আমাকে যে ওরা দান করে দিয়েছিলো,
মাথা হেঁট করা লজ্জায় গো, আমার মা।

যুদ্ধশিশুটি’ও হতে পারিনি তখন,
তোমার অজান্তে ছিল দানপত্র তৈরি
ভারমুক্তির তাচ্ছিল্যে গো, আমার মা।

কেঁদে অন্ধ তুমি, দেহ-মন রক্তলাল,
আছো বাংলায়, বা ছিলে অনেকটা কাল,
তুমি পরিত্যক্ত, আমিও গো, আমার মা।

ভাষা তোমার বলা শিখিনি দূরদেশে,
বলিদানের বিশ্ব-শিশু। কষ্ট পেওনা
মা গো আমার, ওগো অদেখা, আমার মা।

মা তেরেসার মন্দির কাঁপানো সঙ্গীতে
ধর্ষণে অস্পৃশ্য অবহেলিত দুখিনী
অচেনা চির দুঃখিনী ওরে, আমার মা।

এত সয়ে সয়ে তবু বীরাঙ্গনা হলে
জানবো, জন্ম আমার ধন্য হল মা’গো,
খুঁজে পাই বা না পাই, ওগো, আমার মা।

[একজন যুদ্ধশিশু কোহিনূর এসেছিলো এবার বাংলাদেশে, মাদার তেরেসার চার্চ ছাড়বারও চল্লিশ বছর পর। দেশ মা’কে সান্তনা দিয়ে গেয়ে চলে গেল মেয়েটা। ৭১’এর খুনি ধর্ষক যুদ্ধাপরাধীদের নির্যাতনে আজো কেঁদে মরে সেই সব ত্যাগী ম বোনেরা, অনাহারে উৎকণ্ঠায়, অবহেলায় মৃতপ্রায় অথবা মৃত। অভিযোগের শক্তিও নেই, ইতিহাসও যাদের কথা বলতে গিয়ে ক্লান্ত, সেই মানুষদেরকে মনে করে ধন্য আমি। হাহাকারে লিখেছি, উৎসর্গ এই লেখা, তাদের আর তাদের হারিয়ে যাওয়া সন্তানদের জন্য]

Kohinoor was perhaps born to one of those unfortunate mothers who had no option but to leave their children out in the street to save their honour. Thus, she was found in a street of Dhaka after the war of independence and was sent to Mother Teresa’s Orphanage from where she was adopted and taken away to Europe by a caring and affectionate Norwegian family.

The Daily Star, March 2012, March, Vol 6, Issue 3
Ref: https://archive.thedailystar.net/forum/2012/March/land.htm