রূপমতির সেতু

By |2011-11-28T04:54:09+00:00নভেম্বর 26, 2011|Categories: গল্প|27 Comments

রিকশাটা থেমে গেল। থেমে গেল একেবারে রূপমতি ব্রীজের গোড়ায়। গেল কোথায় টোকাইগুলো? অন্যদিন এই সময় অনেক ছেলে-পেলে থাকে সেতুর গোড়ায়। ওরা ঠেলে দেয় রিকশা একেবারে ব্রীজের খাড়া ধারের মাঝ বরাবর। তার বদলে পয়সা পায়- টাকা কামায়। রিক্সাওলা রমিজ সন্ধানী চোখে বার কয়েক এদিক ওদিক তাকায়। নাহ্‌, কাউকে দেখা যাচ্ছেনা। ঢাকা শহরের এই বড় সেতুটার নীচ দিয়ে চলে গেছে যে খালটা তার নামও রূপমতির খাল। কি কাজে যে এইটার নাম রূপমতির খাল হয়েছিল বুঝতে পারে না রমিজ। এর ভিতরে রূপের কি আছে আল্লাই জানে। চৈত মাসের হালকা গরম বাতাস খানিকটা বাস সাবানের গন্ধ এনে রমিজের নাকে ঢেলে দেয়। আবার খানিক বাদে খাল থেকে ভেসে আসে পুরোন পঁচা কাদার গন্ধ। এগুলো সব ভদ্দর লোকদের গন্ধ। বুঝতে পারে রমিজ। একদলা থুথু পায়ের কাছে ফেলে স্বস্তি পায়। খালটা আসলে অনেক লম্বা। শহরের সেই চকচকে অঞ্চল থেকে তাবৎ ময়লা-নোংরা-কলংক ধুয়ে মুছে খালটা অতঃপর বয়ে চলেছে সোজা, কখনও একে বেকে নানান জাত পাতের ছোট লোক দের ঘর গেরস্থলির পাশ দিয়ে সবশেষে পড়েছে গিয়ে বুড়িগঙ্গার উদরে।
– কি হলো, রিকশাওলা ভাই?
রিকশার আরহী মহিলা ঝাপির ভেতর থেকে কৌতুহলে গলা বের করে দিল। সে জানে কেন এখানে রিকশাটা থেমে গেছে। তারপরেও কিছু একটা বলতে হয়, তাই প্রশ্ন করা। কথা বললে সাহস বাড়ে বুকে। একা একা ভাবটা কেটে যায়। একা লোকের কপাল মন্দ হয়- বিপদ বাড়ে। যা দিন কাল পড়েছে সাবধানে চলা ভাল।

রিকশার আরোহী সাহারা খাতুন মধ্যবয়সী ভদ্রমহিলা। পরিপাটি সাজগোজের কোথায় যেন একটা ইষৎ দুর্বলতার ফুটো দিয়ে তার সত্যিকার বয়সটা হড় হড় করে বেরিয়ে পড়তে চাইছে। তবে প্রথম দর্শনে তাকে বাইশ কিংবা তেইশ মনে হলেও হতে পারে। সখের সমাজকর্মী- কাজের তাকিদে চলেছে কোন নির্ধারিত গন্তব্যে। পেটের তাকিদ নেই। বন্ধু পরিজনদের জৌলুশের সামনে দাড়িয়ে যেন সে বলতে পারে- আমি কিন্তু ফেলনা না। এসব দরকারেই কাজটা নেয়া। সাতপুরুষ ধরে বসে বসে খেলেও তার উকিল বাপের তামাম সহায় সম্পদ ফুরোবে না। জীবনটা তার রাগপ্রধান সংগীতের মতন মসৃন ভাবে বয়ে চলেছে, সেটা তার চেহারা দেখলেই ধরা যায়।

বেশী সময় অপেক্ষা করতে হলো না। কোথা থেকে দৌড়ে এলো এক হতচ্ছড়া টোকাই।
-এই তোরা কই গেছস রে?
রিকশাওলার মুখে বিরক্তি স্পষ্ট হয়। যাত্র্রী নিয়ে এত সময় বসে থাকাতে সেই বিরক্তি তেঁতে গিয়ে রাগ হয়ে শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। এই ভাবে বসে থাকলে তার ব্যাবসার বারোটা বাজবে।
– হগলডি বলখেলা দেখবার গ্যাছে ইষ্টিডিয়ামে। আমি যাই নাই।
কথা বলা আর রিকশা ঠেলা একসাথে চলতে থাকে টোকাইএর। যাত্রী ভাব জমানোর চেষ্টা করে ইচড়েপাকা বালকের সাথে। মানুষের সাথে কথা বলাই তো তার কাজ।
– কেন, তুমি যাওনি কেন?
সাহারা খাতুন প্রশ্নকরে, সাথে ছদ্ম-স্নেহ। টোকাইরা স্নেহের কাঙাল হলেও সহজে তাতে ধরা দেয় না।
-কি করুম আফা। পেডের জ্বালায় কাম করি। খেলা দেখতে গেলে প্যাড চলবো? খালি হাতে বারিত গেলে চাচী ঠ্যাংগাইবো না!
– কেন, তোমারা বাবা-মা নেই?
– আছে, হগ্গলে আছে। তয় বাজানে এক হারামী বেডিরে বিয়া করছে। আমার মায়রে তালাক দিছে।
– আর তোমার মা?
কয়েক মুহুর্ত নীরব হয়ে যায় বেওয়ারিশ বালক। কত আর বয়স হবে- এই দশ-এগার। পরনে একটা ময়লা বেসাইজ হাফপ্যান্ট, গায়ে শতছিন্ন হাফশার্ট, তার বুকটা খোলা। একটাও বেতোম নেই তাতে। চৈত মাসের হালাকা বাতাসে থেকে থেকে হাড় বেরুনো শরীরটা উদোম হয়ে পড়ছে। সাহারা খাতুনের চোখের দিকে শূন্য দৃষ্টি নিয়ে তাকিয়ে থাকে পথশিশু। বিশুদ্ধ দার্শনিকের মত ডান হাতের তর্জনি দিয়ে যাত্রীর কথার উত্তর দেয়। একবার বুক পকেটের দিকে আরেকবার বাঁকা ব্রিজের চুড়ার দিকে তর্জনী নির্দেশ করে। বালকের কথার ভেদ বুঝতে পারে না সমাজকর্মী। শতছিন্ন জামাটার শক্ত-মজবুত পকেটের ভেতরে হাত চালিয়ে অনেকগুলো ভাজকরা কাগজ বের করে আনে টোকাই। সেগুলোর ভেতর থেকে একটা ময়লা শক্ত কাগজ মেলে ধরে সে সাহারা খাতুনের চোখের সামনে।
-এইডা আমার মায়ের ফুটু। আমার সাথে থাহে সব সময়। কেন রাহি এইডা জানেন?
কেন রাখ?
-কারন আমার মায়েরে আমি জবান দিছিলাম- মা, তরে আমি কখনই ছাইরা যামু না।
-সেটা কিভাবে? ফটো কখনও আসল মা হতে পারে?
আরোহীর প্রশ্ন শুনে গান্ধার মুর্তির মতো রাস্তার দিকে তাকিয়ে থাকে ছন্নছাড়া বালক নিস্পলক। হঠাত করে কন্ঠ তার বেজে উঠে।
-ঐ যে আফা দেহেন, ঐ যে রিকশাডা আইতাছে, ঐ হানে আমার মায়েরে চাপা দিছিল একটা টিরাক।
অবাক হয় রিকশার যাত্রি। এতবড় একটা করুন ঘটনার কথা বলছে ছেলেটা, কিন্তু তার মুখে এতটুকু দুঃখ-শোকের স্পর্শ নেই। সে এতটা স্বাভাবিক ভাবে কথা বলতে পারে কিভাবে?
-তারপর কি হলো?
-আর কি হইবো আফা! হেইত্থেকা আমার এক চাচী আমারে পালে। যেদিন ট্যাহা আনতে না পারি ঠ্যাংগানী দেয়।
-তুমি আমার সাথে চলো। তোমাকে আমি স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেব। খাওয়া পরার সব ব্যাবস্থা হবে সেখানে।

ততক্ষনে টোকাইয়ের কথা বলা আর রিকশা ঠেলার কাজ শেষ হয়ে এসেছে। রিকশা প্রায় বাকা ব্রিজটার চুড়ায় পৌছে গেছে। চিৎকার করে কথা বলে উঠলো ছন্নছাড়া বালক।
-না, আমি কোত্থাও যামুনা। ছোড বেলায় আমার মায় কইছিল- বাজান, তোর বাপের মত তুই আমারে ছাইরা যাবিনা, কতা দে। আমার মায়রে আমি কতা দিছিলাম। এই ব্রিজে আমার মায় আছে। হ্যারে ছাইরা আমি কোত্থাও যামুনা।
এক ফোটা পানি নেই ছিন্নমূল বালকের চোখে, কিন্তু কন্ঠ তার হঠাৎ কেপে ওঠে অচেনা আবেগে। যাত্রীর কাছ থেকে মজুরী না নিয়ে দ্রুত পায়ে পালিয়ে যায় দৃষ্টির অন্তরালে। কিন্তু সাহারা খাতুন চোখের পানি আটকাতে পারেনা। তারা অল্প শোকে কাতর হয়। রুপালী পর্দার শোক দেখেও তারা রূমাল ভিজিয়ে ফেলে। উচ্চাঙ্গ ছন্দে গড়া সাহারা খাতুনদের জীবন। সে জীবনের ছায়া কোন দিনও এসে পড়বে না দৈবাৎ টোকাইদের শুকনো খটখটে জীবনে। চোখের জল মুছে ফেলে সাহারা খাতুন। মাঝে মাঝে মন তার বড্ড বেশী অবুজ হয়। কোলের উপরে যত্নে রাখা দামি ভেনেটি ব্যগের ভেতর থেকে ছিন্নমূল শিশুদের উপর তার বারো’শ পঞ্চাশ পাতার গবেষনা পত্রটা বের করে সে। ওদিকে মন দেয় সহসা। গন্তব্যে তাকে পৌছাতেই হবে। তার জন্য তথ্য চাই- আরও তথ্য। রং বেরং-এর নানা মুখী বাস্তবতা লাগাম তুলে দেয় সমাজসেবীর অবুঝ মনে। তা সত্তেও বিকেলের উদাসীন বাতাস ব্যাথাতুর করে রেখে যায় সমাজকর্মীর দেহ-মন।

সেতুর নীচে খালের কোল বরাবর গজিয়ে উঠেছে মাঠ- খাস জমিন। সেখানে সামিয়ানা খাটিয়ে মচ্ছব বসেছে রাজনীতির। মাইকের তীক্ষ্ণতায় ভর করে কোন এক নেতার বড় গলা আরও বড় হয়ে ছড়িয়ে পড়ছে বসন্তের বাতসে। বেওয়ারিশ টোকাইদের অজানা অচ্ছুত নানা ব্যথার গন্ধও কোন না কোন ভাবে সে বাতাসে ছড়িয়ে যায় চুপি চুপি। বসন্তের বাতাস শুধু ব্যাথাই বয়ে আনে না, সেতুর পাশের খোলা মাঠের মেঠো বক্তার রাজনীতির প্রতিশ্রুতিও সে বয়ে আনে। খালের নষ্ট পঁচা কাদার গন্ধের সাথে সেসব প্রতিশ্রুতি মিলে মিশে চৈতমাসের বাতাসকে নিঃশ্বাসের অযোগ্য করে তোলে।

About the Author:

যে দেশে লেখক মেরে ফেলানো হয়, আর রাষ্ট্র অপরাধীর পিছু ধাওয়া না করে ধাওয়া করে লেখকের লাশের পিছে, লেখকের গলিত নাড়ী-ভুড়ী-মল ঘেটে, খতিয়ে বের করে আনে লেখকের লেখার দোষ, সেই দেশে যেন আর কোন লেখকের জন্ম না হয়। স্বাপদ সেই জনপদের আনাচ-কানাচ-অলিন্দ যেন ভরে যায় জঙ্গী জানোয়ার আর জংলী পিশাচে।

মন্তব্যসমূহ

  1. khusim mollah নভেম্বর 20, 2016 at 8:48 পূর্বাহ্ন - Reply

    দারুন লেখা

  2. শাখা নির্ভানা নভেম্বর 28, 2011 at 4:25 পূর্বাহ্ন - Reply

    ছোট ছোট মানুষদের কথা মনে রাখে না কেউ। ভাল লেগেছে জেনে সামনে এগুবার উৎসাহ পাই। ধন্যবাদ আপনাকে।

    • আফরোজা আলম নভেম্বর 28, 2011 at 12:12 অপরাহ্ন - Reply

      @শাখা নির্ভানা,
      ছোট গল্প হিসাবে সার্থক রূপ দিতে সক্ষম হয়েছেন আপনি।

      বসন্তের বাতাস শুধু ব্যাথাই বয়ে আনে না, সেতুর পাশের খোলা মাঠের মেঠো বক্তার রাজনীতির প্রতিশ্রুতিও সে বয়ে আনে। খালের নষ্ট পঁচা কাদার গন্ধের সাথে সেসব প্রতিশ্রুতি মিলে মিশে চৈতমাসের বাতাসকে নিঃশ্বাসের অযোগ্য করে তোলে-

      শেষ দিকের বর্ণনা গল্পটাকে আরো মজবুত করে দিল। এমন লেখা আরো চাই।

      • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 28, 2011 at 7:25 অপরাহ্ন - Reply

        @আফরোজা আলম,
        পাঠকের ভাল লাগলে লেখার একটা অর্থ দাড়ায়। পথশিশুদের নিয়ে অনেক কর্মকান্ড চলছে। সব প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানাই। তারপরেও কোথায় যেন ফাক ফোকর রয়ে যায়, কিসের যেন একটা অভাব। সময় নিয়ে পড়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

  3. রওনাক জেসমিন নভেম্বর 28, 2011 at 12:57 পূর্বাহ্ন - Reply

    ব হুদিন প র এম ন এক টা শ র্ট স্টোরী পড়লাম। যারপ র নাই ভাল লেগেছে। মাকে ক থা দিয়েছিল টোকাই তাকে ছেড়ে সে কোথাও যাবে না, এখানে হঠাত ক রে একটা নাটকীয় টার্নিং পয়েন্ট নেয়াতে গ ল্পের শিল্পমান উন্নত হয়েছে। ও’ হেন রীর শ র্ট ফিকশানে এই ধ রনের প্রয়োগ দেখেছি। তাছাড়া স মাজ ক র্মী ও রাজনীতিকের ভুমিকার মুল্যায়নের ক্ষেত্রে যে চম স্ত অলংক রনের আশ্রয় নেয়া হয়েছে তা স ত্যিই প্রশংসার দাবী রাখে।

    চোখের জল মুছে ফেলে সাহারা খাতুন। মাঝে মাঝে মন তার বড্ড বেশী অবুজ হয়। কোলের উপরে যত্নে রাখা দামি ভেনেটি ব্যগের ভেতর থেকে ছিন্নমূল শিশুদের উপর তার বারো’শ পঞ্চাশ পাতার গবেষনা পত্রটা বের করে সে। ওদিকে মন দেয় সহসা। গন্তব্যে তাকে পৌছাতেই হবে। তার জন্য তথ্য চাই- আরও তথ্য। রং বেরং-এর নানা মুখী বাস্তবতা লাগাম তুলে দেয় সমাজসেবীর অবুঝ মনে। তা সত্তেও বিকেলের উদাসীন বাতাস ব্যাথাতুর করে রেখে যায় সমাজকর্মীর দেহ-মন।

    এই জাগাটা আমার কাছে অতুলনীয় ম নে হয়েছে। এম ন একটা গ ল্প উপ হার দেবার জন্য আপ নাকে আনেক ধ ন্যবাদ, শাখা নির্ভানা।

  4. এ.প্রামানিক নভেম্বর 27, 2011 at 11:57 অপরাহ্ন - Reply

    জীবনটা তার রাগপ্রধান সংগীতের মতন মসৃন ভাবে বয়ে চলেছে, সেটা তার চেহারা দেখলেই ধরা যায়।

    অদ্ভুত সুন্দর লাইন। ধন্যবাদ

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 28, 2011 at 7:17 অপরাহ্ন - Reply

      @এ.প্রামানিক,
      আরো সুন্দর করার সুজোগ রয়েছে। চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। ভাল লেগেছে জেনে প্রেরনা পেলাম। অনেক ধন্যবাদ।

  5. গীতা দাস নভেম্বর 27, 2011 at 1:52 অপরাহ্ন - Reply

    শাখা নির্ভানা,
    আপনার সব গল্পের চরিত্রই বিশেষ একটা গোষ্ঠির জন্য বরাদ্ধকৃত যা আমাকে বরাবরই টানে।
    আমরা অনেকেই টোকাইদের প্রস্তাব করি, চলো আমার সাথে, পড়াব ও খাওয়াব। স্বাভাবিক ভাবেই তারা রাজি হবে না জানি। তবে কেউ খবর নিই না, গভীরে যাই না কেন তারা যেতে রাজি হয় না। শাখা নির্ভানা একটি কারণ বলেছেন।

    গল্প লেখা অব্যাহত থাকুক।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 7:49 অপরাহ্ন - Reply

      @গীতা দাস,
      ছোট ছোট মানুষের ক্ষুদ্র ব্যথা বেদনার দিকে খেয়াল রাখতে হবে অন্তত ছোটগল্প লেখার সময়। মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

  6. আবুল কাশেম নভেম্বর 27, 2011 at 8:30 পূর্বাহ্ন - Reply

    শাখা নির্ভানার এই ছোট গল্পটি বেশ ভাল লাগলো।

    আচ্ছা, শাখা নির্ভানার কী কো গূঢ় অর্থ আছে? না আক্ষরিক অর্থ ধরে নিব?

    আপনার নামটি সত্যি খুবই ব্যতিক্রমী মনে হয় আমার।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 12:14 অপরাহ্ন - Reply

      @আবুল কাশেম,
      ভাল লেগেছে জেনে অনুপ্রেরনা পাচ্ছি। নির্ভানা আমার মিডল নেম যেটা অফিসিয়ালি ব্যবহার করা হয় না। শা’ হচ্ছে আমার ফার্ষ্ট নেমের একটা খন্ড। অনুরূপভাবে খা’ লাস্ট নেমের অংশ বিশেষ। আপাতত এই নামে লিখি। প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ।

  7. কাজী রহমান নভেম্বর 27, 2011 at 8:08 পূর্বাহ্ন - Reply

    আমার মায়রে আমি কতা দিছিলাম। এই ব্রিজে আমার মায় আছে। হ্যারে ছাইরা আমি কোত্থাও যামুনা।

    বুক ফেটে যায়। দরজা খটখটিয়ে ওদের কথা মনে করিয়ে দিলেন। ভালো কাজ করেছেন।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 12:04 অপরাহ্ন - Reply

      @কাজী রহমান,
      গৌতম বুদ্ধের একটা কথা আছে- নির্ভেজাল বর্তমানের চেতনা এবং পরার্থ চিন্তা মানুষকে সুস্থ্য রাখে দেহে মনে। মানুষের জন্য আপনার বোধ এবং অনুভুতি যথার্ত।

  8. রওশনারা নভেম্বর 27, 2011 at 7:11 পূর্বাহ্ন - Reply

    গল্পটির কাহিনী কাল মাত্র কয়েক মিনিটের। রূপমতি ব্রীজের এই কোনা থেকে সেই কোনা। ছোটগল্পের অন্যতম শর্ত পূরন করেছে তা। অল্প পরিসরে কাহিনীর টানা পোড়েনও আছে এই গল্পে। টোকাই জীবিত মাকে কথা দিয়েছিল- তাকে কোন দিন ছেড়ে যাবে না। মৃত মায়ের বেলায় ও সেই কথাটা ধরে রেখেছে সে। ছোট্ট অবুঝ মন জীবিত ও মৃতের পার্থক্যকে আমল দিতে পারেনি। গল্পের টার্নিং পয়েন্টের সার্থক রূপায়ন হয়েছে। অতিরিক্ত পাওনা হিসাবে দেশীয় রাজনীতি ও সমাজকর্মের অন্তঃসার শূন্যতার বর্ননা পেয়েছি এই গল্পে। পুরোটা পড়া শেষ করার পড়ে মনে হলো আরও কিছু বাকী রইলো- এই অনুভুতিই গল্পটিকে ছোটগল্পের রূপ দিয়েছে বলা যায়।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 11:56 পূর্বাহ্ন - Reply

      @রওশনারা,
      আপনার মুল্যায়নের জন্য অনেক ধন্যবাদ, রওশনারা। ছোটগল্পের তাত্বিক দিকটা আপনি তুলে ধরেছেন। লেখার অনুপ্রেরনা পাচ্ছি।

  9. অরণ্য নভেম্বর 27, 2011 at 2:33 পূর্বাহ্ন - Reply

    স্বদেশী কি প্রবাসী
    দেশকে কে না ভালবাসি!

    তবু মন বলে, কথা শুধু বলেই গেলাম।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 11:53 পূর্বাহ্ন - Reply

      @অরণ্য,
      অরন্য, আপনি একদম ঠিক কথা বলেছেন। আপনার অনুভুতি নিখাদ। ধন্যবাদ পড়ার জন্যে।

  10. কাজি মামুন নভেম্বর 27, 2011 at 12:06 পূর্বাহ্ন - Reply

    ‘রূপমতির সেতু’ আপনার আগের গল্পটিকে ছাড়িয়ে যেতে পারেনি। অসাধারণ প্লট ছিল গল্পটির। চৈত্রের গরম, খাড়া ব্রিজ, রিকশা, টোকাই আর একজন তথাকথিত সমাজকর্মী- সবকিছু মিলিয়ে সমাজ-বাস্তবতার এক করুন ছবি দেখার প্রত্যাশায় ছিলাম। কিন্তু ক্লাইম্যাক্সে এসে বড্ড পানসে হয়ে গেল কাহিনীটি।

    এইডা আমার মায়ের ফুটু। আমার সাথে থাহে। আর ঐ যে রিকশাডা আইতাছে, ঐ হানে আমার মায়েরে চাপা দিছিল একটা টিরাক।

    খুব বেশী আরোপিত মনে হল এখানে।
    তবে বরাবরের মতই ভাল লেগেছে আপনার বর্ণনাভঙ্গি। যেমন:

    এগুলো সব ভদ্দর লোকদের গন্ধ। বুঝতে পারে রমিজ। একদলা থুথু পায়ের কাছে ফেলে স্বস্তি পায়। খালটা আসলে অনেক লম্বা। শহরের সেই চকচকে অঞ্চল থেকে তাবৎ ময়লা-নোংরা-কলংক ধুয়ে মুছে খালটা অতঃপর বয়ে চলেছে সোজা, কখনও একে বেকে নানান জাত পাতের ছোট লোক দের ঘর গেরস্থলির পাশ দিয়ে সবশেষে পড়েছে গিয়ে বুড়িগঙ্গার উদরে।

    আপনার ভাষা এখানে যথার্থতা লাভ করেছে বলে আমার ধারনা।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 12:44 পূর্বাহ্ন - Reply

      @কাজি মামুন,
      খুব সুন্দর ও গঠন মূলক একটা সমালোচনার জন্য অনেক ধন্যবাদ। খুব একটু টানা পড়েনের ভেতরে লেখাটা লেখা। হয়তো মনোসংযোগের একটু অভাব রয়ে গেছে। সময় নিয়ে পড়ার জন্য আবারও ধন্যবাদ।

  11. আঃ হাকিম চাকলাদার নভেম্বর 26, 2011 at 9:44 অপরাহ্ন - Reply

    সুদুর (নিউ ইয়র্কে)ঘরে বসে নিজ দেশের এরুপ একটি বাস্তব চিত্র অনুধাবন করে উপভোগ করতে পারলাম। ধন্যবাদ এরুপ চিত্র আাছে তুলে ধরার জন্য।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 12:38 পূর্বাহ্ন - Reply

      @আঃ হাকিম চাকলাদার,
      প্রবাস জীবনটাও কিন্তু কম ট্রাজিক নয়। প্রতি মুহুর্তে দেশকে মিস করতে করতে জানটা ভাজা ভাজা হয়ে যায়। ধন্যবাদ আপনাকে।

  12. ফরিদ আহমেদ নভেম্বর 26, 2011 at 9:01 অপরাহ্ন - Reply

    গল্প প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকুক।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 12:35 পূর্বাহ্ন - Reply

      @ফরিদ আহমেদ,
      সময়ে কুলায় না, তারপরেও চেষ্টা করে যাব। ফরিদ ভাই, অনেক ধন্যবাদ পড়ার জন্য।

  13. অন্যকেউ নভেম্বর 26, 2011 at 7:40 অপরাহ্ন - Reply

    অনুভূতিগুলো বেশ ক্লিশে মনে হচ্ছে। যাই হোক, একেকজনের দৃষ্টি একেকরকম হতেই পারে। লেখার ভাষাবিন্যাস মন্দ নয়। সব মিলিয়ে বিবৃতিটা ভালো।

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 27, 2011 at 12:32 পূর্বাহ্ন - Reply

      @অন্যকেউ,
      আমার কাছেও সেরকম মনে হয়েছে। সময় নিয়ে আরেকটু চেষ্টা করলে আরও ভাল করা যেত, এখন তাই মনে হচ্ছে। সময়ের সাথে পেরে উঠি না। ধন্যবাদ।

  14. স্বপন মাঝি নভেম্বর 26, 2011 at 1:45 অপরাহ্ন - Reply

    সুত্রাপুর?

    • শাখা নির্ভানা নভেম্বর 26, 2011 at 8:13 অপরাহ্ন - Reply

      @স্বপন মাঝি,
      ভুগলে আমি বরাবরই কম মার্ক পাইতাম। আন্দাজে জায়গার নাম হাতড়িয়ে যা পেয়েছি তাই বসিয়ে দিয়েছি- মাল মশলাগুলো পেয়েছি চারপাশ থেকে, মাথার ভেতর থেকে, মনের ভেতর থেকে। ধন্যবাদ পড়ার জন্য।

মন্তব্য করুন