এক চুমুকে চা শেষ করে, কষে দেবো বক্তৃতা
হাত-পা খিঁচে, ঝাড়বো কেশে- রাজনীতির ঐ ছককথা।
ডিম-পরোটা, ডাল-ভাজি, সাথে কলিজা আর লটপটি
সকাল বেলার নাস্তা আমার, মিষ্টি-ঝালে চটপটি।
পেটটি আমার খালি গেলে- হারিয়ে ফেলি কথার খেঁই
কথার ঝাঁঝে আগুন জ্বালাই- পড়লো পেটে খাবার যেই।
‘আগুন জ্বালো’, ‘আগুন জ্বালো’- জ্বালাই আগুন চারিধার
দিচ্ছে আলো প্রদীপখানা, গোড়ায় কিন্তু অন্ধকার।
মাস পেরিয়ে বছর গেলো, দিইনে টাকা কেন্টিনের
চায়লে টাকা মধু ভাইয়ে, হাতটি গোটাই আস্তিনের।
হল দখলের শক্তি খেলায় পেশীর জোরে কুপোকাত
করতে আমার নেই যে জুড়ি প্রতিপক্ষের মুন্ডুপাত।
এক ইয়ারেই পাঁচটি বছর, পড়ালেখায় আদু ভাই
কলাভবন, টিএসসিতে সদলবলে চষে বেড়াই।
‘লাইলী’ ধরা সহজতো নয়, মজনু হবার ভান করি
লম্ফ দিয়ে, দৃষ্টি কেড়ে, হেঁড়ে গলায় গান ধরি।
জামার নীচে ‘মালটি’ গোঁজা, বেরতো সেটা করতে বারণ
ফট করে তা বের যে করি- কারন নাকি অকারন।
রাজাধীরাজ ভাবখানা মোর, হবেই বা না কেন তা?
নেত্রী বড্ড স্নেহ করেন, আমি যে তার ছাত্রনেতা।

আব্দুর রহমান আবিদ
রচনাকালঃ মে, ২০১০

[121 বার পঠিত]