ভালবাসা

প্রেম উদ্যানে ভালবাসার ফুল ফুটেছে!

সে-ফুল ঝরে নাকো কভু,  পরে না , মরেও না।

অদ্ভুত সৌন্দর্য, আশ্চর্য সে-ফুল,

রঙ বেরঙে, সৌরভে গৌরবে করে আকুল।

ব্যাকুলিত হিয়া মনকাড়া ফুল দেখিয়া-

” আত্মহারা, পাগল-পারা”।

মনের আড়াল হয় না তা, চোখের আড়ালও হয় না।

নয়নমণির মাঝে তাই,  সদা প্রস্ফুটিত পাই।

চোখের মাঝে চোখ রাখিলে দেখতে তারে পাবে।

মধুর রসে প্রেমাবেশে কত ভ্রমর-অলি ছুটছে তারি পানে!

মধুর খুঁজে, মধুপানে অমৃত সে-মধুর সন্ধানে।

উতালা মন-প্রাণ মধুপান করে বেহুস হয়ে রয় পরে।

অজ্ঞান ও জ্ঞানশুন্য প্রেমিকের প্রাণ বুঝি এবার যায়, যায়……।

কে ওগো সখে, প্রেম-পিরিতি শেখালে আমায় বাঁচিয়ে দে।

দূরে-দূরে আরো দূরে, যত দূরে বহুদূরে রওনা তুমি,

তুমি মম হৃদে অতিব গোপন হিয়ার সন্নিকটে।

 

 

About the Author:

মুক্তমনা ব্লগার।

মন্তব্যসমূহ

  1. জিল্লুর রহমান মার্চ 26, 2012 at 5:32 অপরাহ্ন - Reply

    ব্যাকুলিত হিয়া মনকাড়া ফুল দেখিয়া-

    “ আত্মহারা, পাগল-পারা”।

    “সাথি ভাবি” জানে তো, এই ফুল কোনসে ফুল? যার জন্য “আত্মহারা, পাগল-পারা”!!!
    আসলে আমি কবিতা ভাল বুঝিনা, তবে কবিতাটির কথা ও ছন্দ ভালইতো লাগলো। লেগে থাকেন ভাই, ভবিষ্যতে………. : :rotfl:

    • শামিম মিঠু মার্চ 26, 2012 at 11:38 অপরাহ্ন - Reply

      ভাই, আমি নিজেও কবিতা ভাল জানিনা ও বুঝিনা। তারপরও মুক্তমনার ভালবাসার প্রবল টানে মুক্তমনায় আসি, পড়ি এবং মাথায় যা আসে তা-ই পরীক্ষামূলক লেখার প্রচেষ্টা চালাচ্ছি। ভালবাসা একটি প্রস্ফুটিত ফুল (মুক্তমনা) অর্থাৎ একটি বিশুদ্ধতাঁর প্রতীক। যা মানুষকে সত্য, সুন্দর ধ্যান-জ্ঞানের দিকে ধাবিত করে। কবিতায় ভালবাসার প্রকাশ ঘটে সুনিপুণায়, ছন্দময়তা, সুললিত সুর-তাল-লয়ে। আর সে-ই সুর, তাল, লয় ও ছন্দ বাজে প্রেমিকের বা কবির মনে। আপনার “সাথি ভাবীও” মুক্তমনার কথা জানে,পড়ে এবং বুঝার চেষ্টা করছে। আপনাকে ধন্যবাদ ও আপনি ভাল থাকুন।

  2. শামিম মিঠু মার্চ 26, 2012 at 2:11 পূর্বাহ্ন - Reply

    আপনার সুপরামর্শ ভবিষ্যতে লেখার প্রচেষ্টাকে সহায়তা করবে। আপনাকে ধন্যবাদ।

  3. অরণ্য মার্চ 25, 2012 at 11:23 অপরাহ্ন - Reply

    ভালো প্রচেষ্টা (Y)
    কমা(,) একটু কম দিলে মনে হয় ভালো হতো, আর অযথা ছন্দের মিল।

মন্তব্য করুন