হাইপেশিয়া: আন্তর্জাতিক নারী দিবসের শ্রদ্ধাঞ্জলি

হাইপেশিয়াকে নিয়ে অনেক আগে একটা লেখা লিখেছিলাম। অন্য ব্লগে দেয়া হলেও মুক্তমনায় কখনো দেয়া হয়নি। আজ  আন্তর্জাতিক নারী দিবসের শ্রদ্ধাঞ্জলি হিসেবে মুক্তমনায় প্রকাশ করলাম। যারা এর আগে লেখাটি পড়েছেন, তাদের কাছ থেকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিভঙ্গি কামনা করছি।   লেখাটির উদ্দেশ্য শুধু এ বিশেষ দিনে হাইপেশিয়াকে স্মরণ নয়,  সেই সাথে বিজ্ঞানে নারীদের অবদান এবং কর্মক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রতিকূলতা নিয়েও আলোচনা করা হয়েছে।

:line:

হাইপেশিয়া: এক বিস্মৃতপ্রায় গনিতজ্ঞ নারীর বেদনাঘন উপাখ্যান
অভিজিৎ

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সভ্যতা সৃষ্টির পেছনে নারীর ভুমিকা প্রায় অস্বীকার করেছিলেন। তিনি বলেন :

‘সাহিত্য কলায় বিজ্ঞানে দর্শনে ধর্মে বিধি ব্যবস্থায় মিলিয়ে আমরা যাকে সভ্যতা বলি সে হল পুরুষের সৃষ্টি’।

আবার ভলটেয়ার নারীর মননশীলতা, শক্তিমত্তা আর বুদ্ধিবৃত্তিকে স্বীকার করে নিলেও প্রবলভাবেই অস্বীকার করেন নারীর উদ্ভাবনী শক্তিকে। তিনি দাবী করেন :

‘ইতিহাসে জ্ঞানবতী নারী খুঁজলেই পাওয়া যাবে, এমনকি পাওয়া যবে নারী-যোদ্ধার অস্তিত্বও, কিন্তু কোথাও নারী উদ্ভাবক পাওয়া যাবে না’

বলতেই হয় – রবিঠাকুর এবং ভলটেয়ার দুজনই ছিলেন ভ্রান্ত, অন্ততঃ ইতিহাস পর্যালোচনার এই ব্যাপারটিতে। ইতিহাস খুঁজলে নারী উদ্ভাবক তো পাওয়া যায়ই, পাওয়া যায় বিজ্ঞান আর প্রকৌশলবিদ্যায় নিবেদিতপ্রাণ অজস্র মহীয়সী নারীর অস্তিত্ব, যারা আমাদের সভ্যতার বিনির্মানে শুধু সহায়তাই করেননি, নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন বৈজ্ঞানিক সংস্কৃতির পুরোধা ব্যক্তিত্ব হিসেবে। এমনি এক বিস্মৃত-প্রায় বিদুষী বিজ্ঞানী এবং গনিতজ্ঞ ছিলেন হাইপেশিয়া (Hypatia) – জিওর্দানো ব্রুনোর ৩, ২১ মতই বিজ্ঞানের বেদীমূলে আত্মোৎসর্গীকৃত এক প্রাচীন দার্শনিক।

হাইপেশিয়া জন্মেছিলেন ৩৭০ খ্রীষ্টাব্দে আলেকজান্দ্রিয়াতে। গনিতজ্ঞ হিসেবে তার উত্থান যেমন রোমাঞ্চকর তেমনি মর্মান্তিক তার তিরোধানের ইতিহাস। সম্ভবত: তিনিই ছিলেন গনিতে পর্যাপ্ত অবদান রাখা ইতিহাসের প্রথম নারী গনিতজ্ঞ; মার্গারেট অ্যালিক তাঁর ‘Hypatia’s Heritage’ গ্রন্থে হাইপেশিয়াকে বর্ননা করেন ‘মাদাম কুরীর পূর্ববর্তী সবচাইতে উল্লেখযোগ্য নারী বিজ্ঞানী’ হিসেবে । তবে কেবল ‘নারী গনিতজ্ঞের’ বা ‘নারী বিজ্ঞানীর’ লেবাস পরিয়ে তাঁর মূল্যায়ন করা হবে স্রেফ বালখিল্যতার সামিল। সত্যিকথা বলতে কি, ইউক্লিডের পর আলেকজান্দ্রিয়াতে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে এত বড় গনিতজ্ঞের জন্ম হয়নি ৪, ১০, ১১। ইতিহাসবেত্তাদের মতে, হাইপেশিয়া ছিলেন মুক্তবুদ্ধির চর্চাকারী ইতিহাসের শেষ ‘প্যাগান সায়েন্টিস্ট’। অথচ খ্রীষ্টধর্মোন্মাদীদের রোষানলে পুড়ে (আক্ষরিক অর্থেই) এই রূপসী বিদুষীকে পৃথিবী থেকে চিরবিদায় নিতে হয় মাত্র ৪৫ বছর বয়সে, ৪১৫ খ্রীষ্টাব্দে। হাইপেশিয়ার মৃত্যুর পর পশ্চিমা বিশ্বে গনিত, জ্যোতির্বিদ্যা, পদার্থবিজ্ঞান আর বিজ্ঞানের অন্যান্য শাখায় উল্লেখযোগ্য কোন উন্নতি সাধিত হয় নি- দীর্ঘদিন, কম করে হলেও প্রায় ১০০০ বছর । মূলতঃ হাইপেশিয়ার মৃত্যুই সূচনা করেছিল মানব ইতিহাসের এক ঘোর কৃষ্ণ অধ্যায়ের, যে সময়ে মুক্তবুদ্ধি, জ্ঞানচর্চ্চা, বিজ্ঞান-শিল্প-সাধনা তীব্রভাবে ব্যহত হয়। এ সময় জ্ঞানচর্চার বদলে চর্চা করা হয় ধর্মীয় আস্ফালন, কুপমুন্ডুকতা, অরাজকতা আর বর্বরতার। এ সময়টাতে পৃথিবী এগোয়নি এক বিন্দুও, বরং প্রগতির চাকাকে ঘোরানো হয়েছে উলটো দিকে। এই কলঙ্কময় সময়টিকে ইতিহাসবিদরা আখ্যায়িত করেন একটি বিশেষ নামে – ‘অন্ধকার যুগ’ বা Dark Age।

হাইপেশিয়ার বাবা থিওন নিজেও ছিলেন একজন বড় মাপের গনিতজ্ঞ ও জ্যোতির্বিদ এবং আলেকজান্দ্রিয়া মিউজিয়ামের পরিচালক। যে সময়টাতে মেয়েদের আক্ষরিক অর্থেই দেখা হত কেবল পুরুষের সম্পত্তি হিসেবে, কথিত আছে, সে সময়টিতেও থিওন তাঁর মেয়েকে গড়ে তুলতে চেয়েছেন ‘একজন পূর্ণাঙ্গ মানুষ হিসেবে’ । পূর্ণাঙ্গ মানুষ তো হাইপেশিয়া হয়েছিলেনই, আর সেই সাথে ছিলেন অনিন্দ্য সুন্দরী, আর বিদুষী। এ যেন সত্যিকারের মনি-কাঞ্চন যোগ। তাঁকে বলা হত হত – ‘Le souffle de Platon et le corps d’Aphrodit’- অর্থাৎ, ‘পরমাসুন্দরী আফ্রোদিতির দেহে প্লেটোর আত্মা’ যেন’! স্বভাবতাই সুদর্শনা আর বিদুষী হাইপেশিয়াকে বিয়ে করার জন্য উদগ্রীব ছিলেন অনেকেই, কিন্তু স্বাধীনচেতা হাইপেশিয়া তাদের প্রত্যেকের বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন, আর নিজেকে নিয়োজিত করেন বিজ্ঞানের নিবিড় সাধনায়। বেশ কিছুটা সময় দেশের বাইরেও কাটান তিনি, তারপর দেশে ফিরে এসে গ্রহণ করেন আলেকজান্দ্রিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের গনিতজ্ঞের পদ। অচিরেই তিনি নিজেকে পরিণত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম জনপ্রিয় শিক্ষক হিসেবে। তিনি পড়াতেন গণিত, জ্যোতির্বিদ্যা, দর্শন আর মেকানিক্সের বিভিন্ন জটিল জটিল বিষয়গুলো। দূর দূরান্ত থেকে ছাত্ররা শহরে চলে আসতো তার বক্তৃতা শুনতে, আর আলেকজান্দ্রিয়া গ্রন্থাগারের একটি বিশাল কক্ষে প্রতি সন্ধ্যায় সর্বসাধারণের জন্য হাইপেশিয়া বক্তৃতা দিতেন। পয়সা খরচ করে এ নারীর বক্তৃতা শুনতে হত তখন! সাধারণের জন্য দর্শনী ছিলো একটি মোহর । তবে সভায় যারা স্বচ্ছল ও স্থায়ী সদস্য, তারা আবার মাসিক বা ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে সম্মানী প্রদান করতেন। হাইপেশিয়া তাঁর বক্তৃতায় প্লেটো, আ্যারিস্টটলের দার্শনিক কাজকর্ম নিয়ে প্রচুর কথা বলতেন, তাদের পর্যালোচনা করতেন আর দূর দুরান্ত থেকে আসা লোকজন যেন সম্মোহিত হয়ে তার কথা শুনতো পিন পতন নিস্তব্ধতায় । তার অনুরাগী ছাত্রদের মধ্যে অনেকেই ছিলেন খ্যাতনামা খ্রীষ্টান। তার মধ্যে একজন ছিলেন সাইরিনের সিনেসিয়াস (Synesius of Cyrene), যিনি পরবর্তীতে Ptolemasis-এর বিশপ হন। হাইপেশিয়াকে হত্যার পর তাঁর সমস্ত কাজ কর্মও ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় খ্রীষ্টান মৌলবাদীদের হাতে। ইতিহাসবিদরা হাইপেশিয়ার কাজকর্মের যেটুকু জানতে পেরেছেন তার মধ্যে একটা বড় উৎসই হল এই সিনেসিয়াসের লেখা চিঠিপত্র। সেই চিঠিগুলোতে হাইপেশিয়ার প্রতি ব্যক্ত হয়েছে গভীর শ্রদ্ধা, ভক্তি আর ভালবাসা।


Hypatia, 1885, by Charles William Mitchell (1854 – 1903)

হাইপেশিয়ার মৌলিক কাজের মধ্যে রয়েছে দায়োফ্যান্তাস রচিত অ্যারিথমেটিকা পুস্তকের উপর ১৩ অধ্যায়ের একটি আলোচনা, যার বেশ খানিকটা অংশই পরবর্তীতে দায়োফ্যান্তাইন পান্ডুলিপিতে অন্তর্ভুক্ত হয় । এছাড়া তিনি অ্যাপোলোনিয়াসের কৌণিক ছেদ পুস্তিকার উপর একটি আলোচনা লিখেন , আর টলেমীর কাজের উপর আলোচনা লিপিবদ্ধ করেন Astronomical canon শিরোনামে । তিনি তার বাবাকে জ্যামিতির কালজয়ী গ্রন্থ Euclid’s element-এর নতুন সংস্করণ তৈরীতেও সহায়তা করেছিলেন – যে সংস্করণটি আজও পাঠ্যপুস্তকে ব্যবহৃত হয় ,। হাইপেশিয়া আর তার বাবা যৌথভাবে টলেমীর অলমাগসেত এর উপরও কাজ করেন। তবে যে দুটি যন্ত্রের আবিস্কার হাইপেশিয়াকে ‘উদ্ভাবক’ হিসাবে মহিমান্নিত করেছে তার একটি হল অ্যাস্ট্রোলেব (Astrolabe) – যেটি ব্যবহৃত হত গ্রহ-নক্ষাত্রাদির দৈনন্দিন ঘূর্ণন গণনায়, আর মহাজাগতিক নানা সমস্যা সমাধানে; আর একটি হল হাইড্রোস্কোপ (Hydroscope)-যা দিয়ে তরল পদার্থের আপেক্ষিক গুরুত্ব মাপা যেত । এছাড়া তিনি পানির লেভেল মাপার জন্য একটি যন্ত্রও তৈরী করেছিলেন।

কিন্তু হাইপশিয়াকে মেরে ফেলা হল কেন? এটি বুঝতে হলে তৎকালীন মিশরীয় শাসনতন্ত্রের বিশেষতঃ টলেমী বংশের দিকে একটু চোখ মেলে তাকানো দরকার। ইতিহাসের বই ঘেটে পাওয়া যায়- টলেমী সোতার আর তার ছেলে টলেমী ফিলাডেফেলস থেকে আরম্ভ করে জনা পনের টলেমীয় বংশদ্ভুত রাজা তখন মিশর শাসন করেছিলো। তার মধ্যে সবচাইতে যিনি পরিচিত তাকে নিয়ে হলিউডে ছবি পর্যন্ত হয়েছে, সর্বশেষ শাসক সেই যে ভুবনমোহিনী ক্লিওপেট্রা। খ্রীষ্টপূর্ব ৩১ সালে ক্লিওপেট্রাকে হত্যা করা হয় আর ক্লিওপেট্রা ও রোম সম্রাট সিজারের ছেলে টলেমী সিজারিয়ান রাজা হন। খ্রীষ্টপূর্ব ৩০ সালে তাঁকে হত্যার মাধ্যমে টলেমী বংশের সমাপ্তি ঘটে এবং মিশর রোম সাম্রাজ্যের একটি প্রদেশে পরিণত হয়। তখন থেকে শুরু করে হাইপেশিয়ার সময় পর্যন্ত আলেকজান্দ্রিয়া রোমান শাসনের জাঁতাকলে ভয়াবহভাবে নিষ্পিষ্ট এক শহরে পরিণত হয় । দাসপ্রথার অভিঘাত ধ্রুপদী সভ্যতার প্রাণশক্তিকে একেবারে নিঃশেষিত করে ফেলেছিল। খ্রীষ্টিয় চার্চ তখন প্রাচীন প্যাগান মূল্যবোধ, প্রভাব আর সংস্কৃতিকে উপ্‌ড়ে ফেলে তার নবোত্থিত শক্তিকে সংহত করার চেষ্টা করছে পুরোমাত্রায়। হাইপেশিয়া দাঁড়িয়েছিলেন এই প্রবল ক্ষমতাসম্পন্ন শক্তিগুলোর ঘুর্ণিকেন্দ্রে – বিদ্যমান সংঘর্ষের এক নির্ণায়ক শক্তি হিসেবে। মার্গারেট এলিক তার Women and Technology in Ancient Alexandria : Maria and Hypatia প্রবন্ধে বলেন :

‘Hypatia was a scholarly pagan and a woman, an espouser for Greek scientific rationalism and an influential political figure. This proved to be a dangerous combination.’।

তার বিচক্ষণতা আর বিচার বুদ্ধি সমাজে এতটাই প্রভাব বিস্তার করেছিলো যে নগরপাল অরিস্টিস (Orestes) হাইপেশিয়ার মতামত না নিয়ে কোন কাজ করতেন না । এই সমৃদ্ধি আর স্বীকৃতিই বোধ হয় হাইপেশিয়ার কাল হল! ‘তুচ্ছ নারী’র মেধা, মনন আর জ্ঞান অনেক সময়ই পরাক্রমশালী পুরুষতন্ত্রের কাছে নিতান্ত অসহনীয়। তার মধ্যে আবার সে নারী যদি হয় বিজ্ঞানমনস্ক মুক্ত-বুদ্ধির চর্চাকারী, রাজনীতি সচেতন এক স্বাধীনচেতা রমণী! আমেরিকান বিজ্ঞানী জন উইলিয়াম ড্রাপার ( J.W.Draper) স্পষ্ট করেই বলেন, ‘হাইপেশিয়া ছিলেন ধর্মের বিপরীতে বিজ্ঞানের নিবিড় সমর্থক।’ হাইপেশিয়াকে ড্রাপার দেখেছেন সেসময়কার ইউরোপীয় সভ্যতার বিদ্যমান দুটি ধারার সংঘর্ষে এক বিরোচিত নিয়ামক চরিত্র হিসেবে ১২। দুটি ধারার একটি হচ্ছে মুক্ত বুদ্ধির চর্চা সমৃদ্ধ ‘লিবারেল’ ধারা আর একটি হল কট্টর-পন্থী ধর্মান্ধ ‘পুরিতানিক’ ধারা। হাইপেশিয়ার অনেক বক্তব্যই ছিলো গোঁড়ামী বিরোধী আর মুক্তবুদ্ধির প্রতি সমর্থনসূচক, যা নিঃসন্দেহে কট্টরপন্থিদের উষ্মার কারণ ঘটিয়েছিলো। হাইপেশিয়া তাঁর এক শিষ্যকে বাইবেল সম্পর্কে বলেছিলেন :

‘আমি খ্রীষ্টান নই। কিন্তু বাইবেলের প্রাচীন ও নবীন দুটো খন্ডই আমি পড়েছি। আব্রাহাম ইয়াকুব ইউসুফ ধর্মই বল, আর যীশু খ্রীষ্টের ধর্মই বল, অহঙ্কার না করেও আমি বলতে পারি, ও দুটি মর্মই আমি উপলব্ধি করেছি। বিশ্বাসের কথা, ঈশ্বরের প্রেমের বাণী ও-দূটিতে আছে ঢের কিন্তু দার্শনিকের দৃষ্টিতে ওসব বালকসুলভ উচ্ছ্বাস ছাড়া আর কিছু নয়। পরিণত বুদ্ধির জাতির জন্য থাকা উচিৎ যুক্তি-নির্ভর জ্ঞানভিত্তিক ধর্ম একটা, যা ছিলো গ্রীকদের, যার পুনঃপ্রতিষ্ঠার সঙ্কল্প নিয়ে আমি যথাসাধ্য কাজ করে যাচ্ছি আলেকজান্দ্রিয়ায় বসে।’

এ ধরনের স্বচ্ছ কথাবার্তা যে যুগে যুগে মৌলবাদীদের ক্ষিপ্ত করেছে তা বলাই বাহুল্য। এমনি একজন মৌলবাদী খ্রীষ্টান ছিলেন সিরিল (Cyril) যিনি ৪১২ খ্রীষ্টাব্দে আলেকজান্দ্রিয়ার আর্চ বিশপ বা পেট্রিয়ার্ক হয়েছিলেন। এই ‘পেট্রিয়ার্ক’ ব্যাপারটা হয়ত অনেকের কাছেই অপরিচিত। ছোটট একটু বয়ান করা যাক এ নিয়ে। পোপের পদ সৃষ্টির পূর্বে খ্রীষ্টানদের ধর্মগুরু ছিলেন তিনজন। তাদের একজন থাকতেন রোমে, একজন বাইজেন্টিয়ামে আর আরেকজন থাকতেন আলেকজান্দ্রিয়ায়। তাদেরকে বলা হত পেট্রিয়াক। আলেকজান্দ্রিয়ার এই পেট্রিয়ার্ক সিরিল হাইপেশিয়ার রাজনৈতিক দর্শনের জন্য, তার মুক্তবুদ্ধির চর্চার জন্য এবং সর্বোপরি নগরপাল অরিস্টিসের সাথে হাইপেশিয়ার সুসম্পর্কের কারণে তাঁকে ঘৃণার চোখে দেখতেন। মুলতঃ এই আর্চ বিশপ সিরিল খ্রীষ্ট ধর্মের পথ প্রশস্ত করার জন্যই হাইপেশিয়াকে হত্যার সিদ্ধান্ত নেয় । এর পেছনে আরো একটি রাজনৈতিক দিকও ছিলো। সিরিলের সাথে অরিস্টিসের ছিলো ক্ষমতার দ্বন্দ্ব। অরিস্টিসের প্রতি হাইপেশিয়ার প্রচ্ছন্ন সমর্থন সিরিলকে প্রতিহিংসাপরায়ণ করে তুলে। খ্রীষ্টিয় অনুরাগীদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া হয় যে, আর্চ বিশপের সাথে অরিস্টিসের পুনর্মিলনে হাইপেশিয়াই হচ্ছেন প্রধান অন্তরায় ১৩

চার্লস কিংসলের উপন্যাস Hypatia and or the New Foes with an Old face (১৮৫৩) থেকে জানা যায়, বিশপ সিরিল খ্রীষ্টান ধর্মানুরাগী তরুণদের হাইপেশিয়ার বক্তৃতা শুনতে যেতে নিরুৎসাহিত করতেন। তার ভয় হত যে, হাইপেশিয়ার প্রবল ব্যক্তিত্ব আর তীক্ষ্ন যুক্তির কাছে খ্রীষ্ট ধর্মের দার্শনিক ভিত্তির দুর্বলতাটুকু প্রকাশিত হয়ে পড়বে। উপন্যাসে দেখা যায়, সিরিলের প্রিয় এক তরুণ খ্রীষ্টান সন্ন্যাসী ফিলামন (Philammon) হাইপেশিয়ার সভায় যাওয়ার ইচ্ছা ব্যক্ত করলে সিরিল হাইপশিয়াকে তাঁর সামনে তুলে ধরেন এভাবে : ‘হাইপেশিয়া হচ্ছেন সাপের চেয়েও ধূর্ত আর সব ধরনের চালাকিতে ওস্তাদ আর যুক্তিতে পটু।’ আর সিরিল ফিলামনকে এই বলে সাবধান করেন যে, ‘তুমি যদি ওখানে যাও তবে নিজেকে ঠাট্টার পাত্র বলে মনে হবে, আর লজ্জায় তুমি পালিয়ে আসবে’ ১৪

ফিলামনের মত সন্ন্যাসীদের প্রাথমিক লক্ষ্য ছিলো হাইপেশিয়ার বক্তৃতামঞ্চের সামনে দাঁড়িয়ে হাইপেশিয়ার সমস্ত বৈজ্ঞানিক তত্ত্বকে মিথ্যা প্রমাণিত করা। তারা ভাবতেন তুচ্ছ নারী কী জানবে দর্শনের, বিজ্ঞানের? অথচ তাঁর অনুগামীদের কাছে হাইপেশিয়া ছিলেন মিনার্ভার মত জ্ঞানময়ী, জুনোর মত মর্যাদাময়ী আর আফ্রোদিতির মত সুন্দর। কিংসলের উপন্যাসে দেখা যায়, ফিলামন কিছুটা কৌতুহল আর আর অবজ্ঞা নিয়েই প্রথমে হাইপেশিয়ার বক্তৃতা শুনতে গিয়েছিলেন, মূল উদ্দেশ্যটি ছিল হাইপেশিয়াকে ভুল প্রমাণ করে খ্রীষ্টধর্মে দীক্ষিত করা। কিন্তু হাইপেশিয়ার ব্যক্তিত্ব, বাগ্মীতা আর জ্ঞানের আলোক-স্পর্শে ফিলামন আক্ষরিক অর্থেই সম্মোহিত হয়ে পড়েন এবং শেষ পর্যন্ত হাইপেশিয়ার একজন একান্ত অনুরাগীতে পরিণত হন। তাদের বন্ধুত্ব আর কিছুটা নৈসর্গিক প্রেমের মূর্চ্ছনা হাইপেশিয়ার মৃত্যুর শেষ দিনটি পর্যন্ত অক্ষুন্ন ছিল ১২

তার প্রিয় খ্রীষ্টান সন্ন্যাসীদের হাইপেশিয়া-মোহ সিরিলকে ক্রুদ্ধ নেকড়ের মতই উন্মত্ত করে তোলে। সিরিল হাইপেশিয়াকে হত্যার সিদ্ধান্ত নিলেন। ৭১ এ বাঙালী বুদ্ধিজীবী হত্যার মতই সিরিল যেমনিভবে বেছে বেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘নব্যতান্ত্রিক’ নিও-প্লেটোনিস্টদের ধরে ধরে হত্যার মহোৎসবে মত্ত ছিলেন, এমনি এক দিন কর্মস্থলে যাওয়ার পথে হাইপেশিয়া মৌলবাদী আক্রোশের শিকার হলেন, অনেকটা আজকের দিনের হুমায়ুন আজাদের মতোই। তবে হাইপেশিয়ার ক্ষেত্রে বীভৎসতা ছিলো আরও ব্যাপক। হাইপেশিয়া-হত্যার পুঙ্খানুপুঙ্খ বিবরণ পাওয়া যায় পনের শতকে সক্রেটিস স্কলাসটিকাসের রচনা হতে ১৫:

‘পিটার নামের এক আক্রোশী ব্যক্তি অনেকদিন ধরেই তক্কে তক্কে ছিলো, শেষমেষ সে হাইপেশিয়াকে কোন এক জায়গা হতে ফিরবার পথে কব্জা করে ফেলে। সে তার দলবল নিয়ে হাইপেশিয়াকে তার ঘোড়ার গাড়ী থেকে টেনে হিঁচড়ে কেসারিয়াম (Caesarium) নামের একটি চার্চে নিয়ে যায়। সেখানে তারা হাইপেশিয়ার কাপড়-চোপড় খুলে একেবারে নগ্ন করে ফেলে, তারপর ধারালো অস্ত্রের সাহায্যে তাঁর চামড়া চেঁছে ফেলে, তার শরীরের মাংস চিরে ফেলে, আর শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করার আগ পর্যন্ত হাইপেশিয়ার উপর তাদের অকথ্য অত্যাচার চলতে থাকে। এখানেই শেষ নয়; মারা যাবার পর হাইপেশিয়ার মৃতদেহ টুকরো টুকরো করে সিনারন (Cinaron) নামের একটি জায়গায় জড় করা হয় আর তারপর পুড়িয়ে তা ছাই করে দেয়া হয়’।

হাইপেশিয়াকে হত্যা করা হয় ৪১৫ খ্রীষ্টাব্দের মার্চ মাসে। হাইপেশিয়ার হত্যাকারীদের তালিকায় ছিলো মূলতঃ সিরিলের জেরুজালেমের চার্চের প্যারাবোলানস, মৌলবাদী সন্ন্যাসী, নিটৃয়ান খ্রীষ্টীয় ধর্মবাদীরা । তবে সিরিল নিজ মুখে তার সাংগপাংগদের হাইপাশিয়াকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন কিনা তা অবশ্য বিতর্কের উর্ধ্বে নয়। কিন্তু এটি অন্ততঃ নিঃসন্দেহ যে, সিরিল এমন এক ধরনের রাজনৈতিক বাতাবরণ তৈরী করতে সমর্থ হয়েছিলেন যা হাইপেশিয়া-হত্যায় ইন্ধন যুগিয়েছিলো। সিরিলকে পরবর্তীতে ধর্মীয় অধিকার বলে সেইন্ট বা সন্ত হিসেবে অভিসিক্ত করা হয়। ইতিহাসের জঘন্যতম অপরাধের উপযুক্ত ধর্মীয় ‘শাস্তি’ই বটে!

যা হোক, অরিস্টিস এই নিষ্ঠুর হত্যাকান্ড সম্বন্ধে রিপোর্ট করেন এবং রোমকে এর তদন্ত পরিচালনা করতে অনুরোধ করেন। তারপর তিনি তার কর্মস্থল থেকে অব্যহতি নিয়ে আলেকজান্দ্রিয়া থেকে চিরতরে বিদায় নেন। আর ওদিকে তদন্তকাজ পদে পদে ‘পর্যাপ্ত সাক্ষীর অভাবে’ বাধাপ্রাপ্ত হয়, আর শেষপর্যন্ত সিরিল জল ঘোলা করতে এও জনসমক্ষে প্রচার করতে শুরু করেন যে, হাইপেশিয়া নাকি জীবিত আছেন এবং এথেন্সে বহাল তবিয়তে বাস করছেন ১৬

হাইপেশিয়ার হত্যাকান্ড আলেকজান্দ্রিয়া এবং পুরো রোমান সাম্রাজ্যে বৈজ্ঞানিক আর যুক্তিবাদী শিক্ষার বিদায় ঘন্টা বাজিয়ে দেয়। ইউরোপ পুরোপুরি প্রবেশ করে ‘অন্ধকার যুগে’। এমনকি মৃত্যুর পরও হাইপেশিয়াকে রেহাই দেয়নি ধর্মান্ধ মৌলবাদীরা। ৫৮১ খ্রীষ্টাব্দে চার্চের পক্ষ থেকে হাইপেসিয়াকে উদ্দেশ্য করে ঘোষণা করা হয় ‘That woman had neither souls nor reasons’ । গোঁড়া খ্রীষ্টধর্মের প্রসারের সাথে সাথে আলেকজান্দ্রিয়া নানা ধরনের ধর্মীয় সংস্থার (cult) ক্রীড়নকে পরিণত হয়ে যায়, মুক্তবুদ্ধির চর্চা ব্যহত হয়; নানা ধরণের ধর্মীয় তুক-তাক, জ্যোতিষশাস্ত্রের চর্চা, কুসংস্কার, অতীন্দ্রিয়তা আর আধ্যাত্মিকতা ধীরে ধীরে বৈজ্ঞানিক গবেষণার স্থান দখল করে নেয়। ৬৪০ খ্রীষ্টাব্দে আলেকজান্দ্রিয়া আরবদের অধীনস্ত হয় আর সমস্ত গ্রন্থাগারটি পুনর্বার (জুলিয়াস সিজারের আগ্রাসনের পর) ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় – এবারে অবশ্য বর্বর খ্রীষ্টিয় মৌলবাদীদের আরেক সহোদর ইসলামী মৌলবাদীদের হাতে । কথিত আছে আলেকজান্দ্রিয়া গ্রন্থাগারের বই-পত্তর ধ্বংস করতে গিয়ে খলিফা ওমর নাকি বলেছিলেন –

বইপত্রগুলো যদি কোরানের শিক্ষার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ না হয় তবে সেগুলো আমাদের দৃষ্টিতে নিতান্তই অপ্রয়োজনীয়। কাজেই ওগুলোর ধ্বংস অনিবার্য; আর বই-পত্তরগুলোতে যদি কোরানের শিক্ষার সাথে সঙ্গতিপূর্ণ কোন কথাবার্তা আদৌ থেকেও থাকে তবে সেগুলো হবে প্রয়োজনের অতিরিক্ত। কাজেই সে দিক দিয়েও ওগুলো ধ্বংস করা জায়েজ’।

অবশ্য অনেক গবেষক আলেকজান্দ্রিয়া গ্রন্থাগারের উপর ইসলামের আগ্রাসনকে কেবল ‘মিথ’ বলেই মনে করেন ১৭

হাইপেশিয়াকে হত্যার পর তাকে যেন আক্ষরিক অর্থে ভুলেই গিয়েছিলো মর্তের বিস্মৃতিপরায়ন মানবজাতি। স্মৃতির পরতে পরতে পড়েছিলো ধুলোর পুরু স্তর। ৪১৫ খ্রীষ্টাব্দে তাকে হত্যার পর প্রায় তের’শ বছর ধরে সত্যিকার অর্থেই যেন নিশ্চুপ হয়ে পড়ে রয়েছিলো সবাই। অনেক অনেক বছর পরে – সেই ১৭২০ সালে জন টোলান্ড (John Toland) Hypatia or the History of a most beautiful, most virtuous, most learned and in every way accomplished lady; who was torn to pieces by the clergy of Alexandria to gratify the pride, emulation and cruelty of the archbishop commonly but undeservedly titled St Cyril’ নামের দীর্ঘ শিরোনাম বিশিষ্ট প্রবন্ধে হাইপেশিয়াকে স্মৃতির ছাইভস্ম হাত্‌রে আমাদের সামনে তুলে আনেন। তিনিই বিশ্ববিবেক কে প্রশ্নবিদ্ধ করে তোলেন এই বলে যে হাইপেশিয়ার মত অনিন্দ্যসুন্দর, বিজ্ঞ এবং নিষ্পাপ দার্শনিকের রক্তে হাত রঞ্জিত করার দায়ে সমস্ত পুরুষতন্ত্রের লজ্জিত হওয়া উচিৎ ১২। হাইপেশিয়ার হত্যাকারী হিসেবে খ্রীষ্টিয় চার্চ আর তার তৎকালীন পুরোধা সিরিলকে অভিযুক্ত করে টোলান্ড ওই প্রবন্ধে স্পষ্ট করেই বলেন :

‘সেইন্ট বা সন্ত নামধারী পুরুষতন্ত্রে দীক্ষিত এক বিশপ ছিলেন এই জঘন্য হত্যাকান্ডের মূল হোতা, আর তার শিষ্যরা ছিলেন তাদের গুরুর জিঘাংসা চরিতার্থ করার নিয়ামক’।

টোলেন্ডের হাত ধরে পৃথিবী যেন কুম্ভকর্ণের ঘুম থেকে জেগে উঠলো। যে ভলটেয়ার তন্ন তন্ন করে খুঁজেও ইতিহাসে এর আগে কোন ‘নারী উদ্ভাবক’ পাননি, তিনিই হলেন এবার হাইপেশিয়া বন্দনায় উচ্ছসিত। তিনি Examen Important De Milord Bolingbroke Ou Le Tombeau Du Fanatisme (১৭৩৬), বইয়ে বলেন :

এই পাশবিক হত্যাকান্ড পরিচালিত হয় সিরিলের মাথা-মুড়োনো ভিক্ষু হিসেবে খ্যাত কতকগুলো ‘ডালকুত্তা’র সহচর্যে, আর উগ্র, গোঁড়া ধর্মবাদীদের আস্ফালনে’।

ভলটেয়ার হাইপেশিয়ার অবদান উল্লেখ করেছিলেন তাঁর Dictionnaire Philosophique বইয়েও। তিনি সেখানে হাইপেশিয়াকে একজন সম্মানিত শিক্ষক এবং বিজ্ঞানী হিসেবে উল্লেখ করেন আর সিরিলকে হত্যার আভিযোগে সরাসরি অভিযুক্ত করে বলেন, ‘সিরিল তাঁর খ্রীষ্টিয় আক্রোশ হাইপেশিয়ার উপর ঝেরে দিলেন।’ পরবর্তীতে হাইপেশিয়াকে নিয়ে এন্তার লিখেছেন এডওয়ার্ড গিবন (দ্য ডিক্লায়েন এন্ড ফল অব রোমান এম্পায়ার), দামাস্কিউয়াস (সুদা), হেনরি ফিল্ডিং (আ জার্নি ফ্রম দিস ওয়ার্ল্ড টু দ্য নেক্সট্‌), চার্লস লিকন্ট দ্য লিসল (Hypatie; Hypatie et Cyrille), মরিস বারস্‌ (Sous l’oeil des barbares), চার্লস কিংসলে (হাইপেশিয়া অর দ্য নিউ ফো’স উইথ এন ওল্ড ফেস্‌), জে ডবলিউ ড্রাপার (হিস্ট্রি অব ইন্টেলেকচুয়াল ডেভেলপমেন্ট ইন ইউরোপ), বার্ট্রান্ড রাসেল (হিস্ট্রি অব ওয়েস্টার্ন ফিলোসফি) সহ অনেকেই। ইতালিতে আঠারো শতকে হাইপেশিয়া ‘আধুনিক সাহিত্য’-এর এক গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে উঠে আসে। দ্য স্যালুজো, কার্লো প্যাস্কাল, মারিও লুজি হাইপেশিয়াকে নিয়ে কবিতা, প্রবন্ধ আর নাটক রচনা করেন। জার্মান ভাষায় আর্নুলফ জিটল্‌ম্যানের ইতিহাস ভিত্তিক উপন্যাস ‘হাইপেশিয়া’ (১৯৮৯) দারুন জনপ্রিয়তা পায়। ক্যানাডাতেও প্রায় একই সময়ে আঁদ্রে ফেরেত্তি আর জ্য মার্সেল হাইপেশিয়াকে নিয়ে দু দুটি দীর্ঘ উপন্যাস রচনা করেন। নারীবাদীরা হাইপেশিয়াকে ঘিরে রচনা করতে শুরু করেন নারীবাদী সাহিত্য। নারীবাদী কবি এবং ঔপন্যাসিক উর্সুলা মোলিনারো হাইপেশিয়াকে নিয়ে আশির দশকের শেষভাগে রচনা করেন একটি গবেষণাধর্মী প্রবন্ধ। আজ দু’ দুটি বিখ্যাত গবেষনা-সাময়ীকীর (জার্নাল) নাম হাইপেশিয়ার নামানুসারে রাখা হয়েছে। একটি হল এথেন্স থেকে প্রকাশিত ‘হাইপেশিয়া: ফেমিনিসট স্টাডিস’; এবং অপরটি ‘হাইপেশিয়া : এ জার্নাল অব ফেমিনিস্ট ফিলোসফি’ । হাইপেশিয়া উঠে এসেছে আজকের দিনের নারীবাদী চিত্রকর্ম এবং শিল্পকলাতেও – অত্যন্ত প্রবলভাবেই। ১৯৭৯ সালে হাইপেশিয়াকে নিয়ে নারীবাদী চিত্রকর জুডি শিকাগোর একটি স্থাপত্যকর্ম স্যান ফ্রান্সিস্কো মিউজিয়ামের ‘আধুনিক চিত্রকলা’ প্রদর্শিত হয় ১২। ২০০৯ সালে হাইপেশিয়ার মর্মান্তিক কাহিনী উপজীব্য করে ‘এগোরা’ নামে একটি স্প্যানিশ চলচিত্র নির্মিত হয় আলেহান্দ্রো আমেনাবারের পরিচালনায়, সেটি সে বছর ১৩টি গয়া পুরস্কারের (স্পেনের প্রধান চলচিত্র পুরস্কার) জন্য মনোনীত হয়, এবং শেষপর্যন্ত এর মধ্যে ৭ টি জিতে নেয়। সে তুলনায় বরং বাংলা সাহিত্য, গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ, চলচিত্র এবং শিল্পকলায় হাইপেশিয়ার উল্লেখ নিতান্তই অপ্রতুল।

সভ্যতার উষালগ্ন থেকেই জ্ঞান-বিজ্ঞানে নারীরা অবদান রেখেছে বিপুল ভাবে। বিশ্বকবি রবিঠাকুর সভ্যতার বিনির্মাণে নারীর কোন অবদান খুঁজে না পেলেও আধুনিক সমাজবিজ্ঞানী, প্রত্নতাত্ত্বিক, এবং নৃতত্ত্ববিদদের মতে মানব সভ্যতার শুরুর প্রথমদিকে নারী-পুরুষের অবদান ছিলো প্রায় সমান সমান। অনুমান করা হয় আগুনের আবিস্কারক ছিলো নারী । যদি তা নাও হয়, এটি নিঃসন্দেহ যে নারীরাই প্রথম আগুন ও তাপ দিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে খাদ্য-সংরক্ষণ করতে শিখেছে। নৃতত্ত্ব, প্রত্নতত্ত্ব এমনকি প্রাচীনকালের পুরাণতত্ত্বগুলোও সাক্ষ্য দেয় যে, নারীরা প্রথম থেকেই খাদ্যসংগ্রহ, প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং সংরক্ষণের ভূমিকায় নিয়োযিত ছিলো ১৮। কাজেই যৌক্তিকভাবেই এটি ধরে নেয়া হয় যে নারীরাই সেই ব্যবস্থাগুলোর উন্নতি সাধন করেছে। গবেষকরা এও স্বীকার করেন যে নারীরাই তৈরী করেছে হোর্টিকালচার বা উদ্যানবৃত্তির ১৯। মানব সভ্যতার উষালগ্ন থেকে আজ পর্যন্ত লক্ষাধিক বছর পার হয়ে গেছে, অথচ পুরো সময়কালের শতকরা নিরানব্বই ভাগ সময়ই মানুষ কাটিয়েছে সেই প্রাক-উদ্যানবৃত্তির সময়টিতে যখন পুরুষেরা শিকার এবং মৎসাহরণের সাথে যুক্ত ছিলো, আর মেয়েরা যুক্ত ছিলো গৃহস্থালীর নানা রকমের কাজ আর ফলমূল ও অন্যান্য খাবার-দাবার সংগ্রহ আর সংরক্ষণে। গবেষকরা বলছেন যে, সে সময় শিকারের মাধ্যমে পুরুষেরা যে পরিমাণ খাদ্য সংগ্রহ করতো, তাতে মাত্র ২০ থেকে ৪০ ভাগ প্রয়োজন মিট্‌তো, বাকী ৬০ থেকে ৮০ ভাগ প্রয়োজনই মেটাতো আসলে নারীরা ১৮। অর্থাৎ নারীরাই ছিল মুলতঃ খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থার উদ্ভাবক এবং নিয়ন্ত্রক। প্রাচীন পুরাণ এবং মিথ্‌গুলোও এই মতকে সমর্থন করে। দেখা যায়, রুটি-রুজির সংস্থানকারী হিসেবে যাদের উপাস্য হিসেবে ভাবা হত তারা সবাই ছিলেন দেবী- অর্থাৎ নারী – আইসিস, সাইবেল, অ্যাগদিস্তিস, দিনদিমিন, ইশতার, আসতারতে, রিঅ্যা কিংবা লক্ষ্মী। প্রায় সব জাতির মধ্যেই যে আদিম রূপকথা প্রচলিত আছে তাতে দেখা যায় স্বর্গের কোন দেবী তার আদ্যাশক্তি বিতরণ করেছিলো এই মর্তের মানুষের মাঝে যার ফলে মানুষ শিখেছিল বীজ বুনতে, উদ্যান তৈরীতে আর কৃষিকাজের জন্য উপকরণ বানাতে। প্রকৃতিজগতেও ‘বৈজ্ঞানিক নারীবাদের’ সমর্থন রয়েছে। যে শিম্পাঞ্জিকুলের সাথে আমরা -গর্বিত মানুষরা- শতকরা প্রায় ৯৯ ভাগ সদৃশ জিন বিনিময় করি, তাদের সাথে তুলনা করেও দেখেছি যে, পুরুষ শিম্পাঞ্জীদের তুলনায় স্ত্রী-শিম্পাঞ্জীরা অনেক বেশী সময় ব্যয় করে ছোট ছোট হাতিয়ার আর যন্ত্রপাতি তৈরীর কাজে। সেগুলো তারা ব্যবহার করে মাটি খোঁড়া আর খাবার সংগ্রহে

সম্ভবতঃ মেসোপটেমিয়ার মুরিবেতের মেয়েরাই সর্বপ্রথম ভূমি-কর্ষণ করে বীজ বুনতে শিখেছিলো খ্রীষ্টের জন্মের ৮০০০ বছর আগে ১৮। সে সময় প্যালেস্টাইনে মেয়েরা শিখেছিলো শস্যক্ষেত্র আর সবজি বাগানের পরিচর্যা করতে, আর তুরস্কে গম থেকে রুটি বানাতে। পরবর্তীকালে মৃৎপাত্র তৈরীর রাসায়নিক প্রক্রিয়া, সুতা কাটার বিদ্যা, তাঁতের প্রযুক্তি আর শণ ও তুলার রকমারি উদ্ভিদবিদ্যা শেখানোর কৃতিত্ব শুধুমাত্র নারীদের। নারীরাই প্রথম চিকিৎসক, শিল্পী আর প্রকৌশলী। কাজেই এ কথা নির্দ্বিধায় বলা যায় যে নারীদের কর্মস্থল শুধু রন্ধনশালা আর শয়নকক্ষেই সীমাবদ্ধ ছিলো না, নারীরা পুরুষদের সাথে পাল্লা দিয়ে উন্নয়ন ঘটিয়েছিলো সে সময়ের জ্ঞান-বিজ্ঞান-প্রযুক্তির।

আজ তবে নারী বিজ্ঞানী, গবেষক, গণিতবিদ আর প্রযুক্তিবিদদের এত অপ্রতুলতা কেন পুরুষদের তুলনায়? এ প্রশ্ন উঠতেই পারে। আসিফ সম্প্রতি এই প্রশ্নটি করেছেন তার একটি সাম্প্রতিক লেখায় – নারীরা এত বিজ্ঞানবিচ্ছিন্ন কেন? পুরুষের পাশাপাশি একদিন যে নারী পত্তন করেছিলো, বিস্তার ঘটিয়েছিলো প্রযুক্তি-নির্ভর সভ্যতার, আজ সে নারীর অধিকাংশই প্রযুক্তি আর সভ্যতা থেকে যোজন মাইল দূরে; পর্দা, প্রথা, বিশ্বাস-অপবিশ্বাস আর হাজারো পুরুষতান্ত্রিক নিয়মের ঘোরটপে বন্দি। এ তো নারী জাতির এক পরাজয়ই বটে। কখন তাহলে ঘটেছিলো নারী জাতির এই ‘ঐতিহাসিক পরাজয়’? অনেক গবেষকই আজ দায়ী করেন কৃষিব্যবস্থাকে২০। তারা মনে করেন হোর্টিকালচার থেকে কৃষিব্যবস্থার উত্তোরণে সভ্যতা এগিয়েছে অনেক, কিন্তু কেড়ে নিয়েছে দু’দুটি প্রগতিশীল মানবিক সত্ত্বাকে। কৃষিকাজের উদ্ভবের পর থেকেই নারীরা বন্দি হয়েছে গৃহে; মূলতঃ নিয়োযিত হয়েছে গৃহস্থালির পরিচর্যায় আর সন্তান লালন-পালনে, আর কৃষিব্যবস্থার ফলেই নিখুঁতভাবে তৈরী হয়েছে শ্রমবিভাজনের, পরবর্তীতে ব্যক্তিগত মালিকানার। আর এ ব্যবস্থার ক্রমোত্তরনেই নারী ক্রমশঃ বিচ্ছিন্ন হয় খাদ্যোৎপাদনের তথা প্রযুক্তির মূলস্রোতধারা থেকে। এঙ্গেলস তার ‘পরিবার, ব্যক্তিগত মালিকানা ও রাষ্টরের উৎপত্তি’ (১৮৮৪) নামের কালোত্তীর্ণ বইটিতে দেখিয়েছেন ব্যক্তিগত মালিকানার উদ্ভবের সাথে সাথে একসময় সম্পদ বাড়তে থাকে, আর সেই সম্পদই শেষ পর্যন্ত শত্রু হয়ে দেখা দেয় নারীর। অরণ্যপর্ব থেকে মানুষ যখন পৌঁছোয় কৃষিপর্বে, তখন সম্পদশালী হয়ে ওঠে বিভিন্ন গোত্র। একসময় ওই সম্পদ অধিকারে চলে আসে গোত্রপতিদের; তারা হয়ে ওঠে সম্পদশালী, উদ্ভাবন ঘটে ব্যক্তিগত মালিকানার। সম্পদ যত বাড়তে থাকে পরিবারে নারীদের থেকে গুরুত্ব বাড়তে থাকে পুরুষদের, পুরুষ মাতৃধারার প্রথা ভেঙে সৃষ্টি করে পিতৃতন্ত্রের প্রথা, নারী পরিনত হয় পুরুষের সম্পত্তিতে ২৩

ইতিহাসের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত দেখা গিয়েছে বিজ্ঞান, গণিতশাস্ত্র, আর চিকিৎসাবিজ্ঞানে নারীরা সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছে। কিন্তু ইতিহাসবেত্তারাই মানব সভ্যতার ইতিহাস লিখতে গিয়ে তা বারবার এড়িয়ে গিয়েছেন। অটোমান স্ট্যানলি তার ‘মাদারস এন্ড ডটারস অব ইনভেনশন’ বইটিতে হাজারো দৃষ্টান্ত হাজির করে দেখিয়েছেন যে, পুরুষেরা যখন কোন প্রযুক্তির উদ্ভাবন ঘটিয়েছে তখন তা পুংখানুপুংখভাবে লিপিবদ্ধ করে রেখেছে, কিন্তু নারীরা যখন কোন প্রযুক্তির উদ্ভাবন ঘটিয়েছে তখন তা চলে গেছে বিস্মৃতির অন্তরালে। ইতিহাসবিদরা ঢালাওভাবে বলেছেন ‘কে, কখন, কিভাবে এ প্রযুক্তি আবিস্কার করেছেন তা সঠিকভাবে বলা যায় না’। বহু ক্ষেত্রেই দেখা গেছে যে, মেয়েরা যে সমস্ত কাজকর্মে নিয়োজিত ছিল সেগুলোর ক্ষেত্রেই অমন ঢালাও ‘স্টেরিওটাইপিং’ করা হয়েছে। স্পিনিং হুইল বা চরকা এমনি একটি উদাহরণ। সম্ভবত নারীরাই এটির উদ্ভাবন ঘটিয়েছিলো চীন দেশে, কিন্তু আজ তার কোন লিপিবদ্ধ ইতিহাস পাওয়া যায় না, অথচ সেই চরকা যখন তের শতকের পর পশ্চিমা বিশ্বে প্রবেশ করে ‘পুরুষের হাতে’ উন্নত আর বিবর্ধিত হয়, তা তখন থেকেই যেন তা ইতিহাসে লিপিবদ্ধ করার আগ্রহ শুরু হয়ে যায়।

তারপরও পুরুষতান্ত্রিক ইতিহাসের জাল ভেদ করে অনেক নারীই প্রতিটি যুগে আমাদের সামনে চলে এসেছেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন হাইপেশিয়া, মাদাম কুরী, লরা বেসি, সোফিয়া কোভালেভস্কায়া, লিস মিন্টার প্রমুখ। এ কজন ছাড়াও আরও আছেন ক্যারলিন হারসেল, মেরী অ্যানী ল্যাভরশিয়ে এবং ডি.এন.এ এর উদ্ভাবক রোজালিন ফ্র্যাঙ্কলিন। পৃথিবীর ভাল ভাল গবেষণাগারগুলোর দিকে চোখ রাখলে দেখা যাবে, নারীরা পুরুষদের সাথে পাল্লা দিয়েই কাজ করে যাচ্ছেন। আধুনিক বিশ্বে তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানে সাফল্যের সাথে কাজ করছেন লিজা রান্ডল, ইভা সিলভারস্টাইন, সিএস উ প্রমুখ, ভেরা রুবিন, জোসলিন বেল প্রমুখ। জীববিজ্ঞান, নৃতত্ত্ব, ইতিহাস এবং বিবর্তনীয় মনোবিজ্ঞান সহ অন্যান্য শাখায় সাফল্যের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন বনি ব্যাসলার, লরা বেটজিগ, এলিজাবেথ ক্যাসদান, লিডা কসমাইডস, হেলেনা ক্রনিন, মিল্ডার্ড ডিকম্যান, হেলেন ফিশার, প্যাট্রিশিয়া গোয়াটি, ক্রিস্টেন হকস, সারা বাফার হার্ডি, ম্যাগদালিনা হুর্টাডো, ববি লো, লিণ্ডা মিলে, ফেলিসিয়া প্রাত্তো, মেরিন রাইস, ক্যাথেরিন স্যামোন, জোয়ান সিল্ক, মেরিডিথ স্মল, বারবারা স্মুটস, ন্যান্সি থর্নহিল, মার্গো উইলসন প্রমুখ নারীবিজ্ঞানীরা। অপার্থিব মুক্তমনায় তার  আন্তর্জাতিক নারী দিবসঃ নারীরা সব পারে -১ প্রবন্ধে আধুনিক বিশ্বের বহু নারী বিজ্ঞানী এবং প্রকৌশলীদের কাজের সাথে আমাদের পরিচয় করিয়ে দিয়েছিলেন। এদের সবাই গবেষণাগারে পুরুষ সহযোগীদের সাথে একনিষ্ঠভাবে কাজ করেছেন; অথচ ওই সহযোগীরাই তাঁদের অবদানকে অনেক সময়ই অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিতে চেয়েছেন। ফ্র্যাঙ্কলিনের কথা তো বলাই যায় – ডি.এন.এর ‘যুগল সর্পিলের’ রহস্যভেদ করার পরও প্রাপ্য কৃতিত্ব থেকে তাঁকে ইচ্ছে করেই বঞ্চিত করা হয়েছে। জোসলিন বেল পালসার আবিস্কারের পরও নোবেল পুরস্কার পাননি, পেয়েছেন তাঁর পুরুষ সহযোগী অ্যান্থনী হিউয়িশ ২১। আইনস্টাইন আপেক্ষিকতার বিশেষ তত্ত্ব নিয়ে লিখিত যুগান্তকারী পেপারটিতে তার স্ত্রী মিলেভা আইনস্টাইনের অনেক অবদান থাকা সত্ত্বেও তা এড়িয়ে গেছেন ২২। ভেরা রুবিন ‘ডার্ক ম্যাটার’বা গুপ্ত পদার্থ আবিস্কারের পরও স্বীকৃতি পেতে তাঁকে অপেক্ষা করতে হয়েছে দীর্ঘ সময়। উনিশ শতকে ব্রিটেন এবং আমেরিকায় এমন আইনও করা হয়েছিলো, বিবাহিত নারীরা যদি কোন ‘পেটেন্ট’ উদ্ভাবন করে থাকেন, তা স্বামীর সম্পত্তি হিসেবে বিবেচিত হবে । এ সব কিছুই পুরুষেরা ব্যবহার করেছে নারীর উদ্ভাবনী শক্তিকে অবদমিত আর ব্যহত করার কাজে। এটি নিঃসন্দেহ যে, নারীরা সভ্যতা-নির্মানের এক বড় অংশীদার হওয়া সত্ত্বেও পুরুষশাসিত সমাজের সীমাবদ্ধতায় পথ হারিয়েছে বারে বারে। কিন্তু যে নামটি সবচেয়ে বেশী গুরুত্ব নিয়ে উঠে এসেছে, যার মৃত্যুর সাথে জড়িয়ে আছে আলেকজান্দ্রিয়া গ্রন্থাগারের ধ্বংস, আর মধ্যযুগীয় অন্ধকার যুগের সূচনা – তিনি হলেন হাইপেশিয়া। হাইপেশিয়া হত্যায় বিক্ষুব্ধ হয়ে চার্লস লিকন্ট দ্য লিসল এক সময় নিবেদন করেছিলেন আবেগময় পংক্তিমালা, আমার অক্ষম হাতের আনুবাদে তার অনেকটাই হয়ত নিরস শোনাবে :

সে একা বেঁচে আছে, যেন শাশ্বত চিরন্তনী হয়ে
মৃত্যু কেবল বিক্ষিপ্তই করতে পারে এই কম্পমান বিশ্বব্রক্ষ্মান্ডকে
কিন্তু আজো সৌন্দর্য তাঁর আগুন হয়ে জ্বলে
আর তাঁর ভিতর পুনর্জন্ম ঘটে যেন সকলের
এবং ধরিত্রী ভুলুন্ঠিত হয়ে পড়ে রয় তাঁর শুভ্র চরণ তলে।

বার্ট্রান্ড রাসেল তার হিস্ট্রি অব ওয়েস্টার্ন ফিলোসফি গ্রন্থে স্পষ্ট করেই বলেছেন, হাইপেশিয়াকে হত্যার মাধ্যমে আলেকজান্দ্রিয়ার খ্রীষ্টিয় মৌলবাদীরা নিশ্চিত করেছিল যেন আর কোন দার্শনিক ভবিষ্যতে তাদের এমনিভাবে না জ্বালায়। হাইপেশিয়ার বেদনাঘন উপাখ্যান মনে করিয়ে দেয় আমাদের প্রাচীন সংস্কৃতির বিদুষী নারী ‘খনা’কে যার খ্যাতি ক্ষুব্ধ করে তুলেছিলো তদানিন্তন পুরুষতন্ত্রকে। শেষপর্যন্ত খনার জীহ্বা কেটে ফেলে পুরুষতন্ত্র একসময় পালন করেছিলো তাদের জয়ন্তী উৎসব। ঠিক তেমনিভাবে হাইপেশিয়াকে হত্যার মাধ্যমে পুরুষতন্ত্রের পুরোধা খ্রীষ্টিয় চার্চ আকাশে উড়াতে চেয়েছিলো তাদের বিজয় কেতন, যা প্রকারান্তরে সূচনা করে মানব-ইতিহাসের এক কলঙ্কজনক ঘোর কৃষ্ণ অধ্যায়ের – অন্ধকার যুগ বা ডার্ক এজ-এর ।

তথ্যসুত্রঃ

1) পশ্চিম যাত্রীর ডায়েরী , রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, রবীন্দ্র রচনাবলী, দশম খন্ড, বিশ্বভারতী সুলভ সংস্করণ।

2) Women in Philosophical Dictionary, Voltaire, Vol. 10, Dumon Paris, 1764 (reprint 1901)

3) ব্রুনোর আত্মত্যাগ ও যুক্তিবাদ – শহিদুল ইসলাম, মুক্ত-মনা; জিওর্দানো ব্রুনো স্মরণে সেমিনার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট মিলনায়তন, ২৯ এপ্রিল ২০০৫।

4) মহাজাগতিক আলোয় ফিরে দেখা, আসিফ, সময় প্রকাশন, ২০০৩।

5) Women and Technology in Ancient Alexandria : Maria and Hypatia, Margaret Alic, Women’s Studies Int. Quart., Vol.4, No. 3, 1981, pp 305-312.

6) Women, Technology and Innovation, ed. Joan Rothschild, New York : Pergamon, 1982.

7) Mothers and Druthers of Invention: Notes for revised History of Technology, Autumn Stanley, The Scarecrow Press, Inc. Metuchen, N.J., & London, 1993.

8 ) Hypatia, Joseph McCabe, Critic, Vol 43, pp 267-272.

9) Hypatia’s Heritage, Margaret Alic, Boston, 1986.

10) Humanisms and History of Mathematics, A. W. Richeson, ed. G. W. Dunnington, National Mathematics Magazine, Vol. 15, 1940, pp 74-82.

11) Women of Mathematics, R. Jacobacci, Arithmetic Teacher, Vol. 17.4, 1970, pp 316-324.

12) Hypatia of Alexandria, Maria Dzielska, Translated by F. Lyra, Harvard University Press, England, 1995.

13) Life of Hypatia, Socrates Scholasticas, from his ecclesiastical History, Alexandra 2, Cosmology, Philosophy, Myths and culture, Ed. David Fideler, Phanes Press.

14) Hypatia and or the New Foes with an Old face, Charles Kingsley, Conkley, Chicago, 1853 (1906)

15) The Murder of Hypatia. Socrates Scholasticus. Fifth Century (1953). In: Freemantle, Ann ed. A Treasury of Early Christianity, pp. 379-380. Viking, New York.

16) Women in Mathematics. Lynn M. Osen. The MIT Press, Cambridge (1975).

17) The Decline and Fall of Roman Empire, vol 1-3, Edward Gibbon, Everyman’s Library; Boxed ed (1993)

18 ) Daughters of ISIS, Daughters of Demeter: When Women Sowed and Reaped, Autumn Stanley, Women’s Studies Int. Quart., Vol 4, No. 3, pp. 289-304 (1981).

19) Female of the Species, M. Kay Martin & Barbara Voorhies, New York: Columbia University Press, 1975.

20) The Worst Mistake in the History of the Human Race, Jared Diamond, Discover Magazine, pp Pages 64-66, May 1987

21) আলো হাতে চলিয়াছে আঁধারের যাত্রী, অভিজিৎ রায়, অঙ্কুর প্রকাশনী, ২০০৫।

22) আজি হতে শতবর্ষ আগে, অভিজিৎ রায়, (মুক্তমনা) সাপ্তাহিক যায় যায় দিন, ১৫ মার্চ, ২০০৫

23) এঙ্গেলসের এ ব্যাখ্যাটি অবশ্য ইদানিং নৃতত্ত্ব এবং বিবর্তনীয় মনোবিজ্ঞানের দৃষ্টিকোন থেকে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। স্টিফেন গোল্ডবার্গ তার ‘The Inevitability of Patriarchy’ গ্রন্থে মাতৃতান্ত্রিক সমাজের বহু মিথ খণ্ডন করেছেন। এ ছাড়া ফিলিপ ডেভিসের Goddess Unmasked কিংবা সিন্থিয়া এলারের The Myth of Matriarchal Prehistory প্রভৃতি গ্রন্থ এবং আধুনিক কিছু গবেষণা ইঙ্গিত করেছে যে, পুরোপুরি মাতৃতান্ত্রিক সমাজ মানব সমাজে কখনই সম্ভবত ছিল না। বিচ্ছিন্ন ভাবে কিছু জায়গায় মাতৃতন্ত্রের প্রকাশ  দেখা গেলেও এটি কোন সময়েই মানব সমাজের সামগ্রিক বৈশিষ্ট (Universal Matriarchy) ছিলো না। শুধু নৃতাত্ত্বিক বা সামাজিক ইতিহাসই নয়, জৈবিক বিবর্তনের ইতিহাসও এ তথ্য সমর্থন করে। প্লেইস্টোসিন যুগের শতকরা ৯৯ ভাগ অংশই যদি পুরুষেরা শিকার আর নারীরা ফলমূল সংগ্রহ করে থাকে, তবে আদি মাতৃতান্ত্রিক সমাজের ধারণা অনেকটা অসাড়ই মনে হয়। সে সময় সন্তানের জন্ম দেয়া এবং আণুসঙ্গিক দায়িত্বগুলো জৈবিকভাবেই প্রথম থেকে মেয়েদের ছিলো। আর মনে রাখতে হবে, জন্ম নিয়ন্ত্রণের কোন পদ্ধতি আদিম সমাজে ছিলো না। ফলে সন্তানের জন্মও হত অনেক বেশি। আর অবধারিতভাবে শিশুর জন্ম, এবং লালন পালনের বেশিরভাগটুকুই মেয়েদের করতে হত। কাজেই এই ধরণের বিভিন্ন জৈবিক কারণে শ্রমবিভাজনের সৃষ্টি হয়েছিলো, যার ফলে প্রথম থেকেই মেয়েদের বাইরের কাজের চেয়ে শিশু পালন গৃহস্থালির নানা কাজে আত্মনিয়োগ করতে হয়েছিলো। কাজেই এঙ্গেলস যেভাবে বলেছেন, কৃষিব্যস্থার উদ্ভবের পরে মাতৃতান্ত্রিক সমাজ সামগ্রিকভাবে পুরুষতান্ত্রিক সমাজে রূপ নিয়েছিল, সেটি সম্ভবতঃ সঠিক নয়। তারপরেও এটি অস্বীকার করার উপায় নেই যে, নারীরা প্রথমিক সময়গুলোতে উৎপাদন ও প্রযুক্তির সাথে অনেক নিবিড়ভাবে যুক্ত ছিল, কৃষি ব্যবস্থার পরবর্তী সময়গুলোতে সেই অবস্থান অনেকটাই হারিয়ে গেছে।

About the Author:

অভিজিৎ রায়। লেখক এবং প্রকৌশলী। মুক্তমনার প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক। আগ্রহ বিজ্ঞান এবং দর্শন বিষয়ে।

মন্তব্যসমূহ

  1. বিপ্লব রহমান মার্চ 9, 2018 at 10:52 পূর্বাহ্ন - Reply

    অভি দা বেঁচে থাকবেন এই সব অনবদ্য লেখায়। শ্রদ্ধা

  2. সৌরভ সোম মার্চ 9, 2014 at 2:46 অপরাহ্ন - Reply

    @অভিজিৎ ধন্যবাদ।

  3. সৌরভ সোম মার্চ 8, 2014 at 11:51 অপরাহ্ন - Reply

    স্বাভাবিক ভাবেই এক অস্বাভাবিক লেখা । Noether আর একজন মহিষী যাকে পূর্ণ মর্যাদা দিতে সমাজ ব্যর্থ হয়েছিল।

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2014 at 1:58 অপরাহ্ন - Reply

      @সৌরভ সোম,

      আহ। এমি নোদার! আসলেই। এই মহীয়সী নারীকে নিয়ে খানিকটা লিখেছিলাম এখানে

      এমি নোদারের তত্ত্বটি গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু সেটা নিয়ে বলার আগে এমি নোদার সম্বন্ধেই দু’চার কথা বলে নেওয়া যাক। নোদার জন্মেছিলেন ১৮৮২ সালে জার্মানির বাভারিয়ায়। গণিতজ্ঞ বাবার অনুপ্রেরণায় আর মূলত নিজের চেষ্টায় নিজেও এক সময় গণিতজ্ঞ হয়ে উঠেন তিনি। কিন্তু হলে কী হবে, নোদার যে সময়টায় জন্মেছিলেন, সে সময় গণিতবিদ হিসেবে নারীদের তেমন কোন স্বীকৃতি ছিল না। তার নিজের শহরের আর্লেংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ে গণিতের ক্লাসে অডিট করা ছাড়া আর কোন কিছু করতে দেয়া হয়নি। তারপরেও ১৯০৩ সালে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জার্মান ব্যাচেলর ডিগ্রির সমতুল্য ডিগ্রি নিয়ে বেরুতে পারলেন। পরের এগারো বছর তিনি বিখ্যাত গণিতজ্ঞ ডেভিড হিলবার্টের অধীনে কাজ করার সুযোগ পান, সুযোগ পান আর্লেংগেন এবং গটিংগেন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানোরও, যদিও এর জন্য কোন পারিশ্রমিক তাকে দেয়া হয়নি। ১৯১৮ সালের দিকে তাকে ‘আনটেনিউরড প্রফেসর’ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়, এবং ১৯২৩ সাল থেকে তিনি সামান্য কিছু পারিশ্রমিক পেতে শুরু করেন। এভাবেই তাকে থাকতে হয়েছিল। গণিতে তার উল্লেখযোগ্য পারদর্শিতা থাকলেও কখনোই তার চাকরী স্থায়ী করা হয়নি, তাকে দেয়া হয়নি গোটিংগেন অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সের কোন পদও।

      এর মধ্যে ত্রিশের দশক থেকে জার্মানিতে নাৎসি বাহিনীর ক্ষমতা বৃদ্ধি পেতে শুরু করলে, শুরু হয় ইহুদীদের উপর লাগাতার অত্যাচার। এমি নোদার জার্মানির ইহুদী পরিবারে জন্মেছিলেন। বিপদ ঘনিয়ে আসছে বুঝে তাকে জার্মানী ত্যাগ করতে হয়। ১৯৩৩ সালে তিনি আমেরিকা এসে পেনসেলভেনিয়ার ব্রায়ান মেওর কলেজে যোগ দেন। কিন্তু দুই বছরের মাথায় তাঁকে দুর্ভাগ্যজনকভাবে জরায়ুর ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুমুখে পতিত হতে হয়। তিনি মারা যাবার সময় খুব কম লোকই তার নাম জানতো। কিন্তু এখন দিন বদলাচ্ছে। তার কাজ খুব গুরুত্ব সহকারে বিজ্ঞানের বিভিন্ন শাখায় উঠে আসছে। বিশেষ করে এমি নোদার ১৯১৫ সালে একটি যুগান্তকারী তত্ত্ব দিয়েছিলেন, যেটা এখন ‘নোদারের তত্ত্ব’ (Noether’s theorem) নামে অভিহিত হয়। এ তত্ত্ব এখন ব্যবহৃত হচ্ছে আধুনিক পদার্থবিদ্যার বহু শাখায়[71]। গুরুত্ব, প্রয়োগ এবং ব্যবহারের নিরিখে তার তত্ত্বটি বর্তমানে হয়ে উঠেছে গণিতের ইতিহাসের অন্যতম সার্থক তত্ত্ব। এর সার কথা হল – প্রতিটি লাগাতার স্থান-কাল সাম্যতার জন্য একটি করে নিত্যতার নীতি রয়েছে। পদার্থবিজ্ঞানে তিনটি নিত্যতার নীতি মৌলিক বলে বিবেচিত : শক্তির নিত্যতা, রৈখিক ভরবেগের নিত্যতা, কৌণিক ভরবেগের নিত্যতা।

      নোদারের তত্ত্ব থেকে দেখা গেল শক্তির নিত্যতার সূত্র (conservation of energy) আসলে সেরকম মৌলিক কিছু নয়, সময় অবস্থান্তর সাম্যতা (time translation symmetry) থেকেই বেরিয়ে আসে এটা । রৈখিক ভরবেগের নিত্যতা (conservation of linear momentum) বেরিয়ে আসে স্থান অবস্থান্তর সাম্যতা (space translation symmetry) থেকে। কৌণিক ভরবেগের নিত্যতা আসে স্থানিক ঘূর্ণন সাম্যতা (space rotation symmetry) থেকে।

      এর মানে কি দাঁড়ালো? দাঁড়ালো এই যে, পদার্থবিজ্ঞানীরা যখন গাণিতিক মডেল বা প্রতিরূপ নির্মাণ করেন, তখন যদি তাদের তাদের সময় নিয়ে চিন্তা করতে না হয়, তাহলে তাদের শক্তির সংরক্ষণ নিয়েও আলাদা করে চিন্তার কিছু নেই। এটা এমনিতেই সিস্টেমে চলে আসবে। অর্থাৎ, একই মডেল যদি আজকে কাজ করে, কালকে কাজ করে কিংবা পরশু, কিংবা এক হাজার বছর আগে, কিংবা এক হাজার বছর পরে – তাহলে মডেলে স্বয়ংক্রিয়ভাবেই শক্তির নিত্যতা বলবত থাকবে। পদার্থবিজ্ঞানীদের এখানে আলাদা করে কিছুই করণীয় নেই।

      একইভাবে, যদি আরেকজন পদার্থবিদ আরেকটি মডেল নির্মাণ করেন যেটা কিনা স্থানের উপর নির্ভরশীল থাকবে না, অর্থাৎ মডেলটি বাংলাদেশের বান্দরবনে যেভাবে কাজ করবে, সেভাবেই কাজ করবে বিলেতের অক্সফোর্ডে, আমেরিকার টেক্সাসে, টিম্বুকটুতে কিংবা প্লুটোতে, তাহলে আমরা বলতে পারি, সেই মডেল স্বয়ংক্রিয়ভাবে রৈখিক ভরবেগের নিত্যতাও ধারণ করবে। এক্ষেত্রেও পদার্থবিজ্ঞানীদের আলাদা করে কিছু করার নেই।

      ঠিক একইভাবে কোন মডেল যদি তার অরিয়েন্টেশন বা দিকস্থিতির উপর নির্ভরশীল না হয়, তবে কৌণিক ভরবেগের নিত্যতার ব্যাপারটিও এমনিতেই বেরিয়ে আসবে।

      নোদারের তত্ত্বের পাশাপাশি গেজ প্রতিসাম্যতার বিষয়টিও এখানে প্রাসঙ্গিক। গবেষকেরা দেখিয়েছেন নাম আলাদা হলেও একেদের মধ্যে সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ; গেজ সিমেট্রির অনেক কিছুই আসলে নোদারের তত্ত্ব থেকেই বেরিয়ে আসে[72]। এই গেজ প্রতিসাম্যতার ব্যবহার পদার্থবিজ্ঞানে অনেক। বৈদ্যুতিক চার্জের সংরক্ষণের কথা যে আমরা শুনি, সেটা এই গেজ প্রতিসাম্যতা থেকেই চলে আসে। যখন আহিত কণার গতির সূত্রকে গেজ সিমেট্রিক হিসেবে তৈরি করা হয়, ম্যাক্সওয়েলের সূত্র সেখান থেকেই চলে আসে। গেজ প্রতিসাম্যতা কেবল চিরায়ত পদার্থবিজ্ঞানেই নয়, আধুনিক পদার্থবিজ্ঞানের বহু শাখাতেই সাফল্যের সাথে ব্যবহৃত হচ্ছে। সেই ১৯৪০ সাল থেকেই কোয়ান্টাম পদার্থবিজ্ঞানে আর ১৯৭০ এর পরে কণা পদার্থবিজ্ঞানের প্রমিত মডেলে অত্যন্ত সাফল্যের সাথে ব্যবহৃত হচ্ছে এই তত্ত্ব। প্রমিত মডেলের চারিটি মৌলিক বলের তিনটিই – তাড়িতচুম্বক, দুর্বল এবং সবল নিউক্লিয় বল ‘লোকাল গেজ সিমেট্রি’ থেকেই বেরিয়ে আসে। …

      ইচ্ছে ছিল তাকে নিয়ে আরেকটু বিষদ ভাবে লিখব শূন্য থেকে মহাবিশ্ব বইটিতে, কিন্তু বইটা তো বেরুলোই না মেলায়। হয়তো সামনে আসবে …

  4. অভিজিৎ মার্চ 8, 2014 at 8:10 অপরাহ্ন - Reply

    আন্তর্জাতিক নারী দিবস আসলেই অবধারিতভাবে হাইপেশিয়াকে নিয়ে লেখাটির কথা মনে পড়ে যায়, কেন যেন।
    লেখাটা বিডি আর্টসেও প্রকাশিত হয়েছিল কয়েক বছর আগে – এখানে। সেখানেও পাঠকদের কাছ থেকে মূল্যবান কিছু মন্তব্য আর অভিমত উঠে এসেছিল।

    স্মরণ করছি মানব সভ্যতা নির্মাণে হাইপেশিয়া সহ অসামান্য নারীদের অসামান্য অবদান।

  5. অভিজিৎ মার্চ 8, 2012 at 8:54 অপরাহ্ন - Reply

    আজকের নারী দিবসে হাইপেশিয়াকে নিয়ে লেখাটার কথা মনে পড়োলো। আমার সাম্প্রতিক ‘ভালবাসা কারে কয়‘ (শুদ্ধস্বর, ২০১২) গ্রন্থতেও এ ব্যাপারগুলো নিয়ে আলোচনা করেছি। কিছু উল্লেখ করি –

    সবচেয়ে দুর্গম, এবং মেধাশীল ক্ষেত্র বলে চিহ্নিত মহাকাশযাত্রায় নারীদের অবদানের কথাই বলা যাক। সোভিয়েত নারী ভ্যালেন্টিনা তেরেস্কোভা ছিলেন প্রথম মহাকাশ বিজয়ী নারী, এ কথা আমরা সবাই জানি। কিন্তু অনেকেই হয়তো জানি না, বর্তমানে নাসার বহু উল্লেখযোগ্য মহাকাশ মিশনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন সুদক্ষ নারীরা। যেমন, আইলিন কলিনস ১৯৯৯ সালের স্পেস শাট্‌লের প্রথম মহিলা পূর্ণ কমাণ্ডার হিসেবে কলাম্বিয়া মিশনের সময় নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। এর আগে তিনি মার্কিন বিমান বাহিনীর সি-১৪১ বিমানের প্রধানের দায়িত্বেও ছিলেন । ২০০৭ সালের স্পেস শাট্‌ল ডিস্কভারী এবং আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের মিলনের সময় উভয়েরই প্রধান ছিলেন নারী। ডিস্কভারীর নেতৃত্বে ছিলেন পামেলা মেলরয় আর আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের দায়িত্বে ছিলেন পেগি হুইট্‌সন। নাসায় কর্মরত ভারতীয় উপমহাদেশের প্রয়াত ড. কল্পনা চাওলাও কলম্বিয়া মিশনে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মহাকাশ চারণায় যথেস্ট কৃতিত্ব দেখিয়েছিলেন; এরোস্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং এ পিএইচডি ডিগ্রি ছিলো তার। আরেকজন পিএইচডি ডিগ্রীধারী মার্কিন নভোচারী শ্যানন লুসিড একসময় মহাকাশে দীর্ঘতম সময় কাটানোর রেকর্ড সৃস্টি করেছিলেন। এ ছাড়া ডঃ স্যালী রাইডের কথাও অনেকে জানেন যিনি স্পেস শাট্‌লের প্রথম মহিলা সদস্য হন ১৯৮৩ এ। মহাকাশ জয়ে এখনো অবদান রাখতে না পারলেও বাঙালি মেয়েরা পিছিয়ে নেই যাত্রীবাহী বিমান চালনায়। যেমন, বাংলাদেশ বিমানের ইয়াসমিন রহমান এশিয়ার প্রথম মহিলা ডিসি-১০ বিমানের ক্যাপ্টেন হবার গৌরব অর্জন করেন ১৯৯১ তে। ডিসি-১০ বিমানের ক্যাপ্টেন হয়ে পাঁচ বছর বিমান চালাবার পর রাজনৈতিক কারণে তাকে অবসর গ্রহনে বাধ্য করা হয়েছিলো। কিন্তু তারপরেও ইয়াসমিন রহমানের অগ্রযাত্রা থেমে থাকেনি। স্থাপত্যবিজ্ঞানে ডিগ্রী নিয়ে পাঁচ বছর স্থপতির পেশায় নিয়োজিত থেকে আবার সাফল্যের সাথে পরীক্ষা দিয়ে সক্রিয় বিমান চালনায় প্রত্যাবর্তন করে বিমানের এয়ারবাস এর ক্যাপ্টেন হন ২০০১ সালে। নারীদের জন্য তিনি এক উজ্জীবিত উদাহরণ। পাশাপাশি বাংলাদেশের সুলেখক এবং গবেষক সেলিনা হোসেনের কন্যা ফারিয়া লারার কথাও আমরা জানি, যিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজী বিভাগে স্নাতক হওয়ার পাশাপাশি ছিলেন একজন সফল পাইলট। ১৯৯৬ সালে সিভিল এভিয়েশন অথরিটি অফ বাংলাদেশের কাছ থেকে তিনি প্রাইভেট পাইলটের লাইসেন্স অর্জন করেন। এর দু বছর পরে ১৯৯৮ সালের ১৯ শে মার্চ লারা বানিজ্যিক পাইলট হওয়ার লাইসেন্স পান। তিনি এরপরই পাইলটদের প্রশিক্ষক হবার প্রশিক্ষণ দেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম নারী যিনি এই পেশায় আসেন। ১৯৯৮ সালের ২৯শে সেপ্টেম্বর একটি বিমান দুর্ঘটনায় মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি সেই পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। দুর্ঘটনায় অকাল মৃত্যু না হলে তিনিই হতেন বাংলাদেশের প্রথম নারী পাইলট প্রশিক্ষক। …

    মুক্তমনা সদস্য অপার্থিব ‘আন্তর্জাতিক নারী দিবস: নারীরা সব পারে’ নামের একটি প্রবন্ধে বাংলাদেশের পাপিয়া নামের এক সাহসী মেয়ের উদাহরণ নিয়ে এসেছিলেন । ১৯৯৮ সালের দিকে পাপিয়া জীবিকার তাগিদে ঢাকার রাস্তায় রিকশা চালাতে শুরু করে ইতিহাস সৃস্টি করেছিলেন। পাপিয়া তার রিক্সায় বাহক নারী নাকি পুরুষ তা বিচার না করে সবাইকে বহন করতেন। কিস্তু দুঃখের বিষয় সেটাই বোধহয় প্রথম আর শেষ উদাহরণ। বাংলাদেশের সামাজিক বাস্তবতা এখনো এরকম দুঃসাহসিক কাজে মেয়েদের গ্রহণ করতে প্রস্তুত নয়। সামাজিক বাস্তবতার জন্য মেয়েরা বাসের ড্রাইভার বা কণ্ডাক্টরও হয়ত হতে পারবেন না ইচ্ছা থাকা সত্বেও, যদিও ট্রাফিক ও যাত্রীসংখ্যার দিক দিয়ে সিঙ্গাপুর, ব্যাংকক আর ঢাকার মধ্যে খুব একটা পার্থক্য নেই তবু সিঙ্গাপুর শহরে কিংবা ব্যাংককে মেয়ে বাস কন্ডাক্টর এক অতি পরিচিত দৃশ্য। আমি নিজেই দীর্ঘদিন সিঙ্গাপুরে থেকেছি। বহুবারই বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে এমন বাসে আমার উঠতে হয়েছে যেখানকার চালক পুরুষ নন, নারী। শুধু বাসের চালক বা কণ্ডাক্টর হওয়া নয়, রাস্তায় রাস্তায় ফটোকপি মেশিন চালনা, মাল পরবহন, মালামালের ক্রয়বিক্রয় সহ সব ধরণের মানসিক এবং শারীরিক শ্রমসাধ্য কাজে পুরুষের পাশাপাশি নারীরা অংশগ্রহণ করেছে সমান তালে।

    আমেরিকায় ২০০৩ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী মোট জনশক্তির প্রায় ৪৩ ভাগ নারী। কিন্তু এদের মধ্যে মাত্র ২৭ ভাগ বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তির সাথে যুক্ত । গনিতে দক্ষ শীর্ষ ১% ছেলে মেয়ের মধ্যে জরিপ চালিয়ে দেখা গেছে, দক্ষতা থাকা সত্ত্বেও আটজন ছেলে গনিত বা বিজ্ঞানকে পেশা হিসেবে নিলে, তার বিপক্ষে মেয়ে থাকে মাত্র একটি। অন্য সাতজন পেশা হিসেবে নেয় চিকিৎসাবিদ্যা, জীববিজ্ঞান, কিংবা মানবিক কোন বিষয় আশয় । কিন্তু তারপরেও পৃথিবীর ভাল ভাল গবেষণাগারগুলোর দিকে চোখ রাখলে দেখা যাবে, নারীরা পুরুষদের সাথে পাল্লা দিয়েই কাজ করে যাচ্ছেন, গবেষণায় সাফল্য পাচ্ছেন। সেই প্রাচীণ কালের হাইপেশিয়া থেকে শুরু করে মাদাম কুরী, লরা বেসি, সোফিয়া কোভালেভস্কায়া, লিস মিন্টার, ক্যারলিন হারসেল, মেরী অ্যানী ল্যাভরশিয়ে রোজালিন ফ্র্যাঙ্কলিন প্রমুখ বিজ্ঞানীদের নাম আমরা সবাই জানি। আধুনিক বিশ্বে তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞানে সাফল্যের সাথে কাজ করছেন লিজা রান্ডল, ইভা সিলভারস্টাইন, সিএস উ প্রমুখ, ভেরা রুবিন, জোসলিন বেল প্রমুখ। জীববিজ্ঞান, নৃতত্ত্ব, ইতিহাস এবং বিবর্তনীয় মনোবিজ্ঞান সহ অন্যান্য শাখায় সাফল্যের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন বনি ব্যাসলার, লরা বেটজিগ, এলিজাবেথ ক্যাসদান, লিডা কসমাইডস, হেলেনা ক্রনিন, মিল্ডার্ড ডিকম্যান, হেলেন ফিশার, প্যাট্রিশিয়া গোয়াটি, ক্রিস্টেন হকস, সারা ব্ল্যাফার হার্ডি, ম্যাগদালিনা হুর্টাডো, ববি লো, লিণ্ডা মিলে, ফেলিসিয়া প্রাত্তো, মেরিন রাইস, ক্যাথেরিন স্যামোন, জোয়ান সিল্ক, মেরিডিথ স্মল, বারবারা স্মুটস, ন্যান্সি থর্নহিল, মার্গো উইলসন প্রমুখ নারীবিজ্ঞানীরা। তাদের অনেকেই আবার স্ব স্ব পেশায় কাজ করতে গিয়ে নানা ধরণের জেণ্ডারগত অসাম্যেরও শিকার হয়েছিলেন।…

    একটি কথা আমাদের মনে রাখতে হবে যে, বহু বছর ধরে মেয়েদের দমন করে রাখা হয়েছে সামাজিক ভাবেই। তাদের ভোটাধিকার, বাইরে কাজ করার অধিকার, নারী শিক্ষা সহ সকল অধিকারগুলো খুব সাম্প্রতিক সময়ের ঘটনা। মেয়েদেরকে পর্যাপ্ত সময়ও কিন্তু দিতে হবে উঠে আসতে হলে। তা না করে কেবল পরিসংখ্যান হাজির করে যদি সিদ্ধান্তে উপনীত হয় কেউ যে, নারীরা প্রযুক্তি বিজ্ঞান কিংবা গণিত নিয়ে পড়াশোনা করতে অক্ষম, তা ভুল উপসংহারের দিকে আমাদের নিয়ে যাবে। এ প্রসঙ্গে আমেরিকায় আফ্রিকান-আমেরিকান কমিউনিটির কথা বলা যেতে পারে। কালোদের খুব কমই শিক্ষায়তনে যায়, বা গেলেও বড় একটা অংশ ঝরে পড়ে। চাকরী ক্ষেত্রেও যে খুব বেশী কালো চোখে পড়ে তা নয়। এখন যে কেউ উপসংহারে পৌছিয়ে যেতে পারে – কালোদের বুদ্ধি সুদ্ধি কম – তাই বোধ হয় সাদাদের সাথে পেরে উঠে না। কিন্তু এই উপসংহারে পৌঁছোনো কি ঠিক হবে? মোটেই নয়। আসলে বহু বছর ধরে কালোরা আমেরিকায় নিগৃহীত, নিপীড়িত ছিলো। তাদের দাস বানিয়ে রাখা হয়েছিলো যুগের পর যুগ, তাচ্ছিল্য করে ‘নিগ্রো’ বা ‘নিগার’ হিসেবে অভিহিত করা হত। এই ধারা থেকে বেরিয়ে এসে উঠে দাঁড়াতে হলে তাদের পর্যাপ্ত সময় দিতে হবে, তারপরে না তুলনার প্রশ্ন।…

    • বিপ্লব রহমান মার্চ 8, 2014 at 3:28 অপরাহ্ন - Reply

      @অভি দা,

      একটি কথা আমাদের মনে রাখতে হবে যে, বহু বছর ধরে মেয়েদের দমন করে রাখা হয়েছে সামাজিক ভাবেই। তাদের ভোটাধিকার, বাইরে কাজ করার অধিকার, নারী শিক্ষা সহ সকল অধিকারগুলো খুব সাম্প্রতিক সময়ের ঘটনা। মেয়েদেরকে পর্যাপ্ত সময়ও কিন্তু দিতে হবে উঠে আসতে হলে। তা না করে কেবল পরিসংখ্যান হাজির করে যদি সিদ্ধান্তে উপনীত হয় কেউ যে, নারীরা প্রযুক্তি বিজ্ঞান কিংবা গণিত নিয়ে পড়াশোনা করতে অক্ষম, তা ভুল উপসংহারের দিকে আমাদের নিয়ে যাবে।

      এ ক ম ত। নারী দিবসে আরেকটি প্রাসঙ্গিক পর্যবেক্ষণ:

      ফেয়ার অ্যন্ড লাভলি+খুশী কবির কোং-জাত নারী দিবসের তামাশা নিপাত যাক! [খেয়াল করে] 😛

  6. লীনা রহমান মার্চ 14, 2011 at 10:25 পূর্বাহ্ন - Reply

    @অভিজিৎ,ঐদিন দুইটা কমেন্ট করলাম দুইটাই মাঝ দিয়ে আসেনাই বুঝলাম না আমার সাথেই এই প্রাসাদ ষড়যন্ত্র হইল কেন? 😛

    বলতে চাইছিলাম হাইপেশিয়ার কাহিনির সাথে সাথে অন্য যে আলোচনাগুলো এনেছেন সেগুলোও ভাল লেগেছে। সেদিন আদবুল্লাহ আবু সায়ীদ স্যারও ক্লাসে কৃষির আগমনের সাথে নারীর বন্দি হওয়া সংক্রান্ত ব্যাপারগুলো নিয়ে কথা বলছিলেন, কথাগুলো মিলে গেল। আমি এ ব্যাপারে আরো জানতে আগ্রহী, আপনার জানামতে এ বিষয়ে ভাল ইংরেজি ও বাংলা বই আছে যেগুলো এখানে পাওয়া যেতে পারে? হার্ড কপি কিনব, নইলে এত গোলমালে কম্পুতে মন দিয়ে পড়া যায়না

    • বিপ্লব রহমান মার্চ 14, 2011 at 7:02 অপরাহ্ন - Reply

      @লীনা রহমান,

      আফা, বাইছা বাইছা আপ্নের বেলাতেই দান দান তিন দান প্রসাদ ষড়যন্ত্র হৈলো কেনু? :-[

  7. লীনা রহমান মার্চ 10, 2011 at 11:22 পূর্বাহ্ন - Reply

    অভিদা, আপনার অনেক ভাল ভাল লেখা আছে তবু হাইপেশিয়ার প্রতি আমার আলাদা ধরণের ভালবাসা, মুগ্ধতা ও শ্রদ্ধা থাকার কারণেই এই লেখাটাকে আপনার কাছ থেকে পাওয়া সবচেয়ে ভাল লেখা বলে মত দিচ্ছি। (F)
    হাইপেশিয়ার সাথে সাথে অন্যান্য যে বিষয়গুল%

    • অভিজিৎ মার্চ 14, 2011 at 1:33 পূর্বাহ্ন - Reply

      @লীনা রহমান,

      আপনার মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ। অ্নেকেই আপনার মতো বলেছেন এটি নাকি আমার সবচেয়ে ভালো লেখা। ব্যাপারটি সত্যি কিনা জানি না, তবে, এটুকু বলতে পারি – আমার কোন লেখা নিয়েই আমার তেমন কোন আবেগ কাজ করে না, কিন্তু এই লেখাটি নিয়ে কেন যেন আছে। হয়তো হাইপেশিয়া বলেই। ছোটবেলায় যখন হাইপেশিয়ার এই মর্মান্তিক কাহিনী শুনেছিলাম, তখনই মনে এক বিশাল আঘাত পেয়েছিলাম। সেটার ছাপ পরিণত বয়সেও বজায় ছিলো। তার হাইপেশিয়াকে নিয়ে যখন লিখতে শুরু করলাম, তখন অবধারিতভাবেই আমার সমস্তটুকু উজার করে লেখার চেষ্টা করেছি। আপনাদের মন্তব্য পেয়ে বুঝতে পারছি, লেখাটা তাহলে পাঠক বিচারে উৎরে গেছে। আবারো ধন্যবাদ।

      আর, আপনার মন্তব্যের শেষটা কেন যেন পুরোটা আসে নাই। কষ্ট করে আবার দিয়ে দেন। প্রশংসা বাক্য কার না শুনতে ভাল লাগে, হেঃ হে … :))

      • লীনা রহমান মার্চ 14, 2011 at 10:22 পূর্বাহ্ন - Reply

        @অভিজিৎ,ঐদিন দুইটা কমেন্ট করলাম দুইটাই মাঝ দিয়ে আসেনাই বুঝলাম না আমার সাথেই এই প্রাসাদ ষড়যন্ত্র হইল কেন? 😛

        বলতে চাইছিলাম হাইপেশিয়ার কাহিনির সাথে সাথে অন্য যে আলোচনাগুলো এনেছেন সেগুলোও ভাল লেগেছে। সেদিন আদবুল্লাহ আবু %E

      • লীনা রহমান মার্চ 14, 2011 at 10:24 পূর্বাহ্ন - Reply

        @অভিজিৎ, আবার একই কাহিনি 🙁

        বলতে চাইছিলাম হাইপেশিয়ার কাহিনির সাথে সাথে অন্য যে আলোচনাগুলো এনেছেন সেগুলোও ভাল লেগেছে। সেদিন আদবুল্লাহ আবু সায়ীদ স্যারও ক্লাসে কৃষির আগমনের সাথে নারীর বন্দি হওয়া সংক্রান্ত ব্যাপারগুলো নি%E

      • বিপ্লব রহমান মার্চ 14, 2011 at 6:58 অপরাহ্ন - Reply

        @অভিজিৎদা,

        সে একা বেঁচে আছে, যেন শাশ্বত চিরন্তনী হয়ে
        মৃত্যু কেবল বিক্ষিপ্তই করতে পারে এই কম্পমান বিশ্বব্রক্ষ্মান্ডকে
        কিন্তু আজো সৌন্দর্য তাঁর আগুন হয়ে জ্বলে
        আর তাঁর ভিতর পুনর্জন্ম ঘটে যেন সকলের
        এবং ধরিত্রী ভুলুন্ঠিত হয়ে পড়ে রয় তাঁর শুভ্র চরণ তলে।

        ইতিহাসের প্রায় অজানা অধ্যায়কে তুলে আনার জন্য কৃতজ্ঞতা, অভিনন্দন। (Y)

  8. স্বপন মাঝি মার্চ 9, 2011 at 1:42 অপরাহ্ন - Reply

    ইতিহাসের অন্ধকার ঘরে বন্দি, একজন আলোকিত মানুষ নিয়ে কথা বলতে গিয়ে, লেখক এমন অনেক বিষয় ছুঁয়ে গেছেন, যা বিস্তৃত আলোচনার দাবি রাখে। অনেক কথা-র একটিঃ

    আজ দায়ী করেন কৃষিব্যবস্থাকে২০। তারা মনে করেন হোর্টিকালচার থেকে কৃষিব্যবস্থার উত্তোরণে সভ্যতা এগিয়েছে অনেক, কিন্তু কেড়ে নিয়েছে দু’দুটি প্রগতিশীল মানবিক সত্ত্বাকে। কৃষিকাজের উদ্ভবের পর থেকেই নারীরা বন্দি হয়েছে গৃহে; মূলতঃ নিয়োযিত হয়েছে গৃহস্থালির পরিচর্যায় আর সন্তান লালন-পালনে, আর কৃষিব্যবস্থার ফলেই নিখুঁতভাবে তৈরী হয়েছে শ্রমবিভাজনের, পরবর্তীতে ব্যক্তিগত মালিকানার।

    আর এ ব্যবস্থার কারণে শুধু নর ও নারী এবং মানুষ ও মানুষের মধ্যকার সম্পর্ক নয়, এক কথায় খুন হতে চলেছে পৃথিবী। হ্যাঁ, এ খুনের জন্য অনেকে দায়ী করছেন কৃষি ব্যবস্থাকে। ওখান থেকেই পৃথিবীর চিতা সাজানোর যাত্রা শুরু।
    আমাদের দেশে “চাষা” বলে একটা গালি প্রচলিত আছে। তো এ গালির আদি কথা নিয়েও একটা লেখা হতে পারে।
    তারপর?
    আমরা কতটুকু এগিয়েছি?
    ব্যক্তিগত সুখের বা প্রাপ্তির ঢেকুর তুলে বলতে পারি, অ নে ক দূর। তো আমি নই, আমরা? দেখূন
    http://www.dailyjanakantha.com/news_view.php?nc=15&dd=2011-03-09&ni=51730

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 11:37 অপরাহ্ন - Reply

      @স্বপন মাঝি,

      কৃষিব্যবস্থাভিত্তিক এঙ্গেলসের চমৎকার ব্যাখ্যাটি (মাতৃতান্ত্রিক থেকে পুরুষতান্ত্রিক সমাজের উত্তোরণ) অবশ্য আধুনিক বিবর্তনীয় এবং নৃবিজ্ঞানের দৃষ্টিকোন থেকে কিছুটা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। এ নিয়ে আপডেট পাবেন আমার লেখার শেষ (২৩ নং) ফুটনোটে।

      পড়ার এবং মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

      • স্বপন মাঝি মার্চ 10, 2011 at 11:39 পূর্বাহ্ন - Reply

        @অভিজিৎ,
        এ আমারই ব্যর্থতা। যা বলতে চেয়েছিলাম, ঠিকঠাক বলতে পারিনি বলে, সকাল বেলা শুনতে হলো, সীতা কার বাপ?

        • অভিজিৎ মার্চ 14, 2011 at 1:26 পূর্বাহ্ন - Reply

          @স্বপন মাঝি,

          আসলে আপনি ঠিক মতই বলেছেন। হয়তো আপনার এই মন্তব্যের জবাবে এঙ্গেলসের এই ব্যাখ্যা আমার দেয়ার প্রয়োজন ছিলো না। আসলে ফেসবুকে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে এক ভদ্রলোকের স্ট্যাটাস দেখে (স্ট্যাটাসটি এখন ঠিক মনে নেই – ‘আদিম মাতৃতান্ত্রিক সমাজে ফিরে যেতে হবে’… এধরণের কিছু ছিলো সম্ভবতঃ) দেখে মনে হয়েছিল আমার প্রবন্ধের কিছু জায়গা আপডেট করা প্রয়োজন, কারণ মাতৃতান্ত্রিক সমাজ সম্বন্ধে অনেক মিথ চালু রয়েছে আমাদের সমাজে, যা সম্ভবতঃ পুরোপুরি ঠিক নয়। সেজন্যই দেওয়া। আম্পনাকে রামায়ন শেখানোটা অবশ্য উদ্দেশ্য ছিলো না কখনই। 🙂

          • স্বপন মাঝি মার্চ 15, 2011 at 11:40 পূর্বাহ্ন - Reply

            @অভিজিৎ,
            বর্তমানের সমালোচনা মানে অতীতে ফিরে যাওয়া নয়। আর এটি যারা করে হয়তো তাদের মধ্যে কোন না কোন বিশ্বাস বা ইজম কাজ করে। ইজমগুলো ঠিকঠাক মত বুঝি না। আর যতটুকু বুঝি, তাতে মনে হয়, ব্যক্তিগত মালিকানার জায়গায় সমষ্টিগত মালিকানার যে কথা বলা হয়, তাতে প্রতিষ্ঠানটি অপরিবর্তিত থাকবে। আমার সাধারণ বোধ-বুদ্ধিতে মনে হয়, এই প্রতিষ্ঠানটি প্রকৃতি এবং মানুষ ও মানুষের মধ্যকার সম্পর্কের সাথে সাংঘর্ষিক।
            আমি আকারে ইশারায় যে কথাটি বলতে চেয়েছিলাম, আপনি চাইলে এ বিষয় নিয়ে চমৎকার একটি লেখা উপহার দিতে পারেন।

  9. নৃপেন্দ্র সরকার মার্চ 9, 2011 at 5:00 পূর্বাহ্ন - Reply

    নারী দিবসের জন্য অত্যন্ত উপযোগী লেখা। জগত সংসারে নারীদের অবদান বিচ্ছিন্ন নয়, তথ্যসমৃদ্ধ লেখাটি তার সাক্ষ্য। লেখাটি পূনঃ প্রকাশ করার জন্য ধন্যবাদ।

    বলতেই হয় – রবিঠাকুর এবং ভলটেয়ার দুজনই ছিলেন ভ্রান্ত, অন্ততঃ ইতিহাস পর্যালোচনার এই ব্যাপারটিতে।

    এই লেখাটিতে যত তথ্য আছে, তার কিছুটা জানা থাকলেও, আমারও মনে হয়, এই মনীষীরা নারীর অবদানে নেতিবাচক মন্তব্য করতে পারতেন না।

    নারীদের আলাদা জীব ভাবার দিন ঘুচে যাক।

    • অভিজিৎ মার্চ 16, 2011 at 1:16 পূর্বাহ্ন - Reply

      @নৃপেন্দ্র সরকার,

      নৃপেনদা, মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

  10. নীল রোদ্দুর মার্চ 8, 2011 at 10:57 অপরাহ্ন - Reply

    শ্রদ্ধা!

    :candle:

    • অভিজিৎ মার্চ 16, 2011 at 1:36 পূর্বাহ্ন - Reply

      @নীল রোদ্দুর,

      ধইন্যা।

      :thanks:

  11. তামান্না ঝুমু মার্চ 8, 2011 at 9:37 অপরাহ্ন - Reply

    অনেক পরিবারে এখনো পুত্র-কন্যার মধ্যে ব্যাপক পার্থক্য বিদ্যমান।স্বয়ং বাবা-মাই ছেলে এবং মেয়েকে আলাদা করে দেখেন।অনেক রক্ষণশীল পরিবারে এখনো মেয়েরা শব্দ করে হাসতে পারেনা, উচ্চ স্বরে কথা বলতে পারেনা।অপেক্ষাকৃত ভাল খাবার গুলো ছেলেদেরকে খেতে দেয়া হয়। ধর্মীয় কঠোর বিধি-বিধান গুলো মেয়েদের উপর চাপিয়ে দেয়া হয়। ছেলেরা ধর্ম কর্ম ঠিকমত পালন না করলেও কোন অসুবিধা নেই।কিন্তু মেয়েদেরকে তা অবশ্যই করতে হবে। অসংখ্য উচ্চ শিক্ষিত নারীকে শ্বশুর বাড়িতে গৃহবন্দী করে রাখা হয়েছে। তাদেরকে চাকরী করতে দেয়া হচ্ছেনা,স্বাবলম্বী হতে দেয়া হচ্ছেনা। এখনো অনেক পরিবার আছে যেখানে গৃহবধুকে অবর্ণনীয় নির্যাতন করা হয়। যৌতুকের জন্য বধূ হত্যা, জীবন্ত বধূর গায়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পুড়িয়ে মারার ঘটনা আমাদের চারপাশে বিরল নয়।তাই পারিবারিক পর্যায়ে বিদ্যমান বৈষম্য গুলো নিরসনে আগে কাজ করতে হবে।তাছাড়া রস্তা-ঘাটে, কর্মক্ষেত্রে সর্বত্রই তো আছে নারীকে উত্তক্ত করা।নারীর শারীরিক,মানসিক এবং বাহ্যিক চাল-চলন নিয়ে ব্যঙ্গ- বিদ্রুপ করা তো কিছু নিম্ন শ্রেণীর প্রাণীর জন্য খুব মুখ- রোচক ব্যাপার।

    • নৃপেন্দ্র সরকার মার্চ 9, 2011 at 5:06 পূর্বাহ্ন - Reply

      @তামান্না ঝুমু,

      অনেক পরিবারে এখনো পুত্র-কন্যার মধ্যে ব্যাপক পার্থক্য বিদ্যমান।স্বয়ং বাবা-মাই ছেলে এবং মেয়েকে আলাদা করে দেখেন।

      (Y)
      পারলে কখনও দূর্গাপূজোয় যাবেন। খেয়াল করে দেখবেন পুরোত মশাই কী মন্ত্র পড়েন! একসময় শুনবেন – তিনি দূর্গার (দূর্গা দেবী – একজন নারী) কাছে আশীর্বাদ চাচ্ছেন, “ধনং দেহি, পুত্রাং দেহি”।

  12. আহমেদ হেলাল ছোটন মার্চ 8, 2011 at 7:12 অপরাহ্ন - Reply

    ভালো লাগল। তথ্যসমৃদ্ধ। শুভেচ্ছা। ধর্মের আঘাতে জ্ঞান বারবার বাধাগ্রস্ত হয়েছে- এখনো হচ্ছে। ধর্মান্ধদের মনস্তত্ব নিয়ে আপনার লেখা চাই।

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 8:24 অপরাহ্ন - Reply

      @আহমেদ হেলাল ছোটন,

      অনেক ধন্যবাদ। ধর্মের উৎস এবং ধর্মান্ধদের মনস্তত্ব নিয়ে আমি লিখেছি এবারের ‘অবিশ্বাসের দর্শন‘ বইয়ে। সংগ্রহ করে পড়তে পারেন চাইলে।

      মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ আবারো।

  13. মাসুদ মুরশেদ মার্চ 8, 2011 at 7:08 অপরাহ্ন - Reply

    হাইপেশিয়া যতটুকু আধুনিক ছিল আমরা আজকের পুরুষেরা যদি তার অর্ধেকও হতে পারতাম !
    তার স্মৃতির প্রতি স্রদ্ধা।
    ঈশ্বর এত কিছু তৈরি করলেন, অথচ মানুষ তৈরি করলেন সবচেয়ে কম। কেন? তার কি মানুষ করার মত সমেয়র অভাব?

    • মাহবুব সাঈদ মামুন মার্চ 9, 2011 at 4:18 অপরাহ্ন - Reply

      @মাসুদ মুরশেদ,

      ঈশ্বর এত কিছু তৈরি করলেন, অথচ মানুষ তৈরি করলেন সবচেয়ে কম। কেন? তার কি মানুষ করার মত সমেয়র অভাব?

      অসাধারন একটি গভীর চিন্তাজাগানিয়া প্রশ্নই বটে।:-s

    • সংশপ্তক মার্চ 9, 2011 at 4:52 অপরাহ্ন - Reply

      @মাসুদ মুরশেদ,

      হাইপেশিয়া যতটুকু আধুনিক ছিল আমরা আজকের পুরুষেরা যদি তার অর্ধেকও হতে পারতাম ! তার স্মৃতির প্রতি স্রদ্ধা।

      ব্যপার হচ্ছে যে , পাতিয়া ( যাকে ইংলিশরা বিকৃত করে হাইপেশিয়া বলে) ভাববাদ বর্জন করে বিজ্ঞানের চর্চা করতেন। তাই তিনি আধুনিক হতে পেরেছিলেন এবং ভাববাদের কাছে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নতি স্বীকার করেননি। ভাববাদ বর্জন করে বিজ্ঞানমনষ্ক হলেই তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে। আর বিজ্ঞানমনস্কতা মানে কাগুজে সনদপত্র সংগ্রহ নয় , বরং বিজ্ঞানের দর্শনকে জানা।

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 6:59 অপরাহ্ন - Reply

      @মাসুদ মুরশেদ,

      ঈশ্বর এত কিছু তৈরি করলেন, অথচ মানুষ তৈরি করলেন সবচেয়ে কম। কেন? তার কি মানুষ করার মত সমেয়র অভাব!

      জটিল প্রশ্ন। একটা কবিতা আপনার জন্য –

      ঈশ্বরকে মানুষ খেলায়, না মানুষকে ঈশ্বর,
      এই দু’টি প্রশ্নের পুকুরে কেউ ডোবে, কেউ ভাসে
      সাঁতার জানলে ভাল কেউ কেউ অর্ধেক জীবন দেয় জলে।

      জল শুধু ঘোলা হয়, পূর্ণিমায় যদিওবা তাকে বড় স্বচ্ছ মনে হয়
      অসুখী পথিক এসে ঘোলা জলও নির্দ্বিধায় দু’হাতে নাড়িয়ে যায়
      আসলে মানুষ সংগোপণে তার দ্বিধাকেই অস্থির নাড়ায়।

      এইভাবে ঈশ্বর ঈশ্বর খেলা কত দিন খেলছে মানুষ ঈশ্বরে অধীন-
      নিজেকে প্রচার করে মুলত কায়দা করে ঈশ্বরকে খেলায় মানুষ।

      ঈশ্বর খেলনা হয়ে ফ্রেরে মানুষের হাতে পায়ে-
      চোখ নেই, কান নেই, কোন বর্ণ নেই
      শৃঙ্খলিত নিশ্চল ঈশ্বর প্রকৃতির গালিচায় বসে কাঁদে।
      মানুষের অদৃশ্য রুমাল নিরাকার ঈশ্বরের সাতচক্ষু মোছে।

      • লাইজু নাহার মার্চ 9, 2011 at 7:44 অপরাহ্ন - Reply

        @অভিজিৎ,

        ভাল লাগল কবিতাটা! (F)

        • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 8:20 অপরাহ্ন - Reply

          @লাইজু নাহার,

          এটা তাসলিমা নাসরিনের কবিতা। আসলে আমার পড়া তাসলিমার অন্যতম প্রিয় কবিতাগুলোর একটি এটি। আপনার ভাল লেগেছে জেনে ভাল লাগলো।

  14. কেশব অধিকারী মার্চ 8, 2011 at 6:36 অপরাহ্ন - Reply

    ডঃ অভিজিৎ রায়,

    সত্যি আমি অভিভূত লেখাটা পড়ে। উপরে আফরোজা আলমের মতো আমারো একটা অনুভূতি কাজকরে এই রকম নারী দিবস, সংখ্যালঘু এই ধরনের শব্দে। তবুও বিশ্বব্যাপী পুরুষতান্ত্রিক দৃষ্টিভঙ্গীর প্রেক্ষাপটে এটুকু মেনে চলতেই হবে। আমার তো গোটা বিশ্বটাকেই নিজের দেশ বলে ভাবতে ইচ্ছে করে। যাইহোক, নিকট ভবিষ্যতে হয়তো দরকার হবে না। আজকের দিনে কামনা করি- আগামী দিনের মানুষ যারা, মুক্তমনে-উদারচিত্তে যুক্তিনির্ভর হোক তারা। এই লেখা নিশ্চয়ই অনেক অন্ধকারাচ্ছন্ন মনে আলো জ্বালবে। আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 6:56 অপরাহ্ন - Reply

      @কেশব অধিকারী,

      মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ। এমন দিন নিশ্চয় আসবে যখন আলাদাভাবে নারী দিবস পালনের আর প্রয়োজন পড়বে না। বৃহত্তর মনবতার অংশ হিসেবেই আমরা দিবস পালন করব। তার আগ পর্যন্ত অত্যাচারিত, ধর্ষিত, লাঞ্ছিত, ফতোয়ার শিকার নারীদের স্মরণে টাতা দিন রেখে দিলে খুব বেশি ক্ষতি বৃদ্ধি হবে না বলেই মনে হয়।

  15. রৌরব মার্চ 8, 2011 at 6:21 অপরাহ্ন - Reply

    (F)

  16. মাহবুব সাঈদ মামুন মার্চ 8, 2011 at 3:35 অপরাহ্ন - Reply

    সেই ১৭২০ সালে জন টোলান্ড (John Toland) Hypatia or the History of a most beautiful, most virtuous, most learned and in every way accomplished lady; who was torn to pieces by the clergy of Alexandria to gratify the pride, emulation and cruelty of the archbishop commonly but undeservedly titled St Cyril’ নামেরদীর্ঘ শিরোনাম বিশিষ্ট প্রবন্ধে হাইপেশিয়াকে স্মৃতির ছাইভস্ম হাত্‌রে আমাদের সামনে তুলে আনেন। তিনিই বিশ্ববিবেক কে প্রশ্নবিদ্ধ করে তোলেন এই বলে যে হাইপেশিয়ার মত অনিন্দ্যসুন্দর, বিজ্ঞ এবং নিষ্পাপ দার্শনিকের রক্তে হাত রঞ্জিত করার দায়ে সমস্ত পুরুষতন্ত্রের লজ্জিত হওয়া উচিৎ ১২। হাইপেশিয়ার হত্যাকারী হিসেবে খ্রীষ্টিয় চার্চ আর তার তৎকালীন পুরোধা সিরিলকে অভিযুক্ত করে টোলান্ড ওই প্রবন্ধে স্পষ্ট করেই বলেন :

    ‘সেইন্ট বা সন্ত নামধারী পুরুষতন্ত্রে দীক্ষিত এক বিশপ ছিলেন এই জঘন্য হত্যাকান্ডের মূল হোতা, আর তার শিষ্যরা ছিলেন তাদের গুরুর জিঘাংসা চরিতার্থ করার নিয়ামক’।

    সমস্ত গোটা পৃথিবীর সকল যুগের সকল নিম্ন,হীন,পশুর থেকে কোটি কোটি গুন অধ্ম পুরুষতন্ত্রকে অপার ঘৃনা ও ধীক ছুঁড়ে দিলাম।সাথে পুরুষতন্ত্রের ছাপোষা ও পুরুষতন্ত্রের স্তবকারী সকল নারীদের করুণা করা ছাড়া আর কি করা যেতে পারে জানি না।:-[

    আজ নারীদিবসের এই জাগরনের দিনে হাইপোসিয়ার চিন্তা-চেতনার মতো পৃথিবীর সকল নারীদের মন ও চিন্তার জগৎ আধুনিক মানুষ হিসাবে শুভবুদ্ধি উদয় হউক এমন আশাই করছি।(F)

    অঃট আচ্ছা,”রাজনীতির কবি” লেখাটি গায়েব হয়ে গেলো কেন ??

    • গীতা দাস মার্চ 8, 2011 at 9:10 অপরাহ্ন - Reply

      @মাহবুব সাঈদ মামুন,

      ”রাজনীতির কবি” লেখাটি গায়েব হয়ে গেলো কেন ??

      ফরিদকে কিছুই বলা হয়নি বলে আমিও লেখাটি খুঁজছিলাম।

      • মুক্তমনা এডমিন মার্চ 8, 2011 at 9:15 অপরাহ্ন - Reply

        @গীতা দাস,

        গায়েব হয়নি। ৭ই মার্চ উপলক্ষে কোন নতুন লেখা না আসায় পুরোন একটি লেখা স্টিকি করে দেওয়া হয়েছিল। সেজন্যই ওটা প্রথম পাতায় চলে এসেছিল। ৭ই মার্চ শেষ হবার পরে যথারীতি তা আগের জায়গায় চলে গেছে। এখানে লেখাটির লিঙ্ক আছে। ইচ্ছে করলে মন্তব্য করতে পারেন।

        ধন্যবাদ।

  17. রঞ্জন বর্মণ মার্চ 8, 2011 at 2:28 অপরাহ্ন - Reply

    অভিজিৎ দা, আপনার এই লেখাটা থেকে হাইপেশিয়াকে আরো ভালো ভাবে জানতে পারলাম, খুবই ভাল লাগছে জানতে পেরে।

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 7:33 পূর্বাহ্ন - Reply

      @রঞ্জন বর্মণ,

      ধন্যবাদ পড়ার জন্য, এবং মন্তব্যের জন্য।

  18. সংশপ্তক মার্চ 8, 2011 at 2:02 অপরাহ্ন - Reply

    পাতিয়া (গ্রীক নাম Ὑπατία) র প্রতি এক ভক্তের শ্রদ্ধার্ঘ নিচের মিউজিক ভিডিও। গানটিতে (It looks like rain) কন্ঠ দিয়েছেন ‘দ্য নিরো’ । আমি যতবারই ভিডিওটা দেখি , আমার চোখে পানি আটকে রাখতে পারিনা।

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 7:32 পূর্বাহ্ন - Reply

      @সংশপ্তক,

      এটা কি কেবল একটি মিউজিক ভিডিও, নাকি Agora ছবিটার অংশবিশেষ ? Agora ছবিটা স্পেনের অন্যতম ব্যাবসাবহুল ছবি ছিলো এবং জাতীয় চলচিত্র পুরস্কারের ৭ টি জয়লাভ করে। যদিও ছবিটা আমি দেখিনি। আমার বাকেট লিস্টে আছে। দেখতে হবে তাড়াতাড়ি।

      httpv://www.youtube.com/watch?v=NZaoKn_WElc

      ভিডিওটির জন্য ধন্যবাদ।

      • সংশপ্তক মার্চ 9, 2011 at 8:27 পূর্বাহ্ন - Reply

        @অভিজিৎ,

        আগোরা’ ছবির অংশবিশেষ কেটে নিয়ে পুনঃ সম্পাদনা এবং স্পেশাল ইফেক্ট দিয়ে ভিডিওটা বানানো হয়েছে। স্পেশাল ইফেক্টগুলো আসল ছবিতে নেই। পর্দার আড়াল থেকে ভিডিওটা যিনি বানিয়েছেন, তিনি আপনার পরিচিত 🙂
        পাতিয়া ( যাকে ইংলিশরা বিকৃত করে হাইপেশিয়া বলে) আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ণ নারীদের একজন এবং সে কারনে উনাকে আমি দেবী বলেই ডাকি।

  19. আফরোজা আলম মার্চ 8, 2011 at 1:08 অপরাহ্ন - Reply

    এমন আশা আমার ছিল। অভিজিতের কলম থেকে এমন একটা কিছু বের হবে মন বলছিল আমি জানতাম। আবার পুরোটা পড়তে হবে-
    @ অভিজিত-
    আপনাকে :guru: (F) (Y)

    অঃট- আমার ব্যক্তিগত ভাবে নারী দিবস কথাটা কেমন যেন কানে বাজে। মনে হয় জীব জন্তুর আত্ম প্রকাশের দিন কিসের যেন একটা গন্ধ পাই। যার কারনে নারী -নারী বলে মনে হয় আমি বা আমরা বিচ্ছিন্ন জগতের জীব বিশেষ।
    এইটা একান্ত আমার মনের অনুভূতি ব্যক্ত করলাম।

    • গীতা দাস মার্চ 8, 2011 at 9:06 অপরাহ্ন - Reply

      @আফরোজা আলম ও @কেশব অধিকারী,
      আফরোজা আপা এবং কেশব দাদা,

      আমার ব্যক্তিগত ভাবে নারী দিবস কথাটা কেমন যেন কানে বাজে। মনে হয় জীব জন্তুর আত্ম প্রকাশের দিন কিসের যেন একটা গন্ধ পাই। যার কারনে নারী -নারী বলে মনে হয় আমি বা আমরা বিচ্ছিন্ন জগতের জীব বিশেষ।

      আমি এর সম্পূর্ণ দ্বিমত প্রকাশ করছি। কয়েকদিন আগে ২৭ ফেব্রুয়ারিকে মুক্তচিন্তা দিবস করার প্রস্তাব ও সুপারিশ করে আমরা অনেকেই কলমের কালি ফুরিয়ে ফেলেছিলাম। মুক্তচিন্তার জন্য একটি বিশেষ দিন কেন? প্রত্যেকদিনই তো মুক্তভাবে চিন্তা করা যায়!

      তেমনি ভাবনায় ভাবিত হয়ে ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন নিয়ে মানসিক বাধা। ৩৬৪ দিন তো পুরুষের , শুধু একটি দিন নারী দিবস। এ নিয়ে আমি আলাদা একটি পোস্ট দিচ্ছি । লেখাটি নারীপক্ষ নামক সংগঠনের এবারের লিফলেট।

      • মাহবুব সাঈদ মামুন মার্চ 10, 2011 at 4:43 অপরাহ্ন - Reply

        @গীতা দাস,

        তেমনি ভাবনায় ভাবিত হয়ে ৮ মার্চ আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালন নিয়ে মানসিক বাধা। ৩৬৪ দিন তো পুরুষের , শুধু একটি দিন নারী দিবস।

        (Y)

    • অভিজিৎ মার্চ 9, 2011 at 7:09 পূর্বাহ্ন - Reply

      @আফরোজা আলম,

      আমার ব্যক্তিগত ভাবে নারী দিবস কথাটা কেমন যেন কানে বাজে। মনে হয় জীব জন্তুর আত্ম প্রকাশের দিন কিসের যেন একটা গন্ধ পাই। যার কারনে নারী -নারী বলে মনে হয় আমি বা আমরা বিচ্ছিন্ন জগতের জীব বিশেষ।

      হ্যা, আলাদা ভাবে নারী দিবস পালন একটু অপমানজনক মনে হতে পারে বটে। তবে এমন দিন নিশ্চয় আসবে যখন নারীরা সব বিষয়েই পুরুষের সমকক্ষ হয়ে উঠবে কিংবা তাদেরকে ছাড়িয়ে যাবে (এখনই অনেক ক্ষেত্রে গেছে)। আলাদা ভাবে আর নারী দিবস পালনের দরকার থাকবে না।

      গীতাদিও সুন্দর উত্তর দিয়েছেন । মন্তব্যের জন্য অনেক ধন্যবাদ।

  20. ব্লাডি সিভিলিয়ান মার্চ 8, 2011 at 12:40 অপরাহ্ন - Reply

    সেইরকম! সেবা থেকে হাইপেশিয়াকে নিয়ে একটা উপন্যাসের অনুবাদ বেরিয়েছিলো, সেটাই বোধহয় আমার প্রথম হাইপেশিয়া-পরিচয়। এরপর আর তেমন একটা ভালো লেখা পাই নি বাংলায়। রাজুর লেখাটাও ভালো লেগেছিলো।

    শুধু বিজ্ঞানে কেন, সবক্ষেত্রেই নারীর অবদান অবহেলিত। বেদের অনেক শ্লোকের মন্ত্রদ্রষ্টাই ছিলেন নারী। বাংলার লোকসাহিত্যেও নারীর অবদান বিদ্যমান। যাক, আজকের দিনে (যেটা মূলত ক্লারা জেটকিনের অবদান) পুঁজিবাদের হাতে ব্যবহৃত নারীর শোভাবর্ধনের বাণিজ্যের প্রতি অবহেলা করতে শিখবে নারীরা, এই প্রত্যাশায় আছি।

    • অভিজিৎ মার্চ 8, 2011 at 7:28 অপরাহ্ন - Reply

      @ব্লাডি সিভিলিয়ান,
      ছোটবেলায় সেবা প্রকাশনীর বই গোগ্রাসে গিলতাম। সেবা না থাকলে এত খ্যাতনামা বইয়ের সাথে বাংলায় সেভাবে পরিচিতই হতে পারতাম না। কিন্তু হাইপেশিয়াকে কোন বই পড়েছি বলে মনে পড়ে না।

      শুধু বিজ্ঞানে কেন, সবক্ষেত্রেই নারীর অবদান অবহেলিত। বেদের অনেক শ্লোকের মন্ত্রদ্রষ্টাই ছিলেন নারী। বাংলার লোকসাহিত্যেও নারীর অবদান বিদ্যমান।

      ঠিক কথা! গার্গীর কথা আমরা জানি, জানি রাহুল সংকৃত্যায়নের ভোলগা থেকে গঙ্গায় চিত্রিত লোপা চরিত্রের কথা, এমনকি ঋগ্বেদে যোদ্ধা নারীর উল্লেখও। মদুগালিনী, বিশপলা, বধ্রিমতি…

      আজকের দিনে (যেটা মূলত ক্লারা জেটকিনের অবদান) পুঁজিবাদের হাতে ব্যবহৃত নারীর শোভাবর্ধনের বাণিজ্যের প্রতি অবহেলা করতে শিখবে নারীরা, এই প্রত্যাশায় আছি।

      (Y) আমিও!

    • লীনা রহমান মার্চ 10, 2011 at 11:10 পূর্বাহ্ন - Reply

      @ব্লাডি সিভিলিয়ান, হাইপেশিয়াকে নিয়ে উপন্যাসটার নাম কি? আমি কিনব।

      • ব্লাডি সিভিলিয়ান মার্চ 10, 2011 at 11:24 পূর্বাহ্ন - Reply

        @লীনা রহমান,

        ওটার নাম আপনি জানেন, সবাই জানে।

  21. Atiqur Rahman Sumon মার্চ 8, 2011 at 12:34 অপরাহ্ন - Reply

    প্রথম দিক থেকে পড়ে কিছুটা স্কিপ করে শেষের প্যারা পড়া শুরু করলাম। তারপর উল্টোদিক থেকে পুরোটা পড়লাম। 🙂

  22. কাজী রহমান মার্চ 8, 2011 at 9:30 পূর্বাহ্ন - Reply

    (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F) (F)

    • অভিজিৎ মার্চ 8, 2011 at 7:19 অপরাহ্ন - Reply

      @কাজী রহমান,

      ধন্যবাদ!

মন্তব্য করুন