প্রথম যখন সারা পৃথিবীতে উষ্ণতা বৃদ্ধির তথ্য আসতে থাকল, তখন থেকেই অনেক বিজ্ঞানী সন্দেহ করছিলেন যে এই প্রভাব অনেকভাবেই ক্ষতি করবে আমাদের পরিবেশকে। একের পরে এক পরিবেশবিদ একেক ধরণের মডেলিং ব্যবহার করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে এর কুপ্রভাব দেখাতে থাকলেন – কেউ বললেন সমুদ্রের লেভেল ওপরে উঠতে থাকবে, কেউবা বললেন বৃষ্টিপাতের পরিমাণ বৃদ্ধি পাওয়ায় ঘনঘন বন্যা হতে শুরু হবে। কিন্তু যত দিন গেছে, জলবায়ু পরিবর্তনের খারাপ দিকগুলো ততটাই সামনে এসেছে। আমার এই লেখার বিষয় হিমবাহ ও নদীর জলের ওপর জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব।

পৃথিবীর চার ভাগ জল ও এক ভাগ স্থল হলেও কার্যত মাত্র ৩% জলসম্পদ মানুষের কৃষি ও পানীয় হিসাবে কাজে লাগতে পারে। এই স্বাদু জলের দুই তৃতীয়াংশই জমে আছে মেরুতে ও হিমবাহগুলোর মধ্যে। হিমবাহগুলো থেকে সৃষ্ট নদীই হল মানবসভ্যতার আদি প্রাণকেন্দ্র। নদীর ও লেকের জল মিলিয়ে হল ভূপৃষ্ঠের জলপ্রবাহ – এর আট ভাগের সাত ভাগই আছে বড় বড় কয়েকটি লেকে – যেমন লেক বৈকাল আর আমেরিকার পঞ্চহ্রদ। সুতরাং, পৃথিবীর সবথেকে জনবহুল অঞ্চল ভারতীয় উপমহাদেশ ও চিনের জন্য বরাদ্দ জলের পরিমাণ খুবই কম। এই দুই অঞ্চলে জলের প্রাপ্যতা আবার অঞ্চলভেদে ও ঋতুভেদে পরিবর্তিত হয়। গরমকালে যেখানে জলের জন্য হাহাকার থাকে, সেখানে বর্ষায় বন্যা ভাসিয়ে নিয়ে যায়। এই অঞ্চলে গরমকালের জলের একমাত্র উৎস হিমালয় ও তিব্বত মালভূমির হিমবাহগুলোই।

একটা প্রশ্ন এখানে আসা স্বাভাবিক – উষ্ণতা বৃদ্ধির কি প্রভাব পড়তে পারে এই হিমবাহগুলোতে? এরা কি গলে ছোট হয়ে যাবে? এটা বোঝার আগে জেনে নেওয়া যাক হিমবাহের সাম্য কিভাবে নির্ধারিত হয়। শীতে তুষার পড়লে হিমবাহ আকারে বাড়ে, গরমে গলে গিয়ে আবার ছোটো হয়। গড় উষ্ণতা বৃদ্ধি পেলে গরমকালের সময়কাল শীতের তুলনায় বাড়তে থাকে, তুষারও কম পড়ে, তাই হিমবাহ সারা বছরে যতটা বাড়ে তার থেকে বেশী হারে কমে – মোটের ওপর হিমবাহের দৈর্ঘ্য কমতে থাকে। হিমবাহ থেকে প্রাপ্ত নদীর জল যেহেতু হিমবাহে জমে থাকা বরফের ওপর নির্ভরশীল, তাই সেই জলও কমতে থাকে। হিমালয় থেকে আসা নদীগুলো সম্মিলিত প্রবাহের মাত্র ৫% হিমবাহের বরফগলা জল হলেও গরমকালে গঙ্গার জলের ৭০% আসে গঙ্গোত্রী হিমবাহ থেকে। সুতরাং, এর প্রভাবে গরমে গাঙ্গেয় অববাহিকায় গরমকালে জলের পরিমাণ কমবে। এই নিয়ে প্রথম আলোচনা শুরু হয় নিউ সায়েন্টিস্টের ১৯৯৭ সালের প্রতিবেদনের পর থেকেই। এই প্রতিবেদনে বিশেষজ্ঞ সৈয়দ হাস্নেইন ভবিষ্যতবাণী করেন আগামী চল্লিশ বছরের মধ্যে হিমালয়ের অধিকাংশ হিমবাহ এতটাই ছোট হয়ে যাবে যে হিমালয় থেকে নেমে আসা নদীগুলো গরমকালে কার্যত জলশূন্য হয়ে যাবে।

এবার হিমালয়ের হিমবাহগুলোর দিকে একটু নজর দেওয়া যাক। নেপালের বিভিন্ন অংশে গড় তাপমাত্রা বাড়ছে। মোটের ওপর গড়ে মাত্র ০.৬ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড হলেও হিমালয়ের উচুঁ অংশগুলোতে এই হার বছরে ১ ডিগ্রি বা কখনও তারও বেশী। বরং দক্ষিণ নেপালের তরাই অঞ্চলে তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার কম। (ছবিতে দেখুন) পরের ছবিতে দেখতে পাবেন কাঠমাণ্ডুর তাপমাত্রা ওই একই অক্ষাংশে অবস্থিত অঞ্চলের গড় তাপমাত্রার তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ হারে বেড়ে চলেছে, আর আশির দশকে এসে সেই বৃদ্ধির হার রীতিমত ঘোড়া ছুটিয়েছে। তবে সৌভাগ্যের কথা, এই তাপমাত্রা বৃদ্ধি আপাতত বৃষ্টিপাতের ওপর কোনো প্রভাব রাখে নি, তবে অদূর ভবিষ্যতে মৌসুমী বৃষ্টির হারও বৃদ্ধি পাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

 

 

শরং হিমলে নেপালের একটি বড়সড় হিমবাহ অবস্থিত। অপেক্ষাকৃত কম দুর্গম অঞ্চলে অবস্থিত হওয়ায় এর আশেপাশের তাপমাত্রা, বৃষ্টিপাত থেকে হিমবাহের আকার – সবই কিছুদিন ধরে পরিমাপ করা সম্ভব হয়েছে। প্রথম ১৯৭৮ থেকে ১৯৮৯ সালের সময়কালে হিমবাহের দৈর্ঘ্য হ্রাসের হার ততটা ছিল না, কিন্তু ১৯৮৯ থেকে ১৯৯৬ সালের মধ্যে সেই হিমবাহ প্রায় দ্বিগুণ হারে ছোটো হয়ে চলেছে। (ছবি দেখুন)

 

 

 

 

সবথেকে ইন্টারেস্টিং হল রিকা-সাম্বা হিমবাহ। এই হিমবাহ কালি-গন্দকী নদী অববাহিকায় অবস্থিত ও এই নদীর জলের মূল উৎস। ১৯৭৪ সালে প্রথম হিমবাহটির জরিপ করা হয়, তার পর থেকে এর দৈর্ঘ্য ক্রমাগত কমেই চলেছে। ১৯৯৪, ১৯৯৮ ও ১৯৯৯ সালে পরবর্তী জরিপগুলোতে দেখা যায় এর দৈর্ঘ্যহ্রাসের হার ক্রমাগত বাড়ছে। মজার কথা, প্রায় একই হারে কালি-গন্দকী নদীর জলও কমে চলেছে। (ছবিতে দেখুন) তবে হিমালয়ের নদীগুলোর মোট জলপ্রবাহের ৭৫% আসে মৌসুমী বৃষ্টি থেকে – জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে। তাই বড় নদীগুলোর মোট প্রবাহে বিশেষ কোনো তারতম্য চোখে পড়ে না।

 

 

ভারতের অবস্থাও তথৈবচ। এমনিতে গঙ্গোত্রী সহ হিমালয়ের হিমবাহগুলোর দৈর্ঘ্য ১৮৫০ সালের আগে থেকেই কমছিল। ১৯৩৫ থেকে ১৯৭৬ সালের মধ্যে এর দৈর্ঘ্য গড়ে প্রতিবছরে১৫ মিটার করে কমে গেছে। এখন এই কমার হারও ক্রমবর্ধমান – ১৯৮৫ থেকে ২০০১ এর মধ্যে গড়ে ২৩ মিটার হারে গঙ্গোত্রীর দৈর্ঘ্য কমছে। নাসা থেকে প্রকাশিত একটি ছবিতে এই হ্রাস সুন্দরভাবে ধরা পড়েছে। (ছবি দেখুন) তবে গঙ্গোত্রী প্রায় ৩২ কিমি দীর্ঘ, তাই এখনও এই হারে দৈর্ঘ্য কমলেও অনেকবছর এটি বিলীন হবে না – তবে শুখা মরসুমে গঙ্গায় জলের পরিমাণ ক্রমাগত কমতেই থাকবে। গঙ্গার আরো একটি উপনদীর উৎস দোক্রিয়ানি নামে আরো একটি হিমবাহ ১৯৬২ থেকে ১৯৯৫ সালের মধ্যে ২০% আয়তন হারিয়েছে। এর মধ্যে ১৯৯১ সালের পরে আয়তন হ্রাসের হার ১০% বৃদ্ধি পেয়েছে। অথচ এই গঙ্গা অববাহিকায় পৃথিবীর ১২ ভাগের এক ভাগ জনসংখ্যা বসবাস করে।

 

তিব্বত মালভূমিতেও হিমবাহগুলোর দশা একই। চিনের ইয়োলো রিভার আর ইয়াং সিকিয়াং-এর জলও একই ভাবে কমে যাচ্ছে। তবে আশার কথা, ব্রহ্মপুত্র অববাহিকার নদীগুলোর উৎসমুখের হিমবাহগুলো এখনও দৈর্ঘ্যে ততটা ক্ষতিগ্রস্ত হয় নি। আর ব্রহ্মপুত্রের জল হিমবাহের ওপর ততটা নির্ভরশীল নয়। তাই ব্রহ্মপুত্রের জলপ্রবাহ কমে যাওয়ার আপাতত সম্ভাবনা কম। তবে আই-পি-সি-সির অপর একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে অবস্থিত প্রায় ২০টি হিমবাহের দৈর্ঘ্য খুবই দ্রুতহারে কমছে।

 

শুধু এই পর্যবেক্ষণেই সমস্যার শেষ নয়। সম্প্রতি জার্নাল অব ক্লাইমেটে প্রকাশিত আরো একটি পেপারে ১৯৪৮ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত বিশ্বের ৯২৫টি বড়বড় নদীকে নিয়ে সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের মডেলিং করে গবেষকেরা দেখিয়েছেন মানুষের নিজস্ব কাজকারবারে জলের প্রাপ্যতা তো কমছেই, কিন্তু তার চেয়েও বেশী করে জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে নদীতে জলপ্রবাহ কমে যাচ্ছে। পেপারের মূল লেখক দাই বলেন –

“মধ্য থেকে নিরক্ষীয় অঞ্চলের ঘনবসতিপূর্ণ বিভিন্ন অঞ্চলে নদীর জলপ্রবাহ কমতে থাকবে – মূলত জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য।”

পেপারে প্রকাশিত সবথেকে বেশী যে যে নদীগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সেগুলো হল – আমাজন, কঙ্গো, ইয়াংসি, মেকং, গঙ্গা, ইরাবতী, আমুর, ম্যাকেঞ্জি, শিজিয়াং, কলম্বিয়া ও নাইজার।

 

অনুমান করা হয় পৃথিবীতে ১৯৯৫ সালে ৩৯০৬ ঘনকিমি জল মানুষের প্রয়োজনে ব্যবহার হয়েছে। কিন্তু এখনও অনেক দেশেই সব মানুষের জন্য সমানভাবে জলের বন্দোবস্ত করা যায় নি। দ্রুত নগরায়ণের ফলে অনেকেই শহরে পানীয় ও সাধারণ ব্যবহারের জল পর্যাপ্ত পরিমাণে পান না। তাদের সমানভাবে জল সরবরাহ করা হলে ২০২৫ সাল নাগাদ এই জলের চাহিদা অন্তত ৫০% বৃদ্ধি পাবে। সেক্ষেত্রে এই নতুন জল কোথা থেকে আসবে? ভারত ও চিনের কৃষিকাজ সম্পূর্ণরূপে নদীর জলের ওপর নির্ভরশীল – খুব কম অংশেই এখনো শুধুমাত্র বৃষ্টির জলের ওপর নির্ভর করে চাষাবাদ হয়। নেপালের মাত্র ২৫% জনগণ বিদ্যুতের সুবিধা পান। পানীয় জলের প্রাপ্যতাও খুব খারাপ। তাদের সবার জন্য পানীয় জলের সুবিধা যেমন কমবে তেমনই বিদ্যুতের ব্যবস্থা করার জন্য সবথেকে সহজ রাস্তা জলবিদ্যুত উৎপাদনের সম্ভাবনাও কমে যাবে। জলবায়ু পরিবর্তন দেশের সীমানা মানে না। হিমালয়ের হিমবাহ গলে যেতে থাকলে ভারত-চিন-নেপাল সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই একমাত্র আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পর্যায়ে সমঝোতার মাধ্যমেই এর করালগ্রাস থেকে দরিদ্র জনগণকে বাঁচানো যেতে পারে।

সূত্র –
১) উইকিপিডিয়া
২) হিমালয়ের হিমবাহগুলো নিয়ে ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ডলাইফ ফান্ডের উদ্যোগে পেপার
৩) নদীর জল নিয়ে সমীক্ষা

৪) আই – পি -সি – সি

৫) বিশ্ব হিমবাহ পর্যবেক্ষণ সংস্থার রিপোর্ট

[69 বার পঠিত]