পিঁপড়ারা ১০০ মিলিয়ন বছর ধরে পৃথিবীতে বাস করে। পৃথিবীর প্রায় সব খানেই পিঁপড়া দেখা যায়। তারা প্রায় ২০০০০ বিভিন্ন প্রজাতির।

পিঁপড়ারা বিভিন্ন রকম দুর্গ(ঘর/ বাড়ি) তেরি করতে পারে।কেউ কেউ আবর্জনায় বাসা বাধেঁ,কেউ মাটির নিচে,কেউ মাটির উপর, কেউ গাছে আবার অনেকেই কোন বাসাই তৈরি করে না কিছু পিঁপড়া ধুলা এবং বালি দিয়ে সাধারনত তাদের দুর্গ তৈরি করে । কিছু আছে ধুলা বালির সাথে খড়কুটু মিসিয়ে শক্ত দুর্গ বানাতে পারে যাতে বৃষ্টির পানিও ঢুকতে পারে না। শস্যসংগ্রাহী পিঁপড়ার এক প্রজাতির পিঁপড়াই সবচেয়ে ছোট দুর্গ তৈরি করে থাকে। তাদের সুরঙ্গ ১৫ ফুট পর্যন্ত গভীর হয়ে থাকে। শীতকালিন নিদ্রার জন্যই তারা এই ব্যবস্থা করে থাকে। তাদের দুর্গে অনেক প্রকোষ্ঠ থাকে । কোনটা ব্যবহৃত হয় শিশু লালন পালন, কোনটায় খাবার গুডাউন,কোনটা থাকে শ্রমিক পিঁপড়াদের বিশ্রামের জন্য।
কিছু পিঁপড়া উই পোকাদের মতো কাঠে বাস করে।

পিঁপড়ারা সামাজিক পতঙ্গ। তাই তারা মহল্লা বা দল তৈরি করে। এদের এই রকম দলকে বলে কলোনী। কোন কোন কলোনীতে এক দশ লাখ এর মিলিয়ন পিঁপড়া থাকতে পারে। প্রতিটা প্রজাতিতে তিন ধরনের পিঁপড়া থাকে। রানী পিঁপড়া, বন্ধা স্ত্রী পিঁপড়া এবং পুরুষ পিঁপড়া। সকল কর্মী পিঁপড়ারাই নারী পিঁপড়া। নারীরাই কলোনির সকল কাজ করে থাকে। তারা খাবার সরবরাহ করে, পিঁপড়ার ডিমের যত্ন নেয়, দুর্গ তৈরি করে, দুর্গ পরিস্কার রাখে এবং কলোনিকে রক্ষা করে।

পুরুষদের পাখা থাকে, তারা কোন কাজই করে না। তারা কলোনিতে রানীর সাথে সহবাস করে উৎপাদনে সহায়তা করে বংশ রক্ষা করে থাকে। এবং সহবাসের পরেই মারা যায়। পুরুষদের জীবন আট সপ্তাহের বেশি হয় না। পুরুষ পিঁপড়াদের একটাই কাজ তা হচ্ছে ভবিষৎ রানীদের সঙ্গ দেয়া।

রানী পিঁপড়া অন্যদের চেয়ে অনেকটা বড় হয়ে থাকে।রানী যখন যৌবন প্রাপ্ত হয় সঙ্গ গ্রহন করে । রানী পিঁপড়া দুই সেট পাখা নিয়েই জন্মায়। বাচেঁ প্রায় বিশ বছরের মতো । প্রায় হাজার খানেকের মতো ডিম পারে, তবে সব ডিমে বাচ্চা হয় না। পিঁপড়ার ডিমও দেখতে ডিম্বাকৃতীর এবং খুব ছোট। এক একটা ডিমের দৈর্ঘ হয় প্রায় ১মিলিমিটারের মতো তবে যে ডিমে ভবিৎষত রানী পিঁপড়া থাকে তা দেখতে অনেক বড় হয়ে থাকে।

যে ডিমগুলোর বাচ্চা হবার সম্ভাবনা আছে সেগুলো নারী পিঁপড়া তাপ দিয়ে থাকে আর যে ডিমগুলোর কোন সম্ভাবনা নাই সে গুলোতে পুরুষরা তাপ দেয়। ডিম পারার পর কর্মীরা ডিমগুলো আলাদা বিশেষ কক্ষে নিয়ে আসে। কর্মীপিঁপড়ারা ডিমগুলোকে প্রতিদিন পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে পছন্দ করে।

পিঁপড়াদের জীবন চারটি স্তরে বিভক্ত। ডিম,লার্ভা,পুপা ও পুর্নাঙ্গ পিঁপড়া। ডিমগুলো থেকে উৎপন্ন হয় লার্ভা। লার্ভা পর্যায়ে তাদের কোন চোখ,কিংবা পা কোনটাই থাকেনা। কিন্তু তারা খাবার খেতে পারে। বড় পিঁপড়া এই খাবার খাওয়ায় এবং দেখাশোনা করে। লার্ভাগুলি ধীরে ধীরে বড় হতে থাকে এবং অনেকটা মন্ডের আকার ধারন করে,উপরে একটি নতুন চামড়া তৈরি হয়।তখন দেখতে অনেকটা রেশমের গুটির মতো দেখায়।

এটাকেই পোপা দশা বলে। পোপা আবস্থার পর যখন পুর্নাঙ্গ পিঁপড়ায় রুপান্তরিত হয়, পিঁপড়ারা তখন তাদের এই খোলস কেটে পিঁপড়াদের বের হয়ে আসতে সহায়তা করে। প্রথম আবস্থায় তাদের দেহ কিছুটা ধুসর সাদা থাকে। কয়েক ঘন্টা পরেই তারা চলাচল শুরু করে।তারা অল্প কয়েক দিনেই বড় হয়ে যায়। পিঁপড়া ডিম থেকে পুর্ণ বয়স্ক হতে তিনমাসের মতো সময় লাগে। পিঁপড়ার এই পরিবর্তন করে বিজ্ঞানের ভাষায় পিঁপড়ার রুপান্তর বলে।

সাধারন ভাবে পিঁপড়ারা ৭ বছর পর্যন্ত বাঁচে কিন্তু রানী পিঁপড়া ১৫ বছরের মতো বাঁচতে পারে। তারা খুব ব্যাস্ত সময় কাটায়। পিঁপড়ারা দলবদ্ধভাবে খাবার সংগ্রহ, এবং যুদ্ধ করে থাকে।জীবনের বেশির ভাগ সময়ই তারা তাদের দলের সাথে কাটায়। কেউ কেউ খাবার হিসেবে কাঠ খুব পছন্দ করে কেউ আবার তৃণ পছন্দ। সবধরনের শস্যই তারা পছন্দ করে । চিনির প্রতি তাদের আছে আলাদা আকর্ষন।

পিঁপড়ার শরীর প্রধানত তিনটি অংশে ভাগ করা থাকে মাথা( হেড), মধ্যশরীর(শরীরের মধ্যবর্তী অংশ),পশ্চাতদেশ( rear আথবা metasoma) । পিঁপড়ার থাকে ছয়টা পা। সবগুলো পাই শরীরের মধ্যবর্তী অংশের সাথে সংযুক্ত থাকে।

মাথার অংশে থাকে চোয়াল( মুখ), চোখ, এবং এন্টানা ( কীটপতঙ্গের মাথার জোড়া শুঁড় যা তাদের অনুভব-ইন্দ্রিয়ের কাজ করে।) তেলাপোকার যেমন সামনে দুটি নাড়াচারা করার মতো এন্টেনা থাকে। তাদের চোখ অনেকগুলী লেন্সের সমন্বয়ে তৈরি তাই তার যে কোন নাড়াচাড়া খুব ভালভাবে দেখতে পারে। তাদের এন্টানাটা বিশেষ ভাবে তৈরি । তারা এন্টেনা দিয়ে গ্রান নেয়া, স্পর্শ করা, স্বাদ নেয়া এমনকি শুনতেও পারে। পশ্চাতদেশের তাদের পেট এবং মলদ্বার থাকে। অনেক প্রজাতির পিঁপড়ার বিষাক্ত কর ( বিষ প্রয়োগের ক্ষমতা) আছে। অনেক প্রজাতির পিঁপড়ার পশ্চাতদেশের বিষাক্ত হুল থাকে যা তাদের শত্রুদের হাত থেকে রক্ষা করে।

পিঁপড়াদের কোন ফুসফুস থাকেনা। ক্ষুদ্র এক প্রাকার ছিদ্র দিয়ে আক্সিজেন গ্রহন এবং কার্বনডাই আক্সাইড ত্যাগ করে। পিঁপড়াদের রক্তের কোন রং নাই। তাদের হৃতপিন্ড অনেকটা লম্বা টিউবের মতো। মাথা থেকে রঙহীন রক্ত বডিতে যায় এবং আবার মাথায় ফিরে আসে। তাদের রক্তে এক ধরনের কস থাকে হৃদপিন্ড পরিশোধন করে আবার মাথায় ফেরত পাঠায়। পিপিড়াদের স্নায়ু তন্ত্র দীর্ঘ স্নায়ু তন্তু দিয়ে গঠিত। স্নায়ুতন্ত্র মাথা বডি থেকে প্রতিটি শরীরে প্রতিটি অংশে কাজ করে। এটা অনেকটা মানুষের মেরুদন্ডের ভেতরের স্পাইনাল কর্ডের মতো কাজ করে।

আপনি যদি দীর্ঘ সময় ধরে পিঁপড়াদের দেখেন দেখবেন তারা নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ করে। পিঁপড়ারা তাদের এন্টানার স্পর্শ করে নিজেদের মদ্যে যোগাযোগ করে। তারা এক ধরনের কেমিক্যাল ছড়িয়ে রাখে যা তাদের পরবর্তিদের ফলো করতে সহায়তা করে।

পিঁপড়ারা কলোনির জন্য নানা ধরনের কাজ করে থাকে। প্রজাতি অনুযায়ি তাদের কাজের ধরন ভিন্ন হয়। তাদের দেহর উপরও নির্ভর করে কে কোন কাজ করবে। বড় মাথার পিঁপড়া যে কাজ করে ছোট মাথার পিঁপড়া তা করে না। শক্ত চোয়াল যার আছে তার কাজ এবং নরম চোয়াল ওয়ালার কাজের চেয়ে ভিন্ন। তাছাড়াও ডিম, লার্ভা ও পুপাদের লালন পালনের জন্য কাজ ভাগ করা আছে। কেউ খাবার সংগ্রহ করে। এমনিক দুর্গ তৈরি করা পাহারা দেয়ার দ্বায়িত্বেও ভিন্ন ভিন্ন পিঁপড়া কাজ করে।

পিঁপড়ারা জীবনের নানান স্তরে নানান ধরনের খাদ্য খেয়ে থাকে। ছোট লার্ভারা বড় পিঁপড়াদের কাছ থেকে এক ধরনের তরল খেয়ে থাকে। বড় পিঁপড়ারা বাহির থেকে যে শস্য সংগ্রহ করতে পারে তাই খায় এবং সংগ্রহ করে কলোনিতে নিয়ে আসে। সংগ্রহিত খাবার ছোটদের খাবার উপযুক্ত তরল করে দেয় যাতে তা সহজে খেতে পারে। বড় হয়ে যাবার পর কিছু কিছু পিঁপড়া খাবার খেতে পারে না কারন তাদের চোয়াল কেবল তাদের কাজের উপযোগি হয়ে তৈরি হয় খাবার খাওয়ার জন্য নয়। রানী পিঁপড়া রাজকীয় আপ্যায়ন পায়। কর্মী পিঁপড়ারা রানীল জন্য আলাদা করে এক ধরনের তরল মুখে করে নিয়ে আসে। পুরুষ ও রানী পিঁপড়ারা এতটাই অলস থাকে যে তাদের কর্মী পিঁপড়া খাবার তুলে দেয়।

লক্ষ করলে দেখায়ায় কিছু পিঁপড়া নানান ধরনের কাজ করছে।

পাতাকাটা পিঁপড়া: এরা পাতা কেটে জৈব সার তৈরি করে। এবং তাদের খাদ্য উৎপাদন করে থাকে। এ ধরনের পিঁপড়া
গ্রীষ্মমণ্ডলীয় আঞ্চল এবংদক্ষিন আমেরিকারয় পাওয়া যায়।

শস্যসংগ্রাহী পিঁপড়া: এরা নাতিশীতোষ্ণ উত্তর আমেরিকায় বাস করে। বেশির ভাগ প্রজাতি যুক্তরাষ্টের মিসিসিপি নদির পশ্চিমে পাওয়া যায়। তাদের মধ্যে দুইটা প্রজাতি আছে একটা টেক্সাস হারভেষ্টার এবং অন্যটা ওয়েষ্টার্ন(লাল) হার্বেষ্টার পিঁপড়া।

আর্মি পিঁপড়া: তারা খুব কর্মঠ এবং ক্ষেপাটে। তারা দলবল নিয়ে শিকার করার জন্য ঘুরে বেড়ায়। তাদেরকেও গ্রীষ্মমণ্ডলীয় আঞ্চল এবংদক্ষিন আমেরিকারয় পাওয়া যায়।

তাঁতী পিঁপড়া: লালচে এক ধরনের পিঁপড়া। এরা আফ্রিকার গ্রীষ্মমণ্ডলীয় বনে, ইন্ডিয়া, এবং দক্ষিন আস্ট্রলিয়ায় পাওয়া যায়।

ইন্টানেটের কল্যানে প্রাপ্ত।

[116 বার পঠিত]