“সব চেয়ে ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী মুসলিম ব্যক্তিরও হয়তো বা সামান্য তম নৈতিকতা এবং মানবতা বোধ রয়েছে , যা তার কোরানে বর্ণিত আল্লাহ্-র নেই। তাদের আল্লাহ্ হচ্ছে বর্বর এবং আকাট মূর্খ ।” – একজন মুরতাদ

আমরা বিভিন্ন দেশের নিরাপত্তা বিশারদেরা ৯০ এর দশকের গোরা থেকেই নব্য ইসলামী সম্প্রসারণ বাদীদের ব্যাপক সন্ত্রাসবাদী কর্মকান্ডের পূর্বাভাস এবং তা থেকে উদ্ভূত জাতীয় নিরাপত্তা হুমকির ওপর সময়ে অসময়ে আমাদের নিজ নিজ দেশের ঊর্ধ্বতন রাজনৈতিক নীতিনির্ধারকদের জানিয়ে আসছিলাম । এ ব্যপারে প্রয়োজনীয় নীতিগত পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শও তাতে অন্তর্ভুক্ত ছিল।আমাদের দাখিলকৃত বার্ষিক প্রতিবেদন সমুহেও তা প্রতিফলিত হয়েছে। রাজনৈতিক নীতিনির্ধারকরা জাতীয় নিরাপত্তার চেয়ে তাদের নির্বাচনী বৈতরনি এবং আন্তর্জাতিক সুসম্পর্ককে বেশি প্রাধান্য দিতে গিয়ে আমাদের কথায় কর্ণপাত করেননি। এর পরিণতি আপনাদের সবার কম বেশী জানা যা আজ ২০১০ সালের এই মুহুর্ত পর্যন্ত ভয়াবহতায় ভরা।

০৯-১১ পরবর্তী সমসাময়িক বিশ্বে বাংলাদেশ সহ বিভিন্ন রাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা যখন ক্রমবর্ধমান নব্য ইসলামী সম্প্রসারণ বাদীদের সন্ত্রাসের মুখে জিম্মি , তখন আমাদের রাজনৈতিক নীতিনির্ধারকেরা এ হুমকি মোকাবেলায় ‘মিত্র’ হিসেবে আমাদের সামনে উপস্থাপন করেন ইতিহাসবিদদের কাছে সম্পুর্ণ নতুন এক জনগোষ্টী । আমাদের রাজনৈতিক নীতিনির্ধারকেরা আমাদের নির্দেশ দেন এই ‘মিত্রশক্তিকে’ সংগে নিয়ে নব্য ইসলামী সম্প্রসারণ বাদীদের সন্ত্রাসের মোকাবেলা করার ।

মুক্তমনা পাঠক গন প্রশ্ন করতে পারেন , এ কোন জনগোষ্টী যাদের বিষয়ে কিনা ইতিহাসবিদরা পর্যন্ত কিছুই জানেন না ? এটা কি করে সম্ভব ? সুপ্রিয় পাঠক , আসুন আপনাদের সাথে পরিচয় করিয়ে দেই ‘মডারেট’ মুসলিমদের ।


“ আরব ভূখণ্ডে দখলদারি থাকুক আর নাই থাকুক, কোরানে বর্ণিত আল্লাহ এমনিতেই ইহুদি এবং খ্রিষ্টানদের প্রচন্ড ঘৃণা করেন। মুল সমস্যা আসলে কোরানে বর্ণিত আল্লাহকে নিয়ে।এটা কোন সুপরিকল্পিত মগজ ধোলাই নয়। ঘরে পরিবার -পরিজনের কাছে এবং বাহিরে স্কুলে কিংবা রাস্তা ঘাটে ইসলামের এইসব ব্যাপারগুলো জানা যায়।” – একজন মুরতা

স্কচ হুইস্কি রসিক, পাশ্চাত্যের বিশ্বাসভাজন এবং ‘মডারেট’ মুসলিম সাবেক পাকিস্তানী সেনা শাসক জেনারেল পারভেজ মুশাররফ ছিলেন আফগান তালিবানদের প্রধান পৃষ্ঠপোষক। ০৯-১১ হামলার সকল ছিনতাইকারী ছিল মদ্যপায়ী নাইট ক্লাব গামী ‘মডারেট’ মুসলিম । বাংলাদেশে ২০০১ সালের নির্বাচনে চার দলীয় জোট জয়লাভের পর অল্প দিনের ব্যবধানে কয়েক হাজার অমুসলিম নারী-শিশু-বৃদ্ধাকে নির্বিচারে গনিমাতের মাল হিসেবে গন ধর্ষণ করা হয়। এর বিচার আজও হয়নি , যদিও ‘মডারেট’ মুসলিমরাই বাংলাদেশে সংখ্যাগরিষ্ঠ। ‘মডারেট’ মুসলিম আসলে সুবিধাবাদী রাজনৈতিক শুদ্ধতার সৃষ্টি। মডারেট’ মুসলিমরাও কোরানকে আল্লাহ বর্ণিত পুস্তক বলে মানে। আর তাই মৌলবাদী এবং ‘মডারেট’ মুসলিমের পার্থক্য খোজা বিরাট বোকামি। আমার বন্ধু মানুষ কর্নেল (শহীদ) গুলজারউদ্দিন আহমেদ নিজের জীবনের বিনিময়ে তা শিখেছিলেন। ( চলবে)

[92 বার পঠিত]