ইলিশের মৃত্যু

প্রেয়সী ধানক্ষেত পূর্ণিমা নোনাখাল;
আগামীর; দুঃস্বপ্ন অদেখা কৃষকের;
ইলিশের মৃত্যু লবণাক্ত মেঘনায়,
এলনিনো অজ্ঞান চাষি নির্বাক।

খায় লাত উলঙ্গ অভাবী,
কাঁটাতারে ঝুলে মৃত কিশোরী,
স্বার্থপর হনুমান, ঠোঁটেতে চালাকী,
নুনক্ষেতে; কাঁদে ধানক্ষেত প্রেয়সী।

মানবতা, দুর্ভিক্ষ, মানবতা, অনাহার,
গুলি মারে, কেড়ে নেয়,
কেড়ে নেয়, গুলি মারে,
জেনেবুঝে ফেলে; বাংলায় হাহাকার।

About the Author:

মুক্তমনা ব্লগার। আদ্দি ঢাকায় বেড়ে ওঠা। পরবাস স্বার্থপরতায় অপরাধী তাই শেকড়ের কাছাকাছি থাকার প্রাণান্ত চেষ্টা।

মন্তব্যসমূহ

  1. নাহিদ এপ্রিল 15, 2013 at 10:33 পূর্বাহ্ন - Reply

    চমৎকার হয়েছে কাজী রহমান ভাই। শুভ নববর্ষ।

    শুধু নহে সনে, বৈশাখ মনে, যদি জাগ্রত হত!
    ফি বছর প্রতি, প্রতিদিন অতি, এমনি মধূর হত।

  2. রাজেশ তালুকদার মার্চ 5, 2012 at 7:39 পূর্বাহ্ন - Reply

    মানবতা, দুর্ভিক্ষ, মানবতা, অনাহার,
    গুলি মারে, কেড়ে নেয়,
    কেড়ে নেয়, গুলি মারে,
    জেনেবুঝে ফেলে; বাংলায় হাহাকার।

    যথার্ত বলেছেন। এই হাহাকার আর চিৎকারে আমরা সবাই আজ একাকার।

    • কাজী রহমান মার্চ 6, 2012 at 5:50 পূর্বাহ্ন - Reply

      @রাজেশ তালুকদার,

      মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। বিশ্ব উষ্ণায়ন নিয়ে খুব একটা বেশী কিছু বলা হচ্ছে না অথচ এটা জানা যে বাংলাদেশে ভয়ঙ্কর ও বিরূপ প্রতিক্রিয়া হবে।

  3. নির্মিতব্য মার্চ 4, 2012 at 9:30 অপরাহ্ন - Reply

    আমার মনে হয় জন্ম হয়েছে কবিতা ধংসের জন্য! 🙁
    কিন্তু জিজ্ঞেস না করে পারলাম না, এলনিনো কি জিনিস। আমি গুগল করে দেখলাম এটা আবহাওয়া সম্পর্কিত, একটা ক্লাইমেট পেটার্ন। কিন্তু কবিতায় এলনিনো অজ্ঞান বলতে কি বুঝালেন?
    আর “আগামীর; দুঃস্বপ্ন অদেখা কৃষকের;” মানে কি কৃষক জানে না তার ভবিষ্যতে কি দুর্ভাগ্য আছে, কারন আবহাওয়া পালটে দিচ্ছে সবকিছু তাড়াতাড়ি? আর ইলিশ লবনাক্ত মেঘনায় মারা যাচ্ছে মানে কি, মেঘনা আসলে লবনাক্ত হবার কথা না, কিন্তু আমরা নদীতে বাধ দিয়ে নদী পথ পালটে নদীকে ধ্বংস করছি তাই?
    “স্বার্থপর হনুমান, ঠোঁটেতে চালাকী,
    নুনক্ষেতে; কাঁদে ধানক্ষেত প্রেয়সী”।- স্বার্থপর হনুমান টা কে? মেঘনাও লবনাক্ত, ধানক্ষেতও লবনাক্ত, আপনি দক্ষিন অঞ্চলের কোনো দুষ্টু নেতার কথা বলছেন নাকি!
    “কেড়ে নেয়, গুলি মারে,
    জেনেবুঝে ফেলে; বাংলায় হাহাকার”।
    এটা মানে কি, জেনেবুঝে কারা হাহাকার করবে?
    -আমার প্রশ্নগুলোর উত্তর কবিকে না দিলেও হবে, পাঠকরা যদি তাদের মত করে ব্যাখ্যা দেন, তাইলেও হবে, কবিতা ধ্বংস করা আমার উদ্দেশ্য নয়। 🙂 কবিতাটা খুব ভাল লেগেছে।

    • অরণ্য মার্চ 4, 2012 at 10:34 অপরাহ্ন - Reply

      @নির্মিতব্য,

      আমার মনে হয় জন্ম হয়েছে কবিতা ধংসের জন্য!

      নির্মাণের আরেক নাম ধ্বংস
      ধ্বংস ছাড়া হয় না নির্মাণ
      হয় কি?
      ঈশ্বর যেমন পুঞ্জিভূত শূন্যতা ধ্বংস করে,
      ধ্বংসের মহা বিস্ফোরণে
      নির্মাণ করেছিল এই মহাশূন্য!
      ঠিক তেমনি করে আজও
      ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নির্মাণ নির্মিত হয়ে চলেছে
      ধ্বংসের উদ্দাম খেলায়,
      নয় কি?
      আজও পরম সুন্দর ডেভিড মূর্তিগুলো
      নির্মিত হয়ে চলেছে মনলিথিকের
      উদ্দাম ভাঙা গড়ায়।
      যেমনি করে তিরিশ লক্ষ প্রাণ ধ্বংস হল
      কোটি মানুষের বাস্তুভিটা ধ্বংস হল
      কত প্রণয় কত বন্ধন ছিন্ন হল
      তবেই না জন্ম নিল, এই বাংলা!
      কে আছো? আমায় ধ্বংস কর
      আমায় ধ্বংস কর
      আমায় কিছু সৃষ্টি কর
      আমায় কবি কর
      কবিতা কর
      কবিতা…

      • নির্মিতব্য মার্চ 5, 2012 at 9:43 অপরাহ্ন - Reply

        @অরণ্য,

        ভাই খুবই সুন্দর কথাগুলো।
        আমার খুব কষ্ট লাগে এটা ভেবে যে আমি কবিতা ধরতে পার না। কাউ যদি কবিতা আবৃতি করে, আমার মনে হবে এর থেকে সুন্দর আর সাহিত্য নাই। কিন্তু যদি নিজে থেকে প্রথম বার পড়তে যাই, কোন কিছুই বোধ হয় না। অনেকে বলবে কবিতা পড়ার অভ্যাস নাই তাই। কিন্তু তা না, আমি চেষ্টা করি। এখন হাল ছেড়ে দিয়েছি। মাঝে মাঝে খুব সুন্দর কিছু লাইন পড়ি, কিন্তু মাথার পিছনে শব্দের খেলাগুলো নিয়ে নিজের সাথে যুক্তি তর্ক করতে গিয়ে পুরো কবিতাটাই গুবলেটে হয়ে যায়। আপনি আমার একটা মনের আক্ষেপ নিয়েই মনে হয় যেন লাইনগুলো(লাইন বলছি কারন সত্যি করে বলতে,কবিতা কি আমার বোধ হয় না) লিখলেন উপরে,
        “আমায় কবি কর
        কবিতা কর
        কবিতা…”
        কবি হবার ইচ্ছা আমার কোনদিনও নাই, কিন্তু কবিতা পড়ে নিজে কবিতা বোঝার অনেক ইচ্ছা আছে। সুরের ভুবনে বেসুরা বলে একটা কথা আছে, কবিতার দিক থেকে তাদের কি বলে কে জানে। লাইনগুলো কবে যে নিজে থেকে ছন্দ হবে!

        • অরণ্য মার্চ 5, 2012 at 10:48 অপরাহ্ন - Reply

          @নির্মিতব্য,

          লাইনগুলো কবে যে নিজে থেকে ছন্দ হবে!

          আপনাকে একটা সুসংবাদ দেই। ছন্দ বলতে কিছু নাই যা শেখা যায়, তবে ছন্দ পতন আছে! :))
          ধরুন, আপনি একটা কর্দমাক্ত পথের পাশে দাঁড়িয়ে। সামনে দিয়ে একজন মানুষ ঐ পথ দিয়ে হেঁটে গেল। পথে পথিকের পদক্ষেপ গুলো মিলে একটা লাইন তৈরি হল। একটু পর আরও একজন হেঁটে গেল। আরও একজন হেঁটে গেল, হয়তো আরও কেউ।
          তারপর আরও একজন হেঁটে গেল। হঠাৎ আপনার মনে হল, আচ্ছা লোকটা যেন ক্যামনে হাঁটে! একটু অস্বাভাবিক, আগের লাইন গুলোর মত নয়, কোথায় একটা অমিল। ছন্দ পতন?? তাহলে আগে যারা হেঁটে গেলো তাঁরা কি একটা ছন্দে হাঁটছিল? ঠিক তাই!
          ছন্দ হচ্ছে স্বাভাবিকতা।

          কিন্তু কবিতা পড়ে নিজে কবিতা বোঝার অনেক ইচ্ছা আছে

          জীবনানন্দ একটা কথা বলেছিলেন, ‘ সকলেই কবি নয়, কেউ কেউ কবি। আমি বুঝি, আমি কবি নই। ঠিক আপনার মত আমিও। যখন কবিতা পড়ি, বুঝি না। যখন আবৃত্তি শুনি, বিশ্বাস করেন আর নাই করেন আপনার মত আমারও একই অনুভূতি হয়।
          তবে এ ব্যাপারে আমি আপনাকে একটা টিপস দিতে পারি। যদি সম্ভব হয় একটা ভালো আবৃত্তি দলের কর্মশালা করে ফেলেন। সম্ভব হলে দলে ঢুকে যান। খুব কাজে দেবে। I am sure about it.
          বাংলাদেশ এ অনেক গুলো ভালো আবৃত্তি দল আছে। চাইলে এখান থেকেও করতে পারেন।

          আমি চাই আপনি কবিতা ধ্বংস করে যান। আমি জানি আপনি কবিতা প্রেমি। (Y)
          এবং আপনি বিশ্বাস করেন,’ Burn what you love, love what you burn.

      • কাজী রহমান মার্চ 6, 2012 at 5:55 পূর্বাহ্ন - Reply

        @অরণ্য,
        ধন্যবাদ অরণ্য, অংশগ্রহণ ও উত্তর দেবার জন্য।

    • স্বপন মাঝি মার্চ 4, 2012 at 10:46 অপরাহ্ন - Reply

      @নির্মিতব্য,
      আমার মনে হয়, আপনার প্রশ্নের উত্তরগুলো, কবিতায় উপস্থিত করলে, সেটি কবিতা না হয়ে প্রবন্ধ হয়ে উঠবে।
      আমিও আপনার মত গুগুলে সার্চ করলে জানলাম, গত এক দশকে বঙ্গোপসাগরে পানির উচ্চতা বেড়েছে, ৩০ সেন্টিমিটার।
      http://www.samakal.com.bd/details.php?news=17&view=archiev&y=2009&m=12&d=12&action=main&menu_type=&option=single&news_id=33302&pub_no=185&type=
      আর ভারতের একতরফা পানি প্রত্যাহার, বাংলাদেশের কতটা ভয়াবহ , এখনো যদি আমরা বুঝতে না পারি, তো কবি লেখাই শ্রেয়, বিশেষ করে প্রেমের কবিতা ।
      ভ্রাত, সময় খুব কম, অথচ এ নিয়ে অনেক অনেক কথা বলতে ইচ্ছে করছে। আর এ বলাটা শুধু বলার জন্য নয়, একটুখানি জেগে ওঠার জন্য, যদিও বলা হয় অনেক দেরি হয়ে গেছে।
      ধন্যবাদ।
      আপনি পাঠকদেরকেও আলোচনায় আহবাণ জানিয়েছেন, বলে একটুখানি সাড়া দিয়ে যাওয়া।
      আবারো ধন্যবাদ।

      • কাজী রহমান মার্চ 6, 2012 at 5:53 পূর্বাহ্ন - Reply

        @স্বপন মাঝি,

        আমি এখানে ঢুকতে বেরুতে পারছি না। হঠাৎ পারলাম। আপনার উত্তরের জন্য ধন্যবাদ।

    • কাজী রহমান মার্চ 6, 2012 at 6:22 পূর্বাহ্ন - Reply

      @নির্মিতব্য,

      এলনিনো অজ্ঞান বলতে কি বুঝালেন

      সহজ কথা, এননিনোর ব্যাপার জ্ঞান নাই যার, তিনিই এলনিনো অজ্ঞান।

  4. শামিম মিঠু মার্চ 4, 2012 at 2:21 অপরাহ্ন - Reply

    অসাধারন,খুব ভাল লেগেছে এজন্য যে বর্তমান প্রেক্ষাপটে সময় উপযোগী কালের চাহিদা ফুটে ওঠেছে এ কবিতায়……।

    “রূপসী সোনার বাংলার ঘরে-বাইরে শত্রুর দল
    লুটেরা,অসুর প্রকৃতির কোলাহল—-
    দেখে-দেখে অস্থির,চঞ্চল
    মন-মস্তিস্ক হয়ে ওঠে বিদ্রোহী,
    চেতনায় জেগে ওঠে দেশ-প্রেমী
    কবিতা লেখে তাই কবি—-”
    (শামিম মিঠু,০৪/০৩/২০১২)

    • কাজী রহমান মার্চ 6, 2012 at 5:14 পূর্বাহ্ন - Reply

      @শামিম মিঠু,

      নিজের লেখাটাতেই ঢুকতে পারছি না। দু একজন বন্ধুও নাকি কখনও পারছে আবার পারছে না। আমি কি করে যেন পারলাম। আবার ঢুকতে বা মন্তব্যের উত্তর দিতে পারবো এমন কোন নিশ্চয়তাও নেই।

      দেখে-দেখে অস্থির,চঞ্চল
      মন-মস্তিস্ক হয়ে ওঠে বিদ্রোহী,

      কবিতা লেখে তাই কবি—-

      বিভিন্ন মানুষের প্রতিবাদের ভঙ্গি বিভিন্ন। কখনো কখনো তার উৎস আর লক্ষ্য এক। একই লক্ষ্যের প্রতিবাদ বিচ্ছিন্ন ভাবে এলেও এক সময় সেগুলো একাত্ম হয়ে যায়। তখনই প্রতিবাদ আন্দোলনে রূপান্তরিত হয়। আমাদের দেশের পরিবেশ বিপর্যয়ের গতি যারা বাড়াচ্ছে, মানবতাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাবার প্রুস্তুতি যারা নিচ্ছে, বঞ্চনা যারা করছে; তাদের বিরুদ্ধে শক্ত হয়ে দাঁড়াতে হবে ন্যায্য হিস্যা আদায়ে।

      আপনার মন্তব্য পেয়ে সুখী হলাম (C)

      • শামিম মিঠু মার্চ 6, 2012 at 1:07 অপরাহ্ন - Reply

        @কাজী রহমান,
        ভাই, আপনার মন্তব্যের অপেক্ষার পালা এবার বুঝি ফুরাল,
        বহু প্রতীক্ষার অবসান হল।

        “বিভিন্ন মানুষের প্রতিবাদের ভঙ্গি বিভিন্ন। কখনো কখনো তার উৎস আর লক্ষ্য এক।”

        ইতালির বলনিয়া শহরে “সচেতন নাগরিক সমাজ” নামে আমরা একটি সংগঠন করেছি,যা এখানকার বাঙ্গালাদেশিদের মধ্যে জাতীয়, মানবতা, পরিবেশ সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু ভিত্তিক সচেতন বা গণজাগরণ তৈরি করা। ইতিমধ্যে “তিপাইমুখ বাঁধ” বন্ধের জন্য প্রতিবাদ কার্যক্রম চলচ্ছে…। এ ব্যপারে মুক্তমনার সাহায্য কামনা করি, মুক্তমনার একজন নবিন পাঠক বা ভক্ত হিসাবে…।
        আপনাকে ধন্যবাদ।

মন্তব্য করুন