প্রাচীন রোমান কবি পাবলিউস ওভিদিউস নাসো PABLIVS OVIDIVS NASO (খ্রীষ্টপূর্ব ৪৩ – ১৮ খ্রীষ্টাব্দ ) যিনি ওভিদ (OVID) নামেই সর্বাধিক পরিচিত , তিনি ছিলেন প্রথম রোম সম্রাট আউগুসতুসের GAIUS JULIUS CAESAR OCTAVINUS (খ্রীষ্টপূর্ব 63 – ১৪ খ্রীষ্টাব্দ) সমসাময়িক । সম্রাটের এক মাত্র কন্যা ইউলিয়ার (JULIA CAESARIS FILIA) সাথে প্রেমের অপরাধে , ওভিদকে ৮ খ্রীষ্টাব্দে তমিসে( আজকের রোমানিয়ার কন্সতাঞ্চা শহর) নির্বাসনে পাঠানো হয় সম্রাট আউগুসতুসের সম্পূর্ণ একক এবং বিচার বহির্ভূত এক নির্বাহী আদেশে। নির্বাসিত অবস্থায় সেখানেই ১৮ খ্রীষ্টাব্দে ওভিদের মৃত্যু হয় ।
মুক্তমনা পাঠকদের জন্য এবার আমি খ্রীষ্টপূর্ব ১৬ তে রচিত ওভিদের কালজয়ী শোকগাঁথা সংকলন আমোরেস (AMORES ) থেকে ১ম অধ্যায়ের ৯ম শোকগাঁথাটি অনুবাদ করলাম ।এখানেই ওভিদ লেখেন তার সেই বহুল আলোচিত উক্তি MILITAT OMNIS AMANS ( সব প্রেমিকই সৈনিক )।
বিশ্বের অন্যতম ইন্দো–ইউরোপীয় ভাষা বাংলার সাথে লাতিন এবং গ্রীকের রয়েছে মৌলিক সমগোত্রীয় ভাষাতাত্বিক সম্পর্ক ।মূল লাতিন থেকে অনুবাদের সময় তাই আমি পাঠকদের পরিচিত ইংরেজী উচ্চারণ বিধি পরিহার করে লাতিন ও গ্রীক উচ্চারণ বিধি মেনে চলেছি।

প্রেমিক এবং সৈনিক
পাবলিউস ওভিদিউস নাসো
আমোরেস ১ম অধ্যায়, ৯ম শোকগাঁথা
অনুবাদঃ বিজয়

সব প্রেমিকই সৈনিক, এবং তাদের ঘাঁটি অনুরাগের মাঝে
আত্তিকুস, বিশ্বাস করো , সব প্রেমিকই আসলে সৈনিক।
এখনই যুদ্ধে যাওয়ার বয়স যার , প্রেম করার বয়সই তো তার।
বৃদ্ধ সৈনিকের মূল্য নেই , যেমন মূল্য নেই বৃদ্ধ প্রেমিকের।
একজন সেনা কর্তা যে রকম তেজ তার সেনা দলের মাঝে দেখতে চায়,
একজন নারী ঠিক সেটাই খুঁজে বেড়ায় তার প্রেম সঙ্গীর মাঝে।
সৈনিক আর প্রেমিক দুজনেই সতর্ক প্রহরী। দুজনেই ঘুমায় মাটির ওপর,
এক জনের দায়িত্ব তার সেনা কর্তার দপ্তরের বাহিরে , আরেক জনের
তার প্রেমিকার বাড়ির প্রবেশ দ্বারের সামনে।
সুদীর্ঘ পথ পাড়ি দেয়া সৈনিকের কাজ । মেয়েটাকে কোথাও পাঠিয়ে দাও,
দেখবে তার শ্রান্তিহীন প্রেমিক ঠিকই তার পেছনে গিয়ে সেখানে হাজির হয়েছে।
সে মানবে না কোন দুর্গম পার্বত্য মালা আর ঝরে উত্তাল নদী,
জমে ফেঁপে ওঠা তুষারের ওপর দিয়ে সে ঠিকই তার রাস্তা বের করে নেবে ,
সে মানবে না কোন অজুহাত , যেমন ঝড়ো উত্তরা বাতাস,
কিংবা কোন শুভ নক্ষত্রের ইশারায় জোয়ারের অপেক্ষা।
কে পারে সইতে একজন সৈনিক কিংবা প্রেমিকের মত,
শীতল রাত্রি কিংবা ঘন তুষার মিশ্রিত বর্ষা ?
একজন কে পাঠানো হয় হানাদার সেনা দলের ওপর গোয়েন্দা গিরি করতে,
আরেক জন কড়া নজর রাখে তার প্রতিদ্বন্দ্বীর ওপর ,তার শত্রু।
এ জন অবরোধ করে সুরক্ষিত নগর , ঐ জন তার হৃদয়হীন
বন্ধুর প্রবেশপথ। একজন ভেদ করে চৌকি ,আরেক জন দুয়ার।
প্রায়ই বিজয় এসেছে ঘুমন্ত শত্রুর ওপর আক্রমণ করে ,
কৃপাণ হাতে নিরস্ত্র গৃহস্বামী মেরে।
এভাবেই মারা পড়ে রেসুস আর তার দুর্ধর্ষ থ্রাকীয় সেনা দল ।
প্রেমিকরা সুতরাং নিশ্চয়ই তাদের প্রেমিকাদের স্বামীদের ঘুমের সদ্ব্যবহার করবে
আর তাদের অস্ত্রগুলো কাজে লাগাবে যখন শত্রুরা সুখনিদ্রায় মগ্ন।
পাহারাদার আর শত্রু প্রহরীর চোখে ধুলা দেয়া
সৈনিক আর বেচারা প্রেমিকদেরই কাজ ।
যুদ্ধ দেবতা মার্স সন্দেহ জনক,প্রেম দেবী ভেনুস অনিশ্চয়তায় ভরা। পড়ে গেলে আবার উঠে বসা যায়, তোমরা যখন ঢিল খাওয়ার কথাও ভাবোনি , পিটুনিও খেতে পার।
সুতরাং , প্রেমিকদের যদি তোমরা আলসে ভেবে থাকো , ভুলে যাও সেকথা।
প্রেমের জন্য প্রয়োজন দক্ষতা আর নিপুণতা।
অপহৃত ব্রিসেইদা আগুন জ্বালিয়েছিল মহাশক্তিধর আখিলেউসের মনে।
পারলে ত্রইয়াবাসী , গুড়িয়ে দাও আর্গসী দেয়ালটা!
হেক্ত্রর যুদ্ধে যায় আন্দ্রমাখির বাহু ছেড়ে,
তার স্ত্রীই পরায় তার মাথায় শিরস্ত্রাণ।
লোকে বলে, মহাপরাক্রম আত্রেউস নাকি কাসান্দ্রা্র- মানে ওই
ত্রইয়ার মাইনাদেসের উরন্ত চুল দেখে বেহুঁশ হয়েছিলেন।
যুদ্ধ দেবতা মার্স প্রায় আটকে গিয়েছিলেন অগ্নিদেব ভুল্কানুসের বানানো শেকলে।
এর চেয়ে বড় কেলেঙ্কারির কথা স্বর্গে শোনা যায় না।
আমি নিজে ছিলাম অলস আর অকাজের ধারী ।
বিছানা আর ঘুম আমার চিত্তকে করে রেখেছিল দুর্বল।
কিন্তু এক নারীর প্রেম আমার সব আলস্য একবারে বিদায় করে দেয়।
তার আদেশেই এবং তারই জন্য আমার প্রথম অগ্রাভিযান ।
এই যে এখন আমায় দেখেছো, সেই থেকে আমি সক্রিয় ভাবেই নিশাচর যুদ্ধে নিয়োজিত ।
অলস সেজে যদি থাকতে না চাও, এখনি প্রেমে পড় !

[53 বার পঠিত]