জীবনানন্দের ‘সাতটি তারার তিমির’ কাব্যগ্রন্থের একটি অন্যতম কবিতা ‘নিরঙ্কুশ’

জাফর উল্লাহ্‌

জীবনানন্দ দাশ (জীঃ দাঃ) বেঁচে থাকাকালীন তাঁর ছয়টি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশ করেন। প্রথমটি ছিল ‘ঝরা পালক’ যেটি প্রকাশ হয়েছিল ১৯২৭ সনে। আর সর্বশেষটি, ‘শ্রেষ্ট কবিতা’, বের হয়েছিল ১৯৫৪ সনে। তাঁর পঞ্চম কাব্যগ্রন্থ ‘সাতটি তারার তিমির’ প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৪৮ সনে। এই গ্রন্থের কবিতাগুলো – সর্বমোট ৪৯টি – লিখা হয়েছিল দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ চলাকালীন অর্থাৎ ১৯৩৯ থেকে ১৯৪৫ সন এই সময়ের মধ্যে।

যদিও ভারতবর্ষকে এই মহাযুদ্ধ সরাসরিভাবে জড়ায়নি, তবুও যুদ্ধের প্রভাব কমবেশী পড়েছিল সর্বত্রই। এই মহাযুদ্ধের শেষের দিকে জাপানীরা যখন বার্মা আক্রমণ করে তখন বৃটিশরা তাদের প্রতিরোধ করতে গিয়ে ভারত থেকে অজস্র সৈন্য নিয়ে তাদের উপর পালটা আক্রমণ করে। এই বার্মা ফ্রন্টে যুদ্ধ চলাকালীন কোলকাতা, শিলং, ঢাকা, আরো নিকটবর্তী আন্যান্য শহর থেকে সাপ্লাই যেতে থাকে মণিপুর, নাগাল্যাণ্ড, ও বার্মা সীমান্তে। এই কারণে দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের প্রভাব পূর্ব ভারতে যতটুকু পড়েছিল ততটুকু ভারতের অন্যান্য অঞ্চলে পড়েনি। এই মহাযুদ্ধ নিশ্চয় জীঃ দাঃ কে প্রভাবিত করেছিল।

‘সাতটি তারার তিমির’ কাব্যগ্রন্থের আনেক ক’টি কবিতায় ফার-ইস্টের বিভিন্ন বন্দরের কথা উল্লেখ আছে। তাঁর ‘সৃষ্টির তীরে’ কবিতায় হিটলারের নামও উল্লেখ আছে। এই মহাযুদ্ধের রণদামামা বেজে উঠায় পৃথিবীটার সর্বত্রই ছেয়ে গিয়েছিল অন্ধকারে। তাই এই কাব্যগ্রন্থের কোথাও বাংলার নৈসর্গিক দৃশ্যের বর্ণনা নেই। এসবের পরিবর্তে দেখলাম আছে ‘জুহু’ কবিতায় এরোড্রামের কলরবের কথা। এই কাব্যের অধিকাংশ কবিতার বিষয়বস্তু জড়িয়ে আছে বিষন্নতায়।

এই ডিপ্রেসিং কবিতাগ্রন্থের নাম ‘সাতটি তারার তিমির’ কেন রাখা হয়েছিল সেটি নিয়ে একদিন অপরাহ্নে চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে চিন্তা করছিলাম আমি। হঠাৎ মনে হলো সাতটি তারা কী আমাদের পৃথিবীর ৭টি মহাদেশ? সারা ধরায় এই মহাযুদ্ধের কারণে ঘন অন্ধকার নেমে এসেছিল। তাই কবির কাছে বোধহয় মনে হয়েছিল সারা পৃথিবীটা তিমির আচ্ছন্ন।

জীঃ দাঃ এর ‘নিরঙ্কুশ’ কবিতাটি এই কাব্যগ্রন্ত্রের অন্তর্ভুক্ত। বছর কয়েক আগে আমি এই কবিতারটির ইংরেজী অনুবাদ করেছিলাম। এই লেখায় আমি জীঃ দাঃ এর এই কবিতাটি তুলে ধরছি আর সেই সাথে আমার আনুবাদটির পুনর-প্রকাশ করছি।
—————–

নিরঙ্কুশ

জীবনানন্দ দাশ

মালয় সমুদ্র পারে সে এক বন্দর আছে শ্বেতাঙ্গিনীদের।
যদিও সমুদ্র আমি পৃথিবীতে দেখে গেছি ঢের :
নীলাভ জলের রোদে কুয়ালালুম্পুর, জাভা, সুমাত্রা ও ইন্দোচীন, বালি
অনেক ঘুরেছি আমি – তারপর এখানে বাদামি মলয়ালী
সমুদ্রের নীল মরুভূমি দেখে কাঁদে সারাদিন ।

শাদা-শাদা ছোটো ঘর নারকেলখেতের ভিতরে
দিনের বেলায় আরো গাঢ় শাদা জোনাকির মতো ঝরঝরে ।
শ্বেতাঙ্গদম্পতি সব সেইখানে সামুদ্রিক কাঁকড়ার মতো
সময় পোহায়ে যায়; মলয়ালী ভয় পায় ভ্রান্তিবশত,
সমুদ্রের নীল মরুভূমি দেখে কাঁদে সারাদিন ।

বাণিজ্যবায়ুর গল্পে একদিন শতাব্দীর শেষে
অভ্যুত্থান শুরু হ’লো এইখানে নীল সমুদ্রের কটিদেশে;
বাণিজ্যবায়ুর হর্ষে কোনো একদিন,
চারিদিকে পামগাছ – ঘোলামদ – বেশ্যালয় – সেকোঁ – কেরোসিন
সমুদ্রের নীল মরুভূমি দেখে রোখে সারাদিন ।
সারাদিন দূর থেকে ধোঁয়া রৌদ্রে রিরংসায় সে উনপঞ্চাশ
বাতাস তবুও বয় – উদীচীর বিকীর্ণ বাতাস;
নারকেলকুঞ্জবনে শাদা-শাদা ঘরগুলো ঠান্ডা ক’রে রাখে;
লাল কাঁকরের পথ – রক্তিম গির্জার মুন্ডু দ্যাখা যায় সবুজের ফাঁকে ;
সমুদ্রের নীল মরুভূমি দেখে নীলিমায় লীন ।
———

Inevitable

Jibanananda Das
(Translated by A.H. Jaffor Ullah)

There happens to be a port for light-skinned gals on the shore of Malay Sea.
Seen many a sea all across the globe; been through Kuala Lumpur, Java,
Sumatra, Indochina, and Bali where the blue mist-laden sun’s ray had touched me.
Now it pains me to see a tan Malayan woman crying all day long.
She watches a blue hued desolate place on the shore of the sea.

There happens to be white colored cottages scattered inside a palm grove.
Those look whiter in the daylight just as fireflies would shine in the dark.
Light skinned couples mill around there just as crabs would hug a seashore,
They spend times, the Malaya woman frets and flusters by mistake,
She cries watching this blue hued desolate place on the shore of the sea.

At the turn of the century, many ocean voyagers were heading this way,
towards this constricted harbor; thanks a million to the trade wind.
Because of good fortune bestowed by trade wind, one day the wasteland
became filled with palm trees, opaque liquors, brothel, culverts, kerosene. Now she
zealously guards this blue hued desolate place on the shore of the sea all daylong.

She watched cloud-filled sunrays from a distance all day long with lustful eyes;
she turned forty-nine. The wind from a dispersed zephyr still blows;
They keep those white cottages cool all daylong now.
Red dirt filled road perks up the red spire of a church which is visible amidst greenery.
The blue hued desolate place now ceases to exist.
———————-
The original Bangla poem appeared in “The darkness of seven stars”
Dr. A.H. Jaffor Ullah, a researcher and columnist, writes from New Orleans, USA.

[105 বার পঠিত]