আমাদের অভিভাবকেরা নিজেদের সন্তানের শিক্ষা নিয়ে দারুণ উদ্বিগ্ন! হয়তো একটু বেশি মাত্রায়। কেননা সন্তানকে ভালো গ্রেডে পাস করতে হবে। কিন্তু ভালো রেজাল্টের এই প্রতিযোগিতায় শিশুরা কি পিছিয়ে পড়ছে বুদ্ধিতে, মানসিকতায়?

প্রতিটি অভিভাবকই চান তার সন্তান ২৪ ঘণ্টাই বই খুলে বসে থাকুক। আর পরীক্ষা চলাকালে তাদের এই উদ্বিগ্নতার মাত্রা সীমা ছাড়িয়ে যায়। যেমন পরীক্ষা শুরু হওয়ার এক সপ্তাহ আগে থেকেই বাইরে ঘোরাঘুরি, পাঠ্যবইয়ের বাইরে বই পড়া, খেলাধুলা সকল কিছুর প্রতি নিষেধাজ্ঞা আরোপ হয়। শুধু বইয়ের মাঝে মুখ গুজে বসে থাকো! আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থায় যে কোনো শ্রেণীতে তিনটি সাময়িকী পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকে। অর্থাৎ ছাত্রদের জীবনে প্রতি বছরে তিনটি মাস কাটে এইরকম নির্বাসনে! পরীক্ষা সম্পর্কে ভয় ভীতি পরীক্ষায় ভালো ফলাফলের ক্ষেত্রে কি আসলেই সহায়ক?
গবেষণায় দেখা গিয়েছে অতিরিক্ত ভয় আলসার, মাথাব্যথা, চামড়ায় এলার্জির মতো কিছু অসুখের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। প্রতি বছর S.S.C ও H.S.C এই দুই বড় পাবলিক পরীক্ষায় কৃতকার্য না হতে পেরে অনেক ছাত্রদের আত্মহত্যা করার কথাও শুনা যায়। পড়াশুনা নিয়ে ঠিক কতটুকু চাপ শিশুকে প্ররোচিত করে এইরকমভাবে নিজেকে ধ্বংস করে দেয়ার পথ বেঁছে নিতে!

আর অভিভাবকদের এই উদ্বিগ্নতাকে পুঁজি করে গড়ে উঠছে কোচিং সেন্টারগুলো। শিক্ষকেরাও ক্লাসে নিজেদের পুরোপুরি উজাড় করে না দিয়ে অনেকটাই বাঁচিয়ে রাখছেন তাদের নিজস্ব কোচিং ক্লাসের জন্য। যেমন- পরীক্ষার খাতায় অঙ্কের নিয়মটি কেটে দিয়ে বললেন- ‘এ নিয়মে করলে হবে না, আমার নিয়মে করতে হবে।’ শিক্ষকের নিয়মটি কি? তা তার কোচিং ক্লাসে গেলেই শুধু জানা যাবে। এভাবে অনেক শিক্ষককে দেখা যায় অভিভাবক ও ছাত্রদের তার কোচিং সেন্টারে ভর্তি হতে বাধ্য করতে। গণিতের জন্য একজন শিক্ষক, বাংলা ও ইংরেজির জন্য একজন এবং বাকি বিষয়ের জন্য একজন করে শিক্ষক নিয়োগ করতে গেলে ছাত্রদের কমপক্ষে তিনটি কোচিং এ ভর্তি হতে হয়। স্কুল থেকে ফিরে এই তিন কোচিং এ ছুটতে ছুটতে তো পুরো দিন কাবার হয়ে যাবার কথা! কোচিং শেষে ঘরে ফিরে ক্লান্ত শ্রান্ত দেহটাকে আবার পড়ার টেবিলে বয়ে নিয়ে আবারো পড়তে বসা এবং বাড়ির কাজ শেষ করা! এভাবে শিশুর দেহ ও মনে ক্রমাগত চাপ প্রয়োগের মাধ্যমে এবং শিশুদের স্বতঃস্ফূর্ত বৃদ্ধিকে ব্যাহত করার মাধ্যমে আমরা বৃথাই সুফল বয়ে আনার চেষ্টা করছি।

আমার ছোট ভাই, বয়স ৫ বছর, স্কুল বাদে তার দুটো কাজ -সারাদিন কম্পিউটারে বসে গেম খেলা নয়ত টিভিতে ‘ডোরেমন’ কার্টুন দেখা। ইদানীং দেখছি ‘ডোরেমন’ নামের এই কার্টুনটি বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করছে! আমি অনেকদিন চেষ্টা করেছি তাকে গেম ও টিভির কাছ থেকে সরাতে। কয়েকবার টিভির রিমোট লুকিয়ে ও পিসিতে পাসওয়ার্ড দিয়ে রেখেছিলাম। কিন্তু আমার ভাইয়ের একটাই প্রশ্ন- আমি তাহলে কি করব? ঠিকই তো। স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পর সন্ধ্যাবেলা পড়তে বসা ছাড়া বাকিটা সময় তার আর কীইবা করার আছে!

আমাদের এখানে চারপাশে শুধু উঁচু উঁচু দালানকোঠা। খোলা মাঠ নেই। কোন পার্ক নেই শিশুদের খেলার। ছুটোছুটি করার, সবুজ সতেজ প্রকৃতি ঘেরা পরিবেশে প্রান ভরে শ্বাস নিবে এতোটুকু জায়গা পর্যন্ত নেই! তাহলে শিশুরা খেলবে কোথায়? তাই শহরের শিশুদের কাছে এখন বিনোদন মানে কম্পিউটার নয়ত টিভি। আর এতে তারা দিনদিন মুটিয়ে যাচ্ছে।

২০০৬ সালের সেপ্টেম্বরে ঢাকার একটি পাবলিক স্কুলের ২৬৬ জন ছাত্র ও ২০২ জন ছাত্রীদের উপর করা গবেষণায় দেখা যায় স্থূলতার প্রাদুর্ভাব ১৭.৯%; যেখানে ছেলেরা শীর্ষস্থান অধিকার করে আছে ১৯.৯% নিয়ে এবং মেয়েরা ১৫.৩% নিয়ে এবং স্থূলতা সবচেয়ে বেশী ১০-১৩ বছর বয়স্ক ছাত্র ছাত্রীদের ভিতর। [১]

খেলাধুলা শুধুই আমোদ প্রমোদের জন্য নয় বরং একটি সুস্থ দেহ গঠনেও এর প্রয়োজনীয়তা সবচেয় বেশী। আর একটি সুস্থ দেহ শক্ত মানসিক অবস্থানের ভিত্তি প্রস্থর করে। জন্মের পর থেকে খেলাধুলার মাধ্যমেই শিশুরা তাদের দৈহিক নাড়াচাড়া ও পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে শেখে। অগ্রগতি স্নায়ুবিজ্ঞান ও আণবিক জীববিজ্ঞানের গবেষণায় দেখা যায় প্রথম জীবনের শারীরিক অসুস্থতা পরবর্তী জীবনের দীর্ঘস্থায়ী অসুখের কারণ হিসেবে দাঁড়ায় যা মস্তিষ্কের উন্নয়নে, কার্ডিওভাস্কুলার ব্যবস্থায় ও মেটাবলিক নিয়ন্ত্রকের নিয়ন্ত্রণের উপর প্রভাব ফেলে।

Brigham Young University এর অধ্যাপক Dr. Steven Aldana জানান, বাল্যকালের অস্বাস্থ্যকর অভ্যাস হৃদরোগ ও দীর্ঘ মেয়াদী রোগের কারণ। সুগঠিত খেলাধুলোই পারে একটি সুস্থ জীবন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে এবং তাকে দীর্ঘস্থায়ী করে বাঁচিয়ে রাখতে। [২]

বৃহৎ পরিসরের গবেষণায় এও দেখা যায় মেয়েদের ক্ষেত্রে খেলাধুলা কিশোরী বয়সের গর্ভাবস্থার হার কমতে ও আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে। এছাড়াও অস্টিওপরোসিস ও ব্রেস্ট ক্যান্সারের মতো রোগ হওয়ার সম্ভাবনা কমাতেও তা কিছুটা হলেও প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম হয়।

ছোটকালে আমরা পাড়ার সবাই মিলে যখন খেলতাম তখন প্রায়ই সময় ঝগড়া লেগে যেত কে চোর হবে! কেউই চোর হতে চাইত না। তখন আমরা ‘আম পাতা জোড়া জোড়া’ কবিতাটি গেয়ে গুনতাম আর সবার শেষে যাকে দিয়ে গোনা শেষ হত সেই চোর হত। এতেও কারো কারো মাঝে অসন্তুষ্টি রয়ে যেত কেনোনা মাঝে মাঝে একজনকেই বার বার চোর হতে হত। একদিন এ নিয়ে ঝগড়া লাগায় আমার মামা এসে ঠিক করে দিলেন সবাই একবার একবার করে চোর হবে। আমরা তৎক্ষণাৎ রাজি হয়ে গেলাম। এইরকম সুষম বণ্টন শিশুদের মাঝে সহযোগিতা বোধ সৃষ্টি করে এবং শিশুরাও মেনে নেয় কেনোনা প্রতিবার চোর হওয়ার চেয়ে একবার বা সমান সংখ্যক-বার চোর হওয়া যে বেশী সুবিধার তা তারা বুঝে যায়।

এভাবেই খেলাধুলার মাধ্যমে শিশুদের মাঝে সহযোগিতা, নির্মল বন্ধুত্বের ও মিলেমিশে কাজ করার সহনশীল পরিবেশ গড়ে উঠতে পারে। শুধু সৌষ্ঠব ও সুস্থ দেহ গঠনেই নয় সামাজিকতা, শৃঙ্খলা, শেখার ক্ষেত্রেও খেলাধুলা একটি সুন্দর ও সহজ মাধ্যম।

আমার স্কুল শিক্ষকদের কাছে ও ছোটকালের টিউটোরিয়াল শিক্ষকদের কাছে আমার মায়ের সবচেয়ে বেশী উচ্চারিত বাক্যটি ছিল- ‘মেয়েকে আপনার কাছে দিয়ে গেলাম, স্যার। পড়া না পারলে ইচ্ছেমতো মারবেন। এই নিন বেত।’ একটা সময় ছিল যখন আমাদের মা বাবারা বিশ্বাস করতেন ‘মাইরের মধ্যে ভিটামিন’ আছে। আজকাল এইরকম ধ্যান ধারনার চর্চা অনেকটা কম। যদিও ছোট বাচ্চাদের টিউশনি করতে গিয়ে আমাকেও একথা কয়েকবার শুনতে হয়েছে। শারীরিক শাস্তি কিংবা মানসিক শাস্তি আসলেই কি পারে ছোটদের পড়ালেখার প্রতি মনোযোগ বৃদ্ধি করতে?

Christchurch Health and Development Study থেকে প্রাপ্ত ফলাফলের ভিত্তিতে Professor David Fergusson বলেন-
Evaluations of the relationship between reports of physical punishment or abuse during childhood and psychosocial outcomes in early adulthood clearly showed that young people reporting harsh or abusive treatment had increased rates of conduct problems, substance abuse, depression, anxiety and violent crime. There were, however, no clear differences between the adjustment of young people who reported that their parents never used physical punishment and those who reported that their parents infrequently used physical punishment.


[৩]

অর্থাৎ শারীরিক শাস্তি শিশুর উন্নয়নের ক্ষেত্রে কোন ভূমিকাই রাখতে পারে না।

আমার মামাতো ভাই শিহাব ছিল ‘দুষ্টুর শিরোমণি লঙ্কার রাজা’ আর আমার মামা ছিলেন সেই লঙ্কা বনের অধিপতি। পান থেকে চুন খসলেই রীতিমতো বাঘের হুঙ্কার ছাড়তেন তিনি। আমার এই ভাইটিকে তিনি নানাভাবে শাস্তি দিতেন পড়ালেখায় মনোযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে। পড়ার সময় তাকে চেয়ারের সাথে বেধে রাখতেন যাতে পালিয়ে যেতে না পারত, ঈদের দিন দুষ্টুমি করায় তাকে তিন ঘণ্টা শিকল দিয়েও বেধে রেখেছেন, এইরকম নানাবিধ শাস্তি। কতগুলো রীতিমত ভয়াবহ! লাভের লাভ কিছুই হয়নি। আমার ভাইটি আজও পড়ালেখায় অমনোযোগী!

আমার ছোটবোনকে যতবার কানে ধরে উঠবস করতে বলি কিংবা মার দিব বলে স্কেল নিয়ে আসতে বলি ততবার তার চোখ মুখ শক্ত হয়ে যায়। আমি স্পষ্ট বুঝতে পারি আমার বিরুদ্ধে একটা ক্ষোভ তিরতির করে বেড়ে উঠছে তার ভিতর আর ফুটে উঠছে তার মুখে। শারীরিক শাস্তি শিশুদের মনে আপনার বিরুদ্ধে শুধু ক্ষোভই তৈরি করবে, পড়ালেখার ক্ষেত্রে তা কোন সহায়ক ভূমিকা পালন করবে না।
শারীরিক শাস্তির উপর গবেষণা পত্রে Elizabeth Gershoff উল্লেখ করেন-

Ten of the 11 meta-analyses indicate parental corporal punishment is associated with the following undesirable behaviours and experiences; decreased moral internalisation, increased child aggression, increased child delinquent and antisocial behaviour, decreased quality of relationship between parents and child, decreased child mental health, increased risk of being a victim of physical abuse, increased adult aggression, increased adult criminal and antisocial behaviour, decreased adult mental health, and increased risk of abusing own child or spouse. Corporal punishment was associated with only one desirable behaviour, namely increased immediate compliance .


[৪]

মানসিক ও দৈহিক অনেক ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি ছাড়া শারীরিক শাস্তির আর কোন কার্যকারিতা নেই।

অবশ্য আমার হুজুর বলতেন ‘ওস্তাদ ছাত্রের শরীরের যেই যেই অংশে বেত মারবেন সেই অংশ বেহেশত লাভ করবে’! সেই হিসেবে আমার হাতের হিউমেরাস, আলনা-রেডিয়াস, পায়ের ফিমার, টিবিয়া-ফেবুলা, কারপাস, মধ্য দু আঙ্গুলের মেটা-কারপাস ও ফ্যালাঞ্জাস এবং এছাড়া আরও কিছু অস্থিসমুহ তাদের মাংসের প্রলেপ সহ বেহেশতে নাযিল হওয়ার কথা! বেহেশতে যাওয়ার এ সম্ভবত সবচেয়ে কম সময়ের প্রক্রিয়া!

আমাদের শিক্ষকেরা আমাদের কাছে এখন অগ্নিমুর্তিস্বরুপ। শিক্ষক মানেই হাতে জালি বেত নিয়ে পড়া মুখস্থ করিয়ে দেয়ার, পরীক্ষা নেয়ার আর শাস্তি দেয়ার যন্ত্র! কেনোনা একসময় মানা হত, এখনও তা মানা হয়, যে শিক্ষক হতে হলে আপনাকে হতে হবে রাগী। তাই আমরা শিক্ষকদের সামনে মিইয়ে থাকি, প্রশ্ন করতে ভয় পাই। অথচ শিক্ষার উদ্দেশ্যই হচ্ছে শিক্ষার্থীদের মনে প্রশ্ন তৈরি করা আর শিক্ষকের কাজ সেইসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজে নিতে সাহায্য করা। দরকার শিক্ষক ও ছাত্রদের মাঝে বন্ধুসুলভ পরিবেশ। শিক্ষক যতদিন পর্যন্ত ছাত্রদের প্রতি নমনীয় দৃষ্টি দিতে অক্ষম ততদিন পর্যন্ত শিক্ষার আসল উদ্দেশ্য ব্যাহত হতে বাধ্য।

প্রায় ৪ হাজার পরিবারের উপর গবেষণালব্ধ ২০০৯ সালে ইউনিসেফের প্রকাশিত Opinion Of Children Of Bangladesh On Corporal Punishment শীর্ষক গবেষণা পত্রে দেখানো হয় প্রায় ৯১% শিশু স্কুলে শারীরিক নির্যাতনের শিকার। এদের ভিতর এক চতুর্থাংশ অর্থাৎ ২৩% শিশুরা জানিয়েছে তারা প্রতিদিন এইরকম শাস্তির সম্মুখীন হয় এবং ৭% শিশুরা শাস্তির ফলস্বরুপ আহত ও রক্তাক্ত হয়েছে।

গবেষণায় আরও বলা হয়, ৯৯.৩% শিশুরা তাদের মাতা পিতা থেকে প্রতিনিয়ত শাব্দিক-ভাবে দেয়া শাস্তি ও হুমকির সম্মুখীন হচ্ছে; ৭৪% শারীরিক ভাবে নির্যাতিত হচ্ছে মাতা পিতা কিংবা অভিভাবকের হাতে। [৫]
ঢাকায় ২৫০০ এর বেশি গৃহ শিশু শ্রমিকের উপর Save The Children কর্তৃক একটি জরিপে জানা যায়- নিয়োগকর্তাদের ভিতর ৬০% এর বেশী বলেছেন তারা তাদের চাকরদের প্রহার করতে প্রস্তুত ছিল।[৬]
১৬ দলে বিভক্ত ১৫৩ জন শিশু ও ১৩ দলে বিভক্ত ১০৯ জন প্রাপ্তবয়স্কের উপর করা একটি গবেষণায় কয়েকটি আচরণের প্রতি শিশুদের পছন্দ ও অপছন্দ পরীক্ষা করা হয়। যেখানে মোট ১,০৪৩টি আচরণের ভিতর শারীরিক শৃঙ্খলা / শাস্তি, মৌখিক শৃঙ্খলা / শাস্তি এবং অন্যান্য প্রকারের শৃঙ্খলা / শাস্তি – এই তিনটি আচরণ শিশুদের দ্বারা সবচেয়ে বেশি ঘৃণিত হয়েছে।[৭]

এই বছরের শুরুতে ১৩ই জানুয়ারি বিচারপতি ইমান আলী ও শেখ হাসান আরিফের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক শাস্তির নামে নির্যাতন সংবিধান পরিপন্থী বলে ঘোষণা করে রায় দেয়। শিক্ষার্থীদের অমানবিক শাস্তি দেওয়ার ১৩টি ঘটনা তুলে ধরে জনস্বার্থে আইন ও সালিশ কেন্দ্র ও বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড অ্যান্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট এ রিটটি করে। [ব্লাস্ট] [৮]

কিন্তু তবুও বন্ধ নেই শিক্ষক দ্বারা ছাত্র নির্যাতন। যেমন এই বছরের ১৩ই এপ্রিল জগন্নাথপুরে কলকলিয়া ইউনিয়নের আটপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষক ৯ম শ্রেণীর ২২ জন ছাত্রকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেন। [৯]

উপজেলার জিটি চিনামালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক উজ্জ্বল কুমার মণ্ডল কর্তৃক ছাত্র-ছাত্রীদের উপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ তুলে অভিভাবকেরা আন্দোলন করেন। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন শ্রেণীর ছাত্র-ছাত্রীদের উপর বিভিন্নভাবে নির্যাতনের অভিযোগ আনা হয়। [১০]

শিক্ষার ক্ষেত্রে তা যে কোন শিক্ষাই হোক না কেন শিশুর পরিবেশ হওয়া চাই নির্মল ও সহযোগিতামূলক। জানার প্রতি কৌতূহল মানুষের জন্মগত। শিশুদের ক্ষেত্রে এর মাত্রা একটু বেশি। তাই শিক্ষাকে তার কৌতূহলের কেন্দ্রবিন্দুতে স্থাপন করতে হবে। মুখস্থ করিয়ে কিংবা পরীক্ষার ভয় দেখিয়ে শিশুদের শিক্ষার মান বৃদ্ধি করা যাবে না।

এশিয়ার মাঝে দ্রুততম নগরায়ন হিসেবে বাংলাদেশকে উল্লেখ করে ইউনিসেফের এক রিপোর্টে দেখানো হয় ১৬০ মিলিয়ন জনগোষ্ঠীর মাঝে প্রায় অর্ধেক জনগোষ্ঠী শিশু। শহরের বস্তিতে বাস করে ৭ মিলিয়ন জনগোষ্ঠী, যার মাঝে ৩.৩ মিলিয়ন শিশু।
রিপোর্টে আরও বলা হয় প্রায় ২ মিলিয়ন শিশু স্থূলভাবে অপুষ্টিতে আক্রান্ত, বিদ্যালয় ত্যাগের হার বেশি এবং প্রায় ৭০ মিলিয়ন জনগোষ্ঠী উন্নত পয়ঃব্যবস্থাপনা পাচ্ছে না। [১১]

এমতাবস্থায় শিশু স্বাস্থ্য ও শিশু শিক্ষা উন্নয়ন কষ্ট-সাপেক্ষ কিন্তু অসম্ভব কিছু নয়।
শিক্ষা খাতে বাজেট বৃদ্ধির পাশাপাশি বেসামরিক সংস্থাগুলো এগিয়ে আসতে পারে এক্ষেত্রে। এশিয়ার মাঝে সবচেয়ে বড় শপিং মল আমাদের দরকার নেই, শিশুদের জন্য সবচেয়ে বড় খেলার মাঠ আমাদের এখন বেশী প্রয়োজন।

বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থা গণিত ও বিজ্ঞানের টেবলেট বানিয়ে শিশুদের শুধু গিলিয়ে দিচ্ছে। বৈজ্ঞানিক গবেষণাগারও আমাদের দেশে অপ্রতুল। তা বৃদ্ধির লক্ষ্যেও আমাদের কাজ করতে হবে। জাফর ইকবালের মতো কয়েকজন চেষ্টা চালাচ্ছে গণিত ও বিজ্ঞানকে শিশুদের মাঝে জনপ্রিয় করে তুলতে। যা নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।
রাস্তাঘাটে, বাসে প্রায়ই মসজিদ নির্মাণের চাঁদা তোলা হয়। এপর্যন্ত দেখলাম না কোন বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য কেউ চাঁদা তুলছে। ঢাকা শহর মসজিদের শহর। প্রায় এক লাখের বেশী মসজিদ শুধুমাত্র এই একটি শহরেই। যতটি মসজিদ ততটি বিদ্যালয় নেই কেন? প্রতিবছর হাজারো ছাত্র ছাত্রী কেন ভালো মানের বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে না পেরে হা হুতাশ করে?

শহর, গ্রাম প্রতিটি জেলায় প্রতিটি এলাকায় যদি একটি করে ছোট আকারে লাইব্রেরী প্রতিষ্ঠা করা যেত, শিশুদের খেলার পার্ক থাকত তবে হয়ত ভবিষ্যৎ নিয়ে আমরা গর্ব করতে পারতাম। বিশ্ব যখন তথ্য প্রযুক্তি ও বিজ্ঞানের পথে অধ্যয়নে ও নিত্যনতুন উদ্ভাবনে নিজেদের সবটুকু শ্রম ঢেলে দিচ্ছে আমরা তখন শিক্ষা ব্যবস্থার সনাতন ত্রুটিগুলো নিয়েই বসে আছি। শিক্ষা প্রদীপের সবটুকু আলো তাই বরাদ্দ করা চাই আমাদের শিশুদের জন্য। এবং তা এখনই।

ব্যবহৃত লিংকসমূহঃ
[১] http://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/20956898
[২]”The Culprit and the Cure”; Steven G. Aldana, Ph.D.; 2005
[৩]Fergusson, D. (1998). The Christchurch Health and Development Study – An Overview and Some Key Findings. Social Policy Journal of New Zealand. Issue 10.
[৪]Gershoff, E.T. (2002). Corporal punishment by parents and associated child behaviours and experiences: A meta-analytic and theoretical review. Psychological Bulletin. 128 (4), 439-579.
[৫]UNICEF (2009), Opinions of Children of Bangladesh on Corporal Punishment: Children’s Opinion Poll 2008, Dhaka: Ministry of Women and Children Affairs, Government of Bangladesh/UNICEF
[৬]Save the Children UK [undated], Half Way: Address and Basic Information on Shelter Homes for Children in Dhaka City, cited in Jabeen, F. & Karkara, R. (2006), Mapping Save the Children’s Response to Violence against Children in South Asia, Kathmandu: Save the Children Sweden Regional Programme for South & Central Asia
[৭]Government of Bangladesh/UNICEF/Save the Children Alliance (2005), Child Abuse Study: Study Report, Draft Version, 25 January 2005
[৮]http://www.prothom-alo.com/detail/date/2011-08-23/news/123256
[৯]http://www.uttorpurbo.com/index.php?id=103&cid=22329
[১০]http://khulnanews.com/index.php/district-news/paikgacha/4174-2011-04-12-05-33-41]
[১১]http://www.unicef.org/infobycountry/bangladesh_59052.html

[108 বার পঠিত]