অনুলিপি পাওয়া যায়। মানুষের জিনোমে DUF1220 এর ২৭০টিরও বেশী অনুলিপি আবদ্ধ থাকে। মানুষের সাথে যে প্রজাতির যত বেশী মিল সেই প্রজাতির মাঝে এই প্রোটিনটির তত বেশী অনুলিপি পাওয়া যায়। শিম্পাঞ্জিদের মাঝে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংখ্যক অনুলিপি দেখা যায় যা হল ১২৫। এরপর গরিলাদের মাঝে দেখা যায় ৯৯ টি অনুলিপি। মারমোসেটস ৩০ এবং ইঁদুরের মাঝে পাওয়া যায় ১টি অনুলিপি। গবেষণায় একটা জিনিষ অত্যন্ত পরিষ্কার, তা হল যে প্রাণীর মাঝে যত বেশী DUF1220 এর অনুলিপি পাওয়া যায় সেই প্রাণীর মস্তিষ্ক তত বড় হয়। এবং এটা প্রতিটা প্রজাতির ক্ষেত্রে সত্যি এমনকি মানুষের ক্ষেত্রেও।

নেচার পত্রিকায় প্রকাশিত আরেকটি গবেষণা পত্রে বিজ্ঞানীরা আরেকটি জিন চিহ্নিত করেছেন যা মস্তিষ্কের উন্নয়নে সাহায্য করে। ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জীব-পরিসংখ্যানবিদ ক্যাথরিন পোলার্ড এবং সোফি সালামা মানুষ সহ শিম্পাঞ্জী, এবং অন্যান্য মেরুদণ্ডী প্রাণীদের জিনোমের উপর গবেষণা চালিয়ে ৪৯টি সুনির্দিষ্ট অঞ্চল চিহ্নিত করেছেন যার নাম দিয়েছেন HARS (Human accelarated Regions)। শিম্পাঞ্জী এবং মানুষের মাঝে যে অঞ্চলটিতে সবচাইতে বেশী পার্থক্য দেখা সেটি হল HAR1। জিনের এই অংশটি মায়ের পেটে ৭ থেকে ১৯ সপ্তাহের মধ্যে শিশুর মস্তিষ্কের টিস্যুতে কার্যকর (একটিভ) থাকে। যদিও এই জিনটির সুনির্দিষ্ট কাজ এখনও পুরোপুরি জানা যায়নি তবে লক্ষণীয় ব্যাপার হল ঠিক ঐ সময়টাতেই Reelin নামক একটি প্রোটিন মানব শিশুর সেরেব্রাল কর্টেক্স গঠনে সাহায্য করে। ক্যালিফোর্নিয়া ইন্সটিটিউট অব টেকনোলোজি (Caltech) এর একদল গবেষক National Academy of Sciences (PNAS) এ একটি গবেষণা প্রকাশ করেছেন যাতে তারা দেখাতে সক্ষম হয়েছেন যুক্তি বিন্যাস (reasoning) এবং আচরণ (behavioral) নিয়ন্ত্রণ ফ্রন্টাল লোবের বিভিন্ন অংশের উপর নির্ভরশীল। ফ্রন্টাল লোবস হল মানব মস্তিষ্কের সবচেয়ে বড় অংশ যা মানব বিবর্তনে সবচাইতে বেশি প্রসারিত হয়েছে।

এই পর্যন্ত পড়ে পাঠক যদি ভেবে থাকেন যে দৈহিক গঠন এবং বৃহদাকৃতির মস্তিষ্কই আমাদের আজকের এই উন্নতির পেছনের মূল কারণ তাহলে ভুল করবেন। তখন পর্যন্ত এটা আসলে তেমন কোন ঘটনা হয়ে ওঠেনি। গুহাচিত্র, বাড়ী বানানো, তীর ধনুক বানানো এসব তখনো লক্ষ লক্ষ বছর পরের কথা। গত দশ লক্ষ বছর আগে থেকে হোমো ইরেক্টাসরা যে সাধারণ পাথরের হাতিয়ার বানিয়ে আসছিল সেগুলোই টিকে ছিল আরও অনেকদিন। তখন পর্যন্ত হোমো সেপিয়েন্সের বর্ধিত মস্তিষ্কের আকার আমাদের জীবন ধারণে কোন রকম নাটকীয় পরিবর্তন আনতে সক্ষম হয়নি। আফ্রিকা মহাদেশের বাইরে সেই পুরো সময়টা হোমো ইরেক্টাস এবং হোমো সেপিয়েন্সদের কোন সাংস্কৃতিক পরিবর্তন ছিল না বললেই চলে। বস্তুতপক্ষে, সেই লম্বা সময়ের একমাত্র গুরুত্বপূর্ণ উন্নতি ছিল আগুনের নিয়ন্ত্রণ করতে সমর্থ হওয়া। আধুনিক মানুষ হিসাবে আমাদের উত্থান আমাদের জেনেটিক পরিবর্তনের সাথে একশ ভাগ সরাসরি সম্পর্কিত না। আরও কিছু গুরুত্বপূর্ণ উপাদান যোগ করা তখনো বাকী ছিল যা কিনা তৃতীয় শিম্পাঞ্জীকে পরবর্তী কালে সিস্টিন চ্যাপেলের ছবি আঁকতে সাহায্য করবে।

হোমো সেপিয়েন্সরা এক লক্ষ পঁচিশ হাজার বছর আগে আফ্রিকা থেকে ইউরোপে এসে পৌছায়। প্রায় এক লক্ষ বছর আগে মানুষের শিকার করবার দক্ষতা সম্পর্কে পরিষ্কার প্রমাণ পাওয়া যায়। কিন্তু তখনও তা ছোট প্রাণী শিকারের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। পরবর্তীকালে বড় প্রাণী শিকার শুরু করার কারণে আদিম মানুষদের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা, ভাষা, দলবদ্ধ জীবন যাপন, এবং খাদ্য ভাগাভাগির মত জিনিষগুলি ঘটতে শুরু করে। ৪০-৫০ হাজার বছর আগে ক্রো ম্যাগনন এবং নিয়ান্ডার্থালরা ইউরোপ এবং পশ্চিম এশিয়ায় সহাবস্থান করত। দলবদ্ধ হয়ে বসবাস এবং খাদ্য ভাগাভাগির চর্চা, এমনকি মেয়েদের শারীরিক কিছু বৈশিষ্ট্যও বড় প্রাণী শিকারের সাথে সাথে পরিবর্তিত হতে শুরু করে। অন্যান্য মেয়ে প্রাইমেটরা ওভুলেশনের সময় যে রকম বাহ্যিক শারীরিক উপসর্গ প্রদর্শন করে মানুষের ক্ষেত্রে তা গোপন হতে শুরু করে যাতে করে পুরুষদের মধ্যে যৌন প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে না যায় এবং শিকারের সময়ে পারস্পরিক সহযোগিতা ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। ইউরোপের বিভিন্ন স্থানে বসবাসকারী মানব প্রজাতির মাঝে অল্প স্বল্প সাংস্কৃতিক বিকাশ দেখা গেলেও আধুনিক বুদ্ধিমত্তার বিকাশ এবং দ্রুত সাংস্কৃতিক বিপ্লব ঘটতে শুরু করার প্রমাণ পাওয়া যায় ৫০-৬০ হাজার বছর আগে। পৃথিবীর বুকে মানব ইতিহাসের এই সময়টাকে ‘গ্রেট লিপ ফরোয়ার্ড’ বলেও অভিহিত করা হয়ে থাকে। ‘গ্রেট লিপ ফরওয়ার্ডের’ ঠিক আগে আগে পুরনো পৃথিবীর ভিন্ন ভিন্ন অঞ্চলে কমপক্ষে তিনটি পৃথক মনুষ্য প্রজাতির বসবাস ছিল। এরা ছিল সত্যিকার অর্থেই শেষ আদিম মানুষ যারা ‘গ্রেট লিপ ফরওয়ার্ডের’ সময় আধুনিক মানুষ দ্বারা অপসারিত হয়ে যায়। কোথায় এদের বাস ছিল? পশ্চিম ইউরোপ থেকে শুরু করে দক্ষিণ ইউরোপের রাশিয়া এবং নিকট প্রাচ্য থেকে মধ্য এশিয়ার উজবেকিস্থান এবং আফগানিস্তানের সীমান্ত পর্যন্ত এদের বিস্তৃতি ছিল। একই সময় দেখা পাওয়া যায় নিয়ান্ডার্থালদের। এদের পেশী ছিল আজকের দিনের যে কোন মিস্টার ইউনিভার্সের তুলনায়ও অনেক বেশী শক্তিশালী বিশেষ করে কাঁধে এবং ঘাড়ে। নিয়ান্ডার্থালদের মস্তিষ্কের আকার ছিল আধুনিক মানুষের তুলনায়ও বেশ কিছুটা বড়। কিন্তু তারপরও ওরা আমাদের মত হয়ে উঠতে পারেনি। এদের হাতিয়ারগুলি ছিল খুবই সাধারণ ধরণের যা কোন বিশেষ উদ্দেশ্যকে মাথায় রেখে বানান হতনা। কোন হাঁড়ের তৈরি হাতিয়ার কিংবা তীর-ধনুক ছিল না। বড় প্রাণী শিকারে খুব সিদ্ধহস্ত ছিল না বলেই প্রমাণ পাওয়া যায়। এমনকি সেই সময় আফ্রিকায় বসবাস করা আরও আধুনিক দেহের অধিকারী হোমো সেপিয়েন্সরাও শিকারি হিসাবে খুব একটা ভাল ছিল না। ক্রো ম্যাগননদের তুলনায় জনসংখ্যার ঘনত্ব ছিল অনেক কম। তবে নিয়ান্ডার্থালরাই প্রথম নিয়মিত আগুনের ব্যবহার করত এ ব্যাপারে সন্দেহ নাই। এবং তারাই সম্ভবত প্রথম নিয়মিত ভাবে মৃতদেহ কবর দেয়া শুরু করে এবং অসুস্থ এবং বয়স্কদের দেখাশোনা করত। নিয়ান্ডারথালদের পাথুরে হাতিয়ার গুলিও ছিল খুবই বিশেষত্বহীন। তাই আধুনিক মানুষদের মত দৈহিক গঠন, বৃহদাকার মস্তিষ্ক, এবং আধুনিক জিনম থাকা সত্যেও সেগুলো কিন্তু আজকের দিনের মানুষের মত আচার-ব্যবহারের জন্য যথেষ্ট ছিল না। আধুনিক মানুষের কথা ভাবলেই যে জিনিষগুলি আমাদের মানস পটে ভেসে ওঠে এরকম অনেক জিনিষেই অস্তিত্ব নিয়ান্ডার্থালদের মধ্যে অনুপস্থিত ছিল। যেমন ওরা কোন শৈল্পিক বস্তুর নিদর্শন রেখে যায়নি। ঠাণ্ডার হাত রক্ষা পাওয়ার জন্য পোশাক ব্যবহার করত তবে সেগুলোর মধ্যে কোন সৃজনশীলতা ছিল না। অনেক সময় সমুদ্রের কিংবা জলাধারের খুব কাছাকাছি বসবাস করা সত্যেও নৌকার মত কোন কিছুর প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাই এটা খুব স্পষ্ট যে বৃহদাকার মস্তিষ্ক থাকা সত্বেও নিয়ান্ডার্থালদের মধ্যে নিঃসন্দেহে এমন কিছু একটার অভাব ছিল যা তাদের উদ্ভাবনী ক্ষমতার বৃদ্ধিতে সহায়ক হয়নি।

আমরা আজকে যাকে কুল-বৃদ্ধাদের সেবা এবং বৃদ্ধ বয়স বলি সেটাও নিয়ান্ডার্থালদের মধ্যে অনুপস্থিত ছিল। তাদের ফসিল রেকর্ড থেকে বোঝা যায় পূর্ণবয়স্ক নিয়ান্ডারথাল ৩০ কিংবা ৪০ বছর বয়স পর্যন্ত বাঁচত। কিন্তু কোনভাবেই ৪৫ বছরের বেশী না। আমরা যদি আজকে লিখতে না পারতাম এবং আমরা কেউই যদি ৪৫ বছরের বেশী না বাঁচতাম তাহলে কল্পনাই করতে পারব না আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় জ্ঞানের সংরক্ষণ এবং তার উত্তরণ ঠিক কতটুকু হত! নিয়ান্ডার্থালদের সাথে তুলনীয় ছিল সমসাময়িক কালের আফ্রিকা থেকে আসা হোমো সেপিয়েন্সদের বর্তমান সময়ের আধুনিক মানুষের মত করোটি ছিল। এর মানে কি এই যে ১ লক্ষ বছর আগে আফ্রিকাতে মানুষের সংস্কৃতির উদ্ভব ঘটেছিল? শুনতে অবাক লাগলেও উত্তরটা হল, না। এই আধুনিক দেখতে মানুষগুলোর হাতিয়ারও ছিল নিয়ান্ডার্থালদের মত অতি সাধারণ। আর যে কারণেই তাদেরকে মধ্য প্রস্তর যুগের আফ্রিকান মানব হিসাবে উল্লেখ করা হয়। তাদের মাঝেও হাঁড়ের তৈরি হাতিয়ার, তীর ধনুক, মাছ ধরার জাল, বড়শি, শৈল্পিক বস্তু এবং সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের অভাব ছিল। তাদের আধুনিক মানুষের মত দৈহিক বৈশিষ্ট্য থাকা সত্যেও এমন কিছু একটার অভাব ছিল যা তাদের “পরিপূর্ণ” মানুষ হয়ে ওঠা থেকে দূরে সরিয়ে রেখেছিল। আধুনিক জিন থাকা সত্যেও আমাদের মত আধুনিক মানুষ হতে পারেনি তারা।

১ লক্ষ বছর আগে থেকে ৫০ হাজার বছর আগে পর্যন্ত মানুষের উপস্থিতি থেকে আমরা জানি যে উত্তর ইউরোপ, সাইবেরিয়া, অস্ট্রেলিয়া, সামুদ্রিক দ্বীপ সমূহ, এবং পুরো নূতন পৃথিবীতেই মানুষের কোন উপস্থিতি ছিল না। ইউরোপ এবং পশ্চিম এশিয়াতে নিয়ান্ডার্থালরা বসবাস করত। আফ্রিকায় আমাদের মত দৈহিক গড়নের এবং এশিয়াতে আফ্রিকান হোমো সেপিয়েন্স এবং নিয়ান্ডার্থালদের থেকে আলাদা ধরনের মানুষের বসবাস ছিল। এই তিন প্রজাতির মানুষই আচার আচরণ, হাতিয়ার, এবং উদ্ভাবনী শক্তির দিক থেকে খুবই সীমাবদ্ধ ছিল। তবে তৈরি হয়ে গিয়েছিল দ্য গ্রেট লিপ ফরোয়ার্ডের মঞ্চ। এদের মধ্যে থেকে কারা নিয়েছিল পরবর্তী পদক্ষেপটি?

human migration

চল্লিশ হাজার বছর আগে বরফ যুগের শেষপ্রান্তে ফ্রান্স এবং স্পেনের বিভিন্ন যায়গায় যেখানে আগে নিয়ান্ডার্থালদের বসবাস ছিল সেখানে পুরোপুরি আধুনিক মানুষের বসবাসের প্রমাণ পাওয়া যেতে শুরু করল। এই আধুনিক মানুষ গুলোকে আমরা ক্রো ম্যাগনন হিসাবে জানি। এদের ছিল উন্নত ধরণের হাতিয়ার যা দিয়ে বড় এবং বিপজ্জ্বনক প্রাণী শিকার সম্ভব ছিল। যেমন বার্বড হারপুণ, ডার্টস, বর্শা, এবং তীর ধনুক। আগের চাইতে উন্নত হাতিয়ারের কারণে ক্রো ম্যাগননরা নতুন নতুন পরিবেশ দখল করে নিতে থাকে এবং ছড়িয়ে পরতে থাকে নতুন এবং পুরনো পৃথিবীর বিভিন্ন যায়গায়। ৫০ হাজার বছর আগে মানুষ প্রথমবারের মত অস্ট্রেলিয়ায় পৌছায়। ২০ হাজার বছর আগে উত্তর রাশিয়া এবং সাইবেরিয়ায় এবং সেখান থেকেই ১১ হাজার বছর আগে উত্তর এবং দক্ষিণ আমেরিকায় পৌঁছে যায় মানুষ। ইউরোপে ক্রো ম্যাগননরা এবং তাদের সমসাময়িকরা অনেক দূর দূরান্ত পর্যন্ত হাতিয়ার এবং কখনও কখনও অর্থহীন গয়না তৈরির রসদ সংগ্রহের জন্য ভ্রমণ করত। ক্রো ম্যাগননদের যে সমস্ত শৈল্পিক নিদর্শন উল্লেখযোগ্য তাদের মধ্যে গুহাচিত্র, বিশেষ ধরণের ভাস্কর্য (Bas relief), গলার হার, লকেট এবং সিরামিকের ভাস্কর্য অন্যতম। নিয়ান্ডার্থালরা যেখানে মাত্র চল্লিশ বছর বাঁচত সেখানে ক্রো ম্যাগননরা বেঁচে থাকত ৬০ বছর পর্যন্ত। আর এটা ছিল ক্রো ম্যাগননদের উদ্ভাবনী এবং সৃজনশীল উন্নয়নের অন্যতম প্রধান কারণ। প্রাক শিক্ষা যুগের মানুষদের জন্য এরকম একজন বা দুজন বয়স্ক মানুষ ছিল অত্যন্ত গুরত্বপূর্ন। এরকম একজন মানুষই হতে পারে মৃত্যু এবং বেঁচে থাকার মধ্যকার পার্থক্য। ক্রো ম্যাগননদের নিয়ান্ডার্থালদের তুলনায় বিশ বছরের মত বেশী বেঁচে থাকাটা নিঃসন্দেহে তাদের উত্থানের পেছনে বড়সড় অবদান রেখেছিল।

grandparents_table

[“আজকে যেভাবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে জ্ঞানের পরিমাণ কয়েক গুণ হয়ে যাচ্ছে তখন কিন্তু তেমনটি কোনভাবেই হতে পারতো না। কারণ তখন কোন মানুষের জীবন দিয়ে অর্জিত সকল জ্ঞান এবং প্রজ্ঞা সীমাবদ্ধ থাকতো কেবলই তার সন্তান-সন্ততিদের মাঝে, তাও যদি সে মৃত্যুর সময় পূর্ণবয়স্ক সন্তান রেখে যেতে পারে। জ্ঞানের এই ঘনীভবনই হয়ত আদিম যুগে মানুষের ধীর অগ্রগতির প্রধান কারণ। ভাষা, শিল্প এবং লিখনপদ্ধতি আবিষ্কারের পর মানুষ খুব দ্রুত অগ্রসর হতে শুরু করে। বলা যায় মানুষের জ্ঞানের অগ্রগতি এবং জ্ঞান সংরক্ষণ ও সরবরাহ ব্যবস্থার অগ্রগতি একে অপরের পরিপূরক। তো যখন জ্ঞানের কোন সংরক্ষণ পদ্ধতি ছিল না তখন সামষ্টিক প্রগতির একমাত্র উপায় ছিল সন্তান-সন্ততির মাধ্যমে যতটুকু সম্ভব পূর্ব প্রজন্মের জ্ঞানের ধারা অব্যাহত রাখা। কিন্তু এতেও বাধ সেধেছিল মানুষের স্বল্পায়ু। আনুমানিক ৪০ হাজার বছর পূর্বে মানুষের আয়ু হঠাৎ এত বেড়ে যাওয়ার কারণ দুই ধরণের হতে পারে: জৈবিক বা সাংস্কৃতিক। জৈবিক কারণ হিসেবে বলা যেতে পারে, হয়ত দৈহিকভাবে আধুনিক মানুষের মধ্যে যেসব জিনগত বৈশিষ্ট্য প্রভাব বিস্তার করেছিল তারই একটি দীর্ঘায়ু। গবেষকরা নিয়ানডার্থাল ও আধুনিক মানুষের জীবাশ্মের উপাত্ত সংগ্রহ করেছেন। এবং দেখেছেন এদের বৃসানুপাত ১ এর বেশ কাছাকাছি যা ইউরোপের নিয়ান্ডার্থালদের (০.৩৯) চেয়ে অনেক বেশি কিন্তু ইউরোপের আধুনিক মানুষদের (২.০৮) চেয়ে বেশ কম। এই ফলাফল বিস্ময়কর। দৈহিক দিক দিয়ে পশ্চিম এশীয়দের সাথে ইউরোপীয়দের তেমন কোন পার্থক্য না থাকা সত্ত্বেও তাদের বৃসানুপাত যথেষ্ট আলাদা। এ থেকেই প্রমাণিত হয়, জৈবিক কারণে আয়ু বাড়েনি। জৈবিক কারণে বাড়লে তো পশ্চিম এশিয়ার অপেক্ষাকৃত আদিম মানুষদের বৃসানুপাতও আধুনিক ইউরোপীয়দের সমান হওয়ার কথা। এই পরীক্ষায় আরও মজার তথ্য বেরিয়ে এসেছে। যেমন, পশ্চিম এশিয়ার নিয়ান্ডার্থালদের বৃদ্ধ জনসংখ্যা ইউরোপীয় নিয়ান্ডার্থালদের চেয়ে বেশি। এর কারণও সহজবোধ্য- বরফ যুগের ইউরোপের তুলনায় উষ্ণ আবহাওয়ার পশ্চিম এশিয়া তথা মধ্যপ্রাচ্যে বসবাস করা ছিল সহজ, এজন্যই সেখানে মানুষ বেশি বয়স পর্যন্ত টিকে থাকতো। কিন্তু সেক্ষেত্রে ইউরোপের আধুনিক মানুষদের আয়ু পশ্চিম এশিয়ার আধুনিক মানুষদের চেয়ে এত বেশি হওয়াটা আরও বিস্ময়কর হয়ে ওঠে। ইউরোপে পরিবেশ এত প্রতিকূলে থাকার পরও সেখানকার আধুনিক মানুষদের জীবনে এমন কি ঘটেছিল যা দৈহিকভাবে অন্য অঞ্চলের মানুষদের মত হওয়া সত্ত্বেও তাদের আয়ু এত বাড়িয়ে দিয়েছিল? বোঝাই যাচ্ছে কারণটি জৈবিক নয় বরং সাংস্কৃতিক। দেহের তাড়না নয় বরং সাংস্কৃতিক চেতনাই আয়ু বৃদ্ধির কারণ। সংস্কৃতি যে ৪০ হাজার বছর পূর্ব থেকেই মানব জীবনে এত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে শুরু করেছিল তা বোধকরি এর আগে এতটা স্পষ্টভাবে অনুধাবন করা সম্ভব ছিল না। প্রাকৃতিক নির্বাচনের মাধ্যমে মানুষের আয়ু বৃদ্ধির কারণ নির্ণয় করতে গিয়ে আমরা প্রথমবারের মত বুঝতে পারব কুল-বৃদ্ধাদের সেবা ও প্রজ্ঞা এবং সংস্কৃতির বিকাশ ছিল একে অপরের কার্যকারণ।

আমাদের সাথে শিম্পাঞ্জিদের বেশ মিল আছে। এই উভয় প্রজাতির নারীদের ক্ষেত্রেই প্রজননের সবচেয়ে ভাল সময় ৩০ বছরের একটু আগে থেকে প্রায় ৪৫ বছর বয়স পর্যন্ত। কিন্তু পার্থক্য হচ্ছে শিম্পাঞ্জিদের গড় আয়ু অনেক কম, শতকরা তিন ভাগেরও কম শিম্পাঞ্জি ৪৫ বছরের বেশি বাঁচে। মানুষের প্রজনন ক্ষমতা শেষ হয়ে যাওয়ার সময়কে বলে রজোনিবৃত্তি (মেনোপজ)। শিম্পাঞ্জিরা যেখানে প্রজনন ক্ষমতা হারানোর পরপরই মারা যায় মানবীরা সেখানে রজোনিবৃত্তির পরেও অনেকদিন বেঁচে থাকে। প্রশ্ন হচ্ছে মানুষের প্রজননে অক্ষমতা কিভাবে বংশবিস্তারে সহায়ক হয়ে উঠল?

এই অনুকল্পে বলা হচ্ছে, বৃদ্ধ বয়সে যদি কেউ সন্তান নেয় তাহলে শিশু সন্তান রেখেই সে মারা যাবে, আর মা মারা গেলে শিশুটি বেঁচে থাকার সম্ভাবনাও অনেক কমে যাবে। কিন্তু কেউ যদি সে বয়সে সন্তান না নিয়ে বরং তার জীবিত সন্তানদের দেখভাল এবং নাতি-নাতনিদের সেবা করে দিন কাটায় তাহলে সার্বিকভাবে তার বংশের ভাল হবে। যে কুলের বৃদ্ধারা সন্তান না নিয়ে নাতি-নাতনির সেবা করবে সেই কুল বেশি বিস্তার লাভ করবে। সুতরাং অনেককাল পর দেখা যাবে কেবল সেই কুলের মানুষই টিকে আছে। অন্যদিকে, নিজে সন্তান না নিয়ে নাতি-নাতনির সেবা করার কারণে কুল-বৃদ্ধাদের স্বাস্থ্য-সবলতাও বাড়বে। অর্থাৎ, যে বৃদ্ধারা সবল তারা বেশি সেবা করতে পারবে, সুতরাং প্রাকৃতিক নির্বাচন সবল বৃদ্ধাদেরই নির্বাচন করবে। এ কারণে হয়ত প্রাকৃতিকভাবে সেই কুলই নির্বাচিত হয়েছে যে কুলের বৃদ্ধাদের রজোনিবৃত্তি ঘটতো এবং যে কারণে তারা নিজে সন্তান না নিয়ে নাতি-নাতনির সেবা করতে পারতো। কুলবৃদ্ধা তত্ত্ব তো কেবল নারীদের আয়ু বৃদ্ধির কথা বলছে, তাহলে পুরুষের কি হবে? এটা ঠিক যে, পুরুষের আয়ুর বিবর্তনে আরও কিছু প্রভাবক নিয়ে নাড়াচাড়া করতে হবে, কিন্তু নারীর আয়ুর্বৃদ্ধি নির্ঘাত পুরুষের দেহেও প্রভাব ফেলবে। কারণ, আমাদের দেহের কোষগুলোর সংরক্ষণ ও সংস্কারের প্রক্রিয়া অন্যান্য প্রাইমেটদের চেয়ে কার্যকর। যে দৈহিক বৈশিষ্ট্যের কারণে বৃদ্ধায়ন ধীরে ধীরে ঘটে তা কিন্তু বংশ পরম্পরায় মায়ের দেহ থেকে ছেলে-মেয়ে উভয়ের দেহেই প্রবাহিত হবে। এভাবেই কুল-বৃদ্ধাদের নাতি-নাতনি লালন-পালনের সংস্কৃতি আনুমানিক ৪০,০০০ বছর পূর্বে মানুষের আয়ু বৃদ্ধিতে একটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিল।

হিলার্ড ক্যাপলান ও তার সহকর্মীরা দীর্ঘায়ু লাভের আরেকটি তত্ত্ব প্রস্তাব করেছিলেন যা আয়ুষ্কালের বিবর্তনে একই সাথে শারীরবৃত্ত, মনস্তত্ত্ব এবং আচার-ব্যবহারের অবদান স্বীকার করে। তারা প্রথমেই বলেছিলেন, একজন মানুষের জীবনেতিহাস অন্তত পাঁচটি বৈশিষ্ট্যের কারণে অন্য সব স্তন্যপায়ী এবং প্রাইমেটদের থেকে আলাদা। এগুলো হচ্ছে দীর্ঘায়ু, শিশু-কিশোরদের বড়দের উপর অনেক বেশি নির্ভরতা, সন্তান লালন-পালনে কুল-বৃদ্ধাদের অবদান, মা এবং শিশুদেরকে পুরুষদের খাদ্য সরবরাহ এবং উন্নত মস্তিষ্ক যা বোধ, শিক্ষা ও অন্তর্দৃষ্টির মত মনস্তাত্ত্বিক বৈশিষ্ট্য ধারণে সক্ষম। তত্ত্বটি বলে, উন্নত খাদ্যাভ্যাসের সাথে এই সবগুলো বৈশিষ্ট্যের সহবিবর্তন ঘটেছে। মানুষ এক সময় উন্নত কিন্তু দুর্লভ খাদ্য গ্রহণের প্রতি আকৃষ্ট হয় যা তৈরিরে জন্য অনেক দক্ষতা, বুদ্ধিমত্তা, জ্ঞান এবং শক্তির প্রয়োজন ছিল। শিশু-কিশোর বয়সে মানুষ এই গুণগুলো অর্জন করতো, কিন্তু সরাসরি কোন খাদ্য সংগ্রহ করতো না। বড়রা খাদ্য সংগ্রহ করে শিশু ও মায়েদের খাওয়াতো। শিশু-কিশোররা এত কম উৎপাদনশীল বলেই বয়স্ক পুরুষদের উৎপাদনশীলতা এত বেশি। বয়সের সাথে সাথে উৎপাদনশীলতা বাড়ে বলেই মৃত্যুর হার কমে এবং আয়ু বৃদ্ধি পায়। খাদ্য যোগানের দক্ষতা অর্জনের পর তা থেকে ফল পেতে অনেক সময় লাগে যে কারণে মানুষের কৈশোর বেশ দীর্ঘ। খাদ্য সংগ্রহে এত চেষ্টা চরিত্তির করে বলেই তা পরিবারের সবার সাথে ভাগ করার প্রবণতা মানুষের বেশি। মা এবং শিশুদের খাদ্যের চিন্তা থাকে না বলে শিশু-কিশোর মৃত্যুর হার কম। সংক্ষেপে বলা যায় মানুষের দীর্ঘায়ু লাভের মূল কারণ উন্নত খাদ্যাভ্যাস এবং তা অন্য তিনটি বৈশিষ্ট্যের সাথে সহবিবর্তিত হয়েছে: দক্ষতা তৈরির উপযোগী জটিল মস্তিষ্ক, দক্ষতা অর্জনের জন্য দীর্ঘ কৈশোর এবং ছোটদেরকে খাদ্য ও সেবা দিয়ে বড়দের সাহায্য করা।” (৫ নং সূত্র থেকে সরাসরি উদ্ধৃত)]

আমরা যদি টাইম মেশিনে করে ৪০ হাজার বছর আগে ফিরে যেতে পারতাম তবে আশ্চর্য হলেও দেখতে পেতাম ক্রো ম্যাগননরা ঠিক আমাদের মতই আধুনিক মানুষ যারা কিনা বিমান চালানোর বিদ্যা শিখতে সক্ষম। কিন্তু তারা শুধুই পাথর এবং হাঁড়ের তৈরি হাতিয়ার বানিয়েছে। কেন? কারণ আর কোন ধরণের হাতিয়ার তখনও আবিষ্কার হয়নি, তাই। ঐ টুকুই আবিষ্কৃত হয়েছিল তাদের শিখবার জন্য। কিন্তু ৬০ হাজার বছর আগে আমাদের দৈহিক কাঠামোতে একটি ম্যাজিক্যাল টুইস্ট যোগ হয় আর সেই টুইস্টের কারণেই সৃজনশীল আধুনিক মানুষেরা নিকট প্রাচ্য থেকে পশ্চিমে দিকে ইউরোপে ছড়িয়ে পরে এবং নিয়ান্ডার্থালদের অপসারণ করে। ২০ লক্ষ বছর আগে প্রথম-মানুষের বেশ কয়েকটি শাখা পাশাপাশি অবস্থান করেছিল। তারপর এক শেকডাউনে তা একটি মাত্র শাখায় নেমে আসে। সেরকমই আরেকটি শেকডাউন ঘটেছিল ৬০ হাজার বছর আগে। পরবর্তী সময়ে এবং আজকের আমরা সবাই সেই শেকডাউনে জয়ীদের বংশধর। কি ছিল সেই অর্জন যা আমাদের পূর্ব পুরুষদেরকে জয়ী হতে সাহায্য করেছিল?

Vocal Tract

উত্তরটা হল যৌগিক (complex) ভাষায় কথা বলতে পারার জন্য শারীরিক কাঠামো। শিম্পাঞ্জী, গরিলা এমনকি বানরেরাও কথ্য ভাষার উপর নির্ভরশীল না এমন সাংকেতিক ভাষায় নিজেদের মধ্যে ভাবের আদান প্রদান করতে সক্ষম। প্রাইমেটরা সংকেত এবং কম্পিউটার (শেখানো) কি’র ব্যবহার ছাড়াও শব্দকে প্রতীক হিসাবে ব্যবহার করতে সক্ষম। উদাহরণ হিসাবে বলা যায় ভেরভেট বানরদের প্রতীকী ভাব বিনিময় করার জন্য একটা প্রাকৃতিক ফর্ম আচে যা তারা মুখ দিয়ে চাপা ঘোঁতঘোঁত (Grunt) শব্দের মাধ্যমে প্রকাশ করে। কিছুটা ভিন্ন ভিন্ন চাপা শব্দের দ্বারা চিতাবাঘ, ঈগল, কিংবা সাপ বুঝিয়ে থাকে। ভিকি নামের একটি শিশু শিম্পাঞ্জী সর্বসাকুল্যে চারটি শব্দ বলতে শিখেছিল। শব্দ চারটি হল “papa”, “mama”, “cup”, এবং “up”। ভিকি ঠিক কথা বলত না বরং শব্দগুলো বলত নিঃশ্বাস ছাড়ার মত করে। শব্দের সাহায্যে এই সাংকেতিক ভাষায় ভাব বিনিময়ের সক্ষমতা সত্যেও প্রাইমেটরা কেন তাদের নিজস্ব যৌগিক ভাষার উদ্ভব ঘটাতে সক্ষম হয়নি? উত্তরটা জড়িত আছে তিনটি জিনিষের সাথে – আমাদের জিহ্বা, স্বরযন্ত্র, এবং এদের সাথে সংযুক্ত পেশি যা আমাদের উচ্চারিত শব্দের উপর নিখুঁত নিয়ন্ত্রণ করতে দেয়।

শিম্পাঞ্জীরা শারীরিক ভাবেই আমরা যে সমস্ত স্বরবর্ণ ব্যবহার করি সেগুলোর মধ্য থেকে বেশিরভাগই উচ্চারণ করতে অক্ষম। আমরা যদি অল্প কিছু সংখ্যক স্বরবর্ণ এবং ব্যঞ্জন বর্ণের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকতাম তবে আমাদের শব্দভাণ্ডারও অনেক সীমিত হত। যেমন এই লেখার যেকোনো একটি অনুচ্ছেদের “অ” এবং “ই” ঠিক রেখে যদি অন্য স্বরবর্ণ গুলোকে এই দুটি স্বরবর্ণের একটিতে পরিবর্তন করা হয় তবে এবং “ক”, “ড”, “ল”, এবং “স” ব্যঞ্জন বর্ণগুলোকে ঠিক রেখে বাকী বর্ণগুলোকে যদি এই চারটি ব্যঞ্জন বর্ণের যে কোন একটিতে পরিবর্তিত করা হয় তবে সেই অনুচ্ছেদটি কারও পক্ষে বোঝা সম্ভব হবে না বলেই ধরে নেয়া যাতে পারে। শারীরিক কাঠামোর ছোট্ট একটি পরিবর্তন যা আমাদের কথা বলাকে সম্ভব করেছিল এবং যার ফলশ্রুতিতে আমাদের আচরণে একটি বিশাল পরিবর্তন সাধিত হয়েছিল তা খুব সহজেই আমরা অনুধাবন করতে পারি। ভাষার সাহায্যে মাত্র কয়েক সেকেন্ডেই আমরা ভাব আদান-প্রদান করতে পারি। “চার নাম্বার গাছটা পার হয়েই ডানে মোড় নিয়ে পুরুষ হরিণটাকে লাল রঙের বড় পাথরটার দিকে তাড়িয়ে নিয়ে আসবে — ঐখানে আমি লুকিয়ে থাকব এবং হরিণটা আসা মাত্রই বর্শা দিয়ে গেঁথে ফেলব।” ভাষা ছাড়া এই বার্তাটি কোন ভাবেই আরেকজনকে বোঝানো সম্ভব না। ভাষা ছাড়া দুজন আদি মানুষের পক্ষে কিভাবে আরও উন্নত হাতিয়ার বানানো যায় অথবা একটি চিত্রের মানে কি হতে পারে সেটা আলোচনা করে বের করা সম্ভব না। এমনকি ভাষা ছাড়া একজন আদিম মানুষের পক্ষে নিজে নিজেই কিভাবে আরও ভাল হাতিয়ার বানানো যায় সেটা ভেবে বের করাও খুবই কষ্টকর হওয়ার কথা।

একটা কথা বলে রাখা দরকার, যে মুহুর্তে আমাদের জিনে পরিব্যাপ্তি হয়েছিল যা আমাদের জিহ্বা এবং স্বরযন্ত্রে পরিবর্তন এনেছিল ঠিক সেই মূহুর্তেই “গ্রেট লিপ ফরোয়ার্ড” শুরু হয়েছিল এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই। আজকে আমরা ভাষার যে নির্মিতিকে (structure) নিখুঁত হিসাবে মেনে নিয়েছি সঠিক দৈহিক কাঠামো সত্যেও অবধারিতভাবেই ভাষার সেই নির্মিতিকে দাঁড় করাতে আধুনিক মানুষের হাজার হাজার বছর সময় লেগেছে।

২০০১ সালে জার্মানির লিপজিগের ম্যাক্স প্লাঙ্ক ইনস্টিটিউটের আণবিক জিনতত্ববিদ এসভ্যাস্টে পাবো এবং তার সহকর্মীরা আবিষ্কার করেন যে মানুষের দেহে FOXP2 নামে একটা জিন আছে যা কিনা আমাদের কথাবলা এবং ভাষার ব্যবহারের ক্ষমতার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এই জিনটির বিবর্তন হয়েছে ২ লক্ষ বছর আগে হোমো সেপিয়েন্সদের আবির্ভাবের পর। লস এঞ্জেলসের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ড্যানিয়েল গেশুইন্ড এর গবেষণা থেকে আমরা জানতে পারছি যে FOXP2 এর যে ভার্শনটা মানুষের মধ্যে আছে সেটাতে শিম্পাঞ্জীদের ভার্শনটা থেকে দুটো ভিন্ন এমাইনো এসিড আছে। এই ভিন্ন ভার্শনের FOXP2 মানুষের এবং শিম্পাঞ্জীর জিনে এবং মস্তিষ্কে ভিন্ন ভিন্ন ধরণের প্রভাব ফেলে।

UCLA and the Technion, Israel’s Institute of Technology এর বিজ্ঞানীরা ২১ আগস্ট, ২০১২ Nature Communications এ প্রকাশিত এক গবেষণায় দেখিয়েছেন কিভাবে আমাদের মস্তিষ্কের কোষে আলাদা আলাদা ভাবে প্রতিটি স্বরবর্ণের উচ্চারণের সংকেত আবদ্ধ করা থাকে। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন যে মস্তিষ্কের যে দুটি অঞ্চল কথা বলা এবং স্বরবর্ণের সাথে ওতপ্রোতভাবে সেগুলো হল সুপিরিয়র টেম্পোরাল জাইরাস এবং মিডিয়াল ফ্রন্টাল লোবের একটি অঞ্চল। মানুষের বাচন ক্ষমতা প্রজাতি-নির্দিষ্ট দৈহিক কাঠামোর সাথে সম্পর্কিত। এই কাঠামোর উদ্ভব হয়েছে অন্ননালীর উপরে অবস্থিত গহ্বরে জিহ্বার অবনমনের ফলে। বাচন ক্ষমতার জন্য আরও প্রয়োজন এমন একটি মস্তিষ্কের যা বাধাহীন ভাবে সঞ্চালক পেশির সীমিত সংখ্যক ভঙ্গিকে বস্তুত:পক্ষে অসীম সংখ্যক শব্দে বা বাক্যে পুনঃ বিন্যস্ত করতে সক্ষম। শিম্পাঞ্জীদের মধ্যে সূক্ষ্ম শব্দ তৈরি করতে সক্ষম এবং একইসাথে শব্দ তৈরি এবং উপলব্ধি করার কাজকে সহজ করে তোলা বাগ যন্ত্রের উপরে অবস্থিত কণ্ঠনালীর বর্ধিত অংশটি অনুপস্থিত। এছাড়াও শিম্পাঞ্জীদের মধ্যে বিদ্যমান নির্দিষ্ট ভোকালাইজেশনের শাব্দিক বৈষম্যের পুনর্বিন্যাস করতে সক্ষম মস্তিষ্ক নেই। মানুষের কথা বলা এবং ভাষার শুরুটা সম্ভবত হয়েছিল হাঁটতে এবং দৌড়াতে শেখার সময় থেকেই। কিন্তু পুরোপুরিভাবে কথা বলতে পারার মত দৈহিক কাঠামো প্রথমবারের মত পাওয়া যায় ঊর্ধ্ব প্যালিওলিথিক যুগে, ৫০ হাজার বছর আগে। নিয়ান্ডার্থাল এবং এর আগের যুগের মানুষদের মধ্যে যা অনুপস্থিত। এটা পরিষ্কার যে স্নায়বিক সক্ষমতা যা মানুষকে কথা বলতে সাহায্য করে তা বেঁচে থাকা অন্যান্য নিকট আত্মীয় প্রজাতিগুলোর মধ্যে অনুপস্থিত। মানুষের কথা বলতে পারার জন্য পুনর্বিন্যস্ত করার সক্ষমতার জন্য যে স্নায়বিক সার্কিটের দরকার হয় তা শিম্পাঞ্জি এবং অন্যান্য প্রাইমেটদের মধ্যে নেই।

আমরা ধরেই নিতে পারি যে যখন থেকে কণ্ঠনালীর কারণে আমরা শব্দকে খুব সূক্ষ্মভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছি তখন থেকেই আমাদের উদ্ভাবনী ক্ষমতার ক্রম উন্নতি ছিল শুধুমাত্র সময়ের ব্যাপার। কথা বলতে শুরু করাটাই ছিল আমাদের মুক্তির শুরু। কিন্তু তারপরও কথা থাকে। কথা বলতে শুরু করার পরেও কেন এত বছর সময় লেগেছিল লিখন পদ্ধতি আবিষ্কার করতে কিংবা পার্থেনন তৈরি করতে? কারণ, লিখন পদ্ধতি আবিষ্কার কিংবা পার্থেনন তৈরি করাটা ছিল হাজার হাজার বছরের সম্মিলিত উন্নয়নের উপর নির্ভরশীল। গ্রেট লিপ ফরোয়ার্ডের আগে পর্যন্ত মানুষের সংস্কৃতির উন্নয়ন হয়েছে খুবই ধীর গতিতে – শামুকের গতিতে মিলিয়ন মিলিয়ন বছর ধরে। কিন্তু গ্রেট লিপ পরবর্তী সময়ে সাংস্কৃতিক উন্নয়ন আর শুধুমাত্র জেনেটিক পরিবর্তনের উপর নির্ভরশীল হয়ে রইল না। খুব ছোট একটি দৈহিক কাঠামোগত পরিবর্তনের কারণে গত ৪০-৫০ হাজার বছরে মানুষের মধ্যে যে বিশাল পরিবর্তন হয়েছে তা এর আগের ২০ লক্ষ বছরেও হয়নি। নিয়ান্ডারথালদের সময়ে কোন ভিনগ্রহ বাসী যদি পৃথিবীতে আসত তবে তার কাছে মানুষ কোন বিশেষ প্রাণী হিসাবে বিবেচিত কিনা সন্দেহ। খুব বেশী হলে তারা মানুষকে বিভার কিংবা বাওয়ার পাখীর মত অদ্ভুত আচরণ করতে সক্ষম একটি প্রজাতি হিসাবেই গণ্য করত। তবে তারা হয়ত কল্পনাও করতে সক্ষম হত না যে খুব শীঘ্রই এই প্রাণীটি পৃথিবীর বুকে জীবনের ইতিহাসে প্রথম প্রাণী হিসাবে মহাবিশ্বের রহস্য উন্মোচণের দ্বার প্রান্তে এসে উপস্থিত হবে।

তথ্যসূত্র:

1. The Third Chimpanzee : The Evolution and Future of the Human Animal By Jared M. Diamond
2. How Man Began – Time Magazine March, 1994
3. Origins of Modern Humans: Multiregional or Out of Africa? – By Donald Johanson
4. What Makes us Different? By MICHAEL D. LEMONICK
5. মানুষের আয়ুষ্কালের বিবর্তন – (বিবর্তন উইকি স্পেস ডট কম)
6. Evolution of Human Brain By Ralph Holloway
7. Evolutionary Genetics: Is brain evolution still continuing in modern humans?
8. Brain’s Code for Pronouncing Vowels Uncovered:
9. The Evolution of Human Speech – Its Anatomical and Neural Bases by Philip Lieberman; Brown University (Providence, RI)
10. Evolutionary Increase in Size of the Human Brain Explained:

About the Author:

মুক্তমনা ব্লগ সদস্য।

মন্তব্যসমূহ

  1. রিফাত অক্টোবর 26, 2017 at 4:10 অপরাহ্ন - Reply

    একটা বিষয় বোঝা গেল না। আপনি লিখলেন হোমো হাবিলিস বিবর্তিত হয়ে হোমো ইরেক্টাসে রুপান্তরিত হয়েছিল। এটা কিভাবে সম্ভব! হোমো ইরেক্টাসের আবির্ভাবের অনেক আগেই হোমো হাবিলিস বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছিল। তার অনেক বছর পরে হোমো ইরেক্টাসের সন্ধান পাওয়া যায়। আর হোমো ইরেক্টাস থেকে যে হোমো এরগ্যাস্টার এসেছে এমন কোন প্রত্নতাত্বিক প্রমাণ তো এখনো পাওয়া যায় নি। তাছাড়া হোমো হাবিলিস থেকে যে ইরেক্টাস এসেছে তারও কোন প্রমাণ বিজ্ঞানীরা পাননি। অথচ আপনি বিষয়টা এমনভাবে তুলে ধরলেন যেন হোমো হাবিলিস, ইরেক্টাস, এরগ্যাস্টার ইত্যাদি হোমো গণের প্রাণীগুলো একটা থেকে আরেকটাতে ধাপে ধাপে এসেছে। এমন কোন প্রমাণ তো নেই। এই প্রাণীগুলোর বৈশিষ্ট্য থ্রকে বোঝা যায় তারা প্রত্যেকেই একই গণের সদস্য ছিল। কিন্ত একটা বিবর্তিত হয়ে আরেকটা এসেছে তা তো নয়।

  2. মুয়ায ফেব্রুয়ারী 4, 2013 at 10:54 অপরাহ্ন - Reply

    কোন প্রকার যুক্তি ছাড়াই বলতে চাই মহান আল্লাহ অসংখ্য প্রাণির মধ্য বানরকে এবং সৃষ্টির সেরা হিসাবে মানুষকে সৃষ্টি করেছেন ।আর তিনি রাসুল (সাঃ) দ্বারা দুনিয়ার যে ধরণের আসংকার কথা বলেছেন তাই বর্তমানে হয়ে আসছে ।
    যারা নাস্তিক তাদের জন্যে বলি -ধরলাম তাদের মতে আল্লাহ নাই (নাউযুবিল্লাহ) ।এই বিশ্বাসের কারনে দুনিয়াতে সে তার জন্য নির্ধারিত হায়াতের ১ সেকেন্ডও বেশি বাচঁতে পারবে কি ? তার পুর্ব পুরুষের নিয়ম অনুযায়ি তাকেও অবশ্যি মরতে হবে ।
    এখন কথা হল যদি আল্লাহ আছেন এটা সত্য হয় তাহলে তার মৃত্যুর পরে আরেকতা জীবন আছে এটাও সত্য ।আর তখন তাকে অত্যন্ত কষ্টের জায়গা জাহান্নামে (যেখানের খাবার হবে কাঁটাযুক্ত ফল আর পূঁজ রক্ত,পুড়তে হবে জলন্ত আগুনে অনন্তকাল——) পতিত হতে হবে ।

    এখন বলুন বুদ্বিমানের কাজ কি ?

    কিছু মনগড়া যুক্তির অন্তরালে পড়ে আল্লাহকে বিশ্বান না করা নাকি
    আল্লাহর অস্তিত্যকে বিশ্বার করে তার কথা মত জীবন কাটিয়ে অনন্তর সুখের জায়গা জান্নাতকে (যেখানে মন যা চাইবে তাই পাওয়া যাবে ,থাকবে দুধ মধু আর পবিত্র শরাবের নহর, ভোগের জন্য পবিত্র সুন্দরী নারিগণ ) হাসিল করা ।

    *******আশাকরি প্রকাশ করে সৎ সাহসের পরিচয় দিবেন ।

  3. ইফতি সেপ্টেম্বর 14, 2012 at 5:44 অপরাহ্ন - Reply

    (Y)

    আত্বউপলব্ধি :
    মুক্তমনার বিজ্ঞান লেখাগুলোই সবচেয়ে ভাল। 🙂

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 17, 2012 at 9:46 অপরাহ্ন - Reply

      @ইফতি, প্রতিটা ব্লগেরই একটা নিজস্ব চরিত্র আছে। বিজ্ঞান বিষয়ক লেখাগুলিই যে মুক্তমণাকে সবার কাছে বিশেষভাবে জনপ্রিয় করে তুলেছে সে ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই।

  4. মুজাহদি সেপ্টেম্বর 10, 2012 at 11:28 পূর্বাহ্ন - Reply

    মানুষরে উৎপত্ত িবিবতনরে মাধ্যম েহল-ে প্রশ্ন: অন্যান্য প্রানীদরে ক্রিয়া কলাপ ‍ক েপ্রাকৃ‍তকি বলা হয় অথচ মানুষরে ক্রিয়া কলাপ ‍ক েকৃ‍ত্তমি বলা হয় কনে? প্রাকৃতকি বলা হব েনা কনে?
    মানুষ ক িপৃ‍থবিীর ইকােসস্টিমেের অংশ না বাহরি থেক েএসছে?ে
    বাহরি থকেে না এস েথাকল েমানুষ ‍যখোন েহাত দেয় সেখা‍নইে পৃথীবীর ইকােসস্টিমেের ক্ষত িহয় কনে?
    খাদ্য শৃঙ্খল েমানুষ ক ি‍বখোপ্পা না?
    আমার অভমিত- আল্লাহ মান‍ুষক েজান্নাতরে ইকােসস্টিমেের জন্য বানয়িছেেন। দুনয়িাত েকছিু দনিরে জন্য পাঠয়িছেেন। তাই মানুষ যখোন েহাত দয় েসখোনইে দুষন হয়। কারন আল্লাহ মানুষ ক েপৃথবিীর পরবিশেের জন্য বানান নাই।
    তব েআল্লাহর আইন অনুযায়ী প্রয়ােজন মা‍ফকি প্রকৃ‍ত ি‍থকেে সম্পদ ব্যবহার ক‍রল েপৃথবিীর পরবিশে সহনীয় পযা‍য় েথাকব।ে

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 17, 2012 at 9:48 অপরাহ্ন - Reply

      @মুজাহদি, আপ্নার কমেন্ট পড়তে এবং বুঝতে কষ্ট হচ্ছে। পুরোটা পড়ার ধৈর্য্য রাখতে পারলাম না জন্যে দুঃখিত।

  5. মাহফুজ সেপ্টেম্বর 9, 2012 at 4:54 পূর্বাহ্ন - Reply

    আমি জীববিজ্ঞানের ছাত্র নই, আর মানুষের বিবর্তনের ক্রমটাও আমার পুরোপুরি জানা নেই কাজেই সঠিক-বেঠিকের সিদ্ধান্তে যাওয়া আমার পক্ষে দুঃস্কর। কিন্তু আপনার লেখার সাথে ছবির (১নং) গড়মিলটা চোখে পড়ার মত। আপনি লিখেছেন, ”

    ২৫ লক্ষ বছর আগে অস্ট্রালোপিথেকাস আফ্রিকানাসদের থেকে আলাদা হয়ে হোমো গণের প্রথম সদস্য হোমো হ্যাবিলিসদের (man the handyman) উদ্ভব ঘটে

    ” কিন্তু ১নং চিত্রে দেখতে পাচ্ছি হোমো হেবিলিস, এ আফ্রিকানাস এবং এ রোবাস্টাস এই তিনটি শাখার প্রত্যেকটিই এসেছে একই পূর্বপুরুষ থেকে, যা কিনা রামাপিথেকাস, এবং এরা মোটামুটি সমসাময়িক। খটকা লাগছে, আমার বুঝার ভুলও হতে পারে, দয়া করে যদি এটির ব্যাখ্যা দিতেন।

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 9, 2012 at 11:06 পূর্বাহ্ন - Reply

      @মাহফুজ, অস্ট্রালোপিথেকাস আফ্রিকানাসদের থেকে আলাদা হয়ে হোমো গণের প্রথম সদস্য হোমো হ্যাবিলিসদের উদ্ভব ঘটে তার মানে কিন্তু এই না আফ্রিকানাসরা তখন আর ছিল না। আফ্রিকানাসদের কোন একজনের মধ্যে একটা জেনেটিক মিঊটেশন ঘটেছিল যার বংশধররা পরবর্তিতে হোমো হ্যাবিলিস হয়ে ওঠে । হোমো হ্যাবিলিস হয়ে ওঠার পরও তারা দুদলই সামন্তরাল ভাবে বহুদিন একসাথে টিকে ছিল।

  6. Muzahid সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 10:01 পূর্বাহ্ন - Reply

    Why human being have similarities with other animal because Allah makes us with few similarities. It doesn’t mean that we were Shimpangy. The main diference of human with other’s animal is AKOL.

    • সৈকত চৌধুরী সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 12:06 অপরাহ্ন - Reply

      @Muzahid,

      বাংলা ব্লগে ইংরেজিতে মন্তব্য করা চরম অশোভনীয়। এছাড়া মন্তব্যের ঘরে পরিষ্কার লেখা আছে

      প্রবন্ধটি নিয়ে আপনার অভিমত জানান(বাংলা হরফে ও বাংলা ভাষায়)

      Why human being have similarities with other animal because Allah makes us with few similarities.

      এভাবে যদি চিন্তা করেন তবে তো বেশ মুশকিল। শুধু শিম্পাঞ্জির সাথে মিল নয়, মানুষের (হোমো গনের) বেশ কিছু প্রজাতির ফসিল পাওয়া গেছে। এর ব্যাখ্যা কী? আশরাফুল মখলুকাত মানুষের DNA এর সাথে কোনো প্রাণীর শতকরা ৯৮ ভাগ মিল থাকবে কেন? শ’খানেক প্রজাতির বানর, শিম্পাঞ্জি, গরিলা, ওরাং ওটান এগুলো কোন দুঃখে এসেছে? তবে কি পরম করূণাময় মানুষকে ধোঁকা দেওয়ার সুবিধার্তে শুধু শুধুই এগুলো তৈরি করেছেন? যদি মানুষের DNA এর সাথে তাদের বিশাল ব্যবধান থাকত, দৈহিক ও আচরণগত মিল মোটেই থাকত না তবে আমরা সহজে হয়ত বিবর্তনীয় ব্যাখ্যার সাথে একমত হতাম না। আর হ্যা, আল্লা-ভগবান এগুলো দিয়ে কোনো প্রাকৃতিক ঘটনার ব্যাখ্যা দেওয়ার কোনো মানেই হয় না এবং ব্যাপারটি শুধুই আহম্মকি। এছাড়া জীব বিবর্তনের পক্ষে এত বেশি প্রমাণ রয়েছে যে একজন বোধ সম্পন্ন মানুষ একে অস্বীকার করতে পারেন না।

      শিম্পাঞ্জির সাথে মিল নয় বরং মানুষের মানসিকতার সাথে সর্বশক্তিমান আল্লা-পাকের এত মিল দেখে বরং তাকেই মানুষের কষ্টকল্পনা বলে মনে হয় 😀 ।

    • আঃ হাকিম চাকলাদার সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 5:47 অপরাহ্ন - Reply

      @Muzahid,

      আদম-হাওয়া কত বৎসর পূর্বে বেহেশত হতে এই মাটির পৃথিবীতে অবতরন করেছিলেন?
      খুব বেশী হলে ১০ হাজার বৎসর পূর্বে?

      তাহলে এই পৃথিবীর মাটিতে লক্ষাধিক বৎসর পূর্বের মানব ফসিল পাওয়া যায় কী করে?
      একটু ব্যাখা করবেন?

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 9, 2012 at 10:56 পূর্বাহ্ন - Reply

      @Muzahid,

      It doesn’t mean that we were Shimpangy.

      জ্বি, আমরা এখন আর শিম্পাঞ্জি না তবে এক সময় ছিলাম। সে বহু বহু দিন আগের কথা। আদম হাওয়ার তখনও জন্ম হয়নি।

      AKOL কি? আর ৯০ ফুট আদম থেকে ৪ ফুটি আফ্রিকান পিগমি ঊপজাতি কিভাবে আসল সেটা একটু বলে গেলে ভাল হত।

  7. সৈকত চৌধুরী সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 2:44 পূর্বাহ্ন - Reply

    বেশ গুরুত্বপূর্ণ একটি লেখা। হোরাসকে অনেক ধন্যবাদ।

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 10:00 পূর্বাহ্ন - Reply

      @সৈকত চৌধুরী, ধন্যবাদ।

  8. আদিল মাহমুদ সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 10:30 অপরাহ্ন - Reply

    যদিও সময়ের অভাবে পুরোটা এক বসায় পড়তে পারলাম না তাও ইন্টারেষ্টিং লেখা হয়েছে বলতে হয়। সাধারনত এ জাতীয় লেখাগুলি অধিকাংশই মাথার ওপর দিয়ে যায়।

    মস্তিষ্কেরও নিঃসন্দেহে বিবর্তন হয়েছে, মানব মস্তিষ্কের এই বিবর্তনের ধারায় চালিকা শক্তি বা মোটিভেশন যাইই বলা হোক সেটা ঠিক কি ছিল? আকারের পরিবর্তনের কারন কিছুটা বুঝলাম, কিন্তু বুদ্বিমত্তার উন্নতি কেমন করে হল? এখনো কি সততই আমাদের মস্তিষ্কের উন্নতি হচ্ছে?

    অন্য কোন প্রজাতির ক্ষেত্রে কি ব্রেনের উন্নতির যায়গায় অবনতি হয়েছে বা হতে পারে এমন রেকর্ড আছে?

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 11:04 অপরাহ্ন - Reply

      @আদিল মাহমুদ,

      বুদ্বিমত্তার উন্নতি কেমন করে হল? এখনো কি সততই আমাদের মস্তিষ্কের উন্নতি হচ্ছে?

      একটা ব্যাপার প্রমাণিত যে মানুষের বুদ্ধিমত্তা এবং স্মরণশক্তির সাথে মস্তিষ্কের নিউরনের সংখ্যা এবং সার্কিটের সরাসরি সম্পর্ক আছে। স্বাভাবিক ভাবেই মস্তিষ্ক যত বড় হবে নিউরণের সংখ্যাও তত বেশী হবে। আর এর সাথে জেনেটিক পরিব্যাপ্তিতো আছেই। তবে একটা কথা, আমরা আজকে যাকে বুদ্ধিমত্তা বলছি তা কিন্তু হাজার হাজার বছর ধরে সংগৃহীত জ্ঞানের উপরও নির্ভর শীল। একটা উদাহরণ দেই। নিউগিনি দ্বীপে আজ থেকে ৫০ কিংবা ১০০ বছর আগে যে মানুষরা ছিল তারা মোটানুটি প্রস্তর যুগেই বসবাস করত। তারা কিছু পাথুরে এবং কাঠের হাতিয়ার ছাড়া আর কিছু বানাতে জানত না। কিন্তু তাদের নাতি-নাতনিরা আজ ইউনিভার্সিটিতে যাচ্ছে, ডাক্তার হচ্ছে, প্লেন চালাচ্ছে। এটা কি আসলে বুদ্ধিমত্তার উন্নতি নাকি সামস্টিক জ্ঞানের উন্নতি এবং সংরক্ষণের কারণে হয়েছে? আমি বলব সামষ্ঠিক জ্ঞানের উন্নতি এবং সংরক্ষণের কারণে হয়েছে। ১০০ বছর আগে নিউগিনির আদিবাসীদের সাথে আমাদের বুদ্ধিমত্তার কোন পার্থক্য ছিল না বা নেই বললে ভুল হবে না। ৪০ হাজার বছর আগের ক্রোম্যাগনন আর আমাদের মস্তিষ্কের ক্ষমতায় তেমন কোন পার্থক্য ছিল না বলে ধরে নেয়া যায়। শুধু তাদের আগে কেউ কিছু আবিস্কার করে যায়নি বলেই তারা গুহায় বসবাস করত।

      • গরীব মানুষ সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 1:05 পূর্বাহ্ন - Reply

        @হোরাস, মানুষের ব্রেইনের সাইজ মোটামুটি একটা অপটিমাইজড জায়গাতে চলে আসছে, ব্রেইন চালানো ব্যাপক খরচার ব্যাপার। অন্যান্য এপের তুলনাই মানুষের ব্রেইনের ডেভেলপমেন্ট ও অনেক আলাদা। যেমন অন্যান্য এপের ব্রেইনের ডেভেলপমেন্ট বেশিরভাগই ঘটে থাকে গর্ভে থাকাকালীন সময়, কিন্তু মানুষের ক্ষেত্রে সেটা ধীরে ধীরে পরিবর্তন হয়েছে। মানুষের মস্তিষ্কের একটা অংশ ডেভেলপমেন্ট হয় জন্মের পড়ে এবং শিশু অবস্থাতে তারা অনেক কিছু শিখতে এবং মেমোরাইজ করে রাখতে শেখে এবং এই প্রসেসই যতদূর সম্ভব মানুষের শিশুকালকে দীর্ঘায়িত করেছে অন্যা প্রানীর তুলনায়। তবে ব্রেইনের উন্নতি হচ্ছেনা ইন্টেলিজেন্সের দিক দিয়ে বা তার সাথে জেনেটিক্যালি কোন স্বম্পর্ক নেই তা মনে উড়িয়ে দেওয়া যাবেনা। জেনেটিক্যাল স্বম্পর্ক আছে কারন পৃথিবীতে সবার “বুদ্ধি” একই রকম নয় কিন্তু ব্রেইনের সাইজ মোটা মুটি একই রকম। এই ইস্যুটা উল্লেখ করেছিলেন রিচার্ড ডকিন্স, ডারউইনের থিউরি দিয়েই, কারন একই প্রানীকূলের ভেতরেই একের সাথে অন্যের পার্থক্য থাকবে এবং যে পার্থক্য জনিত কারন টিকে থাকার সবচেয়ে ভালো ন্যাচারে তারাই টিকে থাকবে। এবং উদাহরন দিতে গিয়ে তিনি আইন্সটাইনের ব্রেইনের সাথে তুলনা করেছিলেন আলাস্কার গভর্নর সারাহ প্যালিনের ব্রেইনকে। মানব সমাজে যেহেতু কমবুদ্ধির মানুষ ও টিকে থাকতে পারে কোন না কোন ভাবে তাই ব্রেইন পাওয়ার বা ব্রেইনের ডেভেলপমেন্ট শুধুই “ক্রিটিক্যাল থিঙ্কিং” এর ক্ষেত্রে প্রোযোজ্য হবে বলে মনে হয়…;)
        ২.২৫-২.৪৫ সময়টুকু দেখেন!

        • হোরাস সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 10:04 পূর্বাহ্ন - Reply

          @গরীব মানুষ,

          তবে ব্রেইনের উন্নতি হচ্ছেনা ইন্টেলিজেন্সের দিক দিয়ে বা তার সাথে জেনেটিক্যালি কোন স্বম্পর্ক নেই তা মনে উড়িয়ে দেওয়া যাবেনা।

          আপনি আমার কমেন্টা ভুল বুঝেছেন। আমি বলেছিলাম জেনেটিক্যাল ভ্যারিয়েশনই একমাত্র কারণ না। এটার সাথে সাথে মানুষের কথা বলতে পারাটা এবং জ্ঞান সংরক্ষণ করতে শেখাটাও অনেক বড় ভূমিকা রেখেছিল এবং রেখে চলেছে।

      • আদিল মাহমুদ সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 4:51 পূর্বাহ্ন - Reply

        @হোরাস,

        নিউগিনি দ্বিপবাসীদের কথা যা বুঝলাম সেটা অনেকটা এমন যে কেউ যদি জেট প্লেন চালাতে না পারে তবে তার কাছে জেট প্লেন থাকা না থাকা একই ব্যাপার। মানে তাদের ব্রেন থাকলেও সে ব্রেনের ব্যাবহার শিখতে অনেক দেরী হয়েছে।

        অনেকে বলেন যে ব্রেনের সাইজ ও দেহের সাইজের অনুপাতের ওপর বুদ্ধিমত্তার লেভেল অনেকটা নির্ভরশীল। যেমন, মানুষ, তিমি, হাতি এদের বুদ্ধিশুদ্বি তাই অনেক বেশী। ব্যাপারটা কি ঠিক এমন?

        মানুষের ব্রেনের বিবর্তন কি এখনো চলছে এমন কিছু তথ্য প্রমান আছে?

        • হোরাস সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 9:59 পূর্বাহ্ন - Reply

          @আদিল মাহমুদ,

          মানে তাদের ব্রেন থাকলেও সে ব্রেনের ব্যাবহার শিখতে অনেক দেরী হয়েছে।

          ঠিক। এক জেনারেশনের অর্জিত জ্ঞান যা সংরক্ষণের কোন উপায় ছিল না তা পরের জেনারেশনে গিয়েই হারিয়ে যেত।

          অনেকে বলেন যে ব্রেনের সাইজ ও দেহের সাইজের অনুপাতের ওপর বুদ্ধিমত্তার লেভেল অনেকটা নির্ভরশীল। যেমন, মানুষ, তিমি, হাতি এদের বুদ্ধিশুদ্বি তাই অনেক বেশী। ব্যাপারটা কি ঠিক এমন?

          এত টেকনিক্যাল লেভেলের জ্ঞান আমার নাইরে ভাই। তবে আমার ধারণা কথাটা পুরোপুরি ঠিক না। পুরো ব্রেন না তবে ব্রেনের বিশেষ বিশেষ অংশের সাথে হয়ত সম্পর্ক আছে। উইকিতে এটা পেলাম – “The relationship between brain-to-body mass ratio and complexity of behaviour is not perfect as other factors also influence intelligence, like the evolution of the recent cerebral cortex and different degrees of brain folding,[4] which increase the surface of the cortex, which is positively correlated in humans to intelligence. ”

          মানুষের সেরেব্রাল কর্টেক্স এবং ফ্রন্টাল লোবস অনেক বড় হওয়াটা সম্ভবত মানুষের অন্য প্রাণীদের চাইতে বেশী বুদ্ধিমান হিসাবে বিবেচিত হওয়ার কারণ।

          মানুষের ব্রেনের বিবর্তন কি এখনো চলছে এমন কিছু তথ্য প্রমান আছে?

          এই লিঙ্কটা পড়ে দেখতে পারেন: University Of Chicago Researchers Find Human Brain Still Evolving

  9. বিপ্লব রহমান সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 8:23 অপরাহ্ন - Reply

    চমৎকার তথ্যপূর্ণ একটি লেখা।

    কিছুদিন আগে ডিসকভারির একটি অনুষ্ঠানে দেখেছিলাম, শিশু শিম্পাঞ্জি ও মনুষ্য শিশুর আচার-আচারণ, মা’র সঙ্গে ইশারায় ভাব বিনিময়, এমন কী কোলে চড়ার জন্য দুহাত বাড়িয়ে দিয়ে আকুতি জানানোর প্রকাশ ভঙ্গী প্রায় একই। অনেক খুঁজেও অনলাইনে ওই ফুটেজটি খুঁজে পেলাম না।

    কিপিটাপ! (Y)

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 8:39 অপরাহ্ন - Reply

      @বিপ্লব রহমান, ভিডিওটি খুঁজে দেখব। ডিজনী এ বছর ‘শিম্পাঞ্জী” নামে একটা ডকুমেন্টারী বানিয়েছে যা সব মূলধারার মুভি থিয়েটারগুলোতে মুক্তি পেয়েছিল। সেটাও দেখতে পারেন।

  10. গরীব মানুষ সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 1:02 অপরাহ্ন - Reply

    হোরাস ভাই, এই ধরনের লেখাগুলো পড়ার জন্যই শুধু মুক্তমনাতে আসা হয়। হিউম্যানকে ফিফথ এপ ও বলা হয়, রিচার্ড ডকিন্সের একটা ডকুমেন্টারী আছে মনে হয় ফিফথ এপ এর উপরে। মানুষের সাথে শিম্পাঞ্জীর জেনেটিকাল মিল শুধু পারছেন্টেজে নয় এই মিল আসলে ক্রোমসোমের সংখ্যাতে ও পাওয়া গেছে। মানুষের ক্ষেত্রে জোড়া লাগানো ক্রোমসোম পাওয়া গেছে যা আসলে ক্রোমসোমের সংখ্যার দিক দিয়েও আমরা সমান। ক্রিস্টোফার হিচেন্স তার ডিবেটে প্রায়ই একটা কথা বলতো আর সেটা হলো “মানুষ কম করে হলেও ১০০ হাজার বছর আসছে” এর পর মানুষ অনেক কারনেই মারা গেছে, অজানা অসুখে, ন্যাচারাল ডিজাস্টারে, শিশু জন্মদানে, কিন্তু স্রষ্ঠা কোন নাক গলায় নাই, হঠাৎ দুই হাজার বছর আগে মনে হলো এখন নাক গলানোর সময় হইছে। যাই হোক বাইয়োলজিক্যালি ডারউইনের থিউরি অফ এভুলুশন বাই ন্যাচারাল সিলেকশান ১৫৩ বছর ধরে টিকে আছে এবং বিভিন্ন প্রমানের দ্বারা এই থিউরি আর পোক্ত ভাবে বাইয়োলজিস্টদের মাঝে স্থান করে নিয়েছে, কিন্তু তার পরেও কিছু দূর্মুখ বিতর্ক করতে আসে “গড” বলে কেউ আছে কারন “মোরালিটি” নাকি মানুষের মস্তিষ্কে “গড” দিয়েছেন। আরো একটা ব্যাপার, কসমোলজিস্ট লরেন্স ক্রাউসের “সামথিং ফ্রম নাথিং” নামের একটা বই আছে যেখানে কিভাবে নাথিং থেকে সামথিং আসতে পারে তা ব্যাখ্যা করেছেন। এর উপর রিচার্ড ডকিন্স ফাউন্ডেশন কর্তিক আয়োজিত একটা প্রেজেন্টেশান ও আছে লরেন্স ক্রাউসের তাই ব্যাপারটা নিয়ে কেউ লিখলে ভালো হতো। আমি লিখতে ছাচ্ছিলাম কিন্তু সময় করে উঠতে পারছিনা।

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 7:02 অপরাহ্ন - Reply

      @গরীব মানুষ, প্রথমেই ধন্যবাদ আপনাকে সুচিন্তিত মন্তব্যের জন্য। আপনার উল্লেখিত বই এবং ভিডিওগুলা ভবিষ্যতে পড়া/দেখার ইচ্ছা তালিকায় যোগ করলাম।

      একটা বিষয়ে একটু দ্বিমত করতে হয়। বিবর্তন সত্য এতে কোনই সন্দেহ নাই। কিন্তু বিবর্তন সত্য বলেই ইশ্বর নাই এ কথাটা সরাসরি বলা যায় না বলেই আমার ধারণা। এরিস্টটলিয় ইশ্বর যে কিনা মহাবিশ্বটা বানিয়ে তারপর নিস্ক্রিয় হয়ে বসে আছে এবং তার কোন মাথাব্যাথা নাই আমরা কি করি না করি নিয়ে সেরকম ইশ্বর কিন্তু বিবর্তন সহই সম্ভব হতে পারে। তবে একটা ব্যাপারে একমত বিবর্তন বর্তমানে প্রচলিত সব বড় একেশ্বরবাদী/বহুইশ্বরবাদী ধর্মগুলোকে বাতিল করে দিতে সক্ষম হয়েছে। মহাবিশ্ব সৃষ্টির পেছনে ইশ্বরের হাত নেই বা ইশ্বর নাই এটা প্রমাণ হতে পারে স্ট্রীং তত্ব বা এম-তত্ব প্রমানিত হলে, যেরকমটা স্টিফেন হকিং তার গ্রান্ড ডিজাইন বইতে বলেছেন । দর্শনই মূলত এখন এই কাজটা করছে কিন্তু এক্ষেত্রে দর্শনের শর্ট কামিংস হলো সলিড প্রমাণের অভাব।

      • গরীব মানুষ সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 11:23 অপরাহ্ন - Reply

        @হোরাস, এখানে আমার ও একটা দ্বিমত আছে। দর্শন আর বিজ্ঞানের পথ এখন আর একই নাই। বিজ্ঞান দর্শনের চেয়ে অনেক এগিয়ে গেছে। সুপ্রিম পাওয়ারের ক্ষমতা আছে কিনা এই ইউনিভার্স তৈরি করবার সেটাই “সামথিং ফ্রম নাথিং” এ দেখানো হয়েছে। ইউনিভার্সের সাইজের তুলনায় ম্যাটেরিয়ালিস্টিক যতটুকু আমরা দেখি তা এক ধরনের পলুসান ছাড়া আর কিছু নয়। আমরা স্টারডাস্টের একটা অংশ এবং আমরা একসময় স্টারডাস্ট এই ফিরে যাবো! তাহলে এখানে ইহকাল-পরকাল বলে ধর্ম বা স্রষ্ঠা যে বানীই দিক না কেনো তা অসত্য বলে প্রমানীত হয়। তাই তৈরী করার পরে তিনি নিষ্ক্রিয় হয়ে বসে থাকলে লাভ কি? আর এই মহাবিশ্ব বানানোর আগে স্রষ্ঠা কি করতেন। “জেনেসিসে হঠাৎ করে ৬ দিনে সব বানালেন এরপরে একদিন বিশ্রাম নিলেন স্রষ্ঠা?” কোন যুক্তিতেই এইসব ধোপে টিকেনা। আজ এরিস্টটলেরা বেঁচে থাকলে কথাগুলো অন্য ভাবে বলতো! সুতরাং প্রমান নির্ভর পৃথিবীতে এরিস্টটলের সব কিছু অমীয় বানী হিসাবে গ্রহন করতে অনিচ্ছুক আমি। আর নিষ্ক্রিয় হয়ে স্রষ্ঠা বসে আছেন কে বললো? এখনোতো রেড স্টার তৈরী হচ্ছে, প্ল্যানেটগুলোকে গিলে খাচ্ছে এগুলো কে নিয়ন্ত্রন করছে?

        [img]http://news.bbcimg.co.uk/media/images/62407000/jpg/_62407456_62407455.jpg[/img]

        স্রষ্ঠাকে মিথ্যা প্রমানের জন্য যেকোন একটা ভুলই যথেষ্ঠ, এবং এই ভুল সকল ধর্মেই পাওয়া খুবই সহজ! সুতরাং “স্রষ্ঠা” মৃত এবং এখানে কোন “কিন্তু” নেই।

        • হোরাস সেপ্টেম্বর 8, 2012 at 10:10 পূর্বাহ্ন - Reply

          @গরীব মানুষ,

          তাহলে এখানে ইহকাল-পরকাল বলে ধর্ম বা স্রষ্ঠা যে বানীই দিক না কেনো তা অসত্য বলে প্রমানীত হয়। তাই তৈরী করার পরে তিনি নিষ্ক্রিয় হয়ে বসে থাকলে লাভ কি?

          আগেই বলেছি প্রচলিত ধর্ম গুলি অসার প্রমানিত হয়। আর নিস্ক্রিয় ইশ্বরের কোন লাভ নেই হয়ত তবে এরকম ইশ্বর থাকার সম্ভাবনাটাকে এই পর্যায়ে এসে উড়িয়ে দেয়ার মত যথেষ্ট প্রমান নেই আমাদের হাতে। হয়ত ভবিষ্যতে প্রমাণ পাওয়া যাবে তবে এখন নেই।

  11. Monirul Alam সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 8:42 পূর্বাহ্ন - Reply
    • হোরাস সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 11:07 অপরাহ্ন - Reply

      @Monirul Alam, লিঙ্কের জন্য ধন্যবাদ। সময় করে পড়ে নেব।

  12. অভিজিৎ সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 2:36 পূর্বাহ্ন - Reply

    আপনার লেখা সবসময়ই খুব আগ্রহ নিয়ে পড়ি। এ লেখাটিও ব্যতিক্রম নয়। FOXP2 জিন নিয়ে আমারও আগ্রহ অনেক। যে জিনটাকে মানুষের বাচনিক ক্ষমতার জন্য দায়ী করা হয় সেটার প্রতি আগ্রহ থাকাটাই তো স্বাভাবিক।

    পেশীটি কামড় দেয়া এবং চর্বণের কাজে ব্যবহৃত হয়। গবেষকদের মতে ২০ লক্ষ বছর আগে ঘটা ছোট্ট এক মিউটেশন আমাদের চোয়ালের পেশীকে ছোট হতে সাহায্য করে যা পরবর্তীতে মস্তিষ্কের কুঠুরি এবং মস্তিষ্কের আকার বড় হতে সাহায্য করে।

    মস্তিষ্কের বৃদ্ধির সাথে জেনেটিক লিঙ্ক নিয়ে কিছু পড়াশুনা শুরু করেছিলাম কিছুদিন আগে। দেখেছিলাম কেবল একটি জিন নয়, মাইক্রোসেফালি জিন (ASPM and MCPH1 – MCPH6), সনিক হেজেহগ (SHH), FOXP2, SRPX2, MRG শ অনেক জিনকে এর পেছনে দায়ী করছেন বিজ্ঞানীরা। ব্যাপারগুলো খুব ইন্টারেস্টিং।

    তবে কিছু বিজ্ঞানী এ ব্যাপারে ভিন্নমত পোষণ করেন। তাদের মতে চোয়ালের পেশী ছোট হওয়ায় মস্তিষ্ক বড় হয়নি বরং মস্তিষ্ক বড় হয়েছে প্রাকৃতিক নির্বাচনের নিয়ম মেনে, বড় মস্তিষ্কের অধিকারীরা অতিরিক্ত বংশধর রেখে যেতে সক্ষম হয়েছে বলে।

    হ্যাঁ, বিগ ব্রেইন নামে একটা বই পড়েছিলাম (গ্যারি লিঞ্চ এবং রিচার্ড গ্র্যাঙ্গারের লেখা) , সেখানে এ ব্যাপারটার উল্লেখ ছিল। ‘পজিটিভ’ সিলেকশন হিসেবে ব্যাপারটাকে দেখানো হয়েছে, যদিও ধারনাটা খুব বেশি শক্ত মনে হয়নি আমার কাছে। এ লেখাটায় একজনের মন্তব্যের প্রেক্ষিতে এ নিয়ে কিছুটা আলোচনা করেছিলাম।

    যা হোক, এ বিষয়গুলো নিয়ে লেখার মানুষ কম। আপনি লিখছেন এটা আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া।

    • আদনান সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 11:18 পূর্বাহ্ন - Reply

      @অভিজিৎ,
      অভিজিৎ ভাই, আপনি নিচের লিঙ্কের এই লেখাটা পড়তে পারেন। FOXP2 নিয়ে দারুণ লেখা ।
      http://www.cog.brown.edu/people/lieberman/pdfFiles/Lieberman,%20P.%20&%20McCarthy,%20R.%202007.%20Tracking%20the%20evolution%20of.pdf
      ধন্যবাদ।

      • হোরাস সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 6:45 অপরাহ্ন - Reply

        @আদনান, আমার পোস্টে লিবারম্যানেরই অন্য আরেকটি লেখা (৯ নাম্বার) থেকে আমরা কথা বলতে পারি কেন তার উপর কিছু তথ্য ব্যবহার করেছি।

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 6:39 অপরাহ্ন - Reply

      @অভিজিৎ, প্রশংসার জন্য আপনকে অনেক ধন্যবাদ। লিংকের লেখাটা পরে সময় করে অবশ্যই পড়ে নেব।

  13. শারমিন সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 1:50 পূর্বাহ্ন - Reply

    ভীষন তথ্যপূর্ন লেখা।

    • হোরাস সেপ্টেম্বর 7, 2012 at 6:33 অপরাহ্ন - Reply

      @শারমিন, ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন