লাঠিতে ভর করে এক বুড়ী ঘর থেকে বেড়িয়ে এল।
ভয় পেয়ে হ্যানস্ আর গ্রিটের হাত থেকে জিনিস
মাটিতে পড়ল।বুড়ী মাথা নেড়ে বলল-“সোনামণিরা কোথা থেকে এসেছ”?
ভিতরে আস আমি তোমাদেরথাকতে দেব।
আসলে সে ছিল ডাইনী।বাচ্চাদের ধরে রান্না করে খেত।
আর সেদিনটা ছিল তার মহাউতসব!
এটা জার্মানির গ্রিম ব্রাদারদের রুপকথা।
এরকম অনেক গল্প তারা লোকগাঁথা থেকে সংগ্রহ করেছেন।

সান্ড্রা বুলক(আমার প্রিয় অভিনেত্রী)অভিনয় করেছেন “ম্যাজিক পাওয়ারে”।
ছবিটা দারুন লেগেছে!আধুনিক ডাইনীদের(witch)নিয়ে ছবিটি।
দেখুন!

Practical magic "what if i'm right"

আজকাল আধুনিক ডাইনীদের বিভিন্ন সংগঠন রয়েছে।
দেখুন তাদের বিজ্ঞাপন- Latest Modern Witch Schedule
Looking forward to catching up with you all over the next few months at MBS’s and workshops. Here is my latest schedule….
May 8-9 Brisbane
Private Consults on May 8 – WAITING LIST
Living Magically- Goddesses and Witchcraft Workshop May 9- ONE PLACE AVAILABLE
Info and bookings: www.themodernwitch.com or call 0400345113

এটা তাদের অনেকটা সখ।সুংমিং বা স্কি করার মত!
যেহেতু সাধীন তাই এটাও সখ হতে পারে।চলমান সমাজকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখানোও একটা উদ্দেশ্য।
এটা এরা গোপন রাখে।বিভিন্ন বৈষম্যের ভয়ে।

বৃটিশ নৃতত্ববিদ,মিশরবিদ ও নারীবাদি মার্গারেট ম্যুরে(১৮৬৩-১৯৬৩) ১৯২১এ তার বই(The witch cult in western Europe)লেখেন যে তিনি ডাইনীদের উতসবে অংশ নিয়ে ছিলেন।পূর্ণিমা রাতে বারজন নারী গোল হয়ে প্রাচীন উর্বরার দেবীর পূজা করে।প্রাচীন ইউরোপের গ্রামে এর প্রচলন ছিল।
ক্যাথলিক চার্চ সেজন্যই এসবকে তাদের ধর্মের প্রতিদ্বন্দী মনে করত।সেজন্যই তাদের শয়তান বলত।
গল্প প্রচলিত যে ডাইনীরা দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময় এমন একটা রিচুয়াল করেছিল বলেই
হিটলার ইংল্যান্ড আক্রমন করতে পারেনি।

অতীতে অনাবৃষ্টি,মহামারী,সন্তানের মৃত্যু,রোগশোক এসব দূর্ঘটনাকে অলৌকিক শক্তির কাজ মনে করত।
পানি ছিটিয়ে জমিতে নাচত-বৃষ্টির জন্য।
বিভিন্ন আচার ও রীতি পালন করে অলৌকিক শক্তির কাছে চেয়ে নেয়াই ম্যাজিক বা যাদু।
সেটা যদি পজিটিভ(ভাল)কিছুর জন্য যেমন কাউকে রোগ থেকে সারিয়ে তোলার জন্য,
যুদ্ধ জয়ের জন্য,সন্তান জন্য এমন হয় সেটা সাদা ম্যাজিক(white magic)।
সেদিন টিভিতে দেখলাম দক্ষিন আফ্রিকার ফুটবল খেলোয়াররা মেডিসিনম্যানের(যাদুকর)কাছে
গেছে বিভিন্ন রিচুয়াল পালন করতে,যাতে ওরা খেলায় জেতে!
কালো ম্যাজিক(black magic)ব্যবহার করা হয় কারও অনিষ্ট করতে।
ফসল নষ্ট,কারও রোগ বা মৃত্যুর জন্য এমন কাজে।

নিউজিল্যান্ড,ইন্দোনেশিয়া,মালয়েশিয়ার গভীর অরণ্য থেকে ইউরোপ প্রাচীন আমেরিকার রেড ইন্ডিয়ান,ক্যারিবিয়ান অঞ্চলসহ পৃথিবীর অনেক দেশেই ডাইনীতত্ব ও ম্যাজিক একসাথেই দেখা হয়।
প্রাচীন ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন সংস্কৃতির সহঅবস্থান ছিল।
কার্নাভাল,ডোপিং(পবিত্র পানি ছিটিয়ে খৃষ্টান করা,আমাদের যেমন মুসলমানী)জন্ম,মৃত্যুর সময় বিভিন্ন
আচার অনুষ্ঠান।
ইউরোপে ১৫শতক থেকে ১৭শতক পর্যন্ত ডাইনীদের শুধু ম্যাজিকের জন্যই শুধু দোষ দেয়া হতনা,
তারা শয়তানের উপাসক বলেও মনেকরা হত। ইহুদী,খৃষ্টান ও মুসলিম ধর্মে শয়তান বিশ্বাস করে।
সাধারন মানুষ মনে করত ডাইনীরা সাদা ও কালো ম্যাজিক জানে।পরে অভিজাত, বিচারক ও ধর্মগুরুরা
ডাইনীরা শয়তানের উপাসক-এই ধারনার বিস্তার ঘটায়।
এই ধারনাই পরে সাধারন মানুষ বিশ্বাস করে।
পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই যাদু বিদ্যার প্রচলন রয়েছে।
প্রাচীন গ্রীক ও রোমে ধর্মগুরুরাও যাদুবিদ্যার চর্চা করত।
কিছু মহিলারাও প্রেমিকদের বশে আনার সম্মোহন জাতীয় পানীয় বা রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার
জন্য বিষ মেশানো পানীয় বানাত।
মানুষ বিশ্বাস করত ডাইনীরা যে কোন পশুতে রুপান্তরিত হতে পারে বা উড়তে(হ্যারি পটারে যা দেখা যায়)পারে।

৫০০-১৫০০শতকে ইউরোপে লোকেরা কোনবিষয়ে পরামর্শের দরকার পরলে এ ব্যপারে বিজ্ঞ বৃদ্ধাদের
কাছে যেত উপদেশ নেয়ার জন্য।অসুখ বিসুখে পরলে চিকিতসার জন্য যেত বিভিন্ন লতাপাতার রস আনতে।
মনে করত তারা যে কোন দূর্ঘটনা থেকে বাঁচাতে পারে।
এসব বৃদ্ধারা সমাজের বিভিন্ন সংকটে উপকারে আসত।তারা যেহেতু মানুষের উপকার করত সেজন্য সমাজে
তাদের গ্রহনযোগ্যতা ছিল।
ধর্মগুরুরা মনে করতনা তারা সত্যি উড়তে পারে।অভিজাতরা ডাইনীদের কার্যকলাপ বিশ্বাস করতনা।
কিন্তু সাধারনেরা ম্যাজিক বিশ্বাস করত।
খৃষ্টধর্মের প্রচারের শুরুতেই ইউরোপে এর অতটা প্রসার ঘটেনি।
তখন অন্যান্য ধর্মও(প্রকৃতি পূজা,দেব-দেবীপূজা)প্রচলিত ছিল।

অগাস্টিন(৩৫৪-৪৩০খৃষ্টাব্দের আর্চবিশপ ও দার্শনিক)খৃষ্টান ধর্মে প্রবল প্রতিপত্তির অধিকারী এই ধর্মগুরু
অন্য ধর্মের দেবতাকে শয়তান বলত।।সেই শয়তানের মাথায় শিং,পিঠে পাখা,পেছনে লেজ্‌(কেলটিক দেবতা ও গ্রীক দেবতা প্যানের সংমিশ্রন।।
দ্বাদশ শতাব্দীতে আরব ও গ্রীক বই সোলেমানের চাবি,ম্যাজিক আলকেমি যখন অনুবাদ হল।
মানুষ মনে করল এই জ্ঞানের সাহায্য নিয়ে সোনা বানানো যাবে।।সেজন্য তাদের নিম্নশ্রেনীর শয়তান বা দৈত্যের দরকার।যাদুকররা তখন শয়তানের উপাসনা শুরু করল।এভাবেই ম্যাজিক ও শয়তানের পূজা একসাথে শুরু হল।

চার্চ তখনই সিদ্ধান্ত নিল,যারা শয়তানের পূজা করবে তাদের কঠিন শাস্তি!পোপের শয়তান ধরার অনুসন্ধানের দল কাজ শুরু করল।স্প্যানিশ ধর্মগুরু “আলফনসো দি স্পিনা” বললেল তের কোটি শয়তান বা দৈত্য আছে।
পোপের শয়তান অনুসন্ধানের দল ডাইনীদেরও অন্য ধর্মের পূজক বলে ধরা শুরু করল।
কারণ ওরা ডাইনী উতসব(witch Sabbath)পালন করে।
পোপের দল তখন ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পরেছে।তারা বলছে ডাইনীদেরও শাস্তি দেয়া হোক।
হেনরিক ক্লামার নামে এক ধর্মগুরু ১৪৮৬তে ডাইনী শিকারের ওপর এক বই প্রকাশ করলেন।এই বই চার্চ থেকে বিপুল পরিমানে ছাপিয়ে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে দেয়া হয়।
সাধারন লোকেরা চার্চ থেকে প্রকাশিত ধর্মগুরুদের তত্ব বুঝতে পারতনা। তারা শয়তান পূজা নিয়ে মাথাও ঘামাতনা।
কিন্তু যখন তাদের গরুটার হঠাত অসুখ হত বা পড়শীর সঙ্গে ঝগড়া হবার পরদিনই তার বাচ্চাটা মারা যেত।সেটা যাদু বা ম্যাজিকের কাজ মনে করত।তারপর পড়শী ডাইনীবিদ্যার চর্চা করে বলে পোপের লোকের
কাছে অভিযোগ দিয়ে আসত।এরপর ডাইনীদের বিরুদ্ধে ধর্মগুরুদের বিচারকাজ শুরু হত।
চার্চের পুরোহিত ও সাধুরা ডাইনীদের বিরুদ্ধে সাধারন লোকদের উসকিয়ে দিয়ে ওদের থেকে দূরে
থাকতে বলত।

প্রথম দিকে চার্চেরগুরুরা ডাইনীদের বিচার করে শাস্তি দিয়ে কখনও বা খৃস্টানধর্মে দিক্ষীত করতেন।
১৫৫০এর দিকে সমাজপতিরা তাদের বিচার করে কঠিন শাস্তি দিতে শুরু করল।
ষোড়শ শতাব্দীর প্রথম দিকে প্রোটেষ্টানরা রা রোমানক্যাথলিক আলাদা হয়ে নিজেদের সংস্কার করে।
রোমান ক্যাথলিকরা তাদের নিজেদের দলে টানতে ব্যর্থ হয়ে তাদের শয়তানের উপাসক আখ্যা দেয়।
অপর দিকে প্রোটেষ্টানরাও ক্যাথলিকচার্চে শয়তানের উপাসনা হয় বলে প্রচার করে।
১৬১০-১৬৩০পর্যন্ত জার্মানে সবচেয়ে বড় ডাইনীশিকার, বিচার ও মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়।
১৫০০শতকের দিকে আমেরিকা থেকে প্রচুর সোনারুপা ইউরোপে আসল।
ফলে সবকিছুর দাম বেড়ে গেল, শ্রমিকদের বেতন কমে গেল।
গরীব আরও গরীব হল।ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসারের ফলে একদল লোক হঠাত ধনী হল।
সমাজ অশান্ত হল,ধনী ও গরীবের বৈষম্য প্রকট হল।
সমাজপতিরা সমাজে শান্তি আনতে দোষীদের(culprit)খুঁজে পেল।

আগামীতে সমাপ্য…

[287 বার পঠিত]