আবুল কাশেম

উম হানীর বিবাহ এবং তাঁর স্বামীর পরিচয়

আবু তালেব মুহাম্মদের উম হানীকে বিবাহের প্রস্তাব গ্রহণ করলেন না। মুহাম্মদ আহত হলেন, হয়ত রাগও করেছিলেন তাঁর পিতৃব্যের উপর। তার এক উদাহরণ হল মুহাম্মদ পরে বলেছিলেন যে আবু তালেব নরকে যাবেন এবং তাঁর পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত আগুন থাকবে—আবু তালেবের মগজ সেই আগুনের উত্তাপে টগবগ করে ফুটবে।

দোজখে আবু তালেবের শাস্তি সম্পর্কে একটি হাদিস দেওয়া হল:

আবু সায়ী’দ খুদরী (রাঃ) বর্ণনা করিয়াছেন, একদা নবী ছাল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লামের সম্মুখে তাঁহার চাচা আবু তালেবের বিষয় উল্লেখ করা হইল। হযরত (সঃ) বলিলেন, আশা করি তাহার শাস্তি লাঘব করিতে, কেয়ামতের দিন আমার সুপারিশ সাহায্য করিবে। তাহাতে অল্প পরিমাণ দোযখের আগুনে রাখা হইবে; দোযখের আগুন তাহার পায়ের গিঁট পর্যন্ত থাকিবে, কিন্তু তাহা দ্বারাই তাহার মাথার মগজ পর্যন্ত টগবগ করিতে থাকিবে। (বোখারী শরীফ, খণ্ড ৬, হাদিস ১৬৯১, মাওলানা আজিজুল হক সাহেব, মহাদ্দেছ জামিয়া কোরআনিয়া, লালবাগ ঢাকা কর্তৃক অনুদিত। ইংরাজি ৫.৫৮.২২৪, ২২৫)

বোখারী শরীফে এই ধরণের আরও বেশ কয়েকটি হাদিস আছে।

যাই হোক, আবু তালেব যথা সময়ে উম হানীর বিবাহ ঠিক করলেন এবং পৌত্তলিক কবি হুবায়রার সাথে উম হানীর বিবাহ দিয়ে দিলেন।

মনে হয় আবু তালেবও তাঁর সিদ্ধান্তের জন্য নিজেকে একটু দোষী দোষী ভাবছিলেন। তাই উনি মুহাম্মদকে প্রস্তাব দিলেন খদেজাকে বিবাহের জন্য। মুহাম্মদ এতে রাজী হয়ে গেলেন। তখন মুহাম্মদ ২৫ বছরের এক পরিপূর্ণ যুবক এবং খদেজার ব্যবসায়ের কর্মচারী।

এই ব্যাপারে মার্টিন লিঙ্গস্‌ লিখেছেন:

কিন্তু মেয়ের (ফাকিতাহ্‌ বা উম হানী) বিবাহের ব্যাপারে আবু তালেবের অন্য পরিকল্পনা ছিল। আবু তালেবের মা ছিলেন মাখযুমি গোত্রের মহিলা। হুবায়রা ছিলেন আবু তালেবের মায়ের ভাই । তিনিও আবু তালেবের কাছে ফাকিতার (উম হানীর) হাত চেয়েছিলেন। হুবায়রা শুধুমাত্র বিত্তবানই নয় আবু তালেবের মতই প্রতিভাবান কবি ছিলেন। মক্কায় তখন মাখযুমি গোত্রের প্রভাব প্রতিপত্তি ক্রমশঃ বৃদ্ধি পাচ্ছিল, আর হাশিমি গোত্রের প্রভাব ক্রমশঃ অধঃপতনের দিকে যাচ্ছিল। ভেবে চিন্তে আবু তালেব শেষ পর্যন্ত হুবায়রার সাথেই তাঁর কন্যা ফাকিতার (উম হানীর) বিবাহ দিয়ে দিলেন। আবু তালেবের ভাতিজা (নবী মুহাম্মদ) এই ব্যাপারে আবু তালেবকে মৃদুভাবে ভর্ৎসনা করলেন, তখন আবু তালেব উত্তর দিলেন: “তারা তাদের মেয়েকে আমাদের গোত্রে বিবাহ দিয়েছে—তাই একজন বদান্য পুরুষের জন্য অবশ্যই বদান্যতা দেখান প্রয়োজন।“ এই বাক্যের দ্বারা নিঃসন্দেহে আবু তালেব তাঁর মায়ের (মাখযুমি গোত্রের) সাথে আবু তালেবের গোত্রের বিবাহের ঘটনা বুঝাচ্ছিলেন। কিন্তু এই ব্যাখ্যা খুব জোরালো ছিল না। কারণ, আবু তালেব যে ঋণের উল্লেখ করেছিলেন তা আবদুল মুত্তালিব পরিশোধ করেছিলেন তাঁর দুই কন্যা আতিকাহ্‌ এবং বারাহ্‌ কে মাখযুমি গোত্রের দুই পুরুষের সাথে বিবাহ দিয়ে। নিঃসন্দেহে বলা যায় তাঁর চাচা এই সিদ্ধান্তের দ্বারা সদয় ও ভদ্রভাবে মুহাম্মদকে পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন যে মুহাম্মদ তাঁর কন্যার যোগ্য ছিলেন না। যাই হোক, মুহাম্মদ এই পরিস্থিতি মেনে নিলেন। কিন্তু অল্পসময়েই মুহাম্মদের জীবনে পরিবর্তন এসে গেল (খদেজার সাথে মুহাম্মদের বিবাহ) (লিঙ্গস্‌, পৃঃ ৩৩)

আগেই লিখা হয়েছিল যে কৈশরে নবী মুহাম্মদ বিবি খদেজার বানিজ্যের কর্মচারী নিয়োগ হবার আগে ভেড়ার পালের রাখালের কাজ করতেন, যার জন্য আবু তালেব তাঁর কন্যকে এক রাখালের হাতে তুলে দিতে চাইলেন না। এই ব্যাপারে এখানে একটা হাদিস দেওয়া হল:

আহমদ ইব্‌ন মুহাম্মদ মক্কী (র.)…আবূ হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত যে, নবী (স.) বলেছেন, আল্লাহ্‌ তা’আলা এমন কোন নবী পাঠাননি, যিনি বকরী চরান নি। তখন তাঁর সাহাবীগণ বলেন, আপনিও? তিনি বললেন, হ্যাঁ; আমি কয়েক কীরাতের বিনিময়ে মক্কাবাসীদের বকরী চরাতাম। (বুখারী শরীফ, ৪র্থ খণ্ড, পৃঃ ১১২, হাদিস নম্বর ২১১৯, ইসলামিক ফাইন্ডেশন বাংলাদেশ)

মার্টিন লিঙ্গস্‌ আরও লিখেছেন যে উম হানীর সাথে বিবাহের সময় হুবায়রা ছিলেন একজন পৌত্তলিক। (ঐ বই, পৃঃ ২৯৯)

বেঞ্জামিন ওয়াকার লিখেছেন:

মুহাম্মদ আবু তালেবকে প্রস্তাব দিলেন উম হানীকে বিবাহের জন্য। কিন্তু মুহাম্মদের প্রতি আবু তালেবের যথেষ্ট মায়া মমতা থাকে সত্ত্বেও তিনি এই প্রস্তাব নাকচ করে দিলেন যেহেতু মুহাম্মদ ছিলেন দরিদ্র। মুহাম্মদের বয়স যখন পঁচিশ তখন আবু তালেব মুহাম্মদকে প্রস্তাব দিলেন খদেজাকে বিবাহ করার জন্য। খদেজা ছিলেন কুরাইশ গোত্রের এবং খুয়েলিদের কন্যা। ইতিপূর্বে খদিজার দুইবার বিধবা হয়েছিলেন। তিনি ছিলেন দুই পুত্র এবং এক কন্যার মাতা। এরা সবাই ছিল তাঁর ভূতপূর্ব দুই স্বামীর ঔরসজাত। সেই সময় মুহাম্মদ খদিজার অধীনস্থ কর্মচারী ছিলেন—তাঁর বানিজ্যের দেখাশোনা করতেন। ইতিমধ্যেই খদিজার বাণিজ্যের জন্য মুহাম্মদকে আরবের বিভিন্ন অঞ্চলে এবং সিরিয়া যেতে হয়েছিল। এর মধ্যে ছিল দামেস্ক এবং আলেপ্পো শহর গুলিও। বাণিজ্যের উপর মুহাম্মদের প্রখর দক্ষতা খদেজাকে ইতিমধ্যে মুগ্ধ করেছিল। (ওয়াকার, পৃঃ ৯১)

এখন উম হানীর স্বামী হুবায়রা সম্বন্ধে কিছু জানা যাক। যতটুকু বুঝা যায় হুবায়রা উম হানীকে বেশ ভালবাসতেন। আর উম হানী হুবায়রাকে তৎপরিমাণ ভাল না বাসলেও তাঁর প্রতি নিষ্ঠাবান ছিলেন। তাঁদের মিলনে এক পুত্রের (?) জন্ম হয় যার নামা রাখা হয় হানী। ওদিকে উম হানী মুহাম্মদকেও ভুলেন নাই।

ইবনে ইসহাক লিখেছেন:

আবু উসামা মাবিয়া বিন জুহায়ের বিন কায়েস বিন আল হারিস বিন দুবায়াব বিন মাজিন বিন আদিয় বিন জুশাম বিন মাবিয়া ছিলেন মাখযুম গোত্রের এক মিত্র। বদরের যুদ্ধে যখন হুবায়রা বিন আবু ওহব্‌ তার দলবলসহ পালিয়ে যাচ্ছিল তখন সে তাদের পাশ দিয়ে যাচ্ছিল। হুবায়রা ক্লান্ত থাকায় যুদ্ধের বর্ম ফেলে দিল। তখন মাবিয়া সেই বর্ম তুলে নিল। সে (অর্থাৎ হুবায়রা) নিচের কবিতা রচনা করল:

যখন আমি দেখলাম সৈন্যদের মাঝে আতঙ্ক,

তারা পালিয়ে যাচ্ছিল প্রাণপণে, উচ্চ গতিতে,

আর তাদের নেতারা মৃত পড়ে রইল,

আমার মনে হচ্ছিল তাদের শ্রেষ্ঠতম,

যেন তারা প্রতিমাদের কাছে উৎসর্গ,

অনেকেই রইল পড়ে, মৃত,

এবং আমাদের ভাগ্যে যা ছিল তাই-ই হল বদরে। (ইবনে ইসহাক, পৃঃ ৩৫৫)

হুবায়রা যে সর্বদায় এক পলাতক সৈনিক ছিলেন তা নয়। তাঁর কিছু বীরত্বের পরিচয় পরিখার বা খন্দকের যুদ্ধে দেখা যায়। ইবনে ইসহাক লিখেছেন:

এই অবরোধ চলতে থাকল, কোন সত্যিকার যুদ্ধ ছাড়াই। কিন্তু কুরায়েশদের কিছু অশ্বারোহী সৈনিক, যথা বানু আমির বিন লুয়ায়ের ভ্রাতা আমর বিন আবদু ওদ বিন আবু কায়েস, দুই জন মাখযুমা গোত্রের ইকরিমা বিন আবু জহল ও হুবায়রা বিন আবু ওহব (উম হানীর স্বামী)। আরও ছিল কবি দিরার বিন আল খাত্তাব, বানু মুহারিব বিন ফিহরের ভাই বিন মিরদাস। এরা সবাই যুদ্ধের বর্ম পরে অশ্বে আরোহণ করে বানু কিনানার স্থানে গেল এবং তাদেরকে বলল, ‘যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাক। আজই তোমরা জেনে যাবে কারা হচ্ছে সর্বশ্রেষ্ঠ সৈনিক।‘ তারপর তারা দ্রুত অশ্ব ছুটিয়ে পরিখার কিনারায় থামল। পরিখা দেখে তারা বলে উঠল, ‘এই ধরণের ফন্দি আরবেরা কখনই দেখে নাই।‘ (ইবনে ইসহাক, পৃঃ ৪৫৪)

আল ওয়াকেদির লেখা থেকে আমরা জানতে পারি যে বদরের যুদ্ধে হুবায়রা যোগদান করেছিলেন এবং মুসলিমদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলেন।

তারা বলল সেই সময় আবু বকর ছিলেন ডানে। আর যামা বিন আল আসোয়াদ মূর্তিপূজকদের অশ্বারোহী বাহিনীর নেতৃত্ব দিচ্ছিল। এদিকে ইয়াহিয়া বিন আল মুঘিরা বিন আবদ আল রাহমান তাঁর পিতার থেকে জেনে বললেন যে মূর্তিপূজকদের অশ্বারোহী বাহিনীর নেতৃত্ব দিচ্ছিল আল হারিস বিন হিশাম। আর তার দক্ষিণে ছিল হুবায়রা বিন আবি ওহাব। তার বামে ছিল যামা বিন আল আসোয়াদ। অন্য আরেকজন বলল যে দক্ষিণে ছিল আল হারিস বিন আমির আর বামে ছিল আমির বিন আবদ ওয়াদ। (আল ওয়াকেদী, পৃঃ ৩০)

খন্দকের যুদ্ধে যখন আলী আমরকে হত্যা করেছিলেন তা দেখে হুবায়রার কবি মন উথলে উঠেছিল। আলীর এই নিষ্ঠুরতা সহ্য করতে না পেরে হুবায়রা কেঁদে ফেলেন, যুদ্ধক্ষেত্র ত্যাগ করেন, এবং এক লম্বা কবিতা লিখেন। এই কবিতায় হুবায়রা আলীর নিষ্ঠুরতা প্রকাশ করেন [পাঠকেরা এই দীর্ঘ কবিতা ইবনে ইসহাকের বইতে পৃঃ ৪৭৮-পড়তে পারেন।]

এটাও একটা কারণ হতে পারে যার জন্য আলী হুবায়রার উপর ভীষণ বিরাগ ছিলেন, এবং হয়ত প্রতিজ্ঞা করেছিলেন সুযোগ পেলেই তাঁর ভগিনীপতি তথা হুবায়রাকে খুন করতে দ্বিধা করবেন না। এর প্রমাণ আমরা দেখব নিচের অংশে।

হুবায়রা হয়ত জানতেন আলী কোনদিন মক্কায় আসলে তাঁর কপালে কি ঘটবে। তাই নবী এবং আলী যখন মক্কা জয় করে নিলেন তখন হুবায়রা তড়িঘড়ি স্ত্রী (উম হানী), সন্তান এবং ভাইদেরকে চিরদিনের জন্য ছেড়ে মক্কা ত্যাগ করে অন্য কোথাও নির্বাসনে চলে যান—আর তাঁর কোন খবর পাওয়া যায়নি।

ইবনে ইসহাকের বই থেকে:

হুবায়রা বিন আবু ওহব আল মাখযুমি সম্পর্কে বলতে হয় যে সে ঐ স্থানে (অর্থাৎ নির্বাসনের স্থান হয়ত ইয়ামান অথবা নাজরান) আমৃত্যু বাস করেন। হুবায়রা যখন জানতে পারলেন যে তাঁর স্ত্রী উম হানী (ফাকিতাহ্‌) ইসলাম গ্রহণ করেছেন তখন গভীর আঘাত পেলেন। মনের দুঃখে এক কবিতাও লিখে ফেললেন (ইবনে ইসহাক পৃঃ ৫৫৭)

আবু মুরা ছিল আকিল বিন আবু তালেবের মুক্ত করা দাস। সায়ীদ বিন আবু হিন্দ আবু মুরার থেকে আমাকে বলল যে আবু তালেবের কন্যা উম হানী (উনি ছিলেন হুবায়রা বিন আবু ওহব আল মাখযুমির স্ত্রী) বলেছিলেন: ‘আল্লার রসূল যখন মক্কার উচ্চ প্রান্তে অবস্থান করছিলেন তখন আমার দুই দেবর যারা ছিল বানু মাখযুমি গোত্রের লোক তারা লুকিয়ে আমার গৃহে আসল। সেই সময় আলী আসলেন এবং প্রতিজ্ঞা করলেন যে ঐ দুজনকে খুন করবেন। তাই আমি দুজনকে গৃহে আবদ্ধ করে দরজায় তালা মেরে আল্লার রসূলের কাছে গেলাম। সে সময় নবী এক গামলা থেকে পানি নিয়ে গোসল করছিলেন। ওই গামলায় মাখা ময়দার কিছু তালও দেখা যচ্ছিল। নবীর কন্যা ফাতেমা তাঁকে কাপড় দিয়ে ঘিরে রাখছিলেন। নবী গোসল শেষ করে অঙ্গে কাপড় জড়িয়ে নিলেন। এরপর উনি ভোরের আট রাকাত নামাজ পড়লেন। তারপর নবী আমাকে স্বাগতম জানালেন এবং আমার আগমণের কারণ জানতে চাইলেন। আমি যখন ঐ দুই ব্যক্তির এবং আলীর ব্যাপারে জানালাম তখন নবী বললেন: ‘তুমি যাকে রক্ষা করতে চাও আমরাও তাকে রক্ষা করব। আর তুমি যাকে নিরাপত্তা দিবে আমরাও তাকে রক্ষা করব। আলী তাদেরকে খুন করতে পারবে না।‘ (ইবনে ইসহাক, পৃঃ ৫৫১)

ওয়াকেদির লেখা থেকে জানা যায় যে ওহোদের যুদ্ধের প্রস্তুতিতে কিছু বেদুঈনদের সাথে সমঝোতা আনার জন্য হুবায়রা কুরায়েশদের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন (কিতাব আল মাগহাযি, পৃঃ ১০০), ওহোদের যুদ্ধে গিয়েছিলেন এবং একজন মুসলিম সৈন্যকেও নিহত করেছিলেন (ঐ বই, পৃঃ ১৪৬)।

আল ওয়াকেদি আরও লিখেছেন যে খন্দক বা পরিখার যুদ্ধে হুবায়রা আবু সুফিয়ানের সাথে মুসলিম সৈন্যদের উপর নজর রেখেছিলেন।

তারা বলল যে পৌত্তলিকেরা একের পর এক দৈনিক টহলের ব্যবস্থা করল। আবু সুফিয়ান আর তার সাঙ্গপাঙ্গরা একদিনের দায়িত্ব নিল। ঐ ভাবে টহল দিলেন হুবায়রা বিন আবি ওহব। (আল ওয়াকেদী, পৃঃ ২২৯)

খন্দকের যুদ্ধে যখন মুসলিমরা কুরায়েশদের আক্রমণ করে তখন হুবায়রাও আক্রান্ত হন।

তাদের নেতারা একযোগে আক্রমণের জন্য পরিখার ধারে সমবেত হল। এই লক্ষ্যে আবু সুফিয়ান বিন হার্‌ব, ইকরিমা বিন আবু জহল, দিরার বিন খাত্তাব, খালিদ বিন আল ওলিদ, আমর বিন আল আস, হুবায়রা বিন আবি ওহব, নৌফল বিন আবদুল্লাহ আল মাখযুমি, আমর বিন আবদ, নৌফল বিন আবু মাবিয়া আল দিলি ছাড়াও আরও অনেকে এই উদ্দেশ্যে পরিখার তীরে ঘুরা ঘুরি করেত লাগল। (আল ওয়াকেদী, পৃঃ ২৩০)

খন্দকের যুদ্ধে হুবায়রার ঘোড়া আহত হয়, উনার বর্ম খসে যায়, উনি পালিয়ে যান।

ইকরিমা এবং হুবায়রা পালিয়ে গিয়ে আবু সুফিয়ানের সাথে যোগদান করল। আল যুবায়ের হুবায়রাকে আক্রমণ করে এবং তার অশ্বের পিছনে আঘাত করে। ফলে হুবায়রার অশ্বের পেটের নিচের বন্ধনী কেটে যায় এবং অশ্বের পিছনে যে বর্ম বাঁধা ছিল তা পড়ে যায়। আল যুবায়ের বর্মটি কুক্ষিগত করে নিলো। ইকরিমা বর্শা ফেলে চম্পট দিল। (আল ওয়াকেদী, পৃঃ ২৩১)

খন্দকের যুদ্ধে হুবায়রা এক মুসলিম সৈন্যকে হত্যা করেন।

হুবায়রা বিন আবি ওহাব আল মাখযুমি হত্যা করেন সালাবা বিন ঘানামা বিন আদি বিন নাবী (আল ওয়াকেদী, পৃঃ ২৪৩)

এই ব্যাপারে মণ্টগোমারি ওয়াট লিখেছেন:

মুসলিমরা মক্কা দখল করার পর মুহাম্মদ সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করলেন, যার ফলে তারা কুরাইশ পৌত্তলিকদের আর তেমন হেনস্থা করল না। এই সময় আবদুল্লাহ বিন আবি রাবিয়া (অথবা যুবায়ের বিন আবদ ঊমাইয়া) এবং আল হারিস বিন হিশাম মাখযুমি গোত্রের এই দুই লোক যারা ইতিপূর্বে মুহাম্মদের খুজাদের উপর আক্রমণের নিন্দা করেছিল, তারা হুবায়রা বিন আবদ ওহবের গৃহে পলায়ন করে। হুবায়রার স্ত্রী ছিলেন আবু তালেবের কন্য। সেই সূত্রে এই মহিলা ছিলেন মুহাম্মদের চাচাত বোন। (ওয়াট, পৃঃ ৬৭)

মুহাম্মদ যে উম হানীর স্বামী হুবায়রাকে তীব্র ঘৃণা করতেন তা আমরা জানতে পারি আল ওয়াকেদির লেখা থেকে। কিতাব আল মাগহাযিতে ওয়াকেদি লিখেছেন যে বদরের যুদ্ধে হুবায়রা আহত হয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে পড়ে থাকেন। সে সময় হুবায়রার দুই সঙ্গী হুবায়রাকে তুলে নিয়ে যায়। মুহাম্মদ যখন এই সংবাদ জানলেন তখন ঐ দুজন সঙ্গীকে হুবায়রার দুই কুত্তা বলে গালি দিলেন।

হুবায়রা যখন দেখল যে তার পক্ষের সৈন্যরা পশ্চদাপসারণ করে যাচ্ছে তখন সে অত্যন্ত অসহায় বোধ করল। সেই সময় তার এক মিত্র তার নিজের বর্ম হুবায়রার গায়ে চাপিয়ে দিয়ে তাকে ঘাড়ে নিয়ে চলল। অন্যেরা বলে আবু দাউদ আল মাজনি তার তরবারি দ্বারা হুবায়রাকে আঘাত করে তার বর্ম কেটে ফেলে। হুবায়রা মাটিতে মুখ থুবড়ে পড়ে থাকে। আবু দাউদ চলে যায়। তখন যুবায়ের আল জুশামির দুই পুত্র যাদের নাম আবু উসামা এবং মালিক তারা হুবায়রাকে চিনতে পারল। তারা ছিল হুবায়রার মিত্র। তারা হুবায়রার জীবন রক্ষা করল। আবু উসামা হুবায়রাকে ঘাড়ে নিয়ে নিলো আর মালিক তাকে প্রতিরোধ করল। নবী বললেন: “হুবায়রার দুই কুত্তা তাকে রক্ষা করল।“ আবু উসামার বন্ধুত্ব ছিল তাল গাছের মতই দৃঢ়। আর এক জন বলল যে হুবায়রাকে যে আঘাত করেছিল তার নাম ছিল আল মুজাস্‌সার বিন দিয়াদ। (আল ওয়াকেদি, পৃঃ ৪৮)

এই সব দলীল থেকে পরিষ্কার হয়ে যায় যে হুবায়রার সাথে উম হানীর বিবাহকে মুহাম্মদ কখনই সহজভাবে নেন নাই। হুবায়রা শুধু ইসলামের শত্রুই ছিলেন না, উনি হয়ে গিয়েছিলেন মুহাম্মদের ব্যক্তিগত এক নম্বর শত্রু। হুবায়রাও এই সত্য ভালভাবেই জানতেন। তাই মক্কা বিজয়ের প্রাক্কালে হুবায়রা উম হানীকে ছেড়ে দেশান্তর হয়ে যান—নিজের প্রাণ রক্ষার জন্য। এই ব্যাপারে আমরা আরও জানব নিচের লেখা হতে।

খদিজা ও আবু তালিবের মৃত্যুর পর

উইলিয়াম মুর (মুর, পৃঃ ১০৫) লিখেছেন যে মুহাম্মদের প্রথম স্ত্রী খদিজা মারা যান ৬১৯ সালে। এর পাঁচ সপ্তাহ পরেই (জানুয়ারি ৬২০) সালে আবু তালেব মারা যান। এই সময়টা ছিল হিজরতের তিন বছর আগে। পর পর এই দুই বিয়োগান্ত ঘটনার ফলে মুহাম্মদ অতিশয় মুষড়ে পড়েন।

এই ব্যাপারে আরও এক প্রখ্যাত জীবনীকার লিখেছেন:

খদেজা এবং আবু তালেব মারা যান কয়েকদিনের ব্যবধানে। এই ঘটনা ঘটে ৬১৯ সালে। এরপর থেকে ধারাবাহিক ঘটনাগুলির সন ও তারিখ বেশ নির্ভরযোগ্য ভাবে গণনা করা যেতে পারে। কোন আরবই তার স্ত্রীর বিয়োগের পর বেশীদিন স্ত্রী ছাড়া থাকে না। আর তাছাড়া যার সন্তান আছে তার জন্যে ত কথাই নাই। কিছু দিন, অথবা সর্বোচ্চ কয়েক সপ্তাহ পরেই স্ত্রী হারা মুহাম্মদ সওদা নামে এক বিধবাকে বিবাহ করেন। পূর্বে মুহাম্মদের এক ভক্ত ছিল এই বিধবার স্বামী। সওদা তাঁর স্বামীর সাথে আবিসিনিয়া গিয়েছিলেন। সেখানে সওদার স্বামী খ্রিষ্টান ধর্ম গ্রহণ করেন। সওদা তরুণ বয়সের ছিলেন না এবং বেশ মুটিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু সওদা গিন্নি হিসাবে ছিলেন অতি উত্তম। তাই মুহাম্মদের সন্তানদের দেখাশোনার জন্য খুব যোগ্য। এই জন্যই মুহাম্মদ সওদাকে বিবাহ্ করেন। নবীর জীবনে সওদার কোন প্রভাবই ছিল না। নিঃসন্দেহে মুহাম্মদ ছিলেন সওদার প্রভুর মত। সওদা মুহাম্মদকে যৌন তৃপ্তি দিতে সক্ষম ছিলেন না। আর রাজনৈতিক ভাবে নবীর স্থান শক্তিশালী করার জন্য কোন অবদানও সওদার ছিল না। (রডিন্সন, পৃঃ ১৩৪)

মার্টিন লিঙ্গস্‌ লিখেছেন মৃত্যুকালে খদেজার বয়স ছিল ৬৫ এবং মুহাম্মদের বয়স প্রায় ৫০। (লিঙ্গস্‌, পৃঃ ৯৬)

খদেজার মৃত্যুর পর মুহাম্মদ ঘন ঘন কাবা শরীফে যাওয়া শুরু করলেন আর সেখানে খুব সম্ভবত: উচ্চৈঃস্বরে কোরান আবৃত্তি করতেন। আমরা আগেই এক হাদিসে দেখেছি যে উম হানীর গৃহ কাবার এত নিকটে ছিল যে উম হানী নবীর কোরান আবৃত্তি শুনতে পেতেন। আমরা ধরে নিতে পারি যে মুহাম্মদ এই সময়ে উম হানীর খুব সান্নিধ্যে আসেন—হয়ত বা তিনি নিয়মিত উম হানীর গৃহে যাতায়াত করতেন—হয়ত বা অনেক রাত্রি দিন উম হানীর গৃহেই কাটাতেন। একবার মুহাম্মদ কোরান আবৃত্তি শেষ করে মাটিতে মাথা ঠেকালেন। এই সময়ই দুষ্ট কিছু কোরায়েশ তাঁর ঘাড়ে ভেড়া (অথবা উটের) নাড়ীভুঁড়ি জড়িয়ে দিল। এই সময় মুহাম্মদ স্ত্রী হারা, নিতান্ত একাকী, অসহায়। শত্রু কোরায়েশদের থেকে একটু শান্তি এবং সহানুভূতির জন্য উম হানীর দ্বারস্থ হচ্ছিলেন। উম হানীই হয়ে উঠলেন নবীর একমাত্র নারী। উম হানীও সাদরে আপ্যায়ন করলেন নবীকে। তাঁদের দুজনের বাল্যপ্রেমের দিনগুলি আবার যেন উদ্ভাসিত হয়ে গেল। এই সব কিছুই কোরায়েশদের দৃষ্টি এড়াল না। তারা হয়ত উৎসুক হয়ে উঠল কিসের আনাগোনা মুহাম্মদের উমর হানীর গৃহে?

এই পরিস্থিতি এড়াতে মুহাম্মদ বোধকরি চিন্তা করলেন: না, এখানে আর নয়। আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে, আমাকে যেতে হবে অন্য কোথায়—অন্য কারও কাছে—যারা আমাকে সামান্য ভাবে হলেও গ্রহণ করবে, একটু ভক্তি শ্রদ্ধা দেখাবে।। এই উদ্দেশ্যে নবী গেলেন তায়েফে। সেখানে থাকত সাকিফ (থাকিফ) লোকেরা। তারা উপাসনা করত দেবী আল লাতের। নবী অনেক চেষ্টা করলেন তাদেরকে ইসলামে দীক্ষিত করতে। কিন্তু তায়েফের লোকেরা তাঁর কথায় কর্ণপাত ত করলই না বরং তাদের বালকদেরকে লেলিয়ে দিল নবীর পেছনে। এই সব বখাটে রাস্তার বালকেরা নবীকে ঢিল মেরে বাধ্য করল তায়েফ ছাড়তে। মোহ-ভগ্ন, ভারাক্রান্ত, শোকা-হত হৃদয়ে মুহাম্মদ আবার ফিরে আসলেন মক্কায়, সেই উম হানীর কাছে। একমাত্র উম হানীর কাছেই নবী মনের কথা খুলে বলতে পারেন।

ইবনে ইসহাক লিখেছেন:

খদিজা এবং আবু তালেব দু’জন একই বৎসরে মারা গেলেন। খদিজার মৃত্যুর সাথেই একের পর এক সমস্যা আসতে লাগল। কারণ খদিজার কাছ থেকেই নবী পেয়েছিলেন ইসলামের সমর্থন। খদিজার কাছে মুহাম্মদ তাঁর সমস্যার কথা আলোচনা করতেন। আবু তালেবের মৃত্যুতে নবী হারালেন তাঁর ব্যক্তিগত নিরাপত্তা আর অন্য গোত্রের হামলা থেকে রক্ষার জামিন কবচ। মদিনায় অভিভাষণের বছর তিনেক আগে আবু তালেব মারা যান। এই সময়েই নবী কোরায়েশদের সাথে প্রতিকুল পরিবেশের সম্মূখীন হতে থাকলেন। আবু তালেবের মৃত্যুর পূর্বে নবী কখনই কোরায়েশদের কাছ হতে এমন শত্রুতামূলক ব্যবহার পান নাই। (ইবনে ইসহাক, পৃঃ ১৯১)

চলবে (৩য় পর্বে)…

উম হানী এবং নবী মুহাম্মদ (পর্ব-১)

[616 বার পঠিত]