মুক্তিযুদ্ধের কথা

স্বপ্নের দেশ বাংলাদেশ । প্রাণ প্রিয় এ দেশে বার বার ছুটে এসে দেশ ও জাতির অগ্রগতিতে পুনরায় প্রাণ দিতে মন চায় হাজারও দেশপ্রেমি বাঙ্গালির। যারা এ দেশের মুক্তি সংগ্রামে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভাবে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছিলেন অকপটে নিজেদের জীবন বাজি রেখে। আর এ দেশের নব প্রজন্ম হারিয়ে ফেলছে এ স্বপ্নের দেশের সেই প্রসূতি ইতিহাস জানার অধিকার, আমাদেরই গড়া অন্ধকার রাজনীতির ধূম্রজালে। ১৯৪৮শে শুরু হওয়া বাঙ্গালির ভাষা আন্দলোন, ১৯৪৯ সালের ২৩শে জুন ঢাকার রোজ গার্ডেনে সৃষ্টি হওয়া নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী মুসলীম লীগ ও ১৯৫০ সালের দাস প্রথার বিলোপসাধনের রথ যাত্রার মাধম্যেই তা চরম পরিনতিতে উপনীত হয় ১৯৫২’র ২১শে ফেব্রুয়ারিতে; আজ আমারা যে ভাষায় লিখার, বলার ও শুনার স্বাধীন অধিকার পেয়েছি আর সে ভাষা প্রতিষ্ঠার দাবীতেই জলাঞ্জলী দিতে হয়েছিল একরাশ নিস্পাপ প্রানকে।

তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াবার জন্য সিরাজুল আলম খান, শেখ ফজলুল হক মণি, আব্দুর রাজ্জাক ও তোফায়েল আহমেদকে নিয়ে নিওক্লিয়াস কর্তৃক গড়া তাদেরই রাজনৈতিক উইং বি এল এফ (মুক্তিবাহিনী) যা ১৯৬৯-১৯৭০ এ মুজিব বাহীনিতে রূপান্তরিত হয়ে বাংলার মানচিত্র সম্বলিত প্রথম পতাকাটির উত্তলন ও স্বাধীন বাংলার ইশতেহার ঘোষনার দুইটি গুরু দ্বায়িত্ব কাধে দেওয়া হয় যথাক্রমে আ স ম আব্দুর রব ও সাজাহান সিরাজ এর উপর। ২রা মার্চ ১৯৭১ সালে আ স ম আব্দুর রব কর্তৃক বাংলার জাতীয় পতাকা উত্তোলিত হওয়া ও ৩রা মার্চ সাজাহান সিরাজ ঐতিহাসিক পল্টন ময়দানে স্বাধীনতার ইশতিহার পাঠের মাধ্যমে উপনিবেশে অনেকটা পথ এগিয়ে যায় জাতির মুক্তি সংগ্রামের ডাকের। যার সমন্বয়ে ১৯৭১’এর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের সেই অবিস্মরণীয় ভাষন এনে দেয় সিংহভাগ স্বাধীনতার আলোকস্পিত শিখা। যার দীর্ঘ ৯ মাসের বর্ননাতীত ত্যাগ তিতীক্ষার মাধ্যমে অবশেষে সফলতা আসে ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১। আর বাংলার ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিখা থাকুক বাংলার জাতীয় জাগরনের প্রকাশ্য মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর নাম।

শুধু তাই নয় জাতির মুক্তি সংগ্রামে সিরাজুল আলম খান কর্তৃক ১৯৬২ তে গড়া নিওক্লিয়াস জতিকে দিয়েছে ১৯৬২-’৭১ পযর্ন্ত বিশ্ব কাপাঁনো ছাত্র আন্দোলন, ৬-দফা আন্দোলন, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার আন্দোলন, ১১-দফা আন্দোলন পরিকল্পনা ও কৌশল প্রণয়্ন, স্বাধীন বাংলাদেশ গড়ার আন্দোলনে ‘জয় বাংলা’ সহ সকল স্লোগান নির্ধারন এবং বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণে “…এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম” বাক্যসমুহের সংযোজন, ’৬৯-’৭০ সনে গন-আন্দোলনের চাপে ভেঙ্গে পড়া পাকিস্তানী শাসনের বিপরীতে ছাত্র-ব্রিগেড, যুব-ব্রিগেড, শ্রমিক-ব্রিগেড, নারী-ব্রিগেড, কৃষক-ব্রিগেড, সার্জেন্ট জহুর বাহিনী যার প্রধান কাজ ছিল ভেঙ্গে পড়া পাকিস্তানী শাসনের পরিবর্তে যানবাহন চলাচল, ট্রেন-স্টীমার চালু রাখা, শিল্প-কারখানা উৎপাদন অব্যাহত রাখা এবং থানা পযার্য়ে আইন-শৃঙ্খ্লা রক্ষা করার দায়িত্ব পালন, ১৯৭০ সনের নিবাচর্নে অংশগ্রহণ এবং আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের নিবার্চিত করার দায়িত্ব পালন, নিবাচর্নে অংশগ্রহণের মাধ্যমে গণ-আন্দোলনে গড়ে ওঠা জনমতকে সাংবিধানিক এবং প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়ে গণরায়ে পরিণত করার কৌশল নির্ধারণ করা, ১৯৭০-’৭১ সনে বি.এল.ইফ এর সদস্য সংখ্যা ৭ হাজারে এসে পৌছালে এদের প্রত্যেকেই মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে উন্নত সামরিক ট্রেনিং দিয়ে ‘মুজিব বাহিনী’ নামে মুক্তিযুদ্ধের কাযর্ক্রম পরিচালনা করার দায়িত্ব প্রদান, মুক্তিযুদ্ধে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের অধীনস্হ ১১টি সেক্টরের পাশাপাশি ৪টি সেক্টরে বিভক্ত করে বি.এল.এফ-এর সশস্ত্র সংগ্রামের পরিকল্পনা ও কৌশল ছিল কেবল ভিন্ন ধরনের নয়, বরং অনেক উন্নতমানের এবং বিজ্ঞানসম্মত সহ নানা কাযর্ক্রম।
অপরদিকে বাঙ্গালি জাতীয় জাগরনের প্রকাশ্য ও অবসংবাদিত মহা নায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মাত্র ১৮ বছর বয়সে ১৯৩৮ সালে এক রাজনৈতিক জনসমাবেশে জাতীয়তাবাদি ভাষনের জন্য কারারুদ্ধ হন। শুরু হয় তার বাঙ্গালী জাতির মুক্তির সংগ্রাম। প্রথমে কলকাতা ইসলামিয়া কলেজের কেন্দ্রীয় ছাত্র ইউনিয়নের সাধারন সম্পাদক হিসাবে ১৯৪৬ সালে নিবার্চিত হন। পরবর্তীতে তিনি ১৯৪৭ সালে পূব© পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ তৈরি করেন। এই নেতা ১৯৪৭ সালের নভেম্বরে পূব© পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগের নারায়নগঞ্জে এক আলোচনা সভায় প্রথম “বাংলাদেশ” নামটি ব্যবহার করেন। তৎপরবর্তীতে তিনি কারাবন্দী থাকা অবস্থায় ১৯৪৯ সালের ২৩শে জুন আওয়ামী মুসলিমলীগের প্রতিষ্ঠাতা যুগ্ম-সম্পাদক হিসাবে নিবার্চিত হয়ে জুলাই মাসে মুক্তি পান কিন্তু এ মুক্তি ছিল ক্ষণিকের। অচিরেই আবার তিনি বন্দি হলেন অনসন ধর্মঘটের জন্য। পরবর্তীতে ১৯৫২ সালে বাংলা ভাষা আন্দোলনের বীরদের জন্য ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে অনসন ধর্মঘট করেন। জাতির উদ্ধারের সংকটময় সময়ে ১৯৫৩ সালে এই লরাকু নেতাকে আওয়ামী মুসলীমলীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব প্রদানের মধ্য দিয়ে ১৯৫৪ সালের ১২ই মে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ফজলুল হক এর নেতৃত্বে একটি নতুন মন্ত্রনালয় গঠন করা হয় আর এই মন্ত্রী পরিষদে লড়াকু এই নেতা শেখ মুজিবুর রহমানকে সবর্কনিষ্ঠ নেতা হিসাবে বরন করে নেওয়া হয়। কিন্তু এ লড়াইকে পথ পিষ্ট করার পায়তারায় ১৯৫৪ সালের ৩০শে মে ফজলুল হক এর এ মধ্যবর্তী সরকারকে বিলুপ্ত করা হয় এবং তাদের প্রধানতম শত্রু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয় তবে এবার বেশি সময় আটকে রাখতে পারেনি প্রতিবাদী এই নেতাকে ঐ বছরেই ১৮ই ডিসেম্বরে মুক্ত করে দিতে হয়। সময় আসে ঘুরে দাড়ানোর; ১৯৫৫ সালের সেপ্টেম্বর মাসে ঘটে যায় আওয়ামী মুসলিমলীগের নাম পরিবর্তন। নুতুন রুপে জন্ম নেয় আওয়ামী মুসলিমলীগ থেকে ‘‘মুসলিম’’ শব্দটি বাদ দিয়ে শুধু ‘‘আওয়ামীলীগ’’। বাংলার মুক্তি জাগরনে যাতে এই প্রতিবাদী নেতা মাথা তুলে দাড়াতে না পারে এরি লক্ষে ২রা জুন ১৯৫৬ সালে পাকিস্তানের নিবার্চকমন্ডলীর সভার সদস্য হিসাবে শেখ মুজিবুর রহমানকে নিবার্চিত করা হয়। আর তার ঠিক তিন মাস পরে সেপ্টেম্বর মাসে তাকে আতাউর রহমান কর্তৃক শিল্প, বাণিজ্য ও দূর্নীতি দমন মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রি করা হয়। রাজনীতির এই কাল মরন জাল বুঝতে পেরে তিনি ১৯৫৭ সালের মে মাসে বাংলার মুক্তি ও দলের স্বার্থে মন্ত্রিপরিষদ থেকে পদত্যাগ করেন। এই লরাকু নেতাকে কোন ক্রমেই থামাতে না পেরে ১৯৫৮ সালের অক্টোবর মাসে স্বৈর শাসক জেনারেল আইয়ুব খান ১২টি মিথ্যা অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করেন। পরবর্তীতে ক্রমাগত আন্দোলন তী©ব হতে থাকে আর তা ১৯৬৬ সালের ৫ ও ৬ই ফেব্রুয়ারী জাতীয় আলোচনা সভায় তিনিই প্রথম নিউক্লিয়াস কর্তৃক সমন্বিত করা সেই ঐতিহাসিক ৬ দফা দাবী ঘোষণা করেন আর গ্রেফতার হন। আর এই মহান নেতাকে ফাসানোর জন্য তার বিরুদ্ধে ১৯৬৮ সালের জানুয়ারী মাসে করা আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা। আন্দোলনের ঝড় উঠে বাংলার মাটিতে শুরু হয় গন অভ্যুত্থান পা পিছাতে থাকে জেনারেল আইয়ুব খানের আর তাতে ১৯৬৯ সালের ২২ শে ফেব্রুয়ারী আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা তুলে নিতে এবং শেখ মুজিবুর রহমানকে মুক্ত করে দিতে বাধ্য হন আইয়ুব খান। বাংলার জনগন এক অবিস্মরনীয় অভ্যর্থনা দেয় ১৯৬৯ সালের ২৩শে ফেব্রুয়ারী সদ্য মুক্তি প্রাপ্ত শেখ মুজিবুর রহমানকে সাথে অন্যান্য সংগঠনের নেতাদের উপস্থিতিতে ছাত্রলীগের পক্ষে তোফায়েল আহমেদ, সিরাজুল আলম খান এর সুপারিশে শেখ মুজিবুর রহমানকে ভূষিত করে সেই উপাধি ‘‘ বঙ্গবন্ধু ’’ বাংলার বন্ধু হিসাবে।
ঘটনার পরম্পরায় ১৯৬৯ সালের ৫ই ডিসেম্বর শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যু বার্ষিকিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষণা দেন স্বাধীন পূব© পাকিস্তানের নাম হবে বাংলাদেশ। পাকিস্তনের সাধারন নিবার্চনে পূব© পাকিস্তানের ১৬৯টি আসনের মধ্যে আওয়ামীলীগ ১৬৭টি আসন ১৯৭০ এর ৭ই ডিসেম্বর জয় লাভ করে। কিন্তু জেনারেল ইয়াহিয়া খান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর হাতে ক্ষমতা হস্তান্তরে বাধা দেন। শুরু হল ১৯৭১ সময় আসে প্রতিবাদের ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ সেই ঐকিহাসিক ভাষণে তাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ডাক দেন “…এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম”। ৭১’এ ২৫শে মার্চ কাল রাত্রিতে শুরু হয় পাক বাহীনির ববরর্তা; নিরিহ মানুষের হত্যা যজ্ঞের নির্মম খেলা তাই পাক বাহীনির হতে গ্রেফতার হওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ওয়্যারলেস এর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক ভাবে স্বধীনতার ঘোষণা দেন ৩২ নম্বর ধানমন্ডির বাসা থেকে। ১লা মার্চ থেকে বিভিন্ন সময় ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট থেকে বেনামী এক ভদ্রলোক বা বলতি পারি ছদ্মবেশে একটি আগাম তারবার্তা আসত জনাব আ স ম আব্দুর রবের কাছে ইকবাল হলের প্রভোষ্টের টেলিফোনে পাকিস্তানি সামরিক জান্তার প্লান-পরিকল্পনা নিয়ে। ঠিক এমনি একটি ফোন আসে ২৫ শে মার্চ বিকেল চারটায় শুধু বললেন – ‘‘ রাত ১২-০ মি: ক্রাকডাউন হবে। আপনারা য়েখানে পারেন নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যান।’’ অতপর সন্ধা ছয়টা নাগাদ আ স ম আব্দুর রব, সিরাজুল আলম খান, শেখ ফজলুল হক মনি, আব্দুর রাজ্জাক, জনাব তোফায়েল আহমেদ সহ অনেক ছাত্র-যুব নেতা শেখ মুজিবের বাসায় যান। তারা শেথ মুজিবকে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়ার একটি পরিকল্পনা পেশ করেন। শেখ সাহেব রাজী হলেন না। তিনি বললেন ‘‘ তোরা চলে যা। আমার জন্য চিন্তা করিসনা।’’ আ স ম আব্দুর রব তখন বললেন- ‘‘ আমাকে তো পূব© সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রাত ৮টায় বুড়িগংগা পার হতে হবে। আপনার খবর জানবো কিভাবে ? ’’ বঙ্গবন্ধু এ কথার কোন উত্তর না দিয়ে আ স ম আব্দুর রব এর হাতে ১২-১৪ হাজার টাকা তুলে দিয়ে বিদায় দিলেন। ২৫শে মার্চ রাত ৮টার সময় বেংগল রেজিমেন্টর ৫ জন সৈনিক নিয়ে জনাব আ স ম আব্দুর রব বুড়িগংগা পার হলেন। কলকাতা যাওয়ার পথে জনাব আ স ম আব্দুর রব মুহূর্মুহ ট্রেসার বুলেটের আওয়াজ পান তখন ১১-১ মি: চেয়ে দেখেন ঢাকা শহরের আকাশ-বাতাসে আগুনের ফুলকি ছুটছে। ‘বাচাঁও বাচাঁও’ আর্তনাদে বাংলার সমর্গ্র ঢাকা বুঝি কাপঁছিল তখন। এমনি করে শুরু হলো কুখ্যাত ২৫ শে মার্চের কাল রাত্রির নির্মম হত্যাযজ্ঞ। জনাব আ স ম আব্দুর রব তখন নিস্ফল আক্রোশে অর্ন্তদাহে প্রজ্জলিত হয়ে উঠলেন। ঢাকার দিকে মুখ ফিরিয়ে বিড়বিড় করে বললেন- ‘‘জান থাকতে ছাড়বোনা তোদের। যে কোন মূল্যে এই নিষ্ঠুরতার প্রতিশোধ নেব।’’
শুরু হয়ে গেল মুক্তি যুদ্ধ গঠন হল মুজিবনগর সরকার স্বাধীনতা পেল বাংলাদেশ ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১। পাকিস্তানের সামরিক কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে মুক্তি দেওয়া হল ১৯৭২ ৮ই জানুয়ারী আর মুক্তির পর এই জাতির পিতা দেশে ফিরলেন ১৯৭২ সালের ১০ই জানুয়ারী শুরু হল দেশ পরিচালনা করা। ১৯৭৩ সালের ৭ই মার্চ সাধারন নিবার্চনে আবার সরকার গঠন করলেন। তৎপরবর্তীতে ১৯৭৩ এর ২৩শে মে তাকে জুলিও কুড়ি শান্তি পদক প্রদান করা হয়। দেশের অর্থনৈতিক স্বাতন্ত্র্যে জন্য ১৯৭৫ সালের ২৫শে জানুয়ারী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাকশাল (বাংলাদেশ কৃষক-শ্রমিক-আওয়ামীলীগ) গঠন করেন। কিন্তু বেশি দিন আর নয় ১৯৭৫ এর ১৫ই আগষ্ট স্ব-পরিবারে এক রাজনৈতিক হত্যার স্বীকার হন এই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। জাতীয় জীবনের আকাশে নেমে আসে অন্ধকারচ্ছন্ন এক মেঘ শুরু হয় অকল্পনিয় ঝড়।

‘‘স্বাধীনতা অজর্নের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন’’— প্রবাদ বাক্যটি আজ মনে হয় ব্যাখ্যা করা সাবার কাছেই খুবই সহজ কাজ।

প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, যুদ্ধাপরাধ বিচারমঞ্চ । www.warcrimetrialstage.org www.justice-for-genocide.org

মন্তব্যসমূহ

  1. মোজাফফর হোসেন আগস্ট 22, 2010 at 2:56 পূর্বাহ্ন - Reply

    very true. thanks for sharing

  2. পৃথিবী এপ্রিল 1, 2010 at 12:54 অপরাহ্ন - Reply

    মাসে ঘটে যায় আওয়ামী মুসলিমলীগের নাম পরিবর্তন। নুতুন রুপে জন্ম নেয় আওয়ামী মুসলিমলীগ থেকে ‘‘মুসলিম’’ শব্দটি বাদ দিয়ে শুধু ‘‘আওয়ামীলীগ’’।

    বদরুদ্দিন উমর বলেন, “মুসলিম” শব্দটা পুঁজি করে ভোট আদায় করা তখন আর সম্ভব ছিল না বলেই বলে আওয়ামী লীগ এই কাজটি করেছিল। তাঁর এই মূল্যায়নকে কিভাবে দেখেন?

    • কালযাত্রী আগস্ট 22, 2010 at 6:59 পূর্বাহ্ন - Reply

      @পৃথিবী,

      আওয়ামী মুসলীম লীগ কে আওয়ামী লীগ নামকরণের কৃতিত্ব মুজিবকে দেয়াটা আরেকটা আওয়ামী মিথ। এই নামান্তরটা হয়েছিল ভাষানী্র সিদ্ধান্তে। সালটা ঠিক আছে ১৯৫৫ সালে। আর মুজিব এই নামান্তরের সিদ্ধান্তে আপত্তি করেছিলেন! কিন্তু ভাষানী তখন আওয়ামী মুসলীম লীগের প্রেসিডেন্ট, তাই মুজিবের আপত্তি টিকে নি।

      ১। ইতিহাসবিদ সালাহউদ্দিন আহমেদ তাঁর “Bangladesh: past and present” বই এর ৩১২ পৃষ্ঠায় উল্লেখ করেন “In an interview with
      Basant Chatterjee Maulana Bhashani said that Mujib was not even prepared to drop the prefix “Muslim” from the name of of Awami League”

      ২।
      http://www.encyclopedia.com/doc/1G2-3404700653.html
      http://www.researchover.com/biographies/Maulana_Abdul_Hamid_Khan_Bhash-32306.html
      (In order to make his party appealing to the minority Hindu
      community, most of whom were peasants, Bhashani dropped the word
      “Muslim” from the Awami Muslim League.)

      3. From http://www.petercusters.nl/file/3

      [Under the pressure of Maulana Bhashani, then the party’s president,
      the Awami League in the 1950s had agreed to drop the denomination
      ‘Muslim’ from the party’s name]

মন্তব্য করুন