১। পেশাগত কারণে তথ্য-সাংবাদিকতার কাজে বহু বছর ধরে পাহাড়ে, বনে-বাদাড়ে আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকাগুলোতে ঘুরতে ঘুরতে অজান্তেই চিন্তা-ভাবনার একটি বড় অংশ হয়ে দাঁড়ায় ভাষাগত সংখ্যালঘু পাহাড় ও অরণ্যচারি জনপদ, আদিবাসী মানুষের সমস্যা ও সম্ভাবনা, সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না।…

সংবাদপত্রে ছককাটা খবর লেখার বাইরে পাহাড়ের ছোট কাগজ ‘মাওরুম’ ও ‘জুম’সহ অন্যান্য আদিবাসী সাময়িকী (বেশীর ভাগই নতুন বর্ষ বরণ উৎসব — বিঝু, সাংগ্রাই, বৈসুক, বিষু উপলে প্রকাশিত; আয়ুস্কালও খুব স্বল্প) পত্রে লিখেও কিছু সাড়া পাই।

তবে বছর চারেক আগে আন্তর্জালে আদিবাসী বিষয়ক লেখালেখি শুরু করে সাড়া পাই বেশ। আদিবাসী সমস্যার কথা লিখতে লিখতে, আদিবাসী বা অ-আদিবাসী পাঠকের জবাব দিতে দিতে একের পর এক তৈরি হয় পোস্ট। সামহোরিন, সচলায়তন, আমারব্লগ, হয়ে মুক্তমনায়। পাশাপাশি ফেসবুক-নোট তো আছেই।

এই সুযোগে বলি, মুক্তমনা ডটকম ব্লগ হিসেবে আত্মপ্রকাশের আগে অনলাইনপত্র মুক্তমনায় ‘কল্পনা চাকমা এখন কোথায়?’ [লিংক] নামক আমার প্রথম লেখাটিও আদিবাসী বিষয়ক সমস্যা নিয়ে। আবার ব্লগ হিসেবে মুক্তমনা আত্মপ্রকাশ করলে এখানেও আমার প্রথম পোস্ট ছিলো একই বিষয়ে — ‘পাহাড়ে কেনো এতো সহিংসতা?’ [লিংক]

২। এই করতে করতে ফেসবুকে খুঁজে পাই প্রচুর সংখ্যক আদিবাসী বন্ধু। এক-এগারোর সেনা সমর্থিত মইন-ফখরুদ্দীনের অবৈধ সরকার কাজের কাজ বলতে পার্বত্য চট্টগ্রামে প্রায় আড়াই দশক পর মোবাইল ফোনের নেট ওয়ার্ক চালু করে। এই সুবাদে প্রচুর সংখ্যক আদিবাসী সদস্য হন ফেসবুকে। আন্তর্জালে চলে যোগাযোগ, কথোপকথন: কখনো সিধু-কানহু, কখনো এমএন লারমা, কল্পনা চাকমা বা চলেশ রিছিল।…তাদের বেশীর ভাগই ছাত্র-ছাত্রী। কেউ বা আবার প্রবাসী। …বিভিন্ন বাংলা ব্লগেও খুঁজে পাই অল্প কয়েকজন আদিবাসী লেখক। …

তো ফেসবুকে বিভিন্ন আদিবাসী বিষয়ক গ্রুপে ঘুরতে ঘুরতে নিজেই একদিন ’পাহাড়ের রূদ্ধকণ্ঠ CHT Voice’ [লিংক] নামে একটি গ্রুপ খুলে ফেলি। গ্রুপ ঘোষণায় এরকম কিছু কথা যোগ করি: পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের আদিবাসীদের কথা লিখুন, পড়ুন, ছবি দেখুন, ছবি দিন। আদিবাসী মানুষের অধিকারের কথা বলুন। জয় হোক! — ইত্যাদি।

সঙ্গে সঙ্গে প্রবাসী বন্ধু সঞ্চয় চাকমা সাড়া দেন। উৎসাহ দেন তন্দ্রা চাকমা দিদি। আমরা তিনজন গ্রুপের সঞ্চালক হিসেবে একের পর এক আদিবাসী-আদিবাসী বন্ধুদের গ্রুপের সদস্য হওয়া আমন্ত্রণ জানাতে থাকি। সেটি গত ডিসেম্বরের ঘটনা; আর এর মধ্যেই গ্রুপে সদস্য সংখ্যা দেড় হাজার ছাড়িয়ে গেছে। প্রতিদিনই সেখানে পড়ছে আদিবাসীদের অসংখ্য পোস্ট ও মন্তব্য।…

চলতে থাকে ডেস্টটপ, ল্যাপটপ বা মোবাইল ফোন টিপে আমাদের গ্রুপের লেখালেখি…মতামত প্রদান, তর্ক-বিতর্ক, এমন কি ব্যক্তিগত আক্রমনও। কিছু ফেক আইডিধারী গ্রুপে এসে ব্লগের মতোই ক্যাচাল বাধায়। গালাগালি থেকে শুরু করে ব্যক্তি কুৎসা রটনা, সাম্প্রদায়িক উস্কানীমূলক মন্তব্য ও পোস্ট দেওয়া, পাহাড়ের একটি বিতর্কিত দলের পক্ষে দলবাজী — ইত্যাদির অপচেষ্টা চালায়। বাধ্য হয়ে গ্রুপ ঘোষণার সঙ্গে যোগ করা হয় মৌলিক কিছু নিয়ম নীতি। আমরা বেশ কিছু পোস্ট ও মন্তব্য মুছে দেই, কয়েকজনকে ব্লক করে গ্রুপের পরিবেশ ফিরিয়ে আনি।…

৩। একদিন ব্লগার ষষ্ঠ পাণ্ডব দা ওই গ্রুপেই এসে বলেন, কমরেড, এই চমৎকার গ্রুপের লেখা, ছবি ও অন্যান্য লেখার লিংক যদি কেউ রেফারেন্স হিসেবে ব্যবহার করতে চায়, তাহলে তাকে একটু বিপদেই পড়তে হবে, কারণ প্রয়োজনীয় তথ্যটি চট করে এখানে খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাই আপনারা একটি আদিবাসী ব্লগের কথা চিন্তা করুন।…

তার প্রস্তাবটি আমাকে ভাবায়। কিন্তু আমি নিজে টোকনো-কানা, তাছাড়া পেশাগত ব্যস্ততাও আছে। তাই একটি ব্লগ খুলে ফেলে সেটিকে এগিয়ে নেওয়া আমার একার পক্ষে কোনোভাবেই সম্ভব নয়। …তাহলে উপায়? আমি আন্তর্জালে খোঁজ চালাই। …

আমি দেখি, ফেসবুকে অন্যান্য আদিবাসী গ্রুপগুলোর যে সমস্যা, আদিবাসী বিষয়ক ব্লগগুলোতেও প্রায় একই সমস্যা– এগুলো মোটেই প্রাণবন্ত নয়। এর কারণ, এগুলোর সৃষ্টা ও সঞ্চালকরা অধিকাংশই ছাত্র। তাই পড়াশুনা, পরীক্ষা ইত্যাদির ফাঁকে ব্লগ সাইটকে হালনাগাদ করাসহ এগুলোকে জনপ্রিয় করার জন্য তাদের হাতে যথেষ্ষ্ট সময় নেই।…

উপরন্তু পাহাড়ের একটি ব্লগ দেখে তো ভিমড়ি খাওয়ার দশা! সেখানে আমার কয়েকটি লেখা ও ছবি হুবহু কপি-পেস্ট করে অন্যের নামে চালিয়ে দেওয়া হয়েছে! সঙ্গে সঙ্গে ব্লগ সঞ্চালকদের ই-মেইল পাঠাই; কিন্তু সুরাহা হয় না কিছুতেই।

বেশ কিছুদিন পর আমাদের ফেসবুক গ্রুপ ’পাহাড়ের রূদ্ধকণ্ঠ CHT Voice’ এ বিষয়ে দুঃখ করে একটি ছোট্ট মন্তব্য দিলে একজন পাহাড়ি ছাত্র জানান, তিনি ওই ব্লগটির সঞ্চালক। পরীক্ষার কারণে এতোদিন ব্লগে মোটেই সময় দিতে পারেননি। আর ব্লগ সাইটটি সৃষ্টির শুরুতে তারা এখান-সেখান থেকে কিছু লেখা ও ছবি জোগাড় করে ব্লগের প্রথম পাতা তৈরি করেছিলেন। লেখকস্বত্ত্বর বিষয়টি তারা মোটেই তারা ভাবেননি। এ জন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করে সঙ্গে সঙ্গে ওই পোস্টগুলো মুছে দেন।…

৪। এ পর্যায়ে এগিয়ে আসেন উত্তরবঙ্গের সান্তাল ছাত্র ও ব্লগার সমর মাইকেল সরেণ। ওই গ্রুপেই তিনি টোকা দিয়ে জানান, তিনি নিজেই একটি ব্লগ খুলেছেন w4study.com ঠিকানায়। প্রথমে তিনি ভেবেছিলেন, এটি ছাত্রছাত্রীদের পড়ালেখা বিষয়ক ব্লগ হবে। পরে মত পরিবর্তন করে একে বানানো হয় ‘আদিবাসী বাংলা ব্লগ’ [লিংক]। সমর জানান, এই ব্লগ সাইটটি খোলার ক্ষেত্রে মুক্তমনা ডটকম দেখে তিনি খুবই উৎসাহিত হয়েছেন। তার আহ্বানে আমি সাড়া দেই। আমরা যৌথভাবে ব্লগটিকে এগিয়ে নিতে থাকি। তবে এখনো মূল কাজটি সমর একাই করে চলেছেন।

এ পর্যায়ে আবারো সুহদ সহ ব্লগার ষষ্ঠ পাণ্ডবকে আমাদের ফেসবুক গ্রুপ ’পাহাড়ের রূদ্ধকণ্ঠ CHT Voice’ ঠোকা দেই, পাণ্ডব দা, আমাদের ব্লগটি দেখুন, মতামত দিন। উনি একনজরে চোখ বুলিয়ে বলেন, ব্লগটিতে আরো অনেক পরিবর্তন আনতে হবে। প্রথম পাতা থেকে হাবিজাবি পোস্ট সরিয়ে তথ্যবহুল লেখা দিয়ে সাইটটিকে সাজান। ফেসবুক গ্রুপ থেকে প্রয়োজনীয় লেখাগুলো ব্লগ সাইটে নিয়ে আর্কাইভ তৈরি করুন — ইত্যাদি। আমি তার সঙ্গে একমত হই। আমাদের যেতে হবে অনেক দূর। …

সঙ্গে সঙ্গে প্রধান ব্লগ সঞ্চালক সমরকে পাণ্ডব দা’র ভাবনাগুলো জানাই। সঙ্গে যোগ করি আমার মতামতও। ইমেইল, টেলিফোন, এসএমএস-এ আলাপচারিতা চলতেই থাকে।…

অল্পদিনের মধ্যেই ব্যপক পরিবর্তন আনা হয় ব্লগ সাইটটির সাজ-সজ্জায়। সবচেয়ে সহজ এর লগইন পদ্ধতি। একজন ব্লগার ইচ্ছে করলে নতুন করে লগইন নেইম ও পাসওয়ার্ড নিয়ে সেখানে ব্লগ লিখতে পারেন। আবার ব্লগার ইচ্ছে করলে গুগুল বা ইয়াহু বা ফেসবুকসহ অন্যান্য অ্যাকাউন্ট দিয়েও লগইন করতে পারেন। এতোদিন নীতিমালার বালাই ছিলো না; সমরের সঙ্গে আলাপক্রমে আমরা ছোট্ট একটি নীতিমালাও তৈরি করি। ব্লগটির সাউট বা আলাপ-আলোচনা বিভাগটি একেবারে লাইফ এসএমএস-এর মতো। ব্লগাররা ইচ্ছে করলে এখানে ইমোকটিনসহ ছোট ছোট বাক্যে বাতচিত সারতে পারেন। …

সমর ও ব্লগের টেকি বন্ধুরা এখন কাজ করছেন ‘আদিবাসী শব্দকোষ’ নিয়ে। এছাড়া আদিবাসী বিষয়ক সার্চ ইঞ্জিনও এরই মধ্যে উন্মুক্ত হয়েছে [লিংক]। ব্লগের নেপথ্য কারিগররা এখন কাজ করছেন আদিবাসী ইউকিপিডিয়া নিয়ে।

৫। ব্লগযাত্রার অল্পদিনের মধ্যেই ‘আদিবাসী বাংলা ব্লগ’ ডয়েচে ভেলের ব্লগ প্রতিযোগিতায় মানবাধিকার বিভাগে সবচেয়ে বেশী ভোট পেয়ে (এখন পর্যন্ত ৪০ শতাংশ) এগিয়ে আছে [লিংক]। প্রসঙ্গত, একজন ভোটদাতা প্রতি ৪৮ ঘন্টা পর পর সেখানে ভোট দিতে পারেন।

আগ্রহী পাঠকদের অনুরোধ জানাই, আমাদের ব্লগটিতে একবার বেড়িয়ে যাওয়ার জন্য। আর যদি সম্ভব হয়, ডয়েচে ভেলের ওই ব্লগ প্রতিযোগিতায় আপনিও না হয় এই ব্লগ সাইটটির পক্ষে ঠুকে দিন একটি ভোট!

সংযুক্ত : আদিবাসী বিষয়ক কয়েকটি ব্লগ এবং ওয়েব সাইটের লিংক

আদিবাসী বাংলা ব্লগ, আদিবাসী ব্লগবিডি, সিএইচটি বিডি, নিউজ সিএইচটি বিডি, সিএইচটি নিউজ বাংলা, চাঙমা, চাঙমা কবিতা, কালচার আদিবাসী ব্লগবিডি, জুম্মা পিপলস, সিএইচটি নিউজ আপডেট এবং সিএইচটি ভয়েস।

[78 বার পঠিত]