আকাশী

আমি জালিয়ে মারবো তোদের
তন্দ্রাবিধুর আলসে বেড়াল;
বৈশাখী ঝড় হয়ে,
আমি জালিয়ে মারবো তোদের।

মোল্লা হলিরে বাংলার ছেলে;
মেয়েগুলো হায় তোরাও?
স্বর্গ দূতীয় ছদ্মনিনাদে
আসমানী হলি বোশখেরে ছেড়ে?

ওরে আলপনা আঁকা উৎসবে
সবুজ পাখী হয়ে;
উড়ে চলে আয়,
মুড়ি মুড়কীর এই উৎসবে।

শাসকেরা কত এলো গেল
চাকু মেরে বাংলায়,
তারপরও মেলা বসে
এইখানে, এই সুন্দর শ্যামলিমায়।

যদ্দিনে তোরা দেশী না’হবি
বেহিজাবী এলোকেশে উল্লাসে,
তাড়াবি আকাশী ওদের,
আমি জালিয়ে মারবো তোদের।

About the Author:

মুক্তমনা ব্লগার। আদ্দি ঢাকায় বেড়ে ওঠা। পরবাস স্বার্থপরতায় অপরাধী তাই শেকড়ের কাছাকাছি থাকার প্রাণান্ত চেষ্টা।

মন্তব্যসমূহ

  1. কাজী রহমান জানুয়ারী 10, 2012 at 12:20 অপরাহ্ন - Reply

    আজীবন কুকুরের কাজ কুকুর করে গেছে এবং যাচ্ছে…আর আমরা ক্ষত পায়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হেঁটে কুকুর কেন কামড়ালো তার যৌক্তিকতা খোঁজার চেষ্টা করি।

    দারুণ বলেছেন কিন্তু।

    মোল্লারা ধর্ম দিয়ে যে ভাবে দেশটা খেয়ে ফেলছে তা ঠেকানোর একমাত্র উপায় সম্ভবত সাংস্কৃতিক আন্দোলন।

    দেখা যাক কার ঘুম কখন ভাঙে।

  2. ছিন্ন পাতা জানুয়ারী 10, 2012 at 8:12 পূর্বাহ্ন - Reply

    আজ়ীবন নিষ্ঠুর চিন্তা ধারা আর ধর্মের মতন হাস্যকর বর্বর বেড়াজালের আক্রমনের জবাব আমাদের মতন অধিকাংশ মানুষ দিয়ে এসেছে বিনয়ের সাথে, শান্ত ভাবে। আজীবন কুকুরের কাজ কুকুর করে গেছে এবং যাচ্ছে…আর আমরা ক্ষত পায়ে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হেঁটে কুকুর কেন কামড়ালো তার যৌক্তিকতা খোঁজার চেষ্টা করি। কারণ বিনয় আর মহত্বকে বরাবরই দুর্বলতা ভাবা হয়।

    আপনার এ কবিতাটি পড়ে হ্রদয়ে আনন্দ ভরা সাহস সঞ্চার হলো। কারণ প্রথম বারের মতন মনে হচ্ছে তলোয়ারের জবাবে আমরাও তলোয়ার হাতে নিতে জানি। আমরাও বিষে বিষ ক্ষয় করতে জানি। আমাদের মাঝেও অন্যায় আর অসুন্দরকে জালিয়ে মারার আছে আগুন। আমরাও আগ্রাসী ভাষায় ভৎর্সনা করে বলতে পারি –

    যদ্দিনে তোরা দেশী না’হবি
    বেহিজাবী এলোকেশে উল্লাসে,
    তাড়াবি আকাশী ওদের,
    আমি জালিয়ে মারবো তোদের।

    ****প্রথমবার পাঠ শেষে ওই ছিলো প্রতিক্রিয়া।****

  3. স্বপন মাঝি জানুয়ারী 9, 2012 at 11:48 পূর্বাহ্ন - Reply

    কোন একটি বৃত্তে নয়, অবিরাম চলতে চলতে বাঁক নে’য়া নদীর মতো, দেখতে পাচ্ছি ভাব-ভাবনার বিচিত্র প্রকাশ।
    চমৎকার!

    • কাজী রহমান জানুয়ারী 9, 2012 at 1:14 অপরাহ্ন - Reply

      @স্বপন মাঝি,

      আপনার দেখার চোখটা যদি আরো অনেকের থাকতো। যদ্দুর সম্ভব চেনা বাঁক গুলোর সাথে আর সবার জানাশোনা করাবার চেষ্টা করছি। অভিজ্ঞতার যখন বিচিত্র, কিছুটা হলেও তা ভাগাভাগি করতে দোষ কি? কি বলেন?

      যথারীতি চমৎকার মন্তব্য, এবং ধন্যবাদ। (D)

  4. আফরোজা আলম জানুয়ারী 9, 2012 at 9:30 পূর্বাহ্ন - Reply

    আমি বিদ্রোহী রণ ক্লান্ত
    আমি সেই দিন হব শান্ত-

    (কাজি নজরুল ইসলাম)
    এই কবিতাটা মনে এল আপনার লেখা পড়ে।

    • কাজী রহমান জানুয়ারী 9, 2012 at 1:05 অপরাহ্ন - Reply

      @আফরোজা আলম,

      মনে এলে এলো, কি আর করা। অত ভেবে লিখিনি কিন্তু। খুব একটা ভেবে লিখিও না কক্ষনো। তবে, বাঙালী হয়েছি আর অত বড় কবির প্রভাব কোথাও পড়বে না, তা কি করে হয়।

  5. রাজেশ তালুকদার জানুয়ারী 9, 2012 at 4:47 পূর্বাহ্ন - Reply

    শাসকেরা কত এলো গেল
    চাকু মেরে বাংলায়,
    তারপরও মেলা বসে
    এইখানে, এই সুন্দর শ্যামলিমায়।

    চমৎকার বলেছেন।

    বছরের শুরুতে দ্রোহী কবিতা দিয়ে যাত্রা%

    • রাজেশ তালুকদার জানুয়ারী 9, 2012 at 4:48 পূর্বাহ্ন - Reply

      @রাজেশ তালুকদার,

      বছরের শুরুতে দ্রোহী কবিতা দিয়ে যাত্রা করলেন। সারা বছর তো বিল্পবী বেশেই থাকতে হবে।

      • কাজী রহমান জানুয়ারী 9, 2012 at 1:02 অপরাহ্ন - Reply

        @রাজেশ তালুকদার,

        হা হা হা, একা একা কি আর হয়। আমার কাজ আমি করছি। দেখা যাক। আরো অনেকের ভাবনা যখন আরো অনেকের কাছে পৌঁছাবে, হয়ত কিছু হবে। খুব দেরী না হলেই হোল।

  6. অরণ্য জানুয়ারী 8, 2012 at 2:19 অপরাহ্ন - Reply

    বিদ্রোহী রণ ক্লান্ত
    তুমি এখনই দিওনা ক্ষান্ত

    আবদার থাকলো কবিতাটিকে বর্ধিত করার। কেন যেন মনে হচ্ছে মহৎ কোন কবিতার খণ্ড এটি। অথবা ছোট কোন অ্যাটম কবিতা।

    • কাজী রহমান জানুয়ারী 9, 2012 at 12:58 অপরাহ্ন - Reply

      @অরণ্য,
      ধন্যবাদ অরণ্য। ক্ষ্যান্ত দেবনা।

মন্তব্য করুন