আল্লাহর বাণী পর্ব ৬

By |2011-12-12T22:10:28+00:00ডিসেম্বর 12, 2011|Categories: অবিশ্বাসের জবানবন্দী, কবিতা|6 Comments

আমি সর্বশক্তিমান আল্লাপাক।
আমার নিজের নামেই শুরু করা যাক।

আমি প্রত্যেক নবীর তরে
বানাইয়াছি দুষ্ট মানব ও দুষ্ট জ্বিন।
যাতে ওরা জাতিকে ধোঁকা দিতে পারে।
দুষ্টরা বড্ড হীন।
ভেবে দেখ দোষটা কাহার,
যাহারা দুষ্ট তাহাদের
নাকি যে দুষ্টকে বানাইয়াছে তাহার?

আমি যাকে ইচ্ছা ইসলাম দ্বারা
তাহার অন্তঃকরণ করি প্রসস্ত।
যাকে ইচ্ছা কুফরিতে করি সংকুচিত।

যারা আমার আয়াত করেছে বর্জন
তাদের তরে আকাশের দ্বার করিবনা উন্মোচন।
আসলে মহাবিশ্বে কোন আকাশ নাই।
এর পুরোটাই উন্মুক্ত। তাই
দ্বারোন্মোচনের কোন দরকার নাই।
আজকাল বেদনাভরা চক্ষে দেখতে পাই
কাফেরগণই আকাশে আকাশে ঘুরিয়া বেড়ায়।
ওদের জ্বালায়
আমি এখন আকাশ ছাড়িয়া কোথায় যাই?

কাফেরদিগে আমি সুঁইয়ের ছিদ্রে
উট প্রবেশ করানোর মত
উদ্ভট শাস্তি দিব।
তোমরা চিন্তা করতে পার,
যে সুঁইয়ের ছিদ্রে উট প্রবেশ করে
সেই সুঁইটা কত বড়!

ওদের জন্য পেতেছি অনলের শয্যা।
আচ্ছাদনেও জ্বালাইবো অনল।
এইভাবেই দানিব আমি অবিশ্বাসের প্রতিফল।

দোজখীরা চিৎকার করিবে
একবিন্দু পানীয় বা একবিন্দু খাদ্যের তরে।
কিন্তু সেথায় খাদ্য-পানীয় হারাম করেছি চিরতরে।
বেহেস্তবাসীরা যথেচ্ছা খাইবে
যথেচ্ছা করিবে অপচয়।
বলিবে, এত খাবার কীভাবে খাইবো?
দোজখীরা খাদ্য খাদ্য করিয়া চিৎকার করিবে।
পাইবেনা কিছুই। শুধুই মার খাইবে।
আর বলিবে, ভীষণ খিদে কী খাইবো?

আমার কুদরতে মুসা ছিল
এক বিস্ময়কর সাপুড়ে।
তার হাতের লাঠি ছুঁড়িলে
তাহা পরিণত হইত বিশাল অজগরে। হায়রে!
মুসার সেই কেরামতি লাঠি
আজ গিয়েছে হারায়ে।
উক্ত লাঠির তরে আমার প্রাণ কেমন করে।
সেই লাঠি যে খুঁজিয়া পাইবে
তাহাকে ভূষিত করিব দুর্লভ পুরষ্কারে।

About the Author:

মুক্তমনা ব্লগার

মন্তব্যসমূহ

  1. ovro banarjee ডিসেম্বর 14, 2011 at 12:10 পূর্বাহ্ন - Reply

    মূসার লাঠিটা আজকে সকালে কুড়িয়ে পেলাম।প্লিজ বলেননা আল্লাপাক দা কি দিবেন?আর please gift টা যেন ঈমান টিমান না হয়।

    • তামান্না ঝুমু ডিসেম্বর 14, 2011 at 12:41 পূর্বাহ্ন - Reply

      @ovro banarjee,

      মূসার লাঠিটা আজকে সকালে কুড়িয়ে পেলাম।প্লিজ বলেননা আল্লাপাক দা কি দিবেন?আর please gift টা যেন ঈমান টিমান না হয়।

      লাঠিটা আপনি পেয়েছেন সত্যি! তাহলে ত আপনি রাতারাতি সেলিব্রেটি হয়ে যাবেন। পুরষ্কার পেতে হলে পাঠিটা আল্লার হাতে সমর্পন করতে হবে। তারপর তিনিই জানেন তিনি এই দুর্লভ নিখোঁজ জিনিস খুজেঁ পাবার জন্য কি পুরষ্কার দেবেন।

  2. আহমেদ সায়েম ডিসেম্বর 13, 2011 at 3:06 অপরাহ্ন - Reply

    @তামান্না ঝুমু
    ঈশ্বরের নীতি-নিয়মে কোনো সঙ্গতি- সামঞ্জস্য নেই বলেই তাকে মনে হয় লীলাময় বলে। আপনার্ও লীলাময়ী কবিতাটি ভালো লাগল, ভালো থাকুন।

    • তামান্না ঝুমু ডিসেম্বর 13, 2011 at 7:31 অপরাহ্ন - Reply

      @আহমেদ সায়েম,
      ধন্যবাদ পাঠ-প্রতিক্রিয়া জনানোর জন্যে।

  3. শিমুল ডিসেম্বর 13, 2011 at 8:04 পূর্বাহ্ন - Reply

    বেহেস্তবাসীরা যথেচ্ছা খাইবে
    যথেচ্ছা করিবে অপচয়।

    অপচয়কারী নাকি শয়তানের ভাই। এখন কে অপচয় করছে?

    • তামান্না ঝুমু ডিসেম্বর 13, 2011 at 9:45 অপরাহ্ন - Reply

      @শিমুল,

      অপচয়কারী নাকি শয়তানের ভাই। এখন কে অপচয় করছে?

      যে অপচয় করিবে দুনিয়ায়
      সে শয়তানের ভাই।
      বেহেশতে অপচয়ের হিসাব নাই।

মন্তব্য করুন